সোমবার, ১৫ই আগস্ট, ২০২২ খ্রিস্টাব্দ ৩১শে শ্রাবণ, ১৪২৯ বঙ্গাব্দ

যুগে যুগে কোরবানি

1412003948.কোরবানি নিছক পশু যবেহ নয়। কোরবানি হচ্ছে আল্লাহর সন্তুষ্টির উদ্দেশ্যে তাঁর নির্দেশিত পন্থায় নির্ধারিত পশু তাঁর নামে উৎসর্গ করা। এজন্য এর সুনির্ধারিত নিয়মকানুন আছে, যার অন্যথা হলে তা আর ইবাদত হিসেবে গণ্য হয় না। যেসব প্রাণী দ্বারা কোরবানি করা যায় সেসবের মধ্যেও নির্ধারিত বয়স ও বৈশিষ্ট্যের শর্ত রয়েছে। এরপর কোরবানির উপযুক্ত পশুও নির্ধারিত সময়ে যবেহ করা অপরিহার্য। কোরবানি একটি ইবাদতধর্মী কাজ। তবে অন্য ধর্মের উপাসনার সঙ্গে এর কোনো মিল নেই। এ সম্পর্কে পবিত্র কোরআনে ঘোষিত হয়েছে, ‘আমি প্রত্যেক সম্প্রদায়ের জন্য কোরবানির নিয়ম করে দিয়েছি, যাতে আমি তাদের জীবনোপকরণস্বরূপ যেসব চতুষ্পদ জন্তু দিয়েছি সেগুলোর ওপর তারা আল্লাহর নাম উচ্চারণ করে।’ (সূরা আল-হজ, আয়াত ৩৪)

হজরত আদম (আ.) থেকে হজরত মুহাম্মদ (সা.) পর্যন্ত সব নবী-রাসূল ও তাদের অনুসারীরা কোরবানি করেছেন। 

মানব ইতিহাসে সর্বপ্রথম কোরবানি : মানব ইতিহাসে সর্বপ্রথম কোরবানি হলো হজরত আদম (আ.)-এর দুই ছেলে হাবিল ও কাবিলের কোরবানি। কাহিনীটি সূরা মায়েদার ২৭ নম্বর আয়াতে বর্ণিত হয়েছে। কোরআনে কারিমে এরশাদ হয়েছে, ‘আর আপনি আদমের দুই ছেলের ঘটনা তাদের যথাযথভাবে শুনিয়ে দিন, যখন তারা উভয়ে কোরবানি করেছিল তখন একজনের কোরবানি কবুল হলো এবং অন্যজনের কবুল হলো না।’ (সূরা মায়েদা : ২৭)।

ঘটনা ছিল, ‘যখন হজরত আদম ও হাওয়া (আ.) পৃথিবীতে আগমন করেন এবং তাদের সন্তান প্রজনন ও বংশবিস্তার আরম্ভ হয়, তখন প্রতি গর্ভ থেকে একটি ছেলে ও একটি মেয়ে- এরূপ যমজ সন্তান জন্মগ্রহণ করত। তখন নিজ ছেলেমেয়ে ছাড়া হজরত আদমের (আ.) আর কোনো সন্তান ছিল না। অথচ ভাই-বোন পরস্পর বিবাহবন্ধনে আবদ্ধ হতে পারে না। তাই আল্লাহ তায়ালা উপস্থিত প্রয়োজনের খাতিরে আদম (আ.)-এর শরিয়তে বিশেষভাবে এ নির্দেশ জারি করেন, একই গর্ভ থেকে যে যমজ ছেলে ও মেয়ে জন্মগ্রহণ করবে, তারা পরস্পর সহোদর ভাই-বোন গণ্য হবে। তাদের মধ্যে বৈবাহিক সম্পর্ক হবে হারাম। কিন্তু ভিন্ন ভিন্ন গর্ভ থেকে জন্মগ্রহণকারী ভাইবোন সহোদরা হিসেবে গণ্য হবে না। তাদের মধ্যে পরস্পর বিবাহ বন্ধনে আবদ্ধ হওয়া বৈধ। কিন্তু ঘটনাচক্রে কাবিলের সহজাত সহোদরা বোনটি ছিল পরমা সুন্দরী এবং হাবিলের সহজাত বোনটি ছিল কুশ্রী ও কদাকার। বিবাহের সময় হলে শরিয়তের নিয়মানুযায়ী হাবিলের সহজাত কুশ্রী বোন কাবিলের ভাগে পড়ল। এতে কাবিল অসন্তুষ্ট হয়ে হাবিলের শত্রু হয়ে গেল। সে জেদ ধরল, আমার সহজাত বোনকেই আমার সঙ্গে বিয়ে দিতে হবে। হজরত আদম (আ.) তার শরিয়তের আইন অনুযায়ী কাবিলের আবদার প্রত্যাখ্যান করলেন। অতঃপর হজরত আদম (আ.) হাবিল ও কাবিলের মতভেদ দূর করার উদ্দেশ্যে বললেন, তোমরা উভয়েই আল্লাহর জন্য নিজ নিজ কোরবানি পেশ কর। যার কোরবানি পরিগৃহীত হবে, সে-ই কন্যার পানি গ্রহণ করবে। 

তৎকালে কোরবানি গৃহীত হওয়ার একটি সুস্পষ্ট নিদর্শন ছিল এই যে, আকাশ থেকে একটি অগ্নি শিখা এসে কোরবানিকে ভস্মীভূত করে আবার অন্তর্হিত হয়ে যেত। যে কোরবানি অগ্নি ভস্মীভূত করত না, তাকে প্রত্যাখ্যাত মনে করা হতো। 

হাবিল ভেড়া, দুম্বা ইত্যাদি পশু পালন করত। সে একটি উৎকৃষ্ট দুম্বা কোরবানি করল। আর কাবিল করত কৃষিকাজ। সে কিছু শস্য, গম ইত্যাদি কোরবানির জন্য পেশ করল। অতঃপর নিয়মানুযায়ী আকাশ থেকে অগ্নি শিখা অবতরণ করে হাবিলের কোরবানিটি ভস্মীভূত করে দিল এবং কাবিলের কোরবানি যেমন ছিল তেমনই পড়ে রইল। এ অকৃতকার্যতায় কাবিলের দুঃখ ও ক্ষোভ আরও বেড়ে গেল। সে আত্মসংবরণ করতে পারল না এবং প্রকাশ্যে তার ভাইকে বলল, অবশ্যই আমি তোমাকে হত্যা করব। হাবিল তখন ক্রোধের জবাবে ক্রোধ প্রদর্শন না করে একটি মার্জিত ও নীতিগত বাক্য উচ্চারণ করল; এতে কাবিলের প্রতি তার সহানুভূতি ও শুভেচ্ছা ফুটে উঠেছিল। হাবিল বলেছিল, তিনি আল্লাহভীরু পরহেজগারের কর্মই গ্রহণ করেন। সুতরাং তুমি পরহেজগারি অবলম্বন করলে তোমার কোরবানিও গৃহীত হতো। তুমি তা করনি, তাই তোমার কোরবানি প্রত্যাখ্যাত হয়েছে। এতে আমার দোষ কোথায়…? 

পরবর্তী ঘটনায় কাবিল হাবিলকে হত্যা করে। কিন্তু ভ্রাতৃহত্যার অনুশোচনায় সে উন্মাদ হয়ে যায় এবং ওই অবস্থায়ই সে প্রাণত্যাগ করে। 

তারপর আল্লাহর নবী হজরত নূহ (আ.), হজরত ইয়াকুব (আ.) ও হজরত মুসা (আ.)-এর সময়ও কোরবানির প্রচলন ছিল। মুসলিম জাতির পিতা হজরত ইব্রাহিম (আ.) আল্লাহ-প্রেমে স্বীয় পুত্রকে কোরবানি করার মহাপরীক্ষায় উত্তীর্ণ হয়ে এক অবিস্মরণীয় ইতিহাস সৃষ্টি করেন। প্রায় কয়েক হাজার বছর আগে হজরত ইব্রাহিম (আ.) স্বপ্নযোগে সবচেয়ে প্রিয় বস্তু ত্যাগের জন্য আদিষ্ট হন। তিনি পর পর তিন দিন উট কোরবানি করেন। কিন্তু তা কবুল হলো না, বারবার আদেশ হলো, ‘তোমার প্রিয় বস্তু কোরবানি করো।’ শেষ পর্যন্ত তিনি বুঝতে পারলেন, প্রাণপ্রিয় শিশুপুত্র হজরত ইসমাইল (আ.)-কে আল্লাহর সন্তুষ্টির জন্য উৎসর্গ করতে হবে।

হজরত ইসমাইল (আ.) নিজের জানকে আল্লাহর রাহে উৎসর্গ করতে নির্দ্বিধায় সম্মত হয়ে আত্মত্যাগের বিস্ময়কর দৃষ্টান্ত স্থাপন করেন। হজরত ইব্রাহিম (আ.)-এর প্রতি এটা ছিল আল্লাহর পরীক্ষা। তাই পিতার ধারালো ছুরি শিশুপুত্রের একটি পশমও কাটতে পারেনি; পরিবর্তে আল্লাহর হুকুমে দুম্বা জবাই হয়। পৃথিবীর বুকে এটাই ছিল স্রষ্টাপ্রেমে সর্বকালের সর্বযুগের সর্বশ্রেষ্ঠ কোরবানি। আত্মত্যাগের সুমহান ও অনুপম দৃষ্টান্তকে চিরস্মরণীয় করে রাখার জন্য আল্লাহ তাআলা উম্মতে মুহাম্মদির জন্য পশু কোরবানি করাকে ওয়াজিব করে দিয়েছেন। তাদের স্মরণে এ বিধান অনাদিকাল পর্যন্ত অব্যাহত থাকবে। পবিত্র কোরআনে ইরশাদ হয়েছে, ‘আল্লাহর কাছে পৌঁছায় না তাদের (কোরবানির) গোশত এবং রক্ত; বরং পৌঁছায় তোমাদের তাকওয়া। এভাবে তিনি এদের তোমাদের অধীন করে দিয়েছেন যাতে তোমরা আল্লাহর শ্রেষ্ঠত্ব ঘোষণা কর।’ (সূরা আল-হজ, আয়াত ৩৭)

কাল পরিক্রমায় প্রতি বছর পবিত্র হজের পরে ঈদুল আজহা ফিরে আসে, যার প্রধান আকর্ষণ ও গুরুত্বপূর্ণ ইবাদত কোরবানি। ঈদের দিন কোরবানিকে কেন্দ্র করে ধুমধামের সঙ্গে চলে মনের পশুপ্রবৃত্তি ত্যাগের মহোৎসব। রাসূলুল্লাহ (সা.) বলেছেন, ‘কোরবানির দিন রক্ত প্রবাহিত করার চেয়ে প্রিয় কোনো আমল আল্লাহর কাছে নেই। কোরবানিকারী কিয়ামতের দিন জবেহকৃত পশুর লোম, শিং, ক্ষুর, পশম ইত্যাদি নিয়ে আল্লাহর কাছে উপস্থিত হবে। কোরবানির রক্ত জমিনে পতিত হওয়ার আগেই তা আল্লাহর কাছে বিশেষ মর্যাদায় পৌঁছে যায়। অতএব, তোমরা কোরবানির সঙ্গে নিঃসংকোচ ও প্রফুল্লমন হও।’ (ইবনে মাজা, তিরমিজি)

জেনে নিন কোরবানির কিছু গুরুত্বপূর্ণ মাসয়ালা

* ১০ যিলহজ ফজর থেকে ১২ যিলহজ সূর্যাস্ত পর্যন্ত যে প্রাপ্তবয়স্ক সুস্থ মস্তিষ্কসম্পন্ন নরনারীর কাছে প্রয়োজনের অতিরিক্ত সাড়ে ৫২ তোলা রূপার মূল্য পরিমাণ সম্পদ থাকবে তার কোরবানি করা ওয়াজিব। 

* গরিব ব্যক্তির উপর কোরবানি করা ওয়াজিব নয়, কিন্তু সে যদি কোরবানির নিয়তে কোনো পশু কিনে তাহলে তা কোরবানি করা ওয়াজিব হয়ে যায়। বাদায়েউস সানায়ে ৪/১৯২।

* মোট তিনদিন কোরবানি করা যায়। যিলহজের ১০, ১১ ও ১২ তারিখ সূর্যাস্ত পর্যন্ত। তবে সম্ভব হলে যিলহজের ১০ তারিখেই কোরবানি করা উত্তম। মুআত্তা মালেক ১৮৮; বাদায়েউস সানায়ে ৪/১৯৮; ২৩; আলমগীরী ৫/২৯৫।

* উট, গরু, মহিষ, ছাগল, ভেড়া ও দুম্বা দ্বারা কোরবানি করা জায়েজ। এসব গৃহপালিত পশু ছাড়া অন্যান্য পশু যেমন হরিণ, বন্য গরু ইত্যাদি দ্বারা কোরাবানি করা জায়েজ নয়। কাযীখান ৩/৩৪৮; বাদায়েউস সানায়ে ৪/২০৫।

কোরবানির পশুর বয়সসীমা

উট কমপক্ষে ৫ বছরের হতে হবে। গরু ও মহিষ কমপক্ষে ২ বছরের হতে হবে। আর ছাগল, ভেড়া ও দুম্বা কমপক্ষে ১ বছরের হতে হবে। তবে ভেড়া ও দুম্বা যদি ১ বছরের কিছু কমও হয় কিন্তু এমন হৃষ্টপুষ্ট হয় যে তা দেখতে ১ বছরের মতো মনে হয় তাহলে তা দ্বারাও কোরবানি করা জায়েজ হবে না। কাযীখান ৩/৩৪৮; বাদায়েউস সানায়ে ৪/২০৫-২০৬।

* একটি ছাগল, ভেড়া বা দুম্বা দ্বারা শুধু একজনই কোরবানি দিতে পারবে। একাধিক ব্যক্তি মিলে কোরবানি করলে কারোরটা সহীহ হবে না। আর উট, গরু, মহিষ-এ সর্বোচ্চ সাতজন শরিক হতে পারবে। সাতের অধিক শরিক হলে কারো কোরবানি সহীহ হবে না। সহীহ মুসলিম ১৩১৮; মুআত্তা মালেক ১/৩১৯ কাযীখান ৩/৩৪৯ বাদায়েউস সানায়ে ৪/২০৭-২০৮।

* উট, গরু, মহিষ সাত ভাগে এবং সাতের কম যেকোনো সংখ্যা যেমন দুই, তিন, চার, পাঁচ ও ছয় ভাগে কোরবানি করা জায়েজ। – সহীহ মুসলিম ১৩১৮; বাদায়েউস সানায়ে ৪/২০৭।

* কোরবানির গরু, মহিষ ও উটে আকীকার শরিক হতে পারবে। তাহতাবী আনাদ্দুর ৪/১৬৬; রুদ্দুল মুহতার ৬/৩৬২।

* এমন শুকনো, দুর্বল পশু যা জবাইয়ের স্থান পর্যন্ত হেঁটে যেতে পারে না তা দ্বারা কোরবানি করা জায়েজ নেই। জামে তিরমিযী ১/২৭৫; আলমগীরী ৫/২৯৭; বাদায়েউস-সানায়ে ৪/২১৪।

এ জাতীয় আরও খবর

দেশে বিচারবহির্ভূত হত্যাকাণ্ড ঘটে না: পররাষ্ট্রমন্ত্রী

মিসরে গির্জায় ভয়াবহ অগ্নিকাণ্ডে নিহত ৪১

ফাঁস হওয়া গোপন ভিডিও নিয়ে যা বললেন অঞ্জলি

‘বালুখেকো’ সেলিমকে আত্মসমর্পণের নির্দেশ

পাখির আঘাতে বিকল লন্ডনগামী বিমানের ফ্লাইট

বঙ্গবন্ধু এক্সপ্রেসওয়েতে বাসের ধাক্কায় নিহত ২

বঙ্গবন্ধুর আদর্শে উজ্জীবিত বুয়েট শিক্ষার্থীরা

বুয়েটের আন্দোলনকারীরা শিবির: জয়

অনুশীলনে গুলিবিদ্ধ বিজিবি সদস্যের মৃত্যু

সরকারি চাকরিজীবীদের নির্বাচনে অংশগ্রহণ বিষয়ে করা রিট খারিজ

বঙ্গবন্ধু হত্যার বড় সুবিধাভোগী জিয়া ও তার পরিবার : তথ্যমন্ত্রী

আপনারা সবাই আমারে খায়া ফেললেন : পররাষ্ট্রমন্ত্রী