রবিবার, ২রা অক্টোবর, ২০২২ খ্রিস্টাব্দ ১৭ই আশ্বিন, ১৪২৯ বঙ্গাব্দ

পরকীয়ায় প্রেম।।

llUntitled-1পরকীয়া৷ কেমন ধারার সম্পর্ক! সেকি প্রেম, নাকি প্রণয়! নাকি শুধুই গোপন অবৈধ আকর্ষণ! টানাপড়েন, যন্ত্রণা, লুকোচুরি, লুকোছাপা—তিক্ততায় মোড়ানো নিষিদ্ধ সুখ৷ পরকীয়া মানে নিষেধে ভরা একটি ভুল সম্পর্ক৷ একজন মনোবিদের অভিজ্ঞতা থেকে এমনটা বলাই শ্রেয় মনে করছি৷
এ প্রণয় কাঁটায় কাঁটায় ভরা৷ যখন সঙ্গীর পরকীয়ার কথা জেনে গেলেন, তখন মনে হয়, এই জীবনের কোনো অর্থ নেই৷ এর থেকে সংসার ছেড়ে চলে যাওয়া ভালো৷ আদৌ কি এতে কোনো সমাধান হয়?
সেকাল-একাল
যুগে যুগে পরকীয়া ছিল৷ বিল ক্লিনটনের পরকীয়া, প্রিন্স চার্লস বা প্রিন্সেস ডায়ানার পরকীয়ার গল্প আমরা খুঁটিয়ে খুঁটিয়ে পড়ি৷ ধারাবাহিক নাটকগুলোতেও এখন পরকীয়ার ছড়াছড়ি৷ অনেকেই গালমন্দ করি৷ তার পরও দর্শক আকর্ষণ কিছুতেই কমে না৷ ফলে, পরকীয়া আগেও ছিল, এখনো আছে৷

একটা সময় বাড়ির কোনো আত্মীয়ের সঙ্গে পরকীয়ায় জড়িয়ে পড়তেন কেউ কেউ৷ এর বাইরে বড়জোর পাশের বাড়ির কেউ বা অফিসের সহকর্মী৷ গণ্ডিটা এখানেই সীমাবদ্ধ থাকত৷
এখন আর সেই দিন নেই৷ তথ্যপ্রযুক্তির এই যুগে মানুষের সঙ্গে সম্পর্ক গড়ে ওঠে দ্রুত৷ ফেসবুক, ভাইবার, হোয়াটসঅ্যাপসহ যোগাযোগের নানা মাধ্যমের কারণে অনেক অচেনা, অপরিচিত জন হয়ে ওঠেন কাছের মানুষ৷ একটু চ্যাটিং বা মন্তব্য করা থেকেই হয়তো সম্পর্কের সূত্রপাত হয়৷ এরপর ভার্চুয়াল সম্পর্ক আর ভার্চুয়াল থাকে না৷ সামনে এসে হাজির হয় অন্তর্জালের আড়ালে থাকা ব্যক্তিটি৷ অনেক ক্ষেত্রে এটা শারীরিক সম্পর্কে গিয়ে দাঁড়ায়৷ তখন এই সম্পর্কের মোহ থেকে বের হয়ে আসা কঠিন হয়৷ অনেকে অবশ্য বলেন, ‘একটু চ্যাটিংই তো করেছি৷ প্রেম তো করিনি৷ বাস্তবে তোমাদের সঙ্গেই তো আছি৷’ কিন্তু চ্যাটে বলা কথাগুলো হয়তো আপত্তিকর, যা যেকোনো সঙ্গীর জন্য মেনে নেওয়া কঠিন৷ ফলে, এটিও পরকীয়া; নিছক বন্ধুত্ব নয়৷
কারা জড়িয়ে পড়ছেন?
আগে এবং এখন—দুই সময়েই সাধারণত মধ্যবয়সী নারী-পুরুষ এই সম্পর্কে বেশি জড়িয়ে পড়েন৷ পরকীয়ায় দুই রকমের সঙ্গী-জোড় দেখা যায়৷ ১. একজন বিবাহিত, অন্যজন অবিবাহিত৷ ২. দুজনই বিবাহিত৷
বিবাহিত সঙ্গী তাঁর নিজস্ব জীবনের অভিজ্ঞতা কাজে লাগান৷ অবিবাহিত সঙ্গীকে বশে আনতে বেশ পারদর্শী ভূমিকা রাখেন৷ আর যে ক্ষেত্রে দুজনই বিবাহিত, পারস্পরিক নির্ভরতা আর কোনো কোনো ক্ষেত্রে যৌনতা সেখানে প্রধান আকর্ষণ হয়ে থাকে৷
একাকিত্ব, ব্যক্তিস্বাধীনতায় হস্তক্ষেপ, স্বামী বা স্ত্রী প্রবাসে বা অন্যত্র থাকায় নিঃসঙ্গতা, বিকৃত রুচি, পছন্দ-অপছন্দে বিস্তর ফারাক, জীবনসঙ্গীর শারীরিক অসুস্থতা ও যৌনচাহিদা পূরণ করতে না পারা থেকেই অনেক সময় এই অসুস্থ সম্পর্কের বেড়াজালে নিজেকে জড়িয়ে ফেলেন৷
গোপন কথাটি যখন রয় না গোপন
সঙ্গীর গোপন সম্পর্কের বিষয়টা হঠাৎ করে সামনে চলে এল৷ সেই মুহূর্তে মনে হতে পারে, পুরো পৃথিবী অন্ধকার হয়ে গেছে৷ আকাশ ভেঙে পড়েছে মাথার ওপর৷ খুব উত্তেজিত না হয়ে পুরো পরিস্থিতি আগে বুঝে নিন৷ সঙ্গীকে সরাসরি জিজ্ঞাসা করুন, যাতে কোথাও কোনো ভুল বোঝাবুঝি না থাকে৷ তিনি যদি স্বীকার করে নেন, তবে তাঁকে জিজ্ঞাসা করুন, তাঁর পরিকল্পনা কী৷ কেননা, সঙ্গীর পরকীয়ার কথা জানামাত্র সংসার ছেড়ে চলে আসা বা বিবাহবিচ্ছেদ কোনো সমাধান হতে পারে না৷ সন্তান থাকলে তাঁর মতামতও এখানে জরুরি৷ মা-বাবার সম্পর্কের এই জটিলতার জাঁতাকলে সন্তানের ক্ষতিটাই হয় সবচেয়ে বেশি৷ অনেক সময় সন্তানই পারে এই টানাপোড়েন দূর করতে৷
কিন্তু সঙ্গী যদি বিবাহবহির্ভূত সম্পর্কটি থেকে বেরিয়ে আসতে না চান, তাহলে স্বামী-স্ত্রী মিলে আলোচনা করে একটা সমাধান বের করতে হবে৷ প্রয়োজনে কোনো সালিসি পদ্ধতিতে সমাধান বা আইনজীবীর সঙ্গে কথা বলতে পারেন৷
ফেরার পথ খোলাই থাকে
নিষিদ্ধ গোপন সম্পর্ক বড়ই যন্ত্রণার৷ বড়ই তিক্ত ও কণ্টকাকীর্ণ৷ একবার সম্পর্কের জল গড়িয়ে গেলে ক্রমেই বিষময় হয়ে ওঠে সবকিছু৷ যখন জানাজানি হয়, তখন পারস্পরিক সম্মানবোধ ও আস্থা থাকে না৷ পরিবার, আত্মীয়স্বজন, সন্তান—সবার কাছে হাস্যরসের পাত্র হওয়াই তখন নিয়তি৷ অনেকে সেই ধকল সহ্য করতে না পেরে ঘুমের ওষুধ খান, বিষণ্নতায় ভোগেন, সংসার হয়ে ওঠে সারহীন, অর্থহীন৷ মনোজগৎ হয়ে ওঠে টালমাটাল৷ এসব ক্ষেত্রে স্বামী-স্ত্রীর একান্ত ব্যক্তিজীবনের সমস্যাগুলো নিয়ে সাহসের সঙ্গে খোলামেলা কথা বলতে হবে৷ এসব কথা শোনার মতো মানসিক শক্তি থাকতে হবে৷ কারও কোনো দুর্বলতা আড়াল করা যাবে না৷
সঙ্গী যদি নিজের ভুল বুঝতে পেরে ফিরতে চান, তাহলে তাঁকে সর্বাত্মক সহযোগিতা করা উচিত৷ পাশাপাশি আরেকবার নিজেকেও প্রশ্ন করতে হবে, ‘আমার কোনো আচরণে কি ও দূরে সরে যাচ্ছে?’ তবে এ কথাও ঠিক যে বিশ্বাস ভেঙে গেলে আবার সহজে বিশ্বাস করা যায় না৷ যিনি ভুল করেছেন, তাঁকে পরিবারের সঙ্গে বেশি সময় কাটাতে হবে৷ আপনি যে ভুল করে অনুতপ্ত, সেটি আপনার সঙ্গী ও সন্তানদের বোঝাতে হবে৷ তাঁদের কোনো আচরণে প্রতিক্রিয়া দেখানো যাবে না৷ মনে রাখবেন, আপনার কাছ থেকে তাঁরাও আঘাত পেয়েছিলেন৷ ফলে, গ্রহণ করার প্রক্রিয়াটি একটু জটিল হলেও হাল ছেড়ে দেবেন না৷ ভালোবাসাই পারে ভালোবাসাতে৷

আরও কিছু কথা
দাম্পত্যের একটা প্রধান শর্ত হলো পরস্পর সুখে-দুঃখে কাছে থাকা৷ দাম্পত্যজীবনের অনেক টানাপড়েন ও তিক্ততা দূর করতে পারে পরস্পরের প্রতি আস্থা ও মানসিক নৈকট্য৷ যেসব পুরুষ তাঁর পৌরুষজনিত নানা সমস্যা-সংকটে ভোগেন, সেগুলো গোপন করলেই বাড়ে জটিলতা৷ অনেক সময় নারীও থাকেন নিষ্ক্রিয়, উদ্যমহীন৷ সেটাও অসুখ৷ এখন আধুনিক নানা চিকিৎসা আছে৷ বেশির ভাগ ক্ষেত্রে সঠিক চিকিৎসা না নিয়ে তাঁরা সমস্যাকে তীব্র করে তোলেন৷ দেশে এখন সেক্সথেরাপি হচ্ছে৷ বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিব মেডিকেল বিশ্ববিদ্যালয়ে সেক্স ক্লিনিকও চালু হয়েছে৷ অসুখকে রোগ হিসেবেই দেখা উচিত৷ রোগ নিরাময় না করে নিজেকে এবং সংসারকে অসুখী করার কোনো মানে নেই৷
আগে বলা হতো চল্লিশেই জীবন শেষ হয়ে যায়৷ আর চল্লিশ পেরোনো নারী যেন ছিলেন বুড়ি৷ এখন জীবনবোধ পাল্টাচ্ছে৷ চল্লিশ কেন, পঞ্চাশেও জীবন পানসে হয়ে যাচ্ছে না; বরং জীবনবোধ আরও পরিপূর্ণ ও অর্থবহ হয়ে উঠছে৷ এখানে না বললেই নয়, পঁয়তাল্লিশ বা পঞ্চাশে এই যে নতুন শুরু, এর সঙ্গে সমানভাবে পা ফেলে এগোতে হবে স্বামী-স্ত্রী দুজনকে৷ পেছনের পনোরো-বিশ বছরের যাপিত জীবন যে সঙ্গী-সঙ্গিনীকে নিয়ে সুখময় ছিল, মধ্যবয়সের পরিপূর্ণ জীবনে সেটাকে ফেলনা ভাবা চলবে না৷ সবকিছু শেয়ার করতে হবে৷ পরস্পর নির্ভরতার অর্জিত আনন্দ ও জীবনের অভিজ্ঞতা পরকীয়ার গোপন সুখের প্রলোভনে জলাঞ্জলি দেওয়া বুদ্ধিমানের কাজ নয়৷
দাম্পত্যজীবনে একে অপরের ওপর নির্ভর করুন, আস্থা রাখুন, চাওয়া-পাওয়াগুলো একজন আরেকজনকে বলুন৷ ভালোবাসা-বিশ্বাস—সপ্রেম সম্পর্কের বন্ধনে জীবন হয়ে উঠবে প্রাণময় ও আনন্দময়৷