রবিবার, ২রা অক্টোবর, ২০২২ খ্রিস্টাব্দ ১৭ই আশ্বিন, ১৪২৯ বঙ্গাব্দ

পায়ের চামড়া ফাঁটা রোধ ও এর প্রতিকার

pa fataগোড়ালির চামড়া ও পায়ের আঙ্গুলের চারপাশে ফাঁটা নারী-পুরুষের একটি সাধারণ সমস্যা যা প্রাকৃতিক বা বংশগত কারণে, কোন রোগের পার্শ্বপ্রতিক্রিয়া হিসেবে বা সঠিক পরিচর্যার অভাবে হতে পারে। অনেকের শুধু শীতকালে পা ফাঁটে আবার অনেকের সারা বছরই ফাঁটে। সামান্য ফাঁটার সমস্যা থাকলে তা সহজে ঠিক করা সম্ভব তবে ফাঁটার পরিমাণ বেশি থাকলে তা ব্যাথার কারণ হতে পারে ও ঠিক হতে সময় নেয়। গোড়ালি অতিরিক্ত ফেটে গেলে হাটতে সমস্যা হয়, অনেকের তা থেকে রক্ত’ও পড়ে এছাড়া পায়ে চাপ পড়লে ব্যাথা লাগে। তাই যেভাবে আপনি পায়ের চামড়া ফাঁঁটা থেকে মুক্তি পেতে পারেনঃ

১. সাধারণত শরীরে জিঙ্ক ও ওমেগা-৩ ফ্যাটি এসিডের অভাব হলে চামড়া ফেঁটে যায়। তাই যেসব খাদ্যে জিঙ্ক ও ওমেগা-৩ ফ্যাটি এসিড থাকবে তা প্রতিদিন একটু করে খাওয়ার চেষ্টা করুন। জিঙ্ক এর জন্য বাদাম(হিজলি বাদাম), বিন, সামুদ্রিক মাছ, পালং শাক, গরু ও মুরগীর মাংস, মাশরুম খেতে পারেন। ওমেগা-৩ ফ্যাটি এসিডের জন্য গরুর দুধ, স্যামন মাছ, চিংড়ি, ফুলকপি খান বেশি করে।
২. নিয়মিত পায়ের তালু, গোড়ালি ও আঙ্গুলে যেখানে ফেঁটেছে সেখানে ঝামা পাথর দিয়ে হাল্কা ঘষে নিয়ে পা ভালো করে ধুয়ে ফেলবেন। এরপর জলপাই তেল, নারিকেল তেল,গ্লিসারিন, ভিটামিন-ই তেল মিশিয়ে পায়ের তালু ও গোড়ালি ভালো করে মালিশ করবেন। রাতে ঘুমাতে যাওয়ার আগে এই মিশ্রণ পায়ে লাগিয়ে নিবেন ও পাতলা সুতির মোজা পরে ঘুমাবেন। মোজা পরে ঘুমালে গরম লাগতে পারে এ কারণে আঙ্গুল বের হওয়া মোজা কিনুন। এরকম মোজা না পেলে নিজেই মোজা কেটে নিতে পারেন। কাটার পর মোজা কেমন দেখাবে সেটির জন্য ছবি থেকে আইডিয়া নিন।
৩. শরীর জলয়োজিত রাখতে প্রচুর পানি পান করুন।
৪. কফি খাওরা বর্জন করুন। এতে পায়ের চুলকানি ভাব কমবে।
৫. ১ টেবিল চামচ মধু, ১ চা চামচ গ্লিসারিন, ১ চা চামচ অলিভ অয়েল, ১ চা চামচ অ্যাপল সিডার ভিনেগার ময়দার সাথে মিশিয়ে ঘন মিশ্রণ তৈরী করুন। আধা ঘন্টা পা কুসুম গরম পানিতে ভিজিয়ে রাখুন। এরপর পা মুছে ফেলে এই মিশ্রণ লাগিয়ে রাখুন সারারাত। পুরো রাত লাগিয়ে রাখতে সমস্যা হলে ২-৩ ঘন্টা লাগিয়ে রাখুন। যাদের খুব বেশি ফেঁটে যায় পা তাদের জন্য এই স্ক্রাবটি খুব উপকারী। এতে ভবিষ্যতে পা ফাঁটার সম্ভাবনা কমে যাবে।
৬. ওটমিল ও অলিভ অয়েল মিশিয়ে ঘন মিশ্রণ তৈরী করে ফাঁটা অংশে লাগিয়ে রাখুন ৩০ মিনিট। এর পর পানি দিয়ে ধুয়ে ফেলুন। নিয়মিত লাগাতে থাকুন পা মসৃণ হওয়া পর্যন্ত।
৭. আপনার শরীরে ভিটামিন-ই এর পরিমাণ ঠিক না থাকলে ত্বক শুষ্ক হবে, আর ত্বক শুষ্ক হলে পা ফাঁটার সম্ভাবনা বাড়বে। তাই বেশি করে ব্রক্কলি, এপ্রিকট, কাজু বাদাম, পেঁপে খান। এছাড়া দৈনিক ভিটামিন-ই সাপ্লিমেন্ট ও নিতে পারেন।
৮. কুসুম গরম পানিতে লেবুর রস মিশিয়ে পা ডুবিয়ে রাখুন ২০ মিনিট। এরপর গোড়ালি ও পায়ের তালু ঝামা পাথর দিয়ে ঘষে ফেলুন। পা ধুয়ে লোশন বা তেল লাগিয়ে নিন।
৯. গোলাপ জল ও গ্লিসারিন মিশিয়ে ফাঁটা অংশে লাগিয়ে ২-৩ মিনিট মালিশ করুন প্রতিদিন। ধীরে ধীরে ঠিক হয়ে যাবে ফাঁটার সমস্যা।
১০. প্যারাফিন মোম চুলায় গলিয়ে এর সাথে সরিষার তেল মিশিয়ে গোড়ালিতে লাগিয়ে রাখুন সারারাত। সকালে উঠে পা ধুয়ে ফেলুন।
১১. মাসে ৪ বার হাল্কা কুসুম গরম পানিতে পা ১০/২০ মিনিট ভিজিয়ে রাখবেন। এতে পায়ে রক্ত সঞ্চালন বাড়বে।
১২. ঘুমানোর আগে তুলার বল দিয়ে অ্যাপল সিডার ভিনেগার পায়ে লাগান ও মোজা পরে ঘুমান। সকালে উঠে পা ধুয়ে লোশন লাগাবেন।
সতর্কতা: পা ফাঁটলে এমন স্যান্ডেল বা জুতা পরবেন যা খোলামেলা। পা বন্ধ জুতা পড়লে হাটতে কষ্ট হবে ও ক্ষেত্র ভেদে পায়ের অবস্থা খারাপ হতে পারে। বেশি এক্সফলিয়েট করলে পা আরও বেশি ফাঁটতে পারে। ভিনেগার থেকে অনেকের শুষ্কতা বাড়তে পারে।
উপর থেকে আপনার সুবিধামত পদ্ধতি অনুসরণ করুন। কারও ক্ষেত্রে এর মধ্যে কোন পদ্ধতি কাজ না করতে পারে। এরকম হলে এখান থেকে অন্য একটি পদ্ধতি অনুসরণ করুন। এর সাথে পা সবসময় পরিষ্কার রাখুন ও মাসে অন্তত ১ বার পেডিকিউর করুন। আপনি নিশ্চই আবার নরম, মসৃণ ও সুন্দর পা ফিরে পাবেন।