শুক্রবার, ২৪শে মে, ২০২৪ খ্রিস্টাব্দ ১০ই জ্যৈষ্ঠ, ১৪৩১ বঙ্গাব্দ

ত্রিপুরা-বাংলাদেশ সীমান্ত বাণিজ্যের সম্ভাবনা বিপুল

Tripuraঅনলাইন ডেস্ক : ভারতের উত্তর-পূর্বাঞ্চলীয় স্থলবেষ্টিত রাজ্য ত্রিপুরার সঙ্গে বাংলাদেশের সীমান্ত বাণিজ্যের সম্ভাবনাকে কাজে লাগাতে পারলে সেটা ত্রিপুরার জন্য বয়ে আনবে এক আশীর্বাদ। ত্রিপুরার আগরতলা থেকে কলকাতার দূরত্ব ১,৭০০ কিলোমিটার। কিন্তু ঢাকা ও চট্টগ্রামের দূরত্ব মাত্র ১৪০ কিলোমিটার। স্থল কাস্টমস স্টেশনের মধ্য দিয়ে ওই দুটি শহর থেকে ত্রিপুরায় মালপত্র আনা অনেক সুবিধাজনক তো বটেই, লাভজনকও। এই ভৌগলিক নৈকট্যকে কাজে লাগিয়ে পরিবহন খরচ কমিয়ে লাভজনক ব্যবসা করা সম্ভব বলে জানান ভারত-বাংলাদেশ চেম্বার অব কমার্সের সাবেক সভাপতি প্রশান্ত ভট্টাচার্য।
ভারত-বাংলাদেশ দ্বিপক্ষীয় ব্যবসা-বাণিজ্য ভারতের অনুকূলে হলেও ত্রিপুরা-বাংলাদেশের বাণিজ্যের ছবিটা ঠিক তার বিপরীত। কেন্দ্রীয় বাণিজ্য মন্ত্রণালয়ের পরিসংখ্যান অনুসারে, ২০১৩ সালে বাংলাদেশ ত্রিপুরায় রপ্তানি করে ৩৪২ কোটি টাকার পণ্য সামগ্রী আর সে ক্ষেত্রে ত্রিপুরা থেকে বাংলাদেশে যায় মাত্র ০.৪১ কোটি টাকার সামগ্রী। কারণ ত্রিপুরা থেকে যেসব মালপত্র যায়, তার ওপর বাংলাদেশ ৪০ শতাংশ শুল্ক বসানোর ফলে ১০০ টাকার পণ্য বাংলাদেশের বাজারে দাম পড়ে ১৪০ টাকা। ত্রিপুরা-বাংলাদেশ বাণিজ্য ঘাটতি বিরাট হওয়া সত্ত্বেও ত্রিপুরাবাসীরা উপকৃত হতে পারে যদি বাংলাদেশি পণ্য সুলভ হয়। এই বাণিজ্য আরো ফুলে-ফেঁপে উঠবে আগামী ২০১৫ সালে, আগরতলা-আখাউড়ার মধ্যে ১৫ কিলোমিটার রেলপথ চালু হলে এবং চারটি সীমান্ত হাট খুললে, বলেন ত্রিপুরা বণিক সংঘের প্রাক্তন সভাপতি প্রশান্ত ভট্টাচার্য।
ত্রিপুরা শিল্প উন্নয়ন নিগমের সাবেক চেয়ারম্যান পবিত্র কর বলেন, দেশভাগের আগে এইসব এলাকা ছিল সাধারণ মানুষের জন্য উন্মুক্ত। ঘনিষ্ঠ ছিল মানুষের সঙ্গে মানুষের যোগাযোগ। কাছাকাছি হবার কারণে এবং ভাষাগত ও সাংস্কৃতিক ব্যবধান কার্যত না থাকার দরুণ স্থানীয় স্তরে ব্যবসা-বাণিজ্য ছিল অবাধ। সরকার এখন চাইছে আইনগত প্রক্রিয়ার মাধ্যমে এই ব্যবসা-বাণিজ্যকে আনুষ্ঠানিক রূপ দিতে যাতে সরকার রাজস্ব আদায় করতে পারে। এর এক বিকল্প হলো সীমান্ত হাট। ত্রিপুরা সরকারের শিল্প ও বাণিজ্য উন্নয়ন বিভাগের এক কর্মকর্তা স্বপন মিত্র জানান, প্রস্তাব ছিল ত্রিপুরা রাজ্যের জন্য আটটি সীমান্ত হাটের। কিন্তু প্রথম পর্যায়ে চারটি সীমান্ত হাট খোলার জন্য কাজ চলছে। তবে প্রথমে চালু হবে মাত্র দুটি। সীমান্ত হাটের সুবিধা পাবে দুই পারের পাঁচ কিলোমিটার এলাকার মানুষ। বেচাকেনার পরিমাণ ১০০ ডলার বা ছয় হাজার টাকার বেশি হতে পারবে না। বেচাকেনা হবে প্রধানত শাক-সবজি, ফল-ফলাদি ইত্যাদি। তবে লেনদেন হতে পারে ভারত ও বাংলাদেশের নিজস্ব মুদ্রায়।
ত্রিপুরার বাণিজ্যমন্ত্রী জিতেন চৌধুরি বলেছেন, ত্রিপুরার সঙ্গে বাংলাদেশের বাণিজ্যিক সম্ভাবনা বাড়াতে ত্রিপুরাকে চট্টগ্রাম বন্দরের সঙ্গে যুক্ত করার প্রকল্প হাতে নিয়েছে দুই দেশের সরকার। তার জন্য ফেনী নদীর ওপর ব্রিজ তৈরি হচ্ছে। এই প্রকল্পের কাজ শেষ হলে ত্রিপুরা শুধু বাংলাদেশের সঙ্গেই নয় গোটা দক্ষিণ এশিয়ার প্রবেশ দ্বার হবে বলে জানান ত্রিপুরার বাণিজ্যমন্ত্রী জিতেন চৌধুরি। ত্রিপুরা চেম্বার অব কমার্সের সচিব এম. এল দেবনাথ বলেন, শুধু সীমান্ত বাণিজ্যই নয়, কর্মসংস্থানের সুযোগও বাড়বে। ত্রিপুরা তিন দিক থেকে বাংলাদেশের সঙ্গে স্থলবেষ্টিত। রাজ্যের মোট ভৌগলিক আয়তনের ৮৫ ভাগ বাংলাদেশ লাগোয়া। বর্তমানে সাতটি ল্যান্ড কাস্টমস স্টেশন আছে। আগরতলা, সোনামুড়া, খোয়াইঘাট, কৈলাসর, ধরমনগর, বেলোনিয়া এবং সাব্রুম। সীমান্ত বাণিজ্য প্রক্রিয়া ত্বরান্বিত করতে কেন্দ্রীয় সরকারের কাছে চিঠি পাঠানো হয়েছে।
সূত্র : ডয়চে ভেলে