সোমবার, ১৫ই আগস্ট, ২০২২ খ্রিস্টাব্দ ৩১শে শ্রাবণ, ১৪২৯ বঙ্গাব্দ

রাঙিয়ে দিয়ে গেলেন টেন্ডুলকার

0ce1c8f83c11cdbad448491eb1715d04-khelaক্রীড়া প্রতিবেদক : সবার দৃষ্টি আকাশের দিকে। কখন আসবে সেই উড়ালযান? কখন সেখান থেকে নেমে আসবেন স্বপ্নমানব, কখন?

মাইকে ঘোষক বারবার বলে দিচ্ছিলেন, ‘ছোট্ট বন্ধুরা, তোমরা কিন্তু বেলুনগুলো শচীন টেন্ডুলকার আসার পর আমি যখন বলব, তখন ছাড়বে।’ তবু অপেক্ষার ক্লান্তি ভর করা কচি হাতগুলো থেকে একটু পরপরই ছুটে যাচ্ছিল নীল-সাদা বেলুন।

 
35b3e0304008511bd57d2fb442223ad4-khela--upরূপগঞ্জের তারাব বাসস্ট্যান্ডের কাছেই বাঁশে ঘেরা মঞ্চটাতে টেন্ডুলকারের পৌঁছে যাওয়ার কথা ছিল সকাল সাড়ে নয়টার মধ্যে। পাশে ‘ওয়েলকাম শচীন টেন্ডুলকার’ লেখা অস্থায়ী হেলিপ্যাড, যেখানে নামবে তাঁকে উড়িয়ে আনা হেলিকপ্টারটি। এর আগে সকাল নয়টার দিকে ভারতরত্নকে নিয়ে আসা ভাড়া করা বিশেষ বিমানের অবতরণ করার কথা ঢাকায়।

তারাব এসে টেন্ডুলকার রূপগঞ্জবাসীর উদ্দেশে কিছু বলবেন, ইউনিসেফের শুভেচ্ছা দূত হিসেবে স্কুলের বাচ্চাদের শেখাবেন কীভাবে হাত ধুতে হবে—এ রকমই পরিকল্পনা। এরপর ঢাকায় ফিরে বিকেলে সোনারগাঁও হোটেলে উপস্থিত হবেন এক দিনের ঝটিকা সফরে বাংলাদেশে আসার আসল উপলক্ষে। উপলক্ষটা হলো, ঢাকা প্রিমিয়ার ক্রিকেট লিগের দল লিজেন্ডস অব রূপগঞ্জের জার্সি ও লোগো উন্মোচন।

নতুন মালিক লুৎফর রহমানের হাতে যাওয়ার পরও বিসিবির নিয়ম অনুযায়ী প্রথম মৌসুমে গাজী ট্যাংক ক্রিকেটার্সের নামটা অপরিবর্তিতই ছিল। এবার দ্বিতীয় মৌসুমে লুৎফরের চাওয়ামতো সেই ক্লাবের নাম হয়েছে লিজেন্ডস অব রূপগঞ্জ। নতুন করে যাত্রা শুরুর আনুষ্ঠানিকতাটা তিনি করাতে চাইলেন ক্রিকেট ছেড়ে অবসরে চলে যাওয়া জীবন্ত কিংবদন্তি শচীন টেন্ডুলকারকে দিয়ে। বন্ধুর আহ্বানে সাড়া দিয়ে টেন্ডুলকারও উড়ে এলেন ঢাকায়। কিন্তু নির্ধারিত সময়ের চেয়ে দুই ঘণ্টার বেশি দেরিতে।

রূপগঞ্জের নোয়াপাড়া সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়ের ছাত্রছাত্রীরা অপেক্ষায় ছিল সকাল সাড়ে নয়টা থেকেই। ছিল স্থানীয় মা কিন্ডারগার্টেনের শিশুরাও। অবশ্য কার জন্য এই অপেক্ষা, সে ব্যাপারে তাদের অনেকেই নিশ্চিত ছিল না। যে দু-একজনের কাছে জানতে চাওয়া হলো, ‘এখানে কেন এসেছ, কাকে দেখতে?’ উত্তর মিলল, ‘সাকিব আল হাসানকে।’ কেউ কেউ সরাসরি বলে দিল, ‘জানি না।’

কার জন্য অপেক্ষা, সেই অনিশ্চয়তার মতো কতক্ষণ ধরে করতে হবে অপেক্ষা, অনিশ্চিত হয়ে পড়ছিল সেটাও। সাড়ে নয়টার পর সাড়ে ১০টা, সাড়ে ১১টাও পেরিয়ে যায়, আকাশে কোনো হেলিকপ্টারের দেখা মেলে না। সকাল থেকে প্রখর রোদে দাঁড়িয়ে থাকা শিশুদের তৃষ্ণা মিটছিল না আয়োজকদের দেওয়া জুসেও। একজনের অবস্থা তো এতই কাহিল হয়ে পড়ল যে বিদ্যালয়ের শিক্ষক-শিক্ষিকারা তাকে মাঠ থেকে শামিয়ানার নিচে নিয়ে এসে শুশ্রূষা করতে লাগলেন।

লিজেন্ডস অব রূপগঞ্জের লোগো উন্মোচনের পর শচীন টেন্ডুলকারের সঙ্গে লুৎফর রহমানএর মধ্যেই হঠাৎ আকাশে যান্ত্রিক শব্দ। ঝা চকচকে কালো এক হেলিকপ্টার ধুলো ঝড় বইয়ে দিয়ে হেলিপ্যাডে নামল। মঞ্চ থেকে ঘোষিকা চিৎকার করে বলতে লাগলেন, ‘এইমাত্র আমাদের মাঝে এসে উপস্থিত হলেন…।’ না, হেলিকপ্টার এলেও তাতে আসলে টেন্ডুলকার ছিলেন না, ছিলেন অন্য অতিথিরা। তবে টেন্ডুলকারের জন্য অপেক্ষা এরপর আর দীর্ঘ হয়নি। মিনিট তিনেক পর বেলা ১১টা ৫৫ মিনিটে আরেকটা কালো হেলিকপ্টারে চড়ে লুৎফর রহমানের সঙ্গে তারাব নেমে এলেন শচীন রমেশ টেন্ডুলকার।

আধা ঘণ্টার মতো ছিলেন মঞ্চে। বাংলায় ‘কেমন আছ’ বলে নিজেই উত্তর দিলেন ‘ভালো আছি।’ নোয়াপাড়া সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়ের দুই ছাত্রছাত্রীকে ডেকে শেখালেন পরিষ্কারভাবে হাত ধোয়ার নিয়ম। অটোগ্রাফ দিলেন বল আর ব্যাটে।

সকালের চেয়ে কিছুটা ভিন্ন চিত্র বিকেলের অনুষ্ঠানে। প্রখর রোদে নয়, এই বেলার অনুষ্ঠানটা সোনারগাঁও হোটেলের শীতাতপনিয়ন্ত্রিত বলরুমে। স্কুলের ছাত্রছাত্রীদের জায়গায় এখানে দর্শক সারিতে ছিলেন অধিনায়ক সাকিবসহ লিজেন্ডস অব রূপগঞ্জের খেলোয়াড়েরা, আমন্ত্রিত হিসেবে ছিলেন জাতীয় দলের সাবেক ক্রিকেটার, আইসিসির সভাপতি, ক্রীড়া প্রতিমন্ত্রী, বিসিবি কর্মকর্তাসহ ক্রীড়াঙ্গনের অনেক মুখ।

লেজার শোর মনোমুগ্ধকর প্রদর্শনীর পর হলো লোগো ও জার্সি উন্মোচন আর গ্রুপ ছবি তোলার পর্ব। সংক্ষিপ্ত কিন্তু স্পষ্ট বক্তব্যে টেন্ডুলকার তুলে ধরলেন বাংলাদেশের সঙ্গে তাঁর জীবনের আবেগের অংশটুকু, ‘বাংলাদেশে প্রতিটা সফরই আমার কাছে বিশেষ কিছু। প্রতিটাই স্মরণীয় হয়ে আছে। ১৯৯৮ সালে মিনি বিশ্বকাপে খেলতে আসার কথা মনে আছে। এরপর এসেছি বাংলাদেশের জন্য গৌরবময় এক মুহূর্তে, বাংলাদেশের টেস্ট অভিষেকে।’ প্রশংসা করলেন বাংলাদেশের দর্শকদের, নস্টালজিক হয়ে ফিরে গেলেন ঢাকায় সুনীল গাভাস্কারের রেকর্ড ছোঁয়ার স্মৃতিতেও, ‘৩৪তম টেস্ট সেঞ্চুরি করে সুনীল গাভাস্কারের রেকর্ড ছোঁয়ার কথা মনে আছে আমার। গাভাস্কার স্বয়ং মাঠের বাইরে দাঁড়িয়ে ছিলেন আমাকে অভিনন্দন জানানোর জন্য।’

বাংলাদেশে টেন্ডুলকারের রঙিন স্মৃতি আছে আরও। ক্যারিয়ারের শততম সেঞ্চুরিটাও যে এখানেই করা! বলছিলেন, ‘শততম সেঞ্চুরিটাও এখানে। সেবারও দর্শকেরা আমার নাম ধরে চিৎকার করেছে। পরে প্রধানমন্ত্রীর সঙ্গে দেখা করা, তাঁর অভিনন্দন পাওয়াও ছিল মনে রাখার মতো ব্যাপার।’ শেষে লিজেন্ডস অব রূপগঞ্জের কর্ণধার লুৎফর রহমানকে অভিনন্দন জানিয়ে বলেছেন, ‘আমি তাঁর এবং তাঁর ক্লাবের সাফল্য কামনা করি। সাকিব ও তামিম আছে এই ক্লাবে। আশা করি এখান থেকে আরও অনেক সাকিব-তামিমের জন্ম হবে।’

ঢাকার ক্লাব ক্রিকেট রং হারিয়েছে অনেক আগেই। লিজেন্ডস অব রূপগঞ্জের অতিথি হয়ে আসা শচীন টেন্ডুলকার যেন সেই বর্ণহীন ক্লাব ক্রিকেটে লাগিয়ে দিলেন এক পোচ নতুন রং।
অধিনায়ক সাকিব আল হাসানের হাতে লিজেন্ডস অব রূপগঞ্জকে শুভেচ্ছা জানানো টি–শার্ট তুলে দিচ্ছেন টেন্ডুলকার l ছবি: শামসুল হক

এ জাতীয় আরও খবর

চকবাজারে পলিথিন কারখানার আগুন নিয়ন্ত্রণে

দক্ষিণ আফ্রিকার বর্ষসেরা ক্রিকেটার মহারাজ

ধানমন্ডিতে বঙ্গবন্ধুর প্রতিকৃতিতে সর্বস্তরের মানুষের শ্রদ্ধা

শোক দিবসে সংঘর্ষ, ছাত্রলীগ কর্মীদের পেটাল পুলিশ

দল যখন ডাকবে তখনই সাড়া দেবো : সোহেল তাজ

কোনো সভ্য রাষ্ট্র খুনিদের প্রশ্রয় দেবে না: আইনমন্ত্রী

ভাসমানসহ সব শিশু টিকা পাবে: স্বাস্থ্যমন্ত্রী

২০৪১ সালে মাথাপিছু আয় হবে সাড়ে ১২ হাজার ডলার: প্রতিমন্ত্রী

মানুষ যেন স্বল্পসময়ে ন্যায়বিচার পায় : প্রধান বিচারপতি

আশপাশের সব ভবনই ঝুঁকিপূর্ণ : ফায়ার সার্ভিস

বাংলাদেশ সংকটে নেই, বিশ্ব সংকটে আছে : নৌ-প্রতিমন্ত্রী

বঙ্গবন্ধুর স্বপ্নপূরণে সংগ্রাম করে যাচ্ছেন শেখ হাসিনা: কাদের