বুধবার, ১লা ডিসেম্বর, ২০২১ খ্রিস্টাব্দ ১৬ই অগ্রহায়ণ, ১৪২৮ বঙ্গাব্দ

ইহুদি আবদুল্লাহ ইবনে সালামের ইসলাম গ্রহণ

makkaমোঃ রাসেল মিয়া– হজরত আবদুল্লাহ ইবনে আব্বাস (রা.) থেকে বর্ণিত, রসুলুল্লাহ (সা.) নবুওয়ত লাভ করার পর আল্লাহর তরফ থেকে আদেশ খায়বরবাসীর কাছে ইসলামের দাওয়াত পৌঁছান। খায়বরের ইহুদিদের বড় আলেম আবদুল্লাহ ইবনে সালাম ইহুদিদের রসুল (সা.)-এর চিঠি পড়ে শুনালেন এবং তাদের লক্ষ্য করে বললেন- বল তোমাদের সিদ্ধান্ত কী? তাওরাতে তার আবির্ভাবের সুসংবাদ ও পরিচিতি এবং বৈশিষ্ট্যাবলী বর্ণিত আছে। যদি সে আলামতগুলো সত্যিই তার মধ্যে পাওয়া যায় তাহলে কোনো আপত্তি না করে তার নির্দেশ মেনে নেওয়া উচিত? ইহুদিরা উত্তরে বলল, এর অর্থ এই হলো, আমাদের কিতাব রহিত হয়ে গেছে, আমাদের কিতাব মতে যেসব জিনিস আমাদের ওপর হালাল ছিল এখন তা নিষিদ্ধ হয়ে যাবে। আবদুল্লাহ বিন সালাম বললেন, তোমরা আখেরাতের তুলনায় দুনিয়াকে বেশি প্রাধান্য ও মর্যাদা দিয়েছ। মুহাম্মদ (সা.) নিরক্ষর, না লিখতে পারেন, না পড়তে পারেন। তোমাদের কাছে তাওরাত আছে, সেখান থেকে ১৪০০ কঠিন মাসআলা তার কাছে জিজ্ঞাসা কর। যদি সে প্রশ্নাবলির সঠিক উত্তর দিতে পারে তাহলে বুঝতে হবে তিনিই প্রতিশ্রুত সত্য নবী, যার সুভাগমন সম্পর্কে তাওরাতে সুসংবাদ দেওয়া হয়েছে। সে ক্ষেত্রে আমরা তার ওপর ইমান আনব আর যদি প্রশ্নাবলির সঠিক উত্তর দিতে না পারেন তাহলে তার ওপর ইমান আনার আমাদের কোনো প্রয়োজন নেই। এ কথা শুনে ইহুদিরা নীরব হয়ে গেল। আবদুল্লাহ বিন সালাম তাওরাত থেকে কঠিন কঠিন বিষয়গুলো একত্রিত করে মদিনায় এলেন। মসজিদে নববীতে প্রবেশ করে দেখেন রসুলুল্লাহ (সা.) বসে আছেন, আর সাহাবায়ে কিরাম (রা.) তাকে ঘিরে বসা। এই দৃশ্য দেখে আবদুল্লাহ বিন সালামের অন্তরে এক বিপ্লব শুরু হয়ে গেল। আবদুল্লাহ ইবনে সালাম রসুল (সা.)-কে বললেন, ইহুদি আলেমরা আমাকে প্রতিনিধি হিসেবে আপনার দরবারে পাঠিয়েছেন। তারা কিছু মাসআলার উত্তর চেয়ে আবেদন করছে, যদি এগুলোর উত্তর বলে দেন তাহলে আমাদের খুব উপকার হয়। রসুলুল্লাহ (সা.) ও আবদুল্লাহ বিন সালামের মাঝে কথাবার্তা চলছিল। এমতাবস্থায় আল্লাহর আদেশে হজরত জিব্রাইল (আ.) ওইসব প্রশ্নাবলি ও তার উত্তর নবী (সা.)-কে অবহিত করে দিলেন। হুজুর (সা.) আবদুল্লাহ বিন সালামকে সম্বোধন করে বললেন, তুমি যদি চাও তাহলে তোমার প্রশ্ন উত্থাপন করার আগেই সেগুলো বলে দিতে পারি। আবদুল্লাহ বললেন, বলে দিন! হুজুর (সা.) বললেন, তুমি তাওরাত থেকে ১৪০০ প্রশ্ন বের করে লিখে এনেছ। এ কথা শুনে আবদুল্লাহ বিন সালাম মাথা নত করে কেঁদে ফেললেন এবং আরজ করলেন, ইয়া মুহাম্মদ (সা.) নিঃসন্দেহে আপনি সত্যবাদী, বিশ্বস্ত। নিঃসন্দেহে আপনি নবী। তিনি রসুল (সা.)-এর কাছে ইসলাম গ্রহণ করলেন।