বুধবার, ১৭ই আগস্ট, ২০২২ খ্রিস্টাব্দ ২রা ভাদ্র, ১৪২৯ বঙ্গাব্দ

শান্তিতে নোবেল জয় কৈলাশ সত্যার্থীর ও মালালার

malala..ডেস্ক রির্পোট : ইতিহাস রচনা করে ভারতের কৈলাশ সত্যার্থীর সঙ্গে যৌথভাবে শান্তিতে নোবেল জয় করলেন পাকিস্তানের মালালা ইউসুফজাই। মেয়ে শিশুদের শিক্ষার অধিকার প্রতিষ্ঠায় আন্দোলনের অগ্রদূত মালালা মাত্র ১৭ বছর বয়সে ইতিহাসের সর্বকনিষ্ঠ নোবেলজয়ীর সম্মান অর্জন করলেন। আর শিশু অধিকার প্রতিষ্ঠায় দীর্ঘদিন সংগ্রাম করেছেন কৈলাশ সত্যার্থী (৬০)। তাদের অবদান ও অর্জনকে স্বীকৃতি দিয়ে গতকাল নরওয়ের নোবেল কমিটি এ দু’জনকে শান্তিতে নোবেল পুরষ্কারে ভূষিত করেন। একজন পাকিস্তানি, অপরজন ভারতীয়। একজন মুসলিম আর আরেকজন হিন্দু। মালালা ইউসুফজাই একজন কিশোরী পক্ষান্তরে কৈলাশ সত্যার্থী প্রবীণ ব্যক্তিত্ব। তবে তাদের কাজের পরিধি একই বৃত্তে আবদ্ধ। শিশুদের শিক্ষা আর অন্যান্য অধিকার আদায়ে তাদের সংগ্রাম। আর তাই নোবেল পুরস্কারের মঞ্চে গতকাল বিশ্ব দেখলো এ কিশোরী আর বর্ষীয়ানের যুগলবন্দী। নোবেল কমিটির বক্তব্যেও উঠে এসেছে এ প্রসঙ্গ। একই সঙ্গে একজন মুসলিম ও হিন্দুর নোবেল পাওয়ার বিষয়টি গুরুত্বের সঙ্গে উল্লেখ করেছেন নোবেল কমিটি। তারা বলেছেন, একজন হিন্দু ও মুসলিম, একজন ভারতীয় ও পাকিস্তানির জন্য এটা গুরুত্ববহ। তারা শিক্ষার জন্য এবং উগ্রবাদের বিরুদ্ধে অভিন্ন যুদ্ধে এক হয়েছেন।
শিশু ও অল্পবয়সীদের ওপর অন্যায়, অত্যাচারের বিরুদ্ধে এ দু’জনের সংগ্রামকে ভূয়সী প্রশংসা করেছে নোবেল কমিটি। নারী শিক্ষা অধিকার নিয়ে প্রচারণা চালানোর কারণে ২০১২ সালের অক্টোবরে পাকিস্তানের সোয়াত উপত্যকায় তালেবান বন্দুকধারীরা মালালার মাথায় গুলি চালায়। পরে মুমূর্ষু মালালাকে চিকিৎসার জন্য নিয়ে যাওয়া হয় বৃটেনে। ধীরে ধীরে সুস্থ হয়ে ওঠেন। সেরে ওঠার পর সেখানেই পড়াশোনা শুরু করেন। এর পাশাপাশি নতুন উদ্যোমে নারী শিশুদের শিক্ষার অধিকার আদায়ে সোচ্চার হয়ে ওঠেন। বিশ্বব্যাপী স্বীকৃতি পান। নোবেল কমিটি কৈলাশ সত্যার্থীর অবদানের কথা বলতে গিয়ে বলেন, তিনি এখনও মহাত্মা গান্ধীর আদর্শ লালন করে রেখেছেন। আর্থিকভাবে লাভবান হওয়ার জন্য শিশুদের অন্যায়ভাবে ব্যবহার করার বিরুদ্ধে তিনি নানা ধরনের শান্তিপূর্ণ প্রতিবাদ পালন করেছেন। নোবেল পুরস্কারে ভূষিত হওয়ার সংবাদ জানার পর কৈলাশ সত্যার্থী বিবিসিকে বলেন, এটা সকল ভারতীয়র জন্য অনন্য সম্মান। এটা ওই সকল শিশুর জন্য সম্মান যারা এতসব প্রযুক্তিগত, অর্থনৈতিক অগ্রগতি সত্ত্বেও এখনও দাসত্বের মধ্যে বসবাস করছে। তিনি বিশ্বের সকল শিশুদের জন্য তার নোবেল পুরস্কার উৎসর্গ করেন। নরওয়ের নোবেল কমিটির চেয়ারম্যান থর্বজর্ন জ্যাগল্যান্ড মালালার অর্জনের প্রতি সম্মান প্রদর্শন করে বলেন, একজন কিশোরী হওয়া সত্ত্বেও মালালা ইউসুফজাই ইতিমধ্যে অনেক বছর ধরে নারী শিশুদের শিক্ষার অধিকার আদায়ে সংগ্রাম করে চলেছে। তিনি আরও বলেন, কমবয়সী মানুষেরাও যে নিজেদের অবস্থানের উন্নয়নে অবদান রাখতে পারে সে উদাহরণ স্থাপন করেছে মালালা। এবং সে এটা করেছে সব থেকে ঝুঁকিপূর্ণ পরিস্থিতির মধ্য দিয়ে। তার সাহসিকতাপূর্ণ সংগ্রামের মধ্য দিয়ে মালালা নারী শিশুদের শিক্ষার অধিকার প্রশ্নে শীর্ষ মুখপাত্র হিসেবে আত্মপ্রকাশ করেছেন। পাকিস্তানের প্রধানমন্ত্রী নওয়াজ শরিফ মালালা ইউসুফজাইকে দেশের গর্ব আখ্যা দিয়ে তাকে অভিনন্দন জানিয়েছেন। এক বিবৃতিতে তিনি বলেন, তার অর্জন অসামান্য আর অতুলনীয়। বিশ্বের বালক, বালিকাদের তার সংগ্রাম আর একনিষ্ঠতা থেকে দীক্ষা নেয়া উচিত বলে তিনি উল্লেখ করেন। এ বছর শান্তিতে নোবেলের জন্য রেকর্ডসংখ্যক ২৭৮ জন মনোয়ননপ্রাপ্তরা ছিলেন। এর মধ্যে পোপ ফ্রান্সিস এবং কঙ্গোর প্রসূতি ও ধাত্রী বিদ্যা বিশেষজ্ঞ ডেনিস মুকওয়েগের নাম উল্লেখযোগ্য। পুরো তালিকা গোপন রাখা হয়েছে। মার্কিন গোয়েন্দা নজরদারির তথ্য ফাঁস করে দিয়ে তোলপাড় সৃষ্টি করা এনএসএর সাবেক কর্মকর্তা এডওয়ার্ড স্নোডেনের নামও ছিল তালিকার। এছাড়াও ছিল রাশিয়ার সংবাদপত্র নোভায়া গ্যাজেটা।
নারীশিক্ষা অধিকার প্রতিষ্ঠায় অকুতোভয় সৈনিক মালালা ইউসুফজাই: ২০১২ সালের ৯ই অক্টোবর। স্কুল থেকে ফিরছিলেন মালালা ইউসুফজাই। স্কুলবাসে এক লোক প্রবেশ করে জানতে চায়, মালালা কে। এরপর যখনই তার বন্ধুরা তার দিকে ফিরে চায়, তখনই সে ব্যক্তি বুঝতে পারে মালালা কে। এরপর তাকে লক্ষ্য করে গুলিবর্ষণ করে ওই তালেবান বন্দুকধারী। মালালার মাথার বাঁ পাশে আঘাত করে সে গুলি। সে হামলায় আরও দু’জন মেয়ে আহত হন। মালালার অবস্থা অত্যন্ত সংকটাপন্ন হয়ে পড়ে। মুমূর্ষু অবস্থায় তাকে দ্রুত পেশোয়ারে সামরিক হাসপাতালে নিয়ে যাওয়া হয়। তার মাথার খুলির একটি অংশ সরিয়ে ফেলতে হয়। এরপর আরও আধুনিক চিকিৎসা পেতে তাকে ইংল্যান্ডের বার্মিংহ্যামে নিয়ে যাওয়া হয়। যুক্তরাজ্যে চিকিৎসার জন্য নিয়ে যাওয়ার পর কোমায় চলে যান মালালা। তার অপরাধ ছিল মেয়ে শিশুদের শিক্ষার অধিকার নিয়ে সোচ্চার ছিলেন তিনি। ফলে তাকে মেরে ফেলার হুমকি দিয়েছিল তালেবান। সেদিনের ওই হামলা ছিল তার প্রাণ হরণের প্রচেষ্টা। কিন্তু মৃত্যুর মুখ থেকে ফিরে আসেন মালালা। অবশেষে মস্তিষ্কে বড় ধরনের ক্ষতি ছাড়াই তিনি সেরে উঠেন। অব্যাহত রাখেন নারী শিক্ষার অধিকার নিয়ে নিজের সংগ্রাম। নারী শিক্ষার গুরুত্ব নিয়ে কথা বলা থেকে পিছপা হননি তিনি। তালেবানদের গুলি তার কণ্ঠরোধ করতে পারেনি। তিনি চালিয়ে গেছেন তার সংগ্রাম। সমাদৃত হয়েছেন বিশ্বব্যাপী। ১৯৯৭ সালের ১২ই জুলাই পাকিস্তানের সোয়াত উপত্যকার মিঙ্গোরাতে জন্মগ্রহণ করেন মালালা। সে সময় মিঙ্গোরা ছিল গ্রীষ্মকালীন উৎসবের জন্য একটি জনপ্রিয় ট্যুরিস্ট সপট। কিন্তু তালেবান সে এলাকার দখল নিতে শুরু করার পর থেকেই পরিবর্তিত হতে থাকে সেখানকার পরিস্থিতি। তার বাবা জিয়াউদ্দিন ইউসুফজাইর প্রতিষ্ঠিত বিদ্যালয়ে পড়াশুনা শুরু করেন মালালা। সোয়াতে নারীদের জন্য প্রতিষ্ঠিত বিদ্যালয়গুলোতে তালেবান জঙ্গিরা হামলা শুরু করে। ২০০৯ সালের জানুয়ারি থেকে আর কোন মেয়ে শিক্ষা গ্রহণ করতে পারবে না বলে ঘোষণাও দেয় তারা। এর প্রেক্ষিতে ২০০৮ সালের সেপ্টেম্বরে তালেবানের এমন কর্মকাণ্ডের বিরুদ্ধে পাকিস্তানের পেশোয়ারে একটি বক্তৃতা দেয় মালালা। সে বক্তৃতার মূল বক্তব্য ছিল, কোন সাহসে তালেবান আমার শিক্ষা গ্রহণের মৌলিক অধিকার কেড়ে নিতে চায়? মালালার প্রচারণা বিশ্ববাসীর নজরে আসে ২০০৯ সালের প্রথম দিকে। তখন মালালা বিবিসি’তে ‘শিক্ষার বিরুদ্ধে তালেবানের হুমকির মধ্য দিয়ে জীবনযাপন’ নিয়ে ব্লগিং শুরু করেন। নিজের পরিচয় গোপন রাখতে তখন তিনি গুল মাকাই নাম ব্যবহার করতেন। একই বছর ডিসেম্বরে বিবিসি ব্লগার হিসেবে নিজের আসল পরিচয় প্রকাশ করে সে। এরপর থেকে নারী অধিকার ও শিক্ষার অধিকার নিয়ে ক্রমেই প্রকাশ্যে  সোচ্চার হতে থাকে মালালা। এর ফলে ২০১১ সালে সে ইন্টারন্যাশনাল চিলড্রেন’স পিস প্রাইজ-এর জন্য মনোনীত হন। একই বছর সে পাকিস্তানের ন্যাশনাল ইয়ুথ পিস প্রাইজ লাভ করেন। তখন সে বলেছিল, সে কোন রাজনৈতিক দলের সদস্য নন। তবে শিক্ষার অধিকার নিয়ে কাজ করবে এমন একটি রাজনৈতিক দল প্রতিষ্ঠা করার ইচ্ছা আছে তার। বিবিসি’র হয়ে ব্লগিং শেষ করা পর মালালা ও তার বাবাকে নিয়ে একটি ডকুমেন্টারি ফিল্ম তৈরি করেন নিউ ইয়র্ক টাইমসের প্রতিনিধি অ্যাডাম বি. এলিক। নিজের বয়স যখন মাত্র ১৪ বছর, তখনই মালালা ও তার পরিবারের ওপর তালেবানের মৃত্যু পরোয়ানা জারি হয়। তালেবানবিরোধী কর্মী হিসেবে পরিচিত তার বাবার নিরাপত্তা নিয়ে মালালা চিন্তিত থাকলেও, তার পরিবার ও সে ভেবেছিল, একটি শিশুর ওপর তালেবান হামলা করবে না। কিন্তু তাদের ধারণা ভুল প্রমাণিত করে, ২০১২ সালের ৯ই অক্টোবর ঘটে তার ওপর প্রাণঘাতী হামলা। যুক্তরাজ্যে চিকিৎসার পর সেখানেই অবস্থান মালালার। ২০১৩ সালে বার্মিংহ্যামের একটি বিদ্যালয়ে পড়াশুনা শুরু করে সে। মালালার ওপর হামলার পর তার সমর্থন বহুগুণে বৃদ্ধি পায়। নিজের ১৬তম জন্মদিনে, অর্থাৎ ২০১৩ সালে সে জাতিসংঘে ভাষণ দেয় এবং যুক্তরাজ্যের রানী দ্বিতীয় এলিজাবেথের সঙ্গে সাক্ষাৎ করে। জাতিসংঘ সে দিনকে ‘মালালা দিবস’ হিসেবে ঘোষণা করে। সে বছরের সেপ্টেম্বরে সে বিশ্বখ্যাত হার্ভার্ড বিশ্ববিদ্যালয়ে ভাষণ দেয় এবং পরের মাসেই মার্কিন প্রেসিডেন্ট বারাক ওবামার সঙ্গে সাক্ষাৎ করে। একই বছর মালালা নিজের একটি আত্মজীবনীও রচনা করে। সেটির নাম ছিল – আই অ্যাম মালালা: দ্যা গার্ল হু স্টুড আপ ফর এডুকেশন অ্যান্ড ওয়াজ শট বাই দ্য তালেবান। ২০১৩ সালের অক্টোবরে এ আত্মজীবনী প্রকাশিত হয়। আজও তার ওপর রয়েছে তালেবানের হুমকি। সে হুমকি সত্ত্বেও শিক্ষার অধিকার নিয়ে এখনও সোচ্চার মালালা। ২০১২ সালে মালালা ফরেন পলিসি ম্যাগাজিন কর্তৃক বিশ্বের শীর্ষ ১০০ জন বৈশ্বিক চিন্তাবিদের তালিকায় স্থান পায়। একই বছরের ডিসেম্বরে বিশ্বখ্যাত টাইম ম্যাগাজিনের বছরের সেরা ব্যক্তিত্বের সংক্ষিপ্ত তালিকায় স্থান করে নেয় সে। ২০১৩ সালের এপ্রিলে মালালা টাইম ম্যাগাজিনের বিশ্বের শীর্ষ ১০০ প্রভাবশালী ব্যক্তির তালিকায় স্থান পায়। একই বছরের আগস্টে অর্জন করে আন্তর্জাতিক শিশু শান্তি পুরস্কার। এছাড়া তার অন্যান্য উল্ল্যেখযোগ্য অর্জনের মধ্যে রয়েছে, ক্লিনটন গ্লোবাল সিটিজেন পুরস্কার, ২০১৩ প্রাইড অব বৃটেন, গ্ল্যামার ম্যাগাজিনের উইমেন অব দ্যা ইয়ার পুরস্কার, ইন্টারন্যাশনাল প্রাইজ ফর ইকুয়ালিটি অ্যান্ড নন-ডিস্ক্রিমিনেশন, ওয়ার্ল্ড চিল্ড্রেন প্রাইজের জন্য মনোনয়ন, হার্ভার্ড ফাউন্ডেশন কর্তৃক পিটার গোমেজ হিউম্যানিটেরিয়ান অ্যাওয়ার্ড সহ বহু পুরস্কার। ২০১৩ সালের অক্টোবরে তার কাজের স্বীকৃতিস্বরূপ ইউরোপিয়ান পার্লামেন্ট তাকে মুক্তচিন্তার জন্য শাখারভ পুরস্কারে ভূষিত করে। একই বছর সে নোবেল শান্তি পুরস্কারের জন্য মনোনীত হয়। তাকে নোবেল পুরস্কার দেবার জন্য একটি স্বাক্ষরাভিযান শুরু হয় ও সেখানে প্রথম স্বাক্ষর করেন কানাডার প্রেসিডেন্ট স্টিফেন হার্পার। সেবার নোবেল পুরস্কার জিততে না পারলেও, ২০১৪ সালের মার্চে আবারও মনোনীত হন। অবশেষে সর্বকনিষ্ঠ নোবেলজয়ী হিসেবে অনন্য স্বীকৃতি এখন শুধুই মালালা ইউসুফজাইয়ের।
শিশু অধিকারের অক্লান্ত যোদ্ধা কৈলাশ সত্যার্থী: তখন তার ৬ বছর বয়স। স্কুলের বাইরে নজরে পড়ে সমবয়সী একটি বালকের দিকে। ছেলেটি তার পিতার সঙ্গে স্কুলের বাইরে বসে মানুষের জুতা পরিষ্কার করছে। ওই দৃশ্য দারুণভাবে নাড়া দেয় শিশু কৈলাশ সত্যার্থীকে। মনে গভীর দাগ কাটে। যে বয়সে শিক্ষা গ্রহণ করা উচিত সে বয়সে কাজ করছে এমন আরও শিশু তার নজরে পড়ে। তখন থেকেই ভেতরে অদম্য তাগিদ অনুভব করেন শিশু অধিকার আদায়ে কিছু একটা করার জন্য। বড় হয়ে এ সমস্যা সমাধানের স্বপ্ন দেখেন। সেই শুরু। পরে বছরের পর বছর ধরে সে কাজটাই করেছেন সফলতার সঙ্গে। গতকাল নোবেল শান্তি পুরস্কার ঘোষণা হওয়ার আগে অনেকে হয়তো কৈলাশ সত্যার্থীর নামও শোনেননি। অথচ এ মানুষটি তিন দশকেরও বেশি সময় ধরে শিশু অধিকারের জন্য নিরলস সংগ্রাম করে যাচ্ছেন। তার প্রতিষ্ঠান বাচপান বাঁচাও আন্দোলন (বিবিএ) বছরের পর বছর ধরে ভারতে শিশু শ্রম বিলুপ্তির জন্য অগ্রণী ভূমিকা পালন করে আসছে। কৈলাশ সত্যার্থী একজন ইলেক্ট্রনিক ইঞ্জিনিয়ার হিসেবে প্রশিক্ষিত। ভারতের নানা শিল্প কারখানায় যেখানে বন্ডেড লেবারের অধীনে পিতামাতার সঙ্গে শিশুরা কাজ করতো সেসব স্থানে অভিযান চালানোর মধ্য দিয়ে শুরু হয় শিশু অধিকার নিয়ে কৈলাশের যুদ্ধ। ১৯৮০ সালে প্রতিষ্ঠা করেন বাচপান বাঁচাও আন্দোলন। শিশু শ্রমের বিরুদ্ধে অক্লান্ত লড়াই করেছেন। জাতীয় ও আন্তর্জাতিক পর্যায়ে ভোক্তাদের শিশু শ্রমে তৈরি পণ্য বর্জনের প্রচারণা চালিয়েছেন। কাজ করেছেন সচেতনতা তৈরিতে। আইনি আর পরাপর্শমূলক সেবাও দিয়েছেন। নব্বইয়ের  দশকে তিনি শিশু শ্রমের বিরুদ্ধে একটি গ্লোবাল মার্চের আয়োজন করেন। এর লক্ষ্য ছিল আধুনিক দাশপ্রথার শৃঙ্খল থেকে বিশ্বের নানা প্রান্তের নির্যাতিত লাখ লাখ শিশুকে মুক্ত করা। ‘রাগমার্ক’ নামক একটি সুপরিচিত আন্তর্জাতিক স্কিমের প্রতিষ্ঠাতা তিনি। এ স্কিমের অধীনে শিশুশ্রম মুক্ত কারখানায় তৈরি গালিচা কার্পেটে রাগমার্ক ট্যাগ থাকে। ২০১০ সালে রবার্ট এফ কেনেডি সেন্টার ফর জাস্টিস অ্যান্ড হিউম্যান রাইটসের সঙ্গে এক সাক্ষাৎকারে তিনি বর্ণনা দেন, নিকৃষ্টতম সব নির্যাতনের কাজে জোরপূর্বক ঠেলে দেয়া শিশুদের দুর্দশা। সেখানে তিনি বলেছিলেন, ওই শিশুরা যদি তাদের বাবা-মায়ের জন্য কাঁদে তাহলে তাদের বেধড়ক পেটানো হয়। কখনও বা গাছ থেকে উল্টো করে ঝুলিয়ে রাখা হয়। এমনটি জ্বলন্ত সিগারেট দিয়ে পুড়িয়ে দেয়া হয়। সমাজের এসব করুণ বাস্তবতা নিয়ে তিনি বলেছিলেন, আমি এসব কিছুকে একটি পরীক্ষা হিসেবে মনে করি। এটা একটা মানবিক পরীক্ষা যেখানে সবাইকে পাস হতে হবে… সমাজের এসব অন্যায়, পাপের বিরুদ্ধে রুখে দাঁড়াতে হবে। পিতা মাতার ঋণ শোধ করতে যেসব শিশুদের বিক্রি হতে হয়েছে তাদের সহায়তা করতে এগিয়ে এসেছেন কৈলাশ সত্যার্থী। একাধিক প্রশিক্ষণ কার্যক্রমের মধ্য দিয়ে এসব শিশুদের নতুন জীবন খুঁজে পেতে সাহায্য করেছেন। ১৯৮০ সালে তার প্রতিষ্ঠান বিবিএ তৃণমূল পর্যায়ে কার্যক্রম শুরু করে। শিশুদের অন্যায়ভাবে ব্যবহার প্রতিহত করা, বিশেষভাবে শিশু শ্রম ও শিশু পাচার রোধকল্পে সরাসরি সক্রিয় এক গণ-আন্দোলনে পরিণত হয় তার প্রতিষ্ঠান। এ প্রচারণায় যোগ দিয়েছে ৮০ হাজারের বেশি মানুষ। এছাড়াও সদস্য হিসেবে রয়েছে শিশু অধিকার প্রতিষ্ঠায় সক্রিয় আরও ৭৫০টি প্রতিষ্ঠান। বিবিএ’র নানা সফল উদ্যোগের মধ্যে গুরুত্বপূর্ণ একটি উদ্যোগ হলো বল মিত্র গ্রাম (বিএমজি) কার্যক্রম। এ কার্যক্রমের অধীনে শিশু নির্যাতন মুক্ত একটি পূর্ণাঙ্গ আদর্শ গ্রাম স্থাপন ও চিহ্নিত করা হয়। শিশু অধিকারের নানা ইস্যু নিয়ে চালানো হয় ব্যাপক প্রচারণা। ২০০১ সালে এ উদ্যোগ গৃহীত হওয়ার পর থেকে এখন পর্যন্ত বিবিএ ভারতের ১১টি রাজ্যের মোট ৩৫৬টি গ্রামকে শিশুশ্রম ও শিশু নির্যাতন মুক্ত গ্রাম হিসেবে রূপান্তর করতে সক্ষম হয়েছে। এসব গ্রামের শিশুরা স্কুলে যায়। বল পঞ্চায়েত (শিশুদের শাসক সংগঠন), যুবমণ্ডল (ইয়ুথ গ্রুপ) ও মহিলা মণ্ডলে অংশগ্রহণ করে। গ্রাম পঞ্চায়েতের সঙ্গে তাদের নিয়মিত মতবিনিময় হয়। বিবিএ তাদের বিএমজি কার্যক্রমে নিশ্চিত করে যে, ১৪ বছর পর্যন্ত শিশুরা যেন বিনামূল্যে, আন্তর্জাতিক মানের শিক্ষা গ্রহণের সুযোগ পায়। এছাড়াও বিদ্যালয়গুলোতে যথাযথ অবকাঠামো নিশ্চিত করে বিবিএ। তাদের মূল লক্ষ্য কোন শিশু বিশেষ করে মেয়ে শিশুরা যেন ঝরে না যায়।