বুধবার, ২২শে মার্চ, ২০২৩ খ্রিস্টাব্দ ৮ই চৈত্র, ১৪২৯ বঙ্গাব্দ

প্লিজ আমাকে বাংলাদেশে ফেরত পাঠাবেন না

noorপ্লিজ আমাকে বাংলাদেশে ফেরত পাঠাবেন না। ভারতেই আমাকে শাস্তি দিন। এখানকার জেলেই আমি নিরাপদ থাকব। বাংলাদেশে ফেরত পাঠালে ওরা আমাকে মেরে ফেলবে।

বিধাননগর কমিশনারেটের তদন্তকারী এটিএস অফিসারদের জেরায় এমনই আজ জানিয়েছেন ‘সেভেন মার্ডারের’ মূল অভিযুক্ত নারায়ণগঞ্জের নূর হোসেন।

গত কয়েকদিন ধরে দফায় দফায় জেরা করা হচ্ছে কলকাতায় গ্রেফতার নূর এবং তার দুই সহযোগীকে। জানার চেষ্টা হচ্ছে হুন্ডিতে নিয়ে আসা দুই কোটি টাকা কোথায় রাখা আছে। কার আশ্রয়ে সে কলকাতায় ছিল। কলকাতাসহ আশ-পাশের এলাকায় নূরকে নিয়ে তল্লাশি চলে। তখনি নিজে অযাচিতভাবে নূর হোসেন জানায়, বাংলাদেশে ফেরানো হলে তাকে মেরে ফেলা হবে। তাই তাকে কলকাতায় শাস্তি দেয়া হোক। প্রয়োজনে শাস্তি দিয়ে ভারতের জেলে রাখা হোক। এদিন জেরায় নূর বারে বারে বলেছে, সেভেন মার্ডারে তাকে ফাঁসানো হয়েছে। নারায়ণগঞ্জের মেয়র প্যানেলের সদস্য নজরুল ইসলামের স্ত্রীকে প্রভাবিত করে তার বিরুদ্ধে মামলা করানো হয়েছে।

ওরা কারা?

সেভেন মার্ডার বিধাননগর কমিশনারেটের তদন্তের বিষয় নয়, নূরকে একথা একাধিকবার বলা হয়েছে। তবু কেন বার বার নারায়ণগঞ্জেরসেভেন মার্ডারের বিষয়টি উত্থাপন করছে নূর? ওরা কারা? এর জবাবে বিধাননগর কমিশনারেটের অ্যান্টি টেররিস্ট সেলের দায়িত্বপ্রাপ্ত অফিসার অনিশ সরকার ‘ইত্তেফাক’কে জানিয়েছেন, বিষয়টি নূর বার বার তুলছে। এর কারণ হতে পারে সে হয়তো প্রাণনাশের আশংকা করছে।

তদন্তকারী অফিসাররা জানিয়েছেন, ‘ওরা কারা’? জিজ্ঞেস করলেই থমকে যাচ্ছে নূর। আর কিছুই বলছে না। শুধু বলছে, ওরা ক্ষমতাসীন গোষ্ঠীর প্রভাবশালী। ওদের হাতে অনেক ক্ষমতা। ওরাই আমাকে ফাঁসিয়েছে। আমার কোনো দোষ নেই।

বিরাটিতে রয়েছে নূরের সঙ্গী

নূরকে নিয়ে কলকাতার বিভিন্ন জায়গায় তল্লাশি এবং জেরায় জানা গেছে, তার দুই সঙ্গী কলকাতায় রয়েছে। এরা সেভেন মার্ডার মামলায় অন্যতম অভিযুক্ত। তাদের একজন রয়েছে কৈখালির কাছাকাছি বিরাটিতে। আরেকজনের হদিস এখনো মেলেনি। তদন্তের স্বার্থে বিরাটিতে অবস্থানরত ওই ব্যক্তির নাম এখনই বলতে রাজি নয় তদন্তকারী অফিসাররা। তবে এটুকু জানিয়েছে, নূরের সঙ্গেই এরা পশ্চিমবঙ্গে এসেছিল।

বুধবার সন্ধে পর্যন্ত কলকাতার বাংলাদেশ উপ-দূতাবাসে নূর হোসেনের গ্রেফতারের খবর পশ্চিমবঙ্গ সরকারের তরফে সরকারিভাবে এসে পৌঁছায়নি। বিধাননগর কমিশনারেটের তরফে জানানো হয়েছে, পশ্চিমবঙ্গ সরকার বিষয়টি জানতে চাইলে তারা জানাবেন। রাজ্য সরকারের মাধ্যমে বিষয়টি ভারত সরকারকে জানানো হবে। তাদের মাধ্যমে প্রয়োজনে বিষয়টি জেনে নিতে পারবে ইন্টারপোল।

আগামী সপ্তাহে নারায়ণগঞ্জ পুলিশের একটি দল নূর হোসেনকে সনাক্ত করতে কলকাতায় আসছে। তারা নূরের সঙ্গে কথা বলবেন। তারপর শুরু হবে নূর এবং তার দুই সঙ্গীকে বাংলাদেশে ফেরানোর আলোচনা। নূরের বিষয়ে তদন্ত শুরু করেছে ভারতের কেন্দ্রীয় গোয়েন্দা সংস্থাগুলোও।

এ জাতীয় আরও খবর