বুধবার, ১৭ই আগস্ট, ২০২২ খ্রিস্টাব্দ ২রা ভাদ্র, ১৪২৯ বঙ্গাব্দ

কখন যে দূরে সরে যায়

ea911f911c6e20b246a06bcc65ffd9fa-Untitled-6 ইদানীং সে সবকিছু মা-বাবার কাছ থেকে আড়াল করতে চায়। বন্ধুদের সঙ্গে টেলিফোনে কথা বলার সময় মা-বাবা ঘরে ঢুকলে বিরক্ত হয়। কোনো পারিবারিক অনুষ্ঠানে যেতে চায় না, এমনকি তাঁদের সঙ্গে ঠিকমতো কথাও বলে না। বন্ধুরাই তার সব। তাদের সঙ্গে যখন কথা বলে মনে হয় যেন অন্য সামিরা। যদিও মা-বাবাকে অসম্মান করে না—তবুও কেন জানি তাঁদের সঙ্গে সামিরার একটা দূরত্ব তৈরি হয়েছে। মনের কোনো কথাই মা বা বাবার সঙ্গে ভাগাভাগি করে না।
১৫ বছর বয়সী রবিনের সমস্যা খানিকটা ভিন্ন। মা-বাবার অতিরিক্ত নজরদারির কারণে সে বিরক্ত। তার মা স্কুলের পুরো সময়টা ঠায় স্কুলের গেটে বসে থাকেন, সব কোচিংয়ে সঙ্গে করে নিয়ে যান। আবার সেখানে বসে থেকে সঙ্গে করে নিয়ে আসেন। রবিনের বন্ধুদের কাছে ফোন করে জিজ্ঞেস করেন রবিন ক্লাসে মনোযোগী কি না! ‘মাম্মিস বয়’ বলে খেপায় তাকে বন্ধুরা। বাবা রবিনকে সামান্য কিছু কেনার জন্যও একা বাইরে যেতে দেন না। এখন দেখা যাচ্ছে রবিন খানিকটা নিজের মধ্যে গুটিয়ে থাকে। বাবা-মায়ের সঙ্গে ঠিকমতো কথাও বলে না। হুঁ-হা করে কথা শেষ করে।
একটা সময়ের পর ছেলেমেয়েরা মা-বাবার কাছ থেকে দূরে সরে যায়। অনেক সময় সন্তান ও মা-বাবা কেউই বুঝতে পারেন না, কখন তাঁরা পরস্পরের থেকে দূরে সরে গেছেন। বিদেশে বা দূরে কোথাও না গিয়েও একই ছাদের নিচে থেকে সন্তানেরা মানসিকভাবে দূরে সরে যেতে পারে। মা-বাবার আচরণ, সন্তানের ব্যক্তিত্ব, পারিপার্শ্বিকতাসহ নানা কারণে এই দূরত্ব হতে পারে।

কেন এমন হয়?
অতিরিক্ত শাসন ও নজরদারি: সন্তানের ওপর অতিরিক্ত শাসন প্রয়োগ করলে, কথায় কথায় বকুনি দিলে বা প্রতিনিয়ত গোপন নজরদারি করলে সে একসময় দূরে সরে যেতে পারে।
তুলনা করলে: অপরের সঙ্গে তুলনা করে সন্তানকে বিদ্রূপ করলে সে হতাশ হয়ে পড়ে ও নিজেকে আড়াল করে নেয়।
দ্বন্দ্ব: সন্তানের ভালো মন্দ নিয়ে বাবা-মায়ের মধ্যে দ্বন্দ্ব দেখা দিলে সে তখন নিজেকে গুটিয়ে রাখে।
বন্ধুদের চাপ: অনেক সময় সমবয়সী বন্ধুদের চাপে নিজেকে ‘স্মার্ট’ প্রমাণ করতে বাবা-মায়ের বলয় থেকে বেরিয়ে আসতে গিয়ে তৈরি হয় দূরত্ব।
গোপনীয় বিষয় থাকলে: মা-বাবা পছন্দ করে না এমন কোনো কাজে জড়িয়ে পড়লে। বিষয়টি গোপন রাখার জন্য দূরত্ব বজায় রাখতে হয়।
নিজের জগৎ: সন্তানের নিজের জগৎ গড়ে উঠতে থাকলে একটা পর্যায়ে সে মনে করে তার বন্ধুরাই জীবনের সব। মা-বাবা তুচ্ছ। সে সময় তাচ্ছিল্য থেকে দূরত্ব তৈরি হয়।
যেন বন্ধুরাই সবমানসিক চাপে থাকলে: কোনো কারণে সন্তান মানসিক চাপ বোধ করলে।
মাদকাসক্তি ও অন্যান্য মানসিক সমস্যা: সন্তান মাদকাসক্ত হয়ে পড়লে বা কোনো ধরনের মানসিক সমস্যায় আক্রান্ত হলে তার আচরণে পরিবর্তন দেখা দেয়। এই আচরণ পরিবর্তনের ধারাবাহিকতায় সে দূরে সরে যেতে থাকে।
মা-বাবার কোনো সমস্যা: মা-বাবার মধ্যে কেউ মাদকাসক্ত হয়ে পড়লে, মানসিক রোগে আক্রান্ত হলে, আইনগত বড় ধরনের জটিলতায় পড়লে বা বিবাহবহির্ভূত কোনো সম্পর্কে জড়িয়ে গেলে সন্তানের সঙ্গে দূরত্ব তৈরি হতে পারে।
সন্তানকে সময় না দিলে: অতিরিক্ত বিত্ত-বৈভব বা পেশাজীবনের পেছনে ছুটতে থাকলে, সামাজিক কর্মকাণ্ডে বেশি জড়িয়ে পরিবারকে সময় না দিলে সন্তানের সঙ্গে বাবা-মায়ের দূরত্ব বাড়তে পারে।

কী করবেন?
মা-বাবার আচরণ ও দৃষ্টিভঙ্গির ওপর নির্ভর করে শিশুর সাবলীলভাবে বেড়ে ওঠা বা না ওঠা। খুব ছোটবেলা থেকেই মা-বাবার দৃষ্টিভঙ্গির পরিবর্তন ও তাঁদের ইতিবাচক আচরণ সন্তানের দূরে সরে যাওয়া রোধ করতে পারে। আবার বয়ঃসন্ধিকালে কিশোর-কিশোরীরা যদি তাঁদের মা-বাবাকে বুঝতে পেরে পরিবারমুখী হয়, তাঁদেরও বন্ধু মনে করে তবে দূরত্ব তৈরি হবে না। কোনো কারণে দূরত্ব তৈরি হলেও পরে তা কমিয়ে আনা সম্ভব। তবে এসব ক্ষেত্রে মা-বাবা ও সন্তান দুই পক্ষকেই এগিয়ে আসতে হবে। সন্তানের সঙ্গে মানসিক দূরত্ব তৈরি হোক তা কোনো বাবা-মায়েরই কাম্য নয়, আবার সন্তানও কিন্তু চায় বাবা-মায়ের স্নেহের ছায়ায় বেড়ে উঠতে। কোনো অযাচিত কারণে যদি এই দূরত্ব তৈরি হয়েই যায় তবে দৃষ্টিভঙ্গি ও আচরণ পরিবর্তন করে দূরত্ব কমিয়ে আনা যায়। এই দূরত্ব স্থায়ী হলে সন্তানের ভবিষ্যৎ পারিবারিক ও সামাজিক জীবন বাধাগ্রস্ত হবে। নিজেরা একেবারে ব্যর্থ হলে প্রয়োজনে বিশেষজ্ঞের পরামর্শ নিন।

কী করবেন কী করবেন না
 পারস্পরিক বোঝাপড়ার মাধ্যমে গুণগত সময় দিতে হবে।
 সন্তানের ওপর কোনো কিছু চাপিয়ে দেওয়া যাবে না।
 তার অজান্তে স্কুলের ব্যাগ ঘাঁটাঘাঁটি করা, গাড়িচালক বা বাসার নিরাপত্তা কর্মীর কাছ থেকে খোঁজখবর নেওয়া যাবে না। কোনো বিষয় জানতে চাইলে সরাসরি সন্তানের সঙ্গে কথা বলুন।
 সন্তানের সঙ্গে বাদানুবাদ এড়িয়ে চলতে হবে।
 সময় পেলে সবাই মিলে বেড়াতে যাওয়া, সিনেমা দেখা ও খেতে যেতে পারেন। এতে পারিবারিক বন্ধন দৃঢ় হয়।
 সন্তানের সঙ্গে সম্পর্কের ক্ষেত্রে কোনো কোনো সময় একটা সীমা রক্ষা করতে হবে। সন্তান যদি বন্ধুদের সঙ্গে আড্ডা দিতে থাকে তবে সেখানে আপনার অনধিকার প্রবেশ না করাই ভালো। আর বাবা-মায়ের সামনে তারা কথা বলতে থাকলে সেই আলোচনায় অংশ নেওয়ার চেষ্টা করবেন না। সব সময় স্কুলের গেটে বসে থাকা, কোচিংয়ের সামনের রাস্তায় দাঁড়িয়ে থাকা তাঁর জন্য বিব্রতকর হতে পারে।
 জন্মদিন, বিয়ে বার্ষিকী ইত্যাদি বিশেষ দিনগুলো সব সময় আয়োজন করে পালন করতে না পারলেও দিনটিতে সন্তান ও পরিবারকে বিশেষ সময় দিন।
 সন্তানকে মনে রাখতে হবে যে মা-বাবাও তার বন্ধু হতে পারে। তাই জীবনের সবকিছু না হলেও কিছু বিষয় তাদের সঙ্গে ভাগাভাগি করতে হবে।
 সন্তানের বন্ধুদের নিয়ে অযথা বিদ্বেষমূলক কথা বলা যাবে না। তবে কোনো অসৎ-বখাটে বন্ধু থাকলে সে বিষয়ে সন্তানকে সচেতন করে তুলতে হবে।