বুধবার, ১৭ই আগস্ট, ২০২২ খ্রিস্টাব্দ ২রা ভাদ্র, ১৪২৯ বঙ্গাব্দ

প্যাকেটের বিনিময়ে খ্যাতি

images60বিনোদন প্রতিবেদক :কথায় আছে, টাকা হলে নাকি বাঘের চোখও পাওয়া যায়। অ-নায়কোচিত চেহারার জন-অ-প্রিয় অভিনেতা অনন্ত জলিলের উপস্থাপনায়  ঈদুল আযহা উপলক্ষে দেশ টিভিতে ‘ফেস টু ফেস’ অনুষ্ঠানটিতে দর্শকবৃন্দ হতাশ হয়েছেন। অনন্তর  উচ্চারণ, কথা বলার বাচনভঙ্গিত-  পুরোটিই ছিল উপস্থাপনায় অনভিজ্ঞতার ছাপ। অর্থাৎ এই উপস্থাপনাকে স্রেফ ভাঁড়ামো ছাড়া আর কিছুই নয়। সকলের প্রশ্ন,  তিনি কিভাবে এই অনুষ্ঠানটি উপস্থাপনার সুযোগ পেলেন? সকলের ভাবছেন, চলচ্চিত্রে বিনিয়োগের মতো নিজের প্রতিভা (!) বিকশিত করার জন্য তিনি সর্বত্রই বিনিয়োগ করে থাকেন। খুব বেশি দিন আগের কথা নয়, বিজয়নগরের হোটেল একাত্তরে তিনি তার একটি ছবি মুক্তির সময় সংবাদ সম্মেলন করেন। বিদায় মুহূর্তে গণমাধ্যমের প্রত্যেকের হাতে প্যাকেট তুলে দেন। সেই প্যাকেট কেউ কেউ গ্রহণ করেছেন। আবার কেউ কেউ প্রত্যাখানও করেছেন। গণমাধ্যমের লোকদের প্যাকেট প্রদানের তার অন্য কৌশলও আছে। তিনি দু’চারজনকে বেছে নেন। যাদেরকে দিয়ে তার অযোগ্যতাকে প্রশংসার মাধ্যমে যোগ্যতায় রুপান্তর করতে পারেন। তাদের নানা কৌশলে প্যাকেট প্রদান করা হয়। তাই অনেকের সন্দেহ এখানেও হয়তো প্যাকেটের খেলাই চলেছে। নতুবা অনুষ্ঠানটি উপস্থাপনার জন্য অনন্তকে কেন বেছে নেওয়া হলো, যিনি নিজের নামটিও বিকৃত উচ্চারণে উল্লেখ করেছেন।  উপস্থাপক হিসেবে অনন্ত অতিথিদের সঙ্গে প্রশ্ন উত্তরে অনেকটাই এলোমেলো ও অগোছালো কথা বলেছেন। তার উপস্থাপনা দেখে দেশের পেশাদার  উপস্থাপকদের মুখ থুবড়ে দেয়া হয়েছে। তবে তিনি দেশের ভিভিআইপিদের টিভির পর্দায় সাক্ষাৎকার নিতে সক্ষম হয়েছেন।
গত ৬অক্টোবর হতে ১২অক্টোবর পর্যন্ত প্রতিদিন রাত ৯টায় বেসরকারি টিভি চ্যানেল দেশ টিভিতে নায়ক অনন্তর উপস্থাপনায় প্রাণ আপ নিবেদিত ‘ফেস টু ফেস’ অনুষ্ঠানটি অনুষ্ঠিত হয়।  ওই অনুষ্ঠানে স্টুডিওতে উপস্থিত আমন্ত্রিত বক্তারা হলেন, তথ্যমন্ত্রী হাসানুল হক ইনু। সংস্কৃতিমন্ত্রী আসাদুজ্জামান নূর। খাদ্যমন্ত্রী অ্যাডভোকেট কামরুল ইসলাম। চ্যানেল আই’র ব্যবস্থাপনা পরিচালক ফরিদুর রেজা সাগর ও বিশিষ্ট লেখক আনিসুল হক। গীতিকার ও চলচ্চিত্র পরিচালক গাজী মাজহারুল আনোয়ার এবং অনন্তর স্ত্রী বর্ষা। এছাড়াও ছিলেন চলচ্চিত্র নায়ক ইমন, নিরব ও উঠতি নায়িকা পরিমণি।
অনন্তর সিনেমা যারা দেখেন তাদের মতে, এক কথায় বলা চলে অনন্ত টিভি উপস্থাপকদের মান-সম্মান ধূলোয় মিশিয়েছেন। একজন টেলিভিশন উপস্থাপক হতে হলে যোগ্যতা, কথা বলার উচ্চারণ এবং বাচনভঙ্গিতো লাগবেই। এই লক্ষণগুলোর কোনটিই অনন্ত জলিলের উপস্থাপনায় লক্ষ্য করা যায়নি।  তিনি একটি বিষয়ে পারদর্শিতার প্রমাণ দেখিয়েছেন। তাহচ্ছে, দেশের ভিভিআইপিদের টিভির পর্দায় সাক্ষাৎকার নিয়েছেন। উপস্থাপক হিসেবে অনন্ত অবশ্য রাজকীয় পোশাক পরিধানে কোনো প্রকার ভূল করেননি। অনুষ্ঠান চলাকালীন সময়ে অনন্ত বলেন, আমি যখন ব্যবসার কাজে দেশের বাইরে যাই, তখন আমার ব্যবসায়িক পার্টনাররা আমাকে জিজ্ঞাসা করে তুমি কোন দেশের? যখন আমি বলি বাংলাদেশের তখন তারা আমার দেশের জন্য গর্ববোধ করেন। অনন্ত জলিল বাংলাদেশের চলচিত্রের পরিচালক, প্রযোজক এবং নায়ক সবই। উপস্থাপক হিসেবে একজন মন্ত্রীর সাথে যে ভাবে কথা বলা উচিত, তিনি সেটা সেভাবে বলতে পারেননি। হয়তো অনন্ত ভারতের অভিনয় গুরু অমিতাভ বাচ্চনের উপস্থাপনা দেখেছেন। কিন্ত তা আয়ত্বে নিতে পারেননি। সংস্কৃতিমন্ত্রী আসাদুজ্জামান নূরের সাক্ষাৎকার নেয়ার সময় কিছু কিছু ওয়ার্ড (শব্দ) ইংরেজিতে উচ্চারণ করেন। কিন্তু সেখানে তিনি ইংরেজি বাক্যগুলো শুদ্ধভাবে উচ্চারণ করতে পারেননি। অনুষ্ঠানে তিনি নিজের নাম পর্যন্ত সঠিক ভাবে উচ্চারণ করতে পারেননি। নিজের নাম অনন্ত’র জায়গায় আনান্তা বলে ফেলেছেন।
এছাড়া ‘ফেস টু ফেস’ অনুষ্ঠানে তিনি নবাগত নায়িকা পরীমণির স্বপ্নপূরণ করার ঘোষণা দিয়েছেন। এ অনুষ্ঠানের একটি পর্বে অতিথি হয়ে এসেছিলেন ইমন, নিরব ও পরীমণি। অনন্ত জলিল পরীকে প্রশ্ন করেন, এখন পর্যন্ত কোন ধরণের চরিত্রে অভিনয় করার স্বপ্ন আছে। পরীমণি উত্তরে জানিয়েছিলেন তিনি রবীন্দ্রনাথ ঠাকুরের গল্পের চরিত্রে অভিনয় করতে চান। আর তখনই ঐ অনুষ্ঠানে অনন্ত ঘোষণা দেন যে, তার নতুন ছবিতে পরীর স্বপ্নপূরণ হবে। এ বিষয়ে পরী বলেন, ‘আমি আসলে সত্যিই অবাক হয়েছিলাম। তিনি যেহেতু কথা দিয়েছেন অবশ্যই তিনি কথা রাখবেন। এখনো চূড়ান্ত কোন কথা হয়নি। তবে এটা সত্য যে রবীন্দ্রনাথ ঠাকুরের সৃষ্টি চরিত্রে অভিনয় করাটা আমার একটা স্বপ্ন।’ এদিকে ১৫ অক্টোবর পরী তার ফেসবুকে রবীন্দ্রনাথের ছবির সঙ্গে তার একটি ছবি যুক্ত করে প্রকাশ করেন। তাহলে কি শিগগিরই পরীমণিকে রবীন্দ্রনাথের সৃষ্টি কোন চরিত্রে দেখা যাচ্ছে? আর অ্যাকশন হিরো অনন্ত জলিল যদি সত্যিই রবীন্দ্রনাথ ঠাকুরের গল্প নিয়ে ছবি নির্মাণ করে তাহলে সেটিও হবে অসম্ভবকে সম্ভব করার একটি কাজ। পরী বর্তমানে ব্যস্ত আছেন ‘লাভার নাম্বার ওয়ান’ ছবিটির শ্যুটিং নিয়ে। এছাড়া ২০ অক্টােবর থেকে তিনি শুরু করতে যাচ্ছেন ‘মহুয়া সুন্দরী’ ছবির শ্যুটিং।