মঙ্গলবার, ২৮শে মে, ২০২৪ খ্রিস্টাব্দ ১৪ই জ্যৈষ্ঠ, ১৪৩১ বঙ্গাব্দ

লাকসাম-আখাউড়া রেললাইনে সহায়তা দিচ্ছে এডিবি ও ইআইবি

1 (11)লাকসাম-আখাউড়া ডাবল রেললাইন নির্মাণে সহায়তা দিচ্ছে এশীয় উন্নয়ন ব্যাংক (এডিবি) ও ইউরোপীয় ইনভেস্টমেন্ট ব্যাংক (ইআইবি)। এ অর্থে নতুন ভাবে ডাবল রেললাইন তৈরির পাশাপাশি বর্তমানে যে লাইন রয়েছে সেটিরও মানোন্নয়নের উদ্যোগ নেওয়া হয়েছে।
জাতীয় অর্থনৈতিক পরিষদের নির্বাহী কমিটির (একনেক) আগামী বৈঠকে এ প্রকল্পটি অনুমোদন দেওয়া হতে পারে। ইতোমধ্যেই প্রক্রিয়াকরণের কাজ শেষ করেছে পরিকল্পনা কমিশন।
এ বিষয়ে প্রকল্পটি প্রক্রিয়াকরণের দায়িত্বপ্রাপ্ত পরিকল্পনা কমিশনের ভৌত অবকাঠামো বিভাগের সদস্য আরাস্তু খান বলেন, ‘প্রকল্পটি বাস্তবায়িত হলে যাত্রীদের নিরাপদ ও আরামদায়ক সেবা প্রদান করা সম্ভব হবে। তাই জাতীয় অর্থনৈতিক পরিষদের নির্বাহী কমিটির (একনেক) আগামী সভায় অনুমোদনের জন্য সুপারিশ করা হয়েছে।’
তিনি আরও বলেন, ‘বাংলাদেশ রেলওয়ের আখাউড়া-লাকসাম সেকশনে নতুন ৭২ কিলোমিটার দ্বৈত রেললাইন নির্মাণ, বিদ্যমান ৭২ কিলোমিটার পুরাতন রেললাইনের মানোন্নয়ন এবং কম্পিউটার বেজড সিগন্যালিং সিস্টেম স্থাপনের মাধ্যমে সেকশনাল ক্যাপাসিটি বৃদ্ধিসহ রেলপথের মান উন্নয়ন হবে।’
সূত্র জানায়, বাংলাদেশ রেলওয়ের ঢাকা-চট্টগ্রাম করিডোর যাত্রী ও মালামাল পরিবহনের চাহিদা মেটাতে অবিচ্ছিন্ন ডাবল লাইন একান্ত অপরিহার্য হয়ে পড়েছে। টঙ্গী-ভৈরব বাজার এবং লাকসাম-চিনকি আস্তানা সেকশনে ডাবললাইন নির্মাণের কাজ চলছে। যা ২০১৫ সালের জুনের মধ্যে শেষ হবে।
এ ছাড়া দ্বিতীয় ভৈরব ও দ্বিতীয় তিতাস সেতু নির্মাণের কাজ এগিয়ে চলছে। এ সব কাজ শেষ হলে আখাউড়া-লাকসাম সেকশন বাকি থাকবে। এ ক্ষেত্রে প্রস্তাবিত প্রকল্পের আওতায় ডাবল লাইন নির্মিত হলে ঢাকা-চট্টগ্রাম রেলওয়ে করিডোর সম্পুর্ণ ডাবল লাইনে উন্নীত হবে। আখাউড়া-লাকসাম সেকশনে বিদ্যমান লাইনের পাশে একটি নতুন মিটারগেজ লাইন নির্মাণ করা হবে।
প্রস্তাবিত লাকসাম-আখাউড়া ডাবল লাইন নির্মাণ সংক্রান্ত প্রকল্পটি বাস্তবায়নে মোট ব্যয় হবে ৫ হাজার ৮৩৩ কোটি ৬৯ লাখ ৫০ হাজার টাকা। এর মধ্যে এশীয় উন্নয়ন ব্যাংক (এডিবি) ঋণ দিচ্ছে প্রায় সাড়ে ৪ হাজার ৪০ কোটি টাকা (৫০৫ মিলিয়ন মার্কিন ডলার)। এ ছাড়া সহযোগী অর্থায়নকারী হিসেবে ইউরোপীয় ইনভেস্টমেন্ট ব্যাংক (ইআইবি) দিচ্ছে প্রায় ১ হাজার ৪০০ কোটি টাকা (১৭৫ মিলিয়ন মাকিন ডলার)। বাকি টাকা সরকারি তহবিল থেকে ব্যয় করা হবে।
অর্থনৈতিক সম্পর্ক বিভাগ সূত্র জানায়, এডিবির মোট ঋণের মধ্যে এশিয়ান ডেভেলপমেন্ট ফান্ড (এডিএফ) থেকে একেবারেই সহজ শর্তে পাওয়া যাবে প্রায় ৮৪০ কোটি টাকা (১০৫ মিলিয়ন মার্কিন ডলার) আর অর্ডিনারি রিসোর্স ফান্ড (ওসিআর) থেকে কিছু বেশি সুদে পাওয়া যাবে প্রায় ৩ হাজার ২০০ কোটি টাকা (৪০০ মিলিয়ন মার্কিন ডলার)। সহজ শর্তের এ ঋণের সুদের হার ২ শতাংশ। পাঁচ বছরের গ্রেস পিরিয়ডসহ ২৫ বছরে এ ঋন পরিশোধ করতে হবে বাংলাদেশকে। এ ঋণ নিয়ে এডিবির সঙ্গে নেগোশিয়েশন শেষ হয়েছে। প্রকল্পটি জাতীয় অর্থনৈতিক পরিষদের নির্বাহী কমিটির (একনেক) সভায় অনুমোদন হলেই চুক্তি স্বাক্ষর করা হবে।
Ads By softonic×সূত্র আরও জানায়, আগামী তিন বছরে (২০১৫-১৭ সাল পর্যন্ত) বাংলাদেশকে প্রায় ২০ হাজার কোটি টাকা ঋন দিচ্ছে এশীয় উন্নয়ন ব্যাংক (এডিবি)। এর মধ্যে সহজ শর্তে দশ হাজার এবং তুলনামূলক কিছুটা কঠিন শর্তে দশ হাজার কোটি টাকা পাওয়া যাবে। আগামী তিন বছর এডিবি বিদ্যুৎ উৎপাদন, পরিবহন ও রেল উন্নয়ন খাতে এ পরিমাণ বিনিয়োগ করবে। চলতি অর্থবছরে সংস্থাটি বিদ্যুৎ বিতরণ ব্যবস্থা উন্নয়নের জন্য ঋন দিয়েছিল। এ ছাড়া আগামী তিন বছর এডিবি কো-ফাইনান্সিং এ বেশি গুরুত্ব দেবে। অর্থাৎ বড় বড় প্রকল্প বাস্তবায়নে তাদের নেতৃত্বে আরও বিভিন্ন উন্নয়নসহযোগী সংস্থাকে যুক্ত করার প্রচেষ্টা চালাবে। যা ইতোমধ্যেই চলতি অর্থবছরে কিছু প্রকল্পে শুরু হয়েছে। এটি যাতে আরও বেশি করা যায় সেদিকে গুরুত্ব দেবে এডিবি।
অন্যদিকে, প্রকল্প বাস্তবায়ন দ্রুত করতে এডিবি নতুন কৌশল নেওয়ার সিদ্ধান্ত নিয়েছে সংস্থাটি। ইতোমধ্যেই এ বিষয়টি আলোচনার মাধ্যমে চূড়ান্ত হয়েছে বলে অর্থনৈতিক সম্পর্ক বিভাগ (ইআরডি) এবং এডিবির বাংলাদেশ অফিস সূত্রে জানা গেছে।