শনিবার, ২৯শে জানুয়ারি, ২০২২ খ্রিস্টাব্দ ১৫ই মাঘ, ১৪২৮ বঙ্গাব্দ

চট্টগ্রামে মহানগরীর আধিকাংশ এলাকা পানিবন্দি

ctg waterটানা বর্ষণের কারণে বন্দর নগরীর চট্টগ্রামের অধিকাংশ এলাকা দ্বিতীয় দিনের মত ডুবে আছে। নগর জুড়ে সৃষ্টি হয়েছে ব্যাপক জলবদ্ধতা। শহরের বিভিন্ন নিন্ম এলাকায় ঘরবাড়ি, ব্যবসা প্রতিষ্ঠান, অফিস কোমর সমান পানিতে ডুবে আছে। পানিতে আটক পড়েছে অনেকে।সাগরে প্রচণ্ড বাতাস ভারী বর্ষণের কারণে চট্টগ্রাম বন্দরে জাহাজ চলাচলে পণ্য খালাশে ব্যাহত সৃষ্টি হচ্ছে। সকাল থেকে বন্দরের বর্হিনোঙ্গরে জাহাজে পণ্য উঠানামা এবং লাইটারেজ জাহাজ চলাচল পুরোপুরি বন্ধ আছে। তবে বন্দরের কনটেইনারবাহী জাহাজে উঠানামা স্বাভাবিক আছে বলে জানান রেডিও কন্ট্রোল রুম।নগরীর আগ্রাবাদ ছোটপোল এলাকায় কোমর সমান পানিতে সাঁতার কাটছে উৎসাহি ব্যক্তি।এদিকে অতি বৃষ্টির ফলে নগরীর বহদ্দার হাট, মুরাদপুর, চাঁদগাও, বাকলিয়া, হালিশহর বড়পোল, ছোটপোল, নয়াবাজার, বিশ্বরোড়, ইপিজেট, পতেঙ্গা সল্টগোলা, মাইলের মাথা, মোহরা, অক্সিজেন, ষোলশহর, দুই নম্বর গেইট, চকবাজার, কাতালগণঞ্জ, পাহাড়তলী, সাগরিকাসহ অসংখ্য এলাকায় কোথাও হাটু সমান, কোথাও কোথাও কোমর সমান পানিতে ডুবে গেছে। ফলে এসব এলাকার বেশ কিছু সড়কে সকাল থেকে যানবাহন চলাচল বন্ধ হয়ে গেছে।রাত থেকে টানা বৃষ্টির কারণে চরম দূর্ভোগে পড়েছেন নগর বাসী। সকাল থেকে অফিস আদালত, স্কুল কলেজসহ কর্মস্থলে যেতে ভোগান্তিতে পড়েন অনেকে। বাসাবাড়ি ও বিভিন্ন কারখানাতে পানি উঠায় সিইপিজেড পতেঙ্গার অনেক শিল্প কারখানায় শ্রমিক ছুটি দেয়া হয়েছে।আবহাওয়া অধিদপ্তর সুত্রে জানাগেছে, মৌসুমি বায়ূর প্রভাবে গত বৃহস্পতিবার থেকে চট্টগ্রামে টানা বর্ষণ চলছে। আর অতি বৃষ্টির কারণে নগর জুড়ে সৃষ্টি হয়েছে ব্যাপক জলবদ্ধতা।পতেঙ্গা আবহাওয়া অফিসের কর্মকর্তা সদ্বীপ হোসেন জানান, গতকাল শুক্রবার দুপুর ১২টা থেকে আজ শনিবার ১২টা পর্যন্ত ২১৬ দশমিক ৮ মিলিমিটার বৃষ্টিপাত রেকর্ড করা হয়েছে। মৌসুমি বায়ু সক্রিয় হওয়ায় এধরণের ভারী বৃষ্টিপাত আরো কয়েকদিন অব্যাহত থাকতে পারে। চট্টগ্রামের উপকূলীয় এলাকায় ৩ নম্বর সর্তকতা সংকেত অব্যাহত রয়েছে বলে তিনি জানান।নগরীর আগ্রাবাদ ছোটপোল এলাকার বাসিন্দা ব্যবসায়ি আব্দুল কাদের জানান, দুদিন ধরে পানি বন্ধিবস্থায় আছি। কোমর সমান পানিতে ডুবে আছে পুরো এলাকা। কোথাও যাওয়ার সুযোগ নেই। এলাকার প্রতিটি ফ্লাইটের নীচ তলা ডুবে গেছে। আগ্রাবাদ পোর্ট কানেক্টিং সড়কে সকাল থেকে সব ধরণের যান চলাচল বন্ধ আছে।চকবাজার এলাকায় বসবাসকারী মিসেস জসিম জানান, টানা বৃষ্টিতে পুরো এলাকবাসী পানিবন্ধি হয়ে পড়েছেন। সকাল থেকে নীচতলা বাসার পানি সেচ করছি।পতেঙ্গা, কাটগড় স্টিল মিলস এলাকায় বৃষ্টির পানিতে ডুবে স্থানীয় ৩ ওয়ার্ড কাউন্সিলের বাড়ি সহ শত শত বাড়ি ঘর।সিটি কর্পোরেশনের মেয়র মনজুর আলম জানান, তিন দিন ধরে টানা বৃষ্টি হচ্ছে। পানি টানতে পারছে না। ২০ কিলোমিটারের উপরে বৃষ্টি হলে জলবদ্ধতা রোধ করা সম্ভব হয় না। কর্পোরেশনের কর্মী জলবদ্ধতা নিরসনে কাজ চালিয়ে যাচ্ছেন।এদিকে প্রচন্ড বৃষ্টির কারণে নগরীর বিভিন্ন শিক্ষা প্রতিষ্ঠান বন্ধ হয়ে গেছে। সিটি কর্পোরেশন পরিচালিত অপর্ণাচরণ উচ্চ বিদ্যালয়ের আজকের দ্বিতীয় সাময়িক পরীক্ষা স্থগিত করা হয়েছে!

এ জাতীয় আরও খবর