মঙ্গলবার, ২৫শে জুন, ২০২৪ খ্রিস্টাব্দ ১১ই আষাঢ়, ১৪৩১ বঙ্গাব্দ

লঞ্চডুবিতে অলৌকিকভাবে বেঁচে যায় শিশু ইরা-রোজিনা

luckএকেই বলে ভাগ্য। কথায় আছে, রাখে আল্লাহ মারে কে। এ কথাটির প্রমাণ করতেই যেন পদ্মায় পিনাক-৬ লঞ্চডুবি ঘটনায় অলৌকিক বেঁচে এসেছে শিশু ইরা ও রোজিনা। শিবচরের চরশ্যামাইল এলাকার ৮ বছর বয়সী রোজিনা আক্তার। একই এলাকার ইকবাল মুন্সীর ঢাকার বাড়িতে কাজ করার জন্য সকালে ঢাকার উদ্দেশে পাঠান মা জরিনা বেগম। ঈদ শেষে ঢাকায় ফেরার সময় ইকবাল মুন্সী বাসার কাজের জন্য মেয়েটিকে নিয়ে লঞ্চে ওঠেন সকাল ৯টায়। লঞ্চটি ডুবে গেলে ইকবাল মুন্সী ও তার আড়াই বছর বয়সী শিশুকন্যা ইরাও পানিতে ডুবে যায়। এসময় ইরা তার বাবার গলা ধরে ভেসেছিল। প্রায় পনেরো মিনিটি পানিতে ভেসে থাকার পর একটি সিবোট গিয়ে ইকবাল মুন্সী ও তার মেয়েকে উদ্ধার করে। কিন্তু কোন খোঁজ পাওয়া যায়নি রোজিনার। সবাই ভেবেছিল শিশুটি স্রোতে ভেসে গেছে। তার লাশটিও পাওয়ার আশা ছেড়ে দিয়েছিল সবাই। লঞ্চ ডুবে যাওয়ার চার ঘণ্টা পর পদ্মা নদীর অনেক ভাটিতে গিয়ে একটি শিশুকে ভাসতে দেখে উদ্ধারকারী দল। প্রচণ্ড স্রোত আর উত্তাল ঢেউয়ের মধ্যে একটি কাপড়ের ব্যাগ ধরে ভেসেছিল শিশুটি। এইটুকু অবলম্বন নিয়ে অলেৌকিকভাবে বেঁচে গেছে রোজিনা। পরে তাকে জীবিত উদ্ধার করে মাওয়া ঘাটে নিয়ে আসা হয়। কাওড়াকান্দি ঘাটে এসে মাইকে ঘোষণা করলে ইকবাল মুন্সি শিশুটিকে শনাক্ত করেন। পরে শিশু রোজিনা চিকিত্সার জন্য ঢাকায় নেয়া হয়েছে।