বুধবার, ১৭ই আগস্ট, ২০২২ খ্রিস্টাব্দ ২রা ভাদ্র, ১৪২৯ বঙ্গাব্দ

খুনিদের টার্গেট এখন বাসাবাড়ি

images (2)বাসাবাড়িই এখন প্রধান টার্গেটে পরিণত হয়েছে পেশাদার খুনিদের। ভয়ঙ্কর ভাড়াটে খুনিরা নানা কৌশলে বাসার ভেতর একের পর এক মানুষ খুন করে নির্বিঘে পালিয়ে যাচ্ছে। তাদের কাউকেই গ্রেফতার করতে পারছে না আইনশৃঙ্খলা বাহিনী। আর এভাবে চলতে থাকলে সাধারণ জনগণই এক সময় আইন নিজের হাতে তুলে নিতে বাধ্য হবে বলে সুশীল সমাজের প্রতিনিধিরা মনে করছেন। গত ২৭ আগস্ট রাজধানীর পূর্ব রাজাবাজারে নিজ বাসায় টেলিভিশন উপস্থাপক ও ইসলামি চিন্তাবিদ মাওলানা নুরুল ইসলাম ফারুকীকে হাত-পা বেঁধে গলা কেটে খুন করে দুর্বৃত্তরা। শুরুতে অনেক বিষয় সামনে রেখে মামলার তদন্ত চলছিল। তবে ফারুকীর মতাদর্শের কারণেই তাঁকে হত্যা করা হয়েছে বলে তদন্ত সংশ্লিষ্টরা বলছেন। গোয়েন্দা সূত্র জানায়, হত্যার আগে বাসা এবং এর আশপাশে রেকি করে কিলিং মিশনে অংশ নেওয়া খুনিরা। বেশ কয়েকটি ভাগে বিভক্ত হয়ে যায় তারা। তাদের দলে ছিল ১০ থেকে ১২ জনের একটি প্রশিক্ষিত গ্রুপ। চূড়ান্ত অপারেশনে যাওয়ার আগে দু’ভাগে বিভক্ত হয় তারা। সাত ব্যক্তির একটি গ্রুপ বাসায় প্রবেশ করে। আর বাইরের পরিস্থিতি পর্যবেক্ষণের দায়িত্বে রাখা হয় আরেকটি গ্রুপকে। বাসায় প্রবেশ থেকে শুরু করে কিলিং মিশন শেষ করতে প্রায় ঘণ্টাখানেকের মতো সময় নেয় তারা। আর এসবই করা হয় পূর্বপরিকল্পনা অনুযায়ী।
দু’দিন পর মগবাজার সোনালীবাগের একটি বাড়িতে ঢুকে বিল্লাল হোসেন (২২), মুন্না (২০) ও বৃষ্টিকে (৩২) গুলি করে হত্যা করে সন্ত্রাসীরা। আর এ খুনের পুরো নেতৃত্ব দেয় স্থানীয় সন্ত্রাসী কাইল্যা বাবু। যদিও গত সপ্তাহে গোয়েন্দা পুলিশের সঙ্গে সে বন্দুকযুদ্ধে মারা যায়। আর কিলিং মিশনে অংশ নেওয়া কাউকেই এখনও পর্যন্ত গ্রেফতার করতে পারেনি আইন প্রয়োগকারী সংস্থা।
ভুক্তভোগী পরিবারের সদস্যরা অভিযোগ করছেন, ঘটনার সময় তাঁরা সবাই বাসায় ছিলেন। খুনিরা প্রথমেই বাসার ভেতর প্রবেশ করে গুলি করতে থাকে। সে গুলিতে ঘরের ভেতর থাকা দুজন গুলিবিদ্ধ হয়ে মারা যান। আর তাঁদের বাঁচাতে এলে বাসার অন্য আরেকজনকেও গুলি করে সন্ত্রাসীরা। এভাবে ঘরের ভেতর এসে খুন করবেÑ তা কোনো সময়ই ভাবতে পারেনি নিহতের পরিবার। ঘরের ভেতর যদি এ অবস্থা হয়, তাহলে বাইরে অপরাধীরা আরও কত কি করতে পারেÑ তা ভাবাই যায় না বলে জানান নিহতের পরিবার। জমি এবং চাঁদার টাকা না দেওয়ায় এ ঘটনা ঘটে বলে প্রাথমিকভাবে ধারণা করা হয়।
২০১৩ সালের ২১ ডিসেম্বর সন্ধ্যায় গোপীবাগের রামকৃষ্ণ মিশন রোডের ৬৪/৬ নম্বর বাসার দোতলায় কথিত পীর ও ইমাম মাহদীর সেনাপতি পরিচয়দানকারী লুৎফর রহমান ফারুক ও তাঁর ছেলে মনির হোসেনসহ ৬ জনকে গলা কেটে হত্যা করে দুর্বৃত্তরা। তবে চাঞ্চল্যকর এ মামলার প্রায় এক বছর পেরিয়ে গেলেও কোনো রহস্য উদ্ঘাটন করতে পারেনি গোয়েন্দা পুলিশ। সর্বশেষ ৪ সন্দেহভাজনকে গ্রেফতারের পর রিমান্ডে নেওয়া হয়েছে।
প্রত্যক্ষদর্শীরা জানান, রামকৃষ্ণ মিশন রোডের ৬৪/৬ নম্বর বাড়িতে সন্ধ্যার দিকে ৭-৮ জন লুৎফরের অনুসারী পরিচয় দিয়ে ওই বাসায় প্রবেশ করে। এ সময় তারা বলে, পুলিশ তাদের তাড়া করেছে। এরপর তারা বাসায় ঢুকে নামাজ আদায় করে অন্যদের সঙ্গে মুড়ি খায়। এরপরই ঘটে নির্মম হত্যাকা-। পরে মুড়িসহ ওই বাসা থেকে জব্দ করা কিছু খাবারের নমুনা রাসায়নিক পরীক্ষার জন্যও জব্দ করে পুলিশ।
লুৎফরের স্ত্রী সালমা বেগম ভোরের পাতাকে বলেন, ‘কয়েক যুবক সন্ধ্যার পর ঘরে ঢুকে প্রথমে নামাজ পড়ে। এরপর তারা বাসার সবাইকে জিম্মি করে বলতে থাকেÑ ছয়জনকে মারার হুকুম হয়েছে। আমরা মারতে এসেছি। মারার পর চলে যাব। তাদের মধ্যে এক যুবকের পরনে ছিল ব্লেজার। তার মুখে ছিল খোঁচা খোঁচা দাড়ি। রাতে মেহমান খেতে আসবেন। এ জন্য সন্ধ্যার পর থেকেই রান্নার আয়োজন চলছিল। এরই মধ্যে অপরিচিত কয়েকজন বাসায় ঢুকে নামাজ পড়তে চায়। আর এভাবেই খুনিরা শুরু করে তাদের হত্যার মিশন।’
২৪ সেপ্টেম্বর কেরানীগঞ্জের আবদুল্লাহপুরের কদমপুর গ্রামে চারজন নির্মম খুনের শিকার হন। এরা হলেন সাজু আহমেদ (৩৫), তাঁর স্ত্রী রনজু বেগম (২৮), ছেলে ইমরান (৭) ও মেয়ে সানজিদা (২)। তাঁদের বাড়ি পঞ্চগড় জেলায়। মাদক ও ডাকাতির টাকা ভাগাভাগি নিয়ে এ হত্যাকা- হয়েছে বলে পুলিশ প্রাথমিকভাবে ধারণা করছে। ঢাকা জেলার পুলিশ সুপার হাবিবুর রহমান বলেন, ‘এটি পরিকল্পিত হত্যাকা-। দু’তিন দিন আগে তাঁদের শ্বাসরোধে হত্যা করা হয়েছে বলে ধারণা করা হচ্ছে। লাশগুলোতে পচন ধরেছে। সবার হাত-পা ও মুখ কাপড় দিয়ে বাঁধা ছিল। বাসায়ই তাঁদের হত্যা করা হয়েছে। হত্যারহস্য উদঘাটনে পুলিশ কাজ করছে।’ এগুলো ছাড়াও সম্প্রতি রাজধানীতে আরও কয়েকটি হত্যাকা- সংঘটিত হয়। এর অনেকগুলোই নিজ বাসায় খুনের শিকার হয়েছেন ভুক্তভোগীরা।
আইনশৃঙ্খলা বাহিনীর লোকজনের সঙ্গে আলাপে জানা গেছে, প্রতিটি ঘটনার পর তদন্ত করে দেখা গেছে খুনিরা শিক্ষিত, পেশাদার ও প্রযুক্তিজ্ঞানসম্পন্ন। তারা ঠা-া মাথার খুনি হওয়ায় খুনের পরপরই আলামতও নষ্ট করার চেষ্টা করছে। এরপর তারা স্বাভাবিকভাবেই বের হয়ে যায়। হত্যাকা-ের আগে-পরে নিজেদের মধ্যে যোগাযোগে মোবাইল ফোনও ব্যবহার করছে না খুনিরা। অনেক ঘটনায় অতিথি সেজে বাসায় প্রবেশ করছে। প্রতিটি ঘটনায় ক্ষুদ্রাস্ত্র ব্যবহার হয়েছে। ঘটনার পর খুনিরা নানা কৌশল অবলম্বন করায় তাদের গ্রেফতারও করা যাচ্ছে না। আবার হত্যাকা-ের পর নানা তথ্য পেলেও বাস্তবে তা মেলানো যাচ্ছে না। আর খুনিরা গ্রেফতার না হওয়ায় শুধু ভুক্তভোগী পরিবারই নয়, সাধারণ মানুষও আতঙ্কগ্রস্ত হয়ে পড়েছে। তবে আতঙ্কিত হওয়ার কোনো কারণ নেই বলে মন্তব্য করেছেন স্বরাষ্ট্র প্রতিমন্ত্রী আসাদুজ্জামান খান কামাল। তিনি ভোরের পাতাকে বলেন, ‘প্রতিটি ঘটনার পর খুনিরা গ্রেফতার হচ্ছে। কী কারণে ঘটনাগুলো ঘটছে, তাও বেরিয়ে আসছে। এতে আইনশৃঙ্খলা পরিস্থিতির অবনতি হলো কোথায়? তারপরও এ ধরনের ঘটনার যেন পুনরাবৃত্তি না হয়, সেজন্য সংশ্লিষ্টদের নির্দেশ দেওয়া হয়েছে।’
সুজন সম্পাদক ড. বদিউল আলম মজুমদার বলেন, ‘প্রতিটি ঘটনার সঙ্গে কারা জড়িত, তাদের গ্রেফতারের মাধ্যমে আইনের আওতায় আনতে হবে। এর ব্যত্যয় ঘটলে এ ধরনের ঘটনা আরও বৃদ্ধি পাবে। আর বাসাবাড়িতেও যদি মানুষ নিরাপদে থাকতে না পারে, তাহলে যাবে কোথায়?’ তত্ত্বাবধায়ক সরকারের সাবেক উপদেষ্টা সুলতানা কামাল বলেন, ‘খুনিদের গ্রেফতার করে দৃষ্টান্তমূলক শাস্তি দিতে হবে। কোনো ঘটনাকেই ছোট করে দেখার সুযোগ নেই। কেননা, ছোট ছোট থেকে বড় রূপ ধারণ করতে পারে ঘটনাগুলো। কালবিলম্ব না করে প্রতিটি খুনের প্রকৃত কারণ এবং খুনি কারাÑ তা জাতির সামনে তুলে ধরতে হবে। আর বাসাবাড়িতে কেউ যেন নির্মম মৃত্যুর শিকার না হন, সে নিশ্চয়তা রাষ্ট্রকে দিতে হবে। না হলে নিজেদের নিরাপত্তায় জনগণই প্রতিরোধ গড়ে তুলতে পারে।’