সোমবার, ১৫ই আগস্ট, ২০২২ খ্রিস্টাব্দ ৩১শে শ্রাবণ, ১৪২৯ বঙ্গাব্দ

স্বীকৃতিবিহীন ডিগ্রির যথেচ্ছ ব্যবহার চিকিৎসকদের

1410887451.বিএমডিসির নির্দেশনা অমান্য করে নিজেদের শ্রেষ্ঠ হিসেবে প্রমাণ করতে স্বীকৃত ডিগ্রির পাশাপাশি নামের পাশে স্বীকৃতিবিহীন ডিগ্রি ব্যবহার করছেন দেশের এক শ্রেণীর চিকিৎসক। সাধারণ চিকিৎসক থেকে শুরু করে মেডিকেল কলেজ, বিশ্ববিদ্যালয়ের শিক্ষকসহ অনেকেই এ ধরনের স্বীকৃতিবিহীন ডিগ্রি ব্যবহার করছেন। রাজধানী ঢাকা থেকে শুরু করে সারাদেশেই চলছে স্বীকৃতিহীন এসব ডিগ্রির যথেচ্ছ ব্যবহার। আর এসব ডিগ্রির ফাঁদে পড়ে প্রতিনিয়ত প্রতারিত হচ্ছেন দেশের সর্বস্তরের মানুষ। সংশ্লিষ্টদের মতে, বাংলাদেশ মেডিকেল অ্যান্ড ডেন্টাল কাউন্সিল (বিএমঅ্যান্ডডিসি) চিকিৎসা সংক্রান্ত আইন-কানুন প্রণয়ন ও চিকিৎসকদের রেজিট্রেশন প্রদান করলেও তাদের কোনো নির্বাহী ক্ষমতা নেই। যার ফলে বিএমঅ্যান্ডডিসির নাকের ডগায় বসে চিকিৎসকরা দেশের মানুষের সঙ্গে এ ধরনের প্রতারণা করলেও প্রতিষ্ঠানটি তেমন কোনো ভূমিকা পালন করতে পরছে না। চলিত বছরের ১৭ এপ্রিল বাংলাদেশ মেডিকেল অ্যান্ড ডেন্টাল কাউন্সিল (বিএমঅ্যান্ডডিসি) দেশের চিকিৎসকদের উদ্দেশ্যে এক সতর্কীকরণ বিজ্ঞপ্তি জারি করে। বিএমঅ্যান্ডডিসির রেজিস্ট্রার প্রদত্ত এই বিজ্ঞপ্তিতে বলা হয়ে, সব নিবন্ধিত (বিএমঅ্যান্ডডিসি থেকে রেজিস্ট্রেশন প্রাপ্ত) চিকিৎসক/দন্তচিকিৎসক এবং সর্বসাধারণের অবগতির জন্য জানানো যাচ্ছে যে, বাংলাদেশ মেডিকেল অ্যান্ড ডেন্টাল কাউন্সিল কর্তৃক স্বীকৃত নয় এমন কোনো নাম, পদবি, শিক্ষাগত যোগ্যতা, বিবরণ ইত্যাদি বিএমঅ্যান্ডডিসি থেকে নিবন্ধন প্রাপ্ত কোনো চিকিৎসক/দন্তচিকিৎসক ব্যবহার করতে পারবেন না। কেননা এ সমস্ত স্বীকৃতিবিহীন ডিগ্রি/পদবি ব্যবহারে কারো অতিরিক্ত পেশাগত যোগত্য আছে বলে জনসাধারণ মনে করতে পারেন এবং প্রতারিত হতে পারেন। লক্ষ করা যাচ্ছে যে, কোনো কোনো নিবন্ধিত চিকিৎসক/দন্তচিকিৎসক তাদের সাইন বোর্ড, পেসক্রিপশন প্যাড, ভিজিটিং কার্ড ইত্যাদিতে এবং দেশ বিদেশের বিভন্ন ধরনের প্রতিষ্ঠান হতে প্রদত্ত ফেলোশিপ এবং ট্রেনিংসমূহ যথা উল্লেখ করছেন যা কোনো স্বীকৃত চিকিৎসা শিক্ষা যোগ্যতা নয় এবং বিএমঅ্যান্ডডিসি কর্তৃক স্বীকৃত নয়। এ ছাড়াও স্বীকৃত পোস্টগ্রাজুয়েশন ডিগ্রি না থাকা সত্ত্বেও কেউ কেউ মেডিসিন বিশেষজ্ঞ, সার্জারি বিশেষজ্ঞ, শিশুরোগ বিশেষজ্ঞ, চর্ম ও যৌন রোগ বিশেষজ্ঞ, নাক-কান-গলা বিশেষজ্ঞ, গাইনি ও প্রসূতি বিশেষজ্ঞ ইত্যাদি বিভিন্ন বিষয়ে বিশেষজ্ঞ হিসেবে তাদের পরিচিতি প্রদান করে তা পেসক্রিপশন, প্যাড, সাইনবোর্ড, ভিজিটিং কার্ড, ইত্যাদিতে ব্যবহার করছেন যা জনসাধারণের সঙ্গে প্রতারণামূলক কাজ হিসেবে গণ্য। সতর্কীকরণ বিজ্ঞপ্তিতে বলা হয়, এটা স্পষ্টতই বাংলাদেশ মেডিকেল অ্যান্ড ডেন্টাল কাউন্সিল আইনের পরিপন্থী এবং শাস্তিযোগ্য অপরাধ। এজন্য অর্থদণ্ড অথবা কারাদণ্ড বা উভয় দণ্ডে দণ্ডনীয় হতে পারেন।
সতর্কীকরণ বিজ্ঞপ্তিতে আরো বলা হয়, এমতাবস্থায় বিএমঅ্যান্ডডিসি হতে প্রাপ্ত রেজিট্রেশন বাতিলসহ আইনে উল্লিখিত অন্যান্য শাস্তি পরিহার করার লক্ষে সব নিবন্ধিত চিকিৎসককে বিএমঅ্যান্ডডিসি কর্তৃক স্বীকৃত নয় এমন কোনো ডিগ্রি, পদবি, ফেলোশিপ, ট্রেনিং ইত্যাদি ব্যবহার না করে স্বীকৃত পোস্টগ্রাজুয়েশন ডিগ্রি না থাকা সত্ত্বেও নামের পর বিশেষজ্ঞ পদবি ব্যবহার না করার জন্য অবহিত করা যাচ্ছে।
কেসস্টাডি: বাগেরহাট সদর থানার বাসিন্দা শাহনাজ বেগমের দশ বছরের ছেলে জয় হঠাৎ করে হাঁটা-চলায় অসুবিধা বোধ করে এবং এক পায়ে ব্যথা অনুভব করে। এ অবস্থায় শহরের পুরাতন বাজারের বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিব মেডিকেল বিশ্ববিদ্যালয়ের (বিএসএমএমইউ) অর্থপেডিক বিভাগের বিশেষজ্ঞ চিকিৎসক ডা. ইন্দ্রজিত কুমার কুণ্ডুর সাইনবোর্ড দেখে তার শরণাপন্য হন। কিন্তু তার চিকিৎসায় রোগীর অবস্থার উন্নতি না হওয়ায় তিনি ছেলেকে বিএসএমএমইউতে নিয়ে আসেন এবং এখানেই তার চিকিৎসা শুরু হয়। পরে তিনি খোঁজ নিয়ে জানতে পারেন ডা. ইন্দ্রজিত কুমার কুণ্ডু কোনো বিশেষজ্ঞ চিকিৎসক নন বিএসএমএমইউর একজন মেডিকেল অফিসার মাত্র।
প্রতিদিন দেশের জেলা উপজেলা পর্যায়ে এ ধরনের প্রতারণার শিকার হচ্ছেন হাজার হাজার রোগী।
রাজধানী ঢাকার বিভিন্ন হাসপাতাল, ক্লিনিক ও চেম্বার ঘুরেও দেখা গেছে বিএমঅ্যান্ডডিসির সতর্কীকরণ বিজ্ঞপ্তির পরেও বেশিরভাগ চিকিৎসকই বিএমঅ্যান্ডডিসির স্বীকৃতিহীন এসব ডিগ্রি/পদবি ব্যহার করছেন। মানবকণ্ঠের অনুসন্ধানে দেখা যায় রাজধানীর সাহাবুদ্দিন মেডিকেল কলেজের ডাক্তার লে. কর্নেল ডা. মো. সাইফুল আলম তার নামের পাশে এমবিবিএস, এফসিপিএস, এফআরএইচএস, ডিএলও, এমসিপিএস ইত্যাদি ডিগ্রি ব্যবহার করেন। অনুরূপভাবে একই প্রতিষ্ঠানের ডা. হাফিজুর রহমান চৌধুরী এমবিবিএসের সঙ্গে ডিএলও এবং এফআইসিএস, অ্যাপোলো হাসপাতালে ডা. লুৎফুল এল চৌধুরী-এমবিবিএস, এফসিপিএস, এফআরসিপি, এমএইচপিআই; ইউনাইটেড হাসপাতালের ডা. খুরশিদ আলম এমবিবিএস, পিজিটি, ডিসিএস; ল্যাব এইডের ব্রিগেডিয়ার অধ্যাপক ডা. আবদুল আলী এমবিবিএস, এফসিপিএস, এফএসিপি, এফআরসিপি, সিনিয়র ফেলাশিপ; কর্নেল ডা. নূরুন নাহার ফাতিমা এমবিবিএস, এফসিপিএস, এফআরসিপি, এফএসিসি, এফএসসিআইএ; ডা. আফরোজা সুলতানা এমবিবিএস, ডিজিও, এফআইসিএস; ডা. মো. আনোয়ারুল হক ফারাজি-এমবিবিএস, বিসিএস, এফসিপিএস(পার্ট-২) ডিপিএইচ; ডা. আসাদুজ্জামান খান গালীব এমবিবিএস, পিজিটি, ডিটিসিডি, এফসিজিপি; ডা. কাজী রুমানা শারমিন রুম্মি বিডিএস (ডিইউ), পিজিটি (নিএসএমএমইউ); আল-রাজি হাসপাতালের অধ্যাপক ডা. একেএম খোরশেদ আলম এমবিবিএস, এফসিপিএস, এমইউচপিসি, এফআরসিপি; আল ফাতেহ মেডিকেল সার্ভিসেসের ডা. হুমায়ুন কবীর খান এমবিবিএস, এমপিএইচ, পিজিটি; ডিগ্রি ব্যবহার করছেন। লক্ষ করলে দেখা যায় এরা প্রত্যেকেই স্বীকৃত ডিগ্রির পাশাপাশি স্বীকৃতিবিহীন ডিগ্রি ব্যবহার করছেন। বিএমঅ্যান্ডডিসি বিজ্ঞপ্তি অনুযায়ী যা প্রতারণরা শামিল এবং দণ্ডনীয় অপরাধ।
এছাড়া বেশিরভাগ নবীন ডাক্তার নামের পাশে এফসিপিএস পার্ট-১,২, এমডি পার্ট-১,২ ইত্যাদি ব্যবহার করছেন, যা বিএমঅ্যান্ডডিসি এবং বিসিপিএস কর্তৃক এক প্রকার নিষিদ্ধ। কিছু চিকিৎসক তাদের নামের পাশে ডিটিসিডি, ডিটিসিই, ডিডিভি, টিআরএইচ, টিআরএম অ্যান্ড ফেলো, ডিএমসিএইচ অ্যান্ড এফপিসহ বিভিন্ন ধরনের ডিগ্রি ব্যবহার করছেন। এসব ডিগ্রির অর্থও অনেক চিকিৎসক জানেন না। নাম প্রকাশে অনিচ্ছুক এক চিকিৎসক এ প্রসঙ্গে রসিকতা করে বলেন, কোনো কোনো ডাক্তার পারলে ইংরেজি ২৬টি বর্ণই নামের পাশে ব্যবহার করতেন।
এ প্রসঙ্গে বিএমঅ্যান্ডডিসির রেজিস্ট্রার ডা. মোহাম্মদ জাহিদুল হক বসুনিয়া মানবকণ্ঠকে বলেন, বেশিরভাগ চিকিৎসক জেনেশুনেই এ ধরনের স্বীকৃতিহীন ডিগ্রি ব্যবহার করছেন। এমনকি যেসব অভিজ্ঞ চিকিৎসকরা এই আইন প্রণয়ন করেছেন বা প্রণয়নের সঙ্গে যুক্ত ছিলেন তাদেরও কেউ কেউ এসব ডিগ্রি ব্যবহার করছেন। তিনি বলেন, দেশে ৬৬ হাজার নিবন্ধিত চিকিৎসক রয়েছেন, এদের ধরে ধরে শাস্তির আওতায় আনা সম্ভব নয়। তাবে কেউ যদি বিএমঅ্যান্ডডিসিকে অভিযোগ করেন তাহলে বিএমঅ্যান্ডডিসি কর্তৃপক্ষ অভিযুক্ত চিকিৎসকের বিরুদ্ধে ব্যবস্থা গ্রহণ করবে। এছাড়া আদালতের মাধ্যমেও এসব ডিগ্রি প্রতারণার শাস্তি নিশ্চিত করা সম্ভব বলে জানান তিনি।
এ ধরনের প্রতারণার শাস্তি দ্রুত নিশ্চিত হওয়ার বিষয়ে গুরুত্বারোপ করে বাংলাদেশ কলেজ অব ফিজিশিয়ান অ্যান্ড সার্জনের (বিসিপিএস) প্রেসিডেন্ট অধ্যাপক ডা. এএসএম গোলাম কিবরিয়া বলেন, বিএমঅ্যান্ডডিসির স্বীকৃত নয় এমন ধরনের ডিগ্রি যারা ব্যবহার করেন তাদের দৃষ্টান্তমূলক শাস্তি হওয়া উচিত। তিনি বলেন, বিদেশ গিয়ে বিভিন্ন বিষয়ে ট্রেনিং নিয়ে নামের পাশে ব্যবহার করা দেশ ও জাতির সঙ্গে প্রতারণার শামিল। অবিলম্বে এসব প্রতারণা বন্ধে সরকারের সংশ্লিষ্ট মন্ত্রণালয়ের দৃষ্টি আকর্ষণ করেন তিনি।

এ জাতীয় আরও খবর

চকবাজারে পলিথিন কারখানার আগুন নিয়ন্ত্রণে

দক্ষিণ আফ্রিকার বর্ষসেরা ক্রিকেটার মহারাজ

ধানমন্ডিতে বঙ্গবন্ধুর প্রতিকৃতিতে সর্বস্তরের মানুষের শ্রদ্ধা

শোক দিবসে সংঘর্ষ, ছাত্রলীগ কর্মীদের পেটাল পুলিশ

দল যখন ডাকবে তখনই সাড়া দেবো : সোহেল তাজ

কোনো সভ্য রাষ্ট্র খুনিদের প্রশ্রয় দেবে না: আইনমন্ত্রী

ভাসমানসহ সব শিশু টিকা পাবে: স্বাস্থ্যমন্ত্রী

২০৪১ সালে মাথাপিছু আয় হবে সাড়ে ১২ হাজার ডলার: প্রতিমন্ত্রী

মানুষ যেন স্বল্পসময়ে ন্যায়বিচার পায় : প্রধান বিচারপতি

আশপাশের সব ভবনই ঝুঁকিপূর্ণ : ফায়ার সার্ভিস

বাংলাদেশ সংকটে নেই, বিশ্ব সংকটে আছে : নৌ-প্রতিমন্ত্রী

বঙ্গবন্ধুর স্বপ্নপূরণে সংগ্রাম করে যাচ্ছেন শেখ হাসিনা: কাদের