শনিবার, ২৯শে জানুয়ারি, ২০২২ খ্রিস্টাব্দ ১৫ই মাঘ, ১৪২৮ বঙ্গাব্দ

বাংলাদেশ বিশ্বের নবম বৃহত্তর শরণার্থী আশ্রয়দাতা

refujee_bg_815418040-300x165ডেস্ক রিপোর্ট : ঢাকা: সারা বিশ্বে প্রথমবারের মতো শরণার্থীদের সংখ্যা ৫ কোটি অতিক্রম করেছে। দ্বিতীয় বিশ্বযুদ্ধের পর এই প্রথম আশ্রয়প্রার্থী এবং অভ্যন্তরীণভাবে বাস্তুচ্যুতদের এ সংখ্যা পার হলো। জাতিসংঘের শরণার্থী বিষয়ক সংস্থার (ইউএনএইচসিআর) একটি প্রতিবেদনে এমন তথ্যই তুলে ধরা হয়েছে।
ইউএনএইচসিআর এর এ প্রতিবেদনে বাংলাদেশের নাম উঠে এসেছে বিশ্বের বৃহত্তর শরণার্থী আশ্রয়দাতা দেশের তালিকায়। যেখানে বাংলাদেশের অবস্থান নবম।
প্রতিবেদনে বলা হয়, দেশের অর্থনীতির তুলনায় ধারণক্ষমতার দিকে থেকে বাংলাদেশ পৃথিবীর নবম শরণার্থী আশ্রয়দাতা দেশ। পাকিস্তান ও ইরানের মতো উন্নয়নশীল দেশগুলো অধিকাংশ (৮৬%) শরণার্থীদের আশ্রয় দিয়েছে।
প্রতিবেদনে আরও বলা হয়, দক্ষিণ-পূর্ব বাংলাদেশে দু’টি সরকারি শরণার্থী শিবিরে ৩০ হাজারের মতো মিয়ানমার শরণার্থী বসবাস করছে। ক্যাম্পের বাইরে আছে আরো দুই থেকে পাঁচ লাখ অনিবন্ধিত ব্যক্তি।
গত বছর বাংলাদেশ সরকার একটি জাতীয় কৌশলপত্র প্রণয়ন করে যাতে অনিবন্ধিত মিয়ানমার নাগরিকদের তালিকাকরণের পরিকল্পনা রয়েছে। এই প্রক্রিয়াটি আন্তর্জাতিক মান অনুযায়ী সম্পন্ন হলে শরণার্থী শিবিরের বাইরে থাকা অনিবন্ধিত জনগোষ্ঠীর অস্তিত্ব স্বীকৃত হবে।
ইউএনএইচসিআর আশা করছে, এর ফলে এই মানুষগুলো পরিচয়পত্র, মানবিক সহায়তা এবং ন্যায়বিচারের সুযোগ পাবে।
শরণার্থীদের মানসিক চাপ ও দৈনন্দিন কষ্ট লাঘবের জন্য বাংলাদেশ সরকার সম্প্রতি ক্যাম্পের ভেতরকার বাসস্থান এবং জীবনযাপনের উন্নতি সাধন করছে।
এ প্রসঙ্গে বাংলাদেশে ইউএনএইচসিআর-এর রিপ্রেজেনটেটিভ স্টিনা লুংডেল বলেন, আমরা আনন্দিত যে শরণার্থী শিশুদের জন্য মাধ্যমিক শিক্ষার সূচনা হয়েছে। শরণার্থী শিবিরে নারীর প্রতি সহিংসতা রোধ করতে আমরা কাজ করে চলেছি। এই প্রচেষ্টার অংশ হিসেবে ক্যাম্পের অভ্যন্তরে মহিলা পুলিশ নিয়োগ দেওয়া হয়েছে।
কারিগরী শিক্ষা ও বার্মিজ ভাষায় দক্ষ করতে শরণার্থী শিবিরে নিয়মিত কোর্স পরিচালনা করা হয় যাতে রাখাইন রাজ্যে শান্তি ফিরে আসলে শরণার্থীরা সেখানে ফিরে স্বাবলম্বী জীবনযাপন করতে পারে।
ইউএনএইচসিআর-এর এ বার্ষিক গ্লোবাল ট্রেন্ডস প্রতিবেদনটি তৈরি করা হয় সরকারি-বেসরকারি অংশীদার সংগঠন দ্বারা সংকলিত এবং ইউএনএইচসিআর-এর নিজস্ব নথিতে থাকা তথ্যের ওপর ভিত্তি করে।
এতে দেখা যায়, ২০১৩ সালের শেষ নাগাদ ৫ কোটি ১২ লাখ ব্যক্তি জোড়পূর্বক বাস্তুচ্যুত হয়। যা ২০১২ সালের চেয়ে (৪ কোটি ৫২ লাখ) প্রায় ৬০ লাখ বেশি।
ইউএনএইচসিআর বলছে, শরণার্থীদের এই ব্যাপক বৃদ্ধির কারণ সিরিয়া যুদ্ধ। এর ফলে ২৫ লাখ মানুষ শরণার্থী এবং আরো ৬৫ লাখ মানুষ অভ্যন্তরীণভাবে বাস্তুচ্যুত হতে বাধ্য হয়েছে। এছাড়া আফ্রিকায়, বিশেষ করে মধ্য আফ্রিকান প্রজাতন্ত্রে এবং ২০১৩-এর শেষে দক্ষিণ সুদানে নতুন করে উল্লেখযোগ্য আকারে বাস্তুচ্যুতি ঘটে।
এশিয়া ও প্রশান্ত মহাসাগরীয় অঞ্চলে আনুমানিক ৩৫ লাখ শরণার্থীর সমাগম ঘটে গত বছরের শেষে। যা সর্বোচ্চ শরণার্থী হিসেবে পরিগণিত হয়েছে।
২৫ লাখের বেশি আফগান শরণার্থী নিয়ে শরণার্থী উৎসের শীর্ষে আছে আফগানিস্তান। আর প্রায় ৪ লাখ ৮০ হাজার শরণার্থী নিয়ে মিয়ানমার আছে ষষ্ঠ স্থানে।
ইএনএইচসিআরের প্রতিবেদনে বলা হয়, বিশ্বব্যাপী এ শরণার্থীর পরিসংখ্যানে সাহায্য প্রয়োজন এমন বিপুল সংখ্যক মানুষের প্রতিনিধিত্ব করে। এর প্রভাব পড়বে দাতা দেশগুলোর ত্রান বাজেট এবং শরণার্থী সংকটের মুখোমুখি থাকা দেশগুলোর ধারণক্ষমতার ওপর।
জাতিসংঘের শরণার্থী বিষয়ক হাইকমিশনার অ্যান্টনিয় গুটেরাস বলেন,  যুদ্ধের মীমাংসা না করার এবং সহিংসতা প্রতিরোধে ব্যর্থ হওয়ার অপরিমেয় ক্ষতি আমরা এখানে দেখতে পাচ্ছি। শান্তির অভাব বিপজ্জনক পর্যায়ে পৌঁছেছে।
তিনি বলেন, মানবিক কর্মীরা উপশমকারী হিসেবে তাদের সাহায্য করতে পারে, কিন্তু রাজনৈতিক সমাধান অত্যাবশ্যক। তা না হলে এই পরিসংখ্যানে যে সংখ্যক শরনার্থীর উল্লেখ আছে, তাতে করে সহিংসতা ও দুর্ভোগের মাত্রা আশঙ্কাজনক হারে বেড়ে যেতে পারে।

 

এ জাতীয় আরও খবর