শুক্রবার, ২৪শে মে, ২০২৪ খ্রিস্টাব্দ ১০ই জ্যৈষ্ঠ, ১৪৩১ বঙ্গাব্দ

সৌদিতে অবৈধ শ্রমিক ধরতে নতুন করে অভিযান

KSA arবুধবার থেকে অবৈধ বিদেশি নাগরিকদের গ্রেপ্তার করতে বিশেষ অভিযান শুরু করেছে সৌদি আরব সরকার। তবে নতুন করে শুরু হওয়া অভিযানে কোনো বাংলাদেশি নাগরিক আটক হয়েছেন কি না তা নিশ্চিত করে বলতে পারেনি সৌদিতে অবস্থিত বাংলাদেশি দূতাবাস।

এই বিষয়ে বাংলাদেশি রাষ্ট্রদূত শহিদুল ইসলাম বলেন, অবৈধ নাগরিক গ্রেপ্তারে সৌদি সরকারের অভিযানে আমরা ভিত নই। কারণ মার্চ মাসের এ্যামনেস্টি সুযোগ নেওয়ার পর থেকে খুব সংখ্যক অবৈধ বাংলাদেশি সৌদি আরবে কাজ করেন। তবে কিছু বাংলাদেশি নাগরিক যারা হজ্জ ও ওমরাহ ভিসা নিয়ে এখানে এসেছেন তারা অবৈধভাবে কাজ করতে পারেন।
 গণমাধ্যমের রিপোর্ট অনুযায়ী বিগত ছয় মাসে বিশেষ অভিযান চালিয়ে লক্ষাধিক অবৈধ বিদেশি শ্রমিকদের দেশ থেকে বহিষ্কার করেছে সৌদি সরকার। বহিষ্কৃতদের মধ্যে অনেক বাংলাদেশি নাগরিক ছিলেন।
 
ইংরেজি দৈনিক আরব নিউজ গতকাল একটি সংবাদ পরিবেশন করে যে গত মঙ্গলবার শ্রম ও অভ্যন্তরীণ মন্ত্রণালয় অবৈধ নাগরিকদের বিষয়ে সিদ্ধান্ত গ্রহণ করার জন্য জরুরি মিটিং করেছে। সভায় কর্মরত বিদেশি শ্রমিকদের কাগজপত্র যাচাই বাছাই করার জন্য সিদ্ধান্ত নিয়েছে মন্ত্রণালয় দুটি। সৌদি সরকার নতুন করে অবৈধ শ্রমিকদের ধরপাকড় করার সিদ্ধান্ত কারণ এ্যামনেস্টি সময়সীমা পার করার পরেও অনেক বিদেশি শ্রমিক দেশটিতে অবৈধভাবে কাজ ও বসবাস করছেন। মঙ্গলবারের জরুরি সভায় অবৈধ নাগরিকদের ধরতে পৃষ্ঠপোষক ও নিয়োগদাতা কোম্পানিগুলোর সাহায্য চেয়েছে একটি বিবৃতি দিয়েছে মন্ত্রণালয়। যদি শ্রমিকরা ঝামেলা করেন তবে পৃষ্ঠপোষক কোম্পানির বিরুদ্ধে কঠোর ব্যবস্থা গ্রহণ করার বিষয়েও কড়া হুঁশিয়ারি দেওয়া হয়েছে। বলা হয়েছে নির্দিষ্ট ব্যক্তি ও পৃষ্ঠপোষক অবৈধ শ্রমিকদের কাজ করার সুযোগ দিলে ১৫ হাজার সৌদি রিয়াল জরিমানা করা হবে এবং আটককৃত অবৈধ শ্রমিককে ফেরত পাঠিয়ে দেওয়া হবে। তবে জরিমানার পরিমাণ আরও বৃদ্ধি করা হবে অপরাধের মাত্রার উপর।
 
উল্লেখ্য বিগত বছরের মে মাস থেকে ৪ জুলাই পর্যন্ত এ্যামনেস্ট সময় ঘোষণা করে সৌদি কর্তৃপক্ষ। এই বিশেষ সুযোগ অনুযায়ী অনেক অবৈধ বিদেশি শ্রমিক কাগজপত্র বৈধ, ভিসার মেয়াদ বৃদ্ধি অথবা বিনা জরিমানায় দেশে ফিরে যাওয়ার মত করার সুযোগ গ্রহণ করেন। কয়েক দফা সুযোগের মেয়াদ বাড়িয়ে সর্বশেষ চলতি বছরের মার্চ মাস পর্যন্ত বৃদ্ধি করা হয়। এতে করে সৌদিতে বসবাসকারী আট লাখ অবৈধ বাংলাদেশি শ্রমিকরা কাগজপত্র বৈধ করে নেওয়ার অমূল্য সুযোগ পান।
 
দূতাবাস সূত্র অনুযায়ী প্রায় ১৫ লাখ বাংলাদেশি নাগরিক মধ্যপ্রাচ্যের তেল সমৃদ্ধ এই দেশটির বিভিন্ন খাতে কাজ করছেন।