মঙ্গলবার, ২১শে মে, ২০২৪ খ্রিস্টাব্দ ৭ই জ্যৈষ্ঠ, ১৪৩১ বঙ্গাব্দ

কুমিল্লা-সিলেট মহাসড়কের গর্ত, খানাখন্দে মরণফাঁদ

Com-Sy Roadঅনলাইন ডেস্ক : কুমিল্লা-সিলেট মহাসড়কের ব্রাহ্মণবাড়িয়ার ৪২ কিলোমিটার অংশের পুরোটাজুড়েই রয়েছে খানাখন্দ। এর বড় বড় গর্তে বৃষ্টির পানি জমে ডুবে আছে মহাসড়কটি। সড়কের কয়েকটি সেতু ও কালভার্টও বেশ ঝুঁকিপূর্ণ। ছোট-বড় গর্ত, খানাখন্দ আর ঝুঁকিপূর্ণ সেতু-কালভার্টের কারণে সড়কটি এখন মরণফাঁদে পরিণত হয়েছে।

সড়ক ও জনপদ অধিদপ্তর (সওজ) সূত্রে জানা গেছে, ব্রাহ্মণবাড়িয়ার সরাইল বিশ্বরোড থেকে কুমিল্লার ময়নামতি পর্যন্ত মহাসড়কটির দৈর্ঘ্য ৮২ কিলোমিটার। এর মধ্যে ব্রাহ্মণবাড়িয়ার অংশ প্রায় ৪২ কিলোমিটার। এর পুরোটাজুড়েই খানাখন্দে ভরা। এ ছাড়া সড়কের এই অংশে বল্লভপুর সেতু এবং সুহীলপুর ও বেতবাড়িয়ার দুটি কালভার্টও বেশ ঝুঁকিপূর্ণ।

ঈদুল ফিতরের আগে সড়কের খানাখন্দ ও বড় গর্তগুলো মেরামত করা হয়। কিন্তু বৃষ্টির পানিতে সড়কটি আবারও আগের খারাপ অবস্থায় ফিরে গেছে। সড়কটি যান চলাচলের জন্য পুরোপুরি অনুপযোগী না হলেও যানবাহন চলাচল খুবই ঝুঁকিপূর্ণ হয়ে উঠেছে।

সম্প্রতি সরেজমিনে দেখা গেছে, খানাখন্দের কারণে বড় যানগুলো ডানে-বাঁয়ে হেলেদুলে কোনোরকমে পার হচ্ছে। কোথাও কোথাও ছোট যানগুলোকে ঝুঁকি নিয়ে সড়কের পাশে নামিয়ে রাখতে হচ্ছে। অতিরিক্ত ঝাঁকুনিতে যাত্রীরাও অসুস্থ হয়ে পড়ছেন। আখাউড়া অংশের ধরখার ও তন্তর বাজার এবং তিনলাখপীর এলাকার সড়কে এমন অসংখ্য খানাখন্দ রয়েছে। এখানে পানি জমে এমন অবস্থা হয়েছে যে, তাতে সড়কের অস্তিত্ব আছে বলেই মনে হয় না।

ব্রাহ্মণবাড়িয়ার এই সড়ক দিয়ে ঢাকা-আগরতলা পথে চলাচলকারী দুই দেশের দুটি আন্তর্জাতিক বাস, নৌ প্রটোকলের আওতায় আনা উত্তর-পূর্ব ভারতে ত্রিপুরাগামী ভারতীয় চালবোঝাই ট্রাক, আখাউড়া স্থলবন্দরে রপ্তানির জন্য যাওয়া পণ্যবাহী ট্রাক, কুমিল্লা-সিলেট, ময়মনসিংহ ও ভৈরব থেকে চট্টগ্রাম, সিলেট-চট্টগ্রাম পথের দূরপাল্লার যানবাহন চলাচল করে। কুমিল্লা শহরের বাসিন্দা আবু তাহের বলেন, ‘কুমিল্লা থেকে বিশ্বরোড পর্যন্ত পুরো সড়ক খারাপ জেনেও আল্লাহর নাম নিয়ে যাতায়াত করতে হয়।’

ধরখার ইউনিয়ন পরিষদ চেয়ারম্যান মো. সাফিকুল ইসলাম  বলেন, সড়কের ধরখার ও তন্তর বাজার অংশটি বেশি খারাপ। প্রায় সময়ই গর্তগুলোতে যানবাহন আটকে যায়। এতে সড়কে দীর্ঘ সময় ধরে যান চলাচল বন্ধ থাকে। বৃষ্টিতে সড়কের ছোট-বড় গর্তগুলো পানিতে ডুবে আছে। বিষয়টি সংশ্লিষ্টদের জানানো হলে যে সংস্কার করা হয়, তা এক দিনও টেকে না।

ভাটামাথা মৎস্য আড়ত পরিচালনা কমিটির সাধারণ সম্পাদক মো. বাছির মিয়া বলেন, তন্তর বাজার এলাকায় মহাসড়কের পাশে অনেকগুলো মৎস্য আড়ত রয়েছে। দেশের বিভিন্ন স্থান থেকে এখানে মাছ আনা-নেওয়া করা হয়। এই আড়ত থেকে প্রতিদিন কয়েক শ ঝুড়ি মাছ ত্রিপুরায় রপ্তানি হয়। রাস্তা খারাপ থাকায় আড়তে মাছ আমদানি কমে গেছে। সম্প্রতি কমিটির পক্ষ থেকে প্রায় ৬০ হাজার টাকা ব্যয়ে আড়তের পাশে মহাসড়কের কয়েকটি গর্ত মেরামত করা হয়।

কুমিল্লা-সিলেট পথে চলাচলকারী কুমিল্লা ট্রান্সপোর্টের বাসচালক জাহাঙ্গীর আলম বলেন, এই পথে যাত্রী কমছে। ঝাঁকুনির কারণে শিশু ও নারী যাত্রীরা অসুস্থ হয়ে পড়েন। ট্রাকচালক আনোয়ার হোসেন বলেন, এই সড়কে গাড়ি আনলেই যন্ত্রাংশ ভাঙতে থাকে। এ কারণে পণ্য পরিবহনে অতিরিক্ত ভাড়া নেওয়া হয়।

সড়কের নাজুক অবস্থার কথা স্বীকার করে ব্রাহ্মণবাড়িয়া সওজের নির্বাহী প্রকৌশলী শ্যামল কুমার ভট্টাচার্য বলেন, প্রতিদিন সড়কে খানাখন্দ সংস্কারকাজ করা হচ্ছে। তাতে সড়কটিতে কোনোরকমে যান চলাচল স্বাভাবিক রয়েছে। এভাবে মেরামত করে সড়কটি সম্পূর্ণ সচল রাখা সম্ভব নয়। সড়কটি পুনর্নির্মাণ করা জরুরি। ইতিমধ্যে চার লেনের নকশা সংশ্লিষ্ট দপ্তরে পাঠানো হয়েছে। টাকা বরাদ্দ হলেই কাজ শুরু হবে।