শুক্রবার, ২৪শে মে, ২০২৪ খ্রিস্টাব্দ ১০ই জ্যৈষ্ঠ, ১৪৩১ বঙ্গাব্দ

সকালের নাস্তার উপকারিতা অনেক

breakfast_21689সকালের নাস্তাকে অনেকেই দিনের সবচেয়ে জরুরি খাবার বলে মনে করেন। কিন্তু এরপরও কিছু মানুষ আছেন যারা নানা অজুহাতে সকালের নাশতায় ফাঁকি দেন। সাম্প্রতিক এক গবেষণায় দেখা গেছে, সকালের নাশতা বেশি পরিমাণে ক্যালরি পোড়াতে সাহায্য করে এবং সারাদিন ধরে রক্তে শর্করার পরিমাণ নিয়ন্ত্রণেও তা সাহায্য করে। তাই প্রতিদিন সকালে স্বাস্থ্যকর এবং ভারী নাস্তা খেলে মস্তিষ্ক পুরোদিনের জন্য তৈরি হয়ে যায় এবং সারাদিন শক্তি পাওয়া যায়।

কিন্তু সব ভারী খাবারই স্বাস্থ্যকর নয়। তাই আমাদের জানতে হবে সকালের নাস্তায় কোন খাবারগুলো খাওয়া একেবারেই উচিত নয় এবং কোন খাবারগুলো খাওয়া উচিত।

ডিম: ডিমকে বলা হয় ‘সুপারফুড’। ডিমে রয়েছে প্রচুর পরিমাণে ভিটামিন এবং মিনারেলস। প্রোটিনের সবচেয়ে ভালো উৎস হচ্ছে ডিম।এতে ক্যালোরিও থাকে বেশ কম। সকালের নাস্তায় অবশ্যই প্রত্যেকের ডিম খাওয়া উচিত। একজন পূর্ণবয়স্ক মানুষের সকালে ২টি ডিম খেলেই যথেষ্ট। তবে যারা একটু বেশি স্বাস্থ্যবান ও যাদের ডায়াবেটিস আছে তাদের ডিমের কুসুম এড়িয়ে যাওয়া উচিত। সকালে ডিম সেদ্ধ বা ডিমের অমলেট দিয়ে নাস্তা সারতে পারেন।

আটার রুটি: সকালের নাস্তার জন্য বেশ ভালো একটি খাবার হচ্ছে আটার রুটি। বিশেষ করে যারা ভারী খাবার পছন্দ করেন। সকালে পাউরুটি বা ভাতের চেয়ে আটার রুটি সবজি ভাজি বা ডিম অথবা ঝোলের তরকারি কিংবা কলা দিয়ে খাওয়া স্বাস্থ্যের জন্য ভালো। এছাড়া রুটি বেশ ভালো শক্তি সরবরাহ করে। এ শক্তি একজনকে পুরো দিনই সতেজ রাখে। তবে অবশ্যই তেলে ভাজা পরোটা থেকে দূরে থাকা উচিত।

ফলমূল: সকালের নাস্তার জন্য আরেকটি সবচেয়ে ভালো খাবার হচ্ছে ফলমূল। কলা, আপেল, কমলা, স্ট্রবেরি, আঙুর ইত্যাদি ধরণের ফলমূল অথবা মৌসুমি ফলমূল দিয়ে সকালের নাস্তা করা যেতে পারে। ২ টি কলা, ১ টি আপেল, ১ টি কমলা, ২-৩ টি স্ট্রবেরি এভাবে শুধু ফল দিয়ে নাস্তা করা সকালের জন্য ভালো। ফলমূল দিয়ে সালাদের মত তৈরি করেও খেতে পারেন।

অন্যদিকে সকালে যে সব খাবার খাওয়া উচিত নয় সেগুলো হলো-

ভাত : সকালে একটু ভারি খাবার খাওয়া ভালো। কিন্তু ভারি খাবার মানে ভাত বা ভাত জাতীয় ভারি খাবার নয় মোটেই। কেননা ভাত খেলে দেহে কার্বোহাইড্রেটের পরিমাণ অনেক বেড়ে যায়। ফলে সারাদিন দেহে ক্লান্তি ভর করে। মস্তিষ্ক দুর্বল অনুভব করে। সুতরাং সকালের নাস্তায় ভাত খাওয়া থেকে দূরে থাকুন।

তৈলাক্ত খাবার: সকালের নাস্তায় পরোটা কিংবা তেলে ভাজা সিঙ্গারা সমুচা খুবই অস্বাস্থ্যকর খাবার। এতে দিনের শুরুতেই দেহে ফ্যাট জমা শুরু হয় এবং শরীর ভারী হয়ে আসে। সকালের তরতাজা ভাব একেবারেই দূর হয়ে যায়। এমনকি তেলে ভাজা ডিমও সকালের নাস্তার জন্য ক্ষতিকর। সুতরাং সকালের নাস্তায় তেলে ভাজা খাবার অভ্যাস ত্যাগ করুন।

বিস্কুট : অনেকেই আছেন সকালের নাস্তায় চায়ের সঙ্গে ২-৩ টি বিস্কুট খেয়ে থাকেন। এই কাজটি মোটেও করবেন না। সারারাত না খাবার ফলে সকালে আমাদের পরিপাকযন্ত্র দিনের অন্যান্য সময়ের তুলনায় একটু দুর্বল থাকে। তখন শক্ত বিস্কুট জাতীয় খাবার আমাদের পরিপাকযন্ত্রের হজম করতে সমস্যা হয়। তাই বিস্কুট ধরনের শক্ত খাবার খাওয়া উচিত নয়। এই সময় পানি জাতীয় ফলমূল এবং খাবার খাওয়া পরিপাকযন্ত্রের জন্য ভালো।

পাউরুটি : পাউরুটিতে রয়েছে লবণ, রিফাইন্ড চিনি, প্রিজারভেটিভস যা ওজন বাড়ায়। সকালের নাস্তায় ১-২ টুকরো পাউরুটি খেলে খুব দ্রুত তা হজম হয়ে যায় এবং এটি খুব দ্রুত ক্ষুধার উদ্রেক করে।

কেক: সময় বাঁচাতে অনেকেই বাজার থেকে কিনে আনা কেক খেয়ে সকালের নাস্তা করে নেন। কিন্তু এই কাজটি কখনোই ঠিক না। কেক একটি অস্বাস্থ্যকর খাবার যাতে প্রচুর পরিমানে চিনি এবং তেল ব্যবহার করা হয়। মাত্র ১ স্লাইস কেকে থাকে ৩০০-৪০০ ক্যালোরি। দিনের শুরুতে এতো পরিমাণ ক্যালোরি আপনার দেহে খুব দ্রুত মুটিয়ে দেয়ার জন্য যথেষ্ট।

সকালের নাস্তা বাদ দিলে যে রোগগুলো হয়- সেগুলো হলো

ডায়াবেটিস : আমেরিকান জার্নাল অব ক্লিনিক্যাল নিউট্রিশন'এ প্রকাশিত এক গবেষণার তথ্য অনুযায়ী, সকালের নাস্তা বাদ দিলে মহিলাদের ডায়াবেটিসের ঝুঁকি বেড়ে যায়। গবেষণায় দেখা যায়, যেসব মহিলারা প্রতিদিন ভালোভাবে নাস্তা করেন তাদের চেয়ে নাস্তায় অবহেলা করা মহিলাদের টাইপ টু ডায়াবেটিস হবার ঝুঁকি বেশি।

হৃদরোগ :  Circulation নামের একটি জার্নালে প্রকাশিত হওয়া গবেষণায় দেখা যায়, নিয়মিত সকালে নাস্তা করলে ৪৫ থেকে ৮২ বছর বয়সী মানুষের হৃদরোগ কম হয়। এতে আরো দেখা যায়, সকালের নাস্তায় অনিয়ম হলে উচ্চ রক্তচাপ এবং রক্তে উচ্চমাত্রায় চিনির পরিমাণ দেখা দেয়।

স্মৃতিশক্তি :  আমেরিকান ডায়েট অ্যাসোসিয়েশন জার্নালে প্রকাশিত ৪৭ টি গবেষণা থেকে প্রাপ্ত তথ্য অনুযায়ী, সকালে নাস্তা করলে স্মৃতিশক্তির উন্নতি ঘটে, মস্তিষ্কের ক্ষমতা বাড়ে এবং এতে পরীক্ষায় ভালো ফল করা সম্ভব হয়। বিশেষ করে বাচ্চাদের মস্তিষ্কের সঠিক উন্নতি ও বৃদ্ধির জন্য স্বাস্থ্যকর নাস্তা খাওয়া খুবই জরুরি। এছাড়া তাদের শারীরিক বৃদ্ধিতেও সকালের নাস্তা অপরিহার্য। অন্যদিকে সকালে পর্যাপ্ত খাবারের অভাবে দেখা দেয় ঠিক এর বিপরীত অবস্থা।

ওজন বেড়ে যাওয়া : জানা যায়, যারা সকালের নাস্তা খান তিন মাসের মাথায় তাদের ওজন গড়ে ১৭.৮ পাউন্ড কমে যায়। এবং যাদের মাঝে অতিরিক্ত মুটিয়ে যাওয়ার প্রবণতা আছে তারা সকালের নাস্তা বাদ দেন খুব বেশি। সকালে নাস্তা না খাবার ফলে দুপুরের দিকে তাদের খিদে লাগে এবং তারা অতিরিক্ত পরিমাণে খেয়ে ফেলেন ফলে তাদের ওজন অনিয়ন্ত্রিতভাবে বেড়ে যায়। অর্থাৎ নাস্তা বাদ দিলে ওজন বাড়ে বেশি। যারা সকালের নাস্তা বাদ দিয়ে ডায়েট কন্ট্রোল করেন তাদের ওজন কমার প্রবণতা কম।