বুধবার, ১৭ই আগস্ট, ২০২২ খ্রিস্টাব্দ ২রা ভাদ্র, ১৪২৯ বঙ্গাব্দ

দেশে মধ্যবর্তী নির্বাচনের সম্ভাবনা নেই : নিই ইয়র্কে প্রধানমন্ত্রী

74212_usaবাংলাদেশে মধ্যবর্তী নির্বাচনের কোন সম্ভাবনা নেই বলে জানিয়েছেন প্রধানমন্ত্রী।  
এছাড়া জামায়াতে ইসলামীর সঙ্গে সরকারের আঁতাতের যে গুঞ্জন ওঠেছে তা সরাসরি নাকচ করেছেন তিনি। শুক্রবার যুক্তরাষ্ট্রের নিউ ইয়র্কে এক সংবাদ সম্মেলনে প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা এসব কথা বলেন।

সংবাদ সম্মেলনে শেখ হাসিনা বলেন, দেশে মধ্যবর্তী নির্বাচনের কোনো সম্ভাবনা নেই। কেউ ভুল করে থাকলে ভুলের খেসারত তাকেই দিতে হবে। একই সঙ্গে জামায়াতে ইসলামীর সঙ্গে সরকারের কোনো আঁতাত হয়নি বলে দৃঢ়তার সঙ্গে উল্লেখ করেন প্র্রধানমন্ত্রী।

‘বাংলাদেশের অর্থনৈতিক মুক্তির দিশারী প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা’ শিরোনামে আয়োজিত সংবাদ সম্মেলনে সবাইকে স্বাগত জানান জাতিসংঘে বাংলাদেশের স্থায়ী প্রতিনিধি এম এ মোমেন।
সংবাদ সম্মেলনের শুরুতে প্রধানমন্ত্রী গত পাঁচ দিনে নিউ ইয়র্কে তার বিভিন্ন কর্মসূচির বিবরণ তুলে ধরেন।

শেখ হাসিনা বলেন, বিশ্বের শান্তি ও উন্নয়নে তার ব্যক্তিগত আগ্রহের কথা তিনি বিভিন্ন দেশের রাষ্ট্র নেতাদের সামনে তুলে ধরেছেন। তিনি বলেন, ৪০ বছর আগে বঙ্গবন্ধু পররাষ্ট্রনীতির ব্যাপারে যে নির্দেশনা দিয়ে গিয়েছিলেন, বাংলাদেশ এখনো তা মেনে চলছে।

জামায়াত ও যুদ্ধাপরাধীদের বিচার প্রসঙ্গে এক প্রশ্নের জবাবে প্রধানমন্ত্রী বলেন, আঁতাত হলে বিচার কী করে হয়। বিচার বিভাগ স্বাধীন। সাঈদীর ফাঁসির রায় তো আমি দিইনি, আদালত দিয়েছে। বিচারটা এত দিন পরে আওয়ামী লীগ করছে বলেই কী এসব প্রশ্ন উঠছে।

দেশের বিরাজমান পরিস্থিতি নিয়ে বিরোধী দলের সঙ্গে কোনো সংলাপ হবে কি না এমন প্রশ্ন করা হলে প্রধানমন্ত্রী বিরোধী দলের সংজ্ঞা জানতে চান। তিনি বলেন, দেশে এমন কী পরিস্থিতি বিরাজ করছে যে, সংলাপে বসার প্রয়োজন। নির্বাচন কে বানচাল করতে চেয়েছিল, তারা রাজনৈতিক ভুল করেছিল। ভুলের মাশুল তাদেরকেই দিতে হবে। এখন আলাপ করে তাদেরকে কি মতায় আনতে হবে?

শেখ হাসিনা বলেন, দেশের মানুষ শান্তিতে আছে। তাদের আয় বৃদ্ধি পেয়েছে। দারিদ্র্য দূর হচ্ছে। প্রবৃদ্ধি ছয় ভাগ অর্জিত হয়েছে। এ অবস্থায় মধ্যবর্তী নির্বাচন নিয়ে আলোচনা বা ভাবনার কোনো কারণ তিনি দেখেন না।

প্রধানমন্ত্রী বলেন, পদ্মা সেতু নিয়ে দুর্নীতির অভিযোগ আনা হয়েছিল, তারা তা প্রমাণ করতে পারেনি। বর্তমান সরকার দুর্নীতি নিয়ে সতর্ক আছে বলে তিনি মন্তব্য করেন।

সুশীল সমাজ প্রসঙ্গে প্রধানমন্ত্রী বলেন, ‘আমার দেয়া প্রাইভেট টিভি চ্যানেল, বিদ্যুৎ আর এয়ারকন্ডিশনে বসে তারা আমার সরকারের সমালোচনা করেন। সুশীল সমাজের লোকজনের অনেকেই অসাংবিধানিক পক্ষের ক্ষমতা গ্রহণে আগ্রহী। এতে নিজেদের জন্য পতাকা, পদ, পদবি নিশ্চিত হতে পারে।
 
ভারতের প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদির সঙ্গে শনিবারের বৈঠক প্রসঙ্গে শেখ হাসিনা বলেন, জাতিসংঘের অধিবেশনে যোগ দিতে আসা নেতাদের সঙ্গে সাধারণত সৌজন্য বৈঠক হয়। গতকাল পাকিস্তানের প্রধানমন্ত্রীর সঙ্গে কুশল বিনিময়ের কথা উল্লেখ করে তিনি বলেন, ভারতের প্রধানমন্ত্রীর সঙ্গে গুরুত্বপূর্ণ কিছু আলোচনা হলে তা পরে জানানো হবে।