শুক্রবার, ১৯শে আগস্ট, ২০২২ খ্রিস্টাব্দ ৪ঠা ভাদ্র, ১৪২৯ বঙ্গাব্দ

চলো গড়ি আসল বাড়ি- হাজী জমসেদ

001মানুষের শেষ ঠিকানা কবর। এটা সত্য কথা যে জন্ম নিলেই মরিতে হইবে। মরনের হাত থেকে বেঁেচ থাকবার মতো ক্ষমতা বা সমার্থ্য কারো ছিল না এবং নেই। যদি জন্ম নিলেই মরিতে হইবে তাহা হইলে এই দুনিয়াদারি এতোু সুন্দর করিয়া সাজাইয়া কি লাভ। পাঁচতলা,দশতলার উপর তলা রেখে একদিন এই মাটির পৃথিবী ছেড়ে চলে যেতে হবে এর কোন বিকল্প নাই। কোন সম্পাদশালী কিংবা ক্ষমতাধর এর পক্ষেই পৃথিবীতে চিরকাল বেঁচে থাকা সম্ভব নয়। আমার বাড়ির পাশে একটা বড়ই গাছ, যে গাছটা আমার বাবা নিজ হাতে লাগিয়ে ছিলেন। বাবা মারা গেছেন বহু বছর আগে। কিন্তু সেই বড়ই গাছটা আজো আছে। পশ্চিম ভিটে বাবা যে ঘরে ঘমাতেন। সেই ঘর আজো আছে। শুধু আমার বাবা আমাদের ছেড়ে চলে গেছেন।

গত কয়েক দিনে কুতুব ভাই এর মৃত্যু প্রেসক্লাব সেক্রেটারী জামির মায়ের মৃত্যু এবং সর্বশেষ ভাষা সৈনিক এডভোকেট আবদুস সামাদের মৃত্যু আমাকে ভীষন ভাবে ব্যথিত করেছে। মনে হচ্ছে যতই দিন যাচ্ছে মৃত্যুর দিকে এগিয়ে যাচ্ছি। যে কোন সময় পরপারে চলে যাবার ডাক এসে পড়তে পারে। সেই ডাকে সাড়া না দিয়ে কোন উপায় নেই। হায় আফসোস জাগে সারা জীবন কিভাবে কাটিয়েছি কবর নামক স্টেশনেই তো আটকে থাকতে হবে অনিদিষ্ট কাল। তারপর কবে কখন কিয়ামত হবে, হাশরের ময়দানে বিচারের জন্য অপেক্ষা, বিচার শেষে না জানি কপালে জান্নাত নাকি জাহান্নাম লিখা আছে তা কে জানে। এই সব চিরন্তন সত্য ভাবতে ভাবতে মন ভারী হয়ে উঠে। মন চায় বাকি জীবন আল্লাহর রাস্তায় কাটিয়ে দেই। তাবলিগ আর নামাজে জিকিরে ফিকিরেই পার করে দেই বাকি জীবন। কারণ জীবনের প্রতিটি মুর্হুতের জন্যই তো পরকালে জবাব দিতে হবে। এজন্যই পাঁচ ওয়াক্ত নামাজ কায়েম করা প্রয়োজন। নিজে নামাজ পড়ে অন্যকে নামাজ পড়ার জন্য উৎসাহিত করতে হবে। নামাজের কথা বললে প্রথম প্রথম অনেকেই রেগে যান। কিন্তু যিনি নামাজের স্বাদ পান তখন তাকে আর এ বিষয়ে কিছু বলতে হয় না। নামাজ, রোজা, হজ্ব, যাকাত আল্লাহর বিধান মেনে চলতে হবে। মৃত্যুই সত্য, দুনিয়া মিথ্যা, যে কোন সময় পরপারের ডাক আসবে। আসলেই চলে যেতে হবে। এজন্য আগে থেকেই তৈরী হয়ে থাকতে হবে। পরকালে সুখে শান্তিতে থাকবার জন্য সমান প্রস্তুত করে তৈরী থাকতে হবে। সবচেয়ে অবাক লাগে একটি বিষয় ভাবলে। তাহল সুন্দর স্ত্রী বা সুন্দর স্বামী বিশাল অট্রালিকা,ব্যাংকের অঢেল টাকা ফেলে রেখে একেবারেই খালি হাতে এ পৃথিবী ছেড়ে চলে যেতে হবে। এই সত্যটা আমরা জানি। অথচ এই অনুপাতে কাজ করছি না। এজন্য মৃত্যুকে ভয় করতে হবে। দৈনিক কাজের ফাকে ফাকে মৃত্যু এবং পরকালকে ভাবতে হবে। তবেই মন বলবে দুনিয়ার বাড়ি নয় আসল বাড়ি তৈরী করা উচিত।