শনিবার, ২৫শে মে, ২০২৪ খ্রিস্টাব্দ ১১ই জ্যৈষ্ঠ, ১৪৩১ বঙ্গাব্দ

গাজায় ঈদের নামাজে রক্তের ধারা, রেহাই পেল না ত্রাণশিবিরও

image

ঈদ উপলক্ষে এক দিনের যুদ্ধ বিরতির প্রস্তাবে সায় দিয়েছিল দু’পক্ষ। সেই আশ্বাসেই সকালে সন্তানদের রেখে নামাজ পড়তে গিয়েছিলেন বাবা-মায়েরা।
কিন্তু সেই শরণার্থী শিবিরকেও আজ ছাড় দিল না ইজরায়েলি সেনা। বাবা-মায়ের অনুপস্থিতিতে রকেট হামলায় মৃত্যু হল শিবিরের আটটি শিশুর।
বাবা-মায়েরাও কি বাঁচলেন? স্পষ্ট নয়। কারণ রকেট এসে পড়েছে মধ্য গাজার একটি ঈদগাহেও। প্রার্থনা-প্রাঙ্গণ তখন মৃত্যুপুরী।
বাবা-মায়ের সঙ্গে ছিল যে শিশুরা, তারাই বা অক্ষত রইল কোথায়? আজ সকালে দুই সন্তানকে নিয়েই প্রার্থনা করতে যাচ্ছিলেন গাজার এক বাসিন্দা। চোখের সামনে বোমার আঘাতে মৃত্যু হল তাঁর দুই ছেলেমেয়ের। প্রার্থনা ভুলে রাস্তায় বসে হাউহাউ করে কাঁদছিলেন তিনি। ছড়িয়ে পড়ে থাকা রক্তাক্ত দেহগুলো সরিয়ে সরিয়ে সন্তানদের খুঁজে যাচ্ছিলেন।
উৎসবের দিনেও রক্তস্নান বন্ধ হল না গাজার। তারই সঙ্গে আজ গাজার একমাত্র বিদ্যুৎ কেন্দ্রে রকেট হামলা চালায় ইজরায়েলি সেনা। এর ফলে আক্ষরিক অর্থেই আঁধারে ডুবে গিয়েছে গাজা। বিদ্যুতের অভাবে সেবা বন্ধ হওয়ার আশঙ্কা করছে হাসপাতালগুলো। হামলা হয়েছে প্যালেস্টাইনের একটি টেলিভিশন চ্যানেল ও রেডিও অফিসে। রেহাই পায়নি অর্থ মন্ত্রনালয়ের ভবনও।
আজ সকাল থেকেই ইজরায়েলি প্রধানমন্ত্রীর টুইটার অ্যাকাউন্টে হামাস-বিরোধী ছবি পোস্ট করা হচ্ছে। নতুন হ্যাশট্যাগ তৈরি করে গাজা-পরিস্থিতির দায় চাপানো হচ্ছে হামাসের উপর। চার বার যুদ্ধ বিরতিতে রাজি হলেও শুধুমাত্র হামাসের সুড়ঙ্গ-অভিযানের জন্যই যে গাজার এই অবস্থা, তা-ও লেখা হয়েছে। ইজরায়েল ডিফেন্স ফোর্স বা আইডিএফ-এর দাবি, তারা আক্রমণ শুরু করেনি। হামাসের সুড়ঙ্গ-অভিযানের প্রত্যুত্তর দিয়েছে মাত্র। আইডিএফ-এর এক মুখপাত্র জানিয়েছেন, গত কাল রাতে ফের কয়েক জন হামাস জঙ্গি সুড়ঙ্গ পেরিয়ে ইজরায়েলের নাহল ওজে ঢুকে পড়ে। তাদের গ্রেনেড হানায় ৫ জন ইজরায়েলি সেনার মৃত্যু হয়। সেনার পাল্টা হামলায় মারা যায় এক জঙ্গি। এর পরেই যুদ্ধবিরতি ভেঙে আক্রমণের সিদ্ধান্ত ঘোষণা করে তারা।
সুড়ঙ্গ অভিযানের দায় স্বীকার করেছে হামাসও। একটি বিবৃতিতে তারা জানিয়েছে, ৯ জন জঙ্গি গত রাতে সীমান্ত পেরিয়ে ইজরায়েলের পাঁচ জন সেনাকে হত্যা করেছে। নিজস্ব ওয়েবসাইটে ইজরায়েলের নামে পাল্টা প্রচারে নেমেছে তারাও। জ্বলন্ত বিদুৎকেন্দ্র এবং হাসপাতালে হামলার ঘটনা সরাসরি সম্প্রচার করছে হামাস এবং একাধিক ইসলামি জঙ্গিগোষ্ঠী। প্যালেস্টাইনের স্বরাষ্ট্র মন্ত্রনালয় সূত্রে খবর, আজ ভোরে হামাস নেতা ইসমাইল হানিয়ার বাড়িতে হামলা করে আইডিএফ। তবে সেখানে হতাহতের কোনও খবর পাওয়া যায়নি।
হামলা শুরু হয়েছিল গত কাল রাত থেকেই। রাতেই স্থল-জল এবং আকাশপথে ইজরায়েলের লাগাতার হামলায় অন্তত ৩০ জনের মৃত্যু হয়। ধূলিসাৎ হয় কুড়িটিরও বেশি বাড়ি এবং বেশ কয়েকটি মসজিদ। প্যালেস্টাইনের স্বাস্থ্য মন্ত্রনালয় সূত্রে জানানো হয়েছে, আজ দুপুর পর্যন্ত নিহতের সংখ্যা বেড়ে দাঁড়িয়েছে ১১০০। যুদ্ধ থামানোর আন্তর্জাতিক আবেদন উড়িয়ে দিয়ে প্যালেস্টাইনকে এবার দীর্ঘতর এবং তীব্রতর আক্রমণের জন্য প্রস্তুত থাকার হুঁশিয়ারি দিয়েছেন ইজরায়েলের প্রধানমন্ত্রী বেঞ্জামিন নেতানিয়াহু। তিনি বলেছেন, “হামাসের সুড়ঙ্গ ধ্বংস না করা পর্যন্ত আমরা থামব না। আমাদের দেশের মানুষ আর আমাদের সন্তানদের হত্যা করার জন্যই ওগুলো তৈরি করা হয়েছে।”
নেতানিয়াহুর এই হুমকির উত্তরে আজ পাল্টা সুর চড়িয়েছে ইরান। পবিত্র ঈদের দিনেও গাজায় যে ভাবে আক্রমণ অব্যাহত রইল, তাতে তীব্র প্রতিক্রিয়া তৈরি হয়েছে ইসলামি দুনিয়ায়। ইরানের ধর্মীয় নেতা আয়াতোল্লা আলি খামেনী আজ ইসলামি রাষ্ট্রগুলিকে এর বিরুদ্ধে সংগঠিত হওয়ার ডাক দিয়েছেন। গাজার মানুষের হাতে অস্ত্র তুলে দেওয়ার আহ্বান জানিয়েছেন তিনি। ইজরায়েলকে হিংস্র কুকুর এবং নেকড়ের সঙ্গে তুলনা করে খামেনী আমেরিকা এবং ইউরোপীয় দেশগুলির ভূমিকারও সমালোচনা করেছেন। তাঁর অভিযোগ, পশ্চিমী শক্তিগুলি গাজাকে নিরস্ত্র করতে চায়, কিন্তু ইজরায়েলকে সংযত করার ক্ষমতা তাদের নেই।
ঈদের দিনেও গাজায় ফের নতুন করে সংঘর্ষ শুরুতে ক্ষোভপ্রকাশ করেছে জাতীসংঘও। মহাসচিব বান কি মুন এ দিন বলেন, “অন্তত মানবতার খাতিরে এই যুদ্ধ বন্ধ করা উচিত।”