সোমবার, ১৫ই আগস্ট, ২০২২ খ্রিস্টাব্দ ৩১শে শ্রাবণ, ১৪২৯ বঙ্গাব্দ

ঘর পালিয়ে আই এসে যোগ দিলো অস্ট্রিয়ান ২ বান্ধবি : ১ জন রণক্ষেত্রে নিহত

filekঘর থেকে পালিয়ে আই এসে যোগ দিয়েছে অস্ট্রিয়ার দুই বান্ধবি। এ সপ্তাহে আন্তর্জাতিক গণমাধ্যমগুলোতে একজনের নিহত হওয়ার খবর প্রচারিত হয়। সংবাদ মিডল ইস্ট মনিটরের।

জানা গেছে, অস্ট্রিয়ার রাজধানী ভিয়েনা থেকে ছয় মাস আগে পালিয়ে যায় ১৬ বছর বয়সি সামরা কেসিনোভা এবং তার ১৫ বছর বয়সি বান্ধবি সাবিনা সেলিমোভিক।

এ দুই কিশোরী প্রথমে তুরস্কে এবং সেখান থেকে সীমান্ত অতিক্রম করে সিরিয়ায় আই এসের সাথে যোগ দেয়।

ইন্টারন্যাশনাল বিজনেস টাইমস জানায়, এ সপ্তাহে আই এসের হয়ে সরাসরি যুদ্ধ করতে গিয়ে নিহত হয়েছে সাবিনা কেসিনোভিক।

একজনের মৃত্যুর বিষয়ে অস্ট্রিয়ার পররাষ্ট্র মন্ত্রণালয় তার পরিবারকে নিশ্চিত করে কিছু জানাতে পারেনি। তবে তারা দুই বান্ধবির সিরিয়ায় যাওয়ার সত্যতা সম্পর্কে নিশ্চিত হয়েছেন বলে জানান।

সংবাদমাধ্যমগুলোতে জানানো হয়, এ দুই কিশোরীকে প্রধানত সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমগুলোতে প্রচারণার কাজে ব্যবহার করে আই এস। ভার্চুয়াল প্রচারণায় অন্য কিশোরীদেরকেও আই এসে যোগ দিতে উদ্বোধ্য করতো তারা।

সংবাদমাধ্যম আদ দুস্তোর জানায়, এরা পালিয়ে আসার সময় বাড়িতে চিঠি ফেলে আসে। এতে লেখা ছিলো,  আমরা সঠিক পথের দিকে যাচ্ছি। সিরিয়ায় চলে যাচ্ছি ইসলামের জন্য যুদ্ধ করতে। আমাদের খোঁজার চেষ্টা করো না। আমরা আল্লাহর জন্য যুদ্ধ করবো এবং তার জন্যই মৃত্যুবরণ করবো। দেখা হবে বেহেশতে।

এ চিঠি পাওয়ার পর এদের একজনের বাবা মেয়ের সন্ধানে তুরস্ক পর্যন্ত ছুটে যান। কিন্তু কোনো খোঁজ না পেয়ে ব্যর্থ হয়ে ফিরে আসেন।

সম্প্রতি সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যম টুইটারে একটি ছবিও পোস্ট করে কিশোরীরা। এতে তাদেরকে ঘোমটা পরিহীত অবস্থায় দেখা যায়। ভয়ঙ্কর মরণাস্ত্র কালাসিনকোভ হাতে এরা দাঁড়িয়ে আছে অসংখ্য আই এস যোদ্ধাদের ভেতর।

অন্য আরেকটি টুইট বার্তায় দুই বান্ধবি নতুন জীবন সম্পর্কে জানিয়ে বলে, আমাদের কেউ কখনো খুঁজে পাবে না।

আই এসে যোদ্ধাকেই বিয়ে করার ইচ্ছে রয়েছে বলে বার্তার শেষ দিকে জানায় তারা।