শুক্রবার, ১৯শে আগস্ট, ২০২২ খ্রিস্টাব্দ ৪ঠা ভাদ্র, ১৪২৯ বঙ্গাব্দ

লতিফের বক্তব্য ‘গর্হিত কাজ’: শেখ হাসিনা

a86a3d5441e5c5aaf2f8affba77c90a6-29নিজস্ব প্রতিবেদক: হজ, মহানবী (সা.) ও তাবলিগ জামাতকে কটাক্ষ করে নিউইয়র্কে দেওয়া আবদুল লতিফ সিদ্দিকীর বক্তব্যকে ‘গর্হিত কাজ’ বলে মন্তব্য করেছেন প্রধানমন্ত্রী ও আওয়ামী লীগের সভানেত্রী শেখ হাসিনা। তিনি গতকাল রোববার সন্ধ্যায় গণভবনে আওয়ামী লীগের কার্যনির্বাহী সংসদের বৈঠকের শুরুতে দেওয়া বক্তৃতায় এ মন্তব্য করেন। 

শেখ হাসিনা বলেন, ‘আমাদেরই একজন লোক নিউইয়র্কে তাবলিগ জামাত, হজরত মুহাম্মদ (সা.) ও হজ সম্পর্কে বিরূপ মন্তব্য করেছেন। এটা গ্রহণযোগ্য নয়। আমরা ধর্মনিরপেক্ষতায় বিশ্বাস করি, তার মানে ধর্মহীনতা নয়। সরকার যখন সফলভাবে হজ ব্যবস্থাপনা করছে, সেই সময়ে দলের কেউ কটূক্তি করবে, এটা গ্রহণযোগ্য নয়।’ তিনি বলেন, ‘সংবিধান মোতাবেক একজন মন্ত্রীর যেভাবে নিয়োগ অবসান হয়, সেভাবেই তা করা হয়েছে। আমি মনে করি লতিফ সিদ্দিকী যা বলেছেন, সেটা গর্হিত কাজ। আমাদের মধ্যে একজন কেন এমন করেছেন, সেটা জানি না।’
শেখ হাসিনার উদ্বোধনী বক্তব্যের পর তাঁর সভাপতিত্বে অনুষ্ঠিত রুদ্ধদ্বার বৈঠকে লতিফ সিদ্দিকীকে আওয়ামী লীগের সভাপতিমণ্ডলীর সদস্য পদ থেকে বহিষ্কারের সিদ্ধান্ত হয়। একই সঙ্গে তাঁর প্রাথমিক সদস্যপদ সাময়িকভাবে স্থগিত করা হয়েছে। কেন স্থায়ীভাবে সদস্যপদ বাতিল করা হবে না, এ ব্যাপারে সাত দিনের সময়সীমা বেঁধে দিয়ে আজ সোমবার লতিফ সিদ্দিকীকে কারণ দর্শানোর নোটিশ পাঠানো হবে।
বৈঠক শেষে রাত সাড়ে নয়টার দিকে আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক সৈয়দ আশরাফুল ইসলাম এ সিদ্ধান্তের কথা সাংবাদিকদের জানান। তিনি বলেন, ধর্মীয় অনুভূতিতে আঘাত এবং দলের গঠনতন্ত্র, ঘোষণাপত্র ও নীতি-আদর্শের পরিপন্থী কাজ করায় আবদুল লতিফ সিদ্দিকীর ব্যাপারে সর্বসম্মতভাবে এই সিদ্ধান্ত গৃহীত হয়েছে। 
ধর্মীয় অনুভূতিতে আঘাতের অভিযোগে লতিফের বিরুদ্ধে মামলা করা হবে কি না, সাংবাদিকেরা এ প্রশ্ন করলে সৈয়দ আশরাফ কোনো জবাব দেননি।
লতিফ সিদ্দিকীকে বিভিন্ন সংগঠন মুরতাদ ঘোষণা করেছে, এ বিষয়ে আশরাফের বক্তব্য জানতে চান সাংবাদিকেরা। জবাবে তিনি বলেন, ‘আমাদের ক্ষমতার মধ্যে বৈধভাবে যে সিদ্ধান্ত নেওয়ার তা নিয়েছি।’
আরেক প্রশ্নের জবাবে সৈয়দ আশরাফ বলেন, দলের সদস্যপদ থেকে স্থায়ীভাবে বাদ গেলে লতিফ সিদ্দিকীর সংসদীয় আসন শূন্য হয়ে যাবে। তখন উপনির্বাচন হবে।
সংশ্লিষ্ট একাধিক সূত্র জানায়, রুদ্ধদ্বার বৈঠক শুরুর পর প্রথমে আওয়ামী লীগের সভাপতিমণ্ডলীর সদস্য এবং গৃহায়ণ ও গণপূর্তমন্ত্রী মোশাররফ হোসেন লতিফ সিদ্দিকীকে দল থেকে অপসারণের কথা বলেন। আরও কয়েকজন নেতা একই রকম বক্তব্য দেওয়ার পর দলের সাধারণ সম্পাদক সৈয়দ আশরাফুল ইসলাম বক্তৃতা করেন। তিনি বলেন, লতিফ সিদ্দিকীর বিষয়ে বিচ্ছিন্নভাবে না আলোচনা করে এর একটা চূড়ান্ত সিদ্ধান্তে আসা উচিত। তাঁকে সভাপতিমণ্ডলীর পদ থেকে অপসারণ এবং দলীয় সদস্যপদ থেকে বহিষ্কারের বিষয়ে সিদ্ধান্তে আসা দরকার। 
এই পর্যায়ে শেখ হাসিনা জানতে চান, আর কেউ এই বিষয়ে বক্তব্য দেবেন কি না। তারপর আরও প্রায় ১৫ জন লতিফ সিদ্দিকীকে দল থেকে বহিষ্কারের দাবি তুলে বক্তৃতা করেন। এঁদের মধ্যে আবুল হাসানাত আবদুল্লাহ বলেন, ১৯৯৮ সালে লতিফ সিদ্দিকী নিজে হজ করেছেন। এর পরও তিনি কেন এমন বক্তব্য দিয়েছেন, সেটার তদন্ত হওয়া দরকার। কার্যনির্বাহী সংসদের আরেক সদস্য আবদুর রহমান বলেন, লতিফ সিদ্দিকী ১৯৭৫ সালের ১৫ আগস্টের পর খোন্দকার মোশতাককে সমর্থন করে বক্তৃতা করেছিলেন। 
সভার শুরুতে গণমাধ্যমকর্মীদের উপস্থিতিতে দেওয়া বক্তব্যে প্রধানমন্ত্রী বলেন, হজ ব্যবস্থাপনায় তাঁর সরকার খুব ভালো করছে। তিনি বলেন, ‘আমি দেখলাম সবশেষে আওয়ামী লীগের লোকজন হজ করে বেশি, ধর্মীয় নীতি যেমন গরিবদের জন্য কাজ করা, সেটাও আওয়ামী লীগের লোকজন করে বেশি।’
শেখ হাসিনা বলেন, ৫ জানুয়ারির আগে ভাবনা এমন ছিল যে দেশে নির্বাচন হতেই দেওয়া হবে না। আর হলেও গৃহযুদ্ধ হবে। কিছুই হয়নি, পরিস্থিতি কীভাবে সামলাতে হয় জানা আছে। তিনি বলেন, ‘উন্নয়নের ধারাবাহিকতা রাখতে চাই। চলার পথে ভুলত্রুটি হতে পারে। আমরা ভুল শুধরাতে পারি এটা প্রমাণ করেছি।’ 
সম্প্রতি দেশে ঘটে যাওয়া বিভিন্ন খুন সম্পর্কে প্রধানমন্ত্রী বলেন, ‘কিছু সামাজিক সমস্যা আছে। যেমন আত্মীয়স্বজন খুন-খারাবি। আমি নির্দেশ দিয়েছি, যখনই ঘটনা ঘটবে, দ্রুত ধরতে হবে, ব্যবস্থা নিতে হবে। প্রয়োজনে সর্বোচ্চ শাস্তি দিতে হবে। তা না হলে এসব বন্ধ হবে না।’
স্পিকার শিরীন শারমিন চৌধুরী কমনওয়েলথ পার্লামেন্টারি অ্যাসোসিয়েশনের চেয়ারম্যান নির্বাচিত হওয়ায় তাঁকে ধন্যবাদ জানান প্রধানমন্ত্রী। তিনি বলেন, শিরীন শারমিন দেশে এলে ২২ অক্টোবর তাঁকে সংসদে সংবর্ধনা দেওয়া হবে।