সোমবার, ৮ই আগস্ট, ২০২২ খ্রিস্টাব্দ ২৪শে শ্রাবণ, ১৪২৯ বঙ্গাব্দ

কলেজের প্রশ্ন ফাঁস ব্রাহ্মণবাড়িয়া সরকারি কলেজের প্রাক্ নির্বাচনী পরীক্ষার প্রশ্ন ১২ দিনপর একই প্রশ্ন সরকারি মহিলা কলেজে অনুষ্ঠিত

b.bariatarek.jpg_480_480_0_64000_0_1_0নিজস্ব প্রতিবেদক:সরকার যখন প্রশ্নপত্র ফাঁস রোধকল্পে বদ্ধপরিকর এবং এ বিষয়ে যথাযথ ব্যবস্থা নেয়ার জন্য বিভিন্ন পদক্ষেপ নিয়েছেন ঠিক একই সময়ে ব্রাহ্মণবাড়িয়া সরকারি কলেজের দ্বাদশ শ্রেণীর প্রাক্নির্বাচনী পরীক্ষা-২০১৪, ব্যবসায় সংগঠন ও ব্যবস্থাপনা ২য় পত্র পরীক্ষার প্রায় ১২ দিন পর একই প্রশ্ন হুবুহু সরকারি মহিলা কলেজে এ পরীক্ষা অনুষ্ঠিত হয়। বিষয়টি নিয়ে ছাত্রছাত্রীসহ অভিভাবকদের মাঝে তোলপাড় সৃষ্টি হয়। শুধু তাই নয় দায়িত্বহীন কর্তৃপক্ষের কারণে একের পর এক সরকারি মহিলা কলেজে বিভিন্ন অনিয়মের অভিযোগ উঠে এসেছে। খোঁজ নিয়ে জানা যায়, গত ২৭ আগস্ট ব্রাহ্মণবাড়িয়া সরকারি কলেজে দ্বাদশ শ্রেণীর প্রাক্নির্বাচনী পরীক্ষা ২০১৪, ব্যবসায় সংগঠন ও ব্যবস্থাপনা ২য় পত্র  পরীক্ষাটি অনুষ্ঠিত হওয়ার পর গত ৯ সেপ্টেম্বর ২০১৪ একই বিষয়ে পরীক্ষাটি ব্রাহ্মণবাড়িয়া সরকারি মহিলা কলেজে অনুষ্ঠিত হয়। হুবুহু প্রশ্নটি ফাঁস হওয়ায় পর পরীক্ষার্থীদের এমন কোন কষ্ট করতে হয়নি পরীক্ষার জন্য এবং অভিভাবকও চিন্তিত, তাদের মেধার প্রতিযোগিতা নিয়ে। এছাড়াও অভিযোগ আছে সরকারি মহিলা কলেজে কর্তৃপক্ষ অতিথিদের শিক্ষকের পরীক্ষা হলের দায়িত্বের সম্মানী ৫শ’ টাকার কথা তিনি ২শ’ থেকে আড়াইশত টাকা দিয়ে থাকেন। অভিযোগে আরো জানা যায়,  কলেজ কর্তৃপক্ষ শিক্ষক এনামুল রশিদকে লিখিত কোন কাগজপত্র ছাড়াই সরকারি মহিলা কলেজ থেকে অপসারণ করে। উক্ত কলেজে অতিথি শিক্ষকদের নিবন্ধন এবং বিজ্ঞপ্তি আকারে নিয়োগের কথা থাকলেও তা উপেক্ষা করে কলেজ কর্তৃপক্ষ ব্যবসায় শিক্ষা শাখা (ম্যানেজম্যান্ট) সাহিদা হক এবং হিসাববিজ্ঞান বিভাগের  নয়নতারাকে নিয়োগ দেয়া হয়। সরকার কর্তৃক সরকারি কলেজে নিয়মবর্হিভূতভাবে এ নিয়োগে শিক্ষকদের মাঝে চাপা ক্ষোভ বিরাজ করছে। এছাড়াও খ-কালীন শিক্ষকদের দ্বারা শিক্ষাদানের ফলে প্রকৃত শিক্ষা থেকে শিক্ষার্থীরা বঞ্চিত হচ্ছে। বিষয়টি যথাযথ কর্তৃপক্ষ দ্রুত ব্যবস্থা নিয়ে কলেজ ও শিক্ষার মান উন্নয়নের লক্ষ্যে ব্যবস্থা নিবেন বলে ব্রাহ্মণবাড়িয়াবাসী মনে করেন।

এ জাতীয় আরও খবর