মঙ্গলবার, ৩০শে মে, ২০২৩ খ্রিস্টাব্দ ১৬ই জ্যৈষ্ঠ, ১৪৩০ বঙ্গাব্দ

অস্বাভাবিক মৃত্যুর মিছিল

Death michilজন্ম হয়েছে, মৃত্যু হবে-এটাই নিয়তির খেলা।তাই বলে অসময়ে অস্বাভাবিকভাবে অসংখ্য মৃত্যুর ঘটনা নিয়তির ওপর ছেড়ে দেয়া যায় না। গত কয়েকদিন ধরে গণমাধ্যমের প্রধান প্রধান শিরোনাম ছিল অসংখ্য সাধারণ মানুষের অস্বাভাবিক মৃত্যুর খবর।



ঈদের আনন্দের রেশ কাটতে না কাটতে পত্রিকাগুলোর শিরোনামে ছাপা হচ্ছে মর্মান্তিক সব মৃত্যুর খবর। পদ্মায় লঞ্চডুবির ঘটনায় নিখোঁজ যাত্রীদের লাশ যখন দেশের বিভিন্ন প্রান্তে ভেসে উঠছে সেই খবরের সঙ্গে আরো যুক্ত হচ্ছে বিভিন্ন স্থানে সড়ক দুর্ঘটনাসহ নিহতের খবর।  



একটি জাতীয় দৈনিকের প্রথম পাতায় পাচঁটি সংবাদ ছিল নিহতের খবর নিয়ে। ‘পদ্মায় লঞ্চডুবির ঘটনায় নিখোঁজ যাত্রীদের লাশ পদ্মা নদীর ভাটিতে ও মেঘনা নদীতে ভেসে উঠছে।’ ‘লিবিয়ার ত্রিপলি ও বেনগাজিতে পৃথক দুই মিসাইল হামলায় সাত বাংলাদেশি নিহত হয়েছেন।’ ‘ঢাকা-সিলেট মহাসড়কের নরসিংদীর শিবপুরে কারারচর নামক স্থানে দু’টি যাত্রীবাহী  বাসের মুখোমুখি সংঘর্ষে ১০ জন নিহত ’ । ‘সিরাজগঞ্জের চৌহালী উপজেলায় যমুনা নদীতে নৌকাডুবির ঘটনার ৭দিন পর আরো এক নারীর লাশ উদ্ধার’ ৯ জনের লাশ হস্তান্তর’ ‘বরগুনা সদর উপজেলার সোনাতলা গ্রামের জেলে মো. জালাল হাওলাদারের লাশ  উদ্ধার।’



এ ছাড়া ঈদের দিন থেকে সারাদেশে সড়ক দুর্ঘটনায় নিহত হয়েছে শতাধিক।



শুধু ঈদের পরের পাঁচ জেলায় সড়ক দুর্ঘনায় ২০ জন নিহত হওয়ার খবর প্রকাশিত হয়।  এর মধ্যে নোয়াখালীতে ৮ জন, নারায়ণগঞ্জে ৪, ভোলায় ৩, ফরিদপুরে ৪ এবং মাগুরায় ১ জন।



একের পর এক মর্মান্তিক সব দুর্ঘটনার খবর বলা হলেও এই মৃত্যুর গল্প যেন শেষ হওয়ার নয়। এভাবে প্রায় প্রতিদিনই কারো না কারো প্রাণ কেড়ে নিচ্ছে  অনাকাঙ্ক্ষিত দুর্ঘটনা। এর মধ্যে সড়ক দুর্ঘটনায় প্রতিনিয়ত নিহত হচ্ছে অসংখ্য মানুষ। পঙ্গুত্ব বরণ করছে কত মানুষ তারতো কোনো ইয়ত্তা নাই।



এজন্য 'সড়ক দুর্ঘটনাকে মহামারী' বললেও কম বলা হবে। এমন কোনো দিন নেই যেদিন দৈনিক পত্রিকাগুলোতে ভয়াবহ সব সচিত্র সড়ক দুর্ঘটনার খবর প্রকাশিত হচ্ছে না। এসব সড়ক দুর্ঘটনায় একদিকে বেঘোরে প্রাণ হারাচ্ছে সাধারণ পথচারী ও যাত্রীরা, অন্যদিকে আজীবন পঙ্গুত্ব বরণ করতে হচ্ছে অনেককে।  



একদিকে সড়কে লাশের স্তুপ হবে আর অন্যদিকে সংশ্লিষ্ট কর্তৃপক্ষ হাত-পা গুটিয়ে বসে থাকবেন_ এর চেয়ে হতাশার আর কী হতে পারে? একটি দুর্ঘটনা আলোচিত হলে নানা মহলের তৎপরতা দেখা যায়। কিন্তু রক্তের দাগ মুছে যেতে না যেতেই এসব তৎপরতা বন্ধ হয়ে যায়।



একটি রাষ্ট্রের অন্যতম দায়িত্ব হচ্ছে মানুষের জীবনের নিরাপত্তার বিধান করা। সারা দেশে সংঘটিত দুর্ঘটনায় সরকারের সংশ্লিষ্ট বিভাগের কারো মাথাব্যথা নেই বলেই অভিযোগ সাধারণ মানুষের।