শুক্রবার, ২১শে জানুয়ারি, ২০২২ খ্রিস্টাব্দ ৭ই মাঘ, ১৪২৮ বঙ্গাব্দ

বিজ্ঞানের চোখে সময় আসলে কী ?

clockkসময় কি ? প্রশ্নটা অদ্ভুত শোনালেও উত্তরটা কিন্তু বেশ কঠিন। সময় বলতে আমরা অতীত, বর্তমান আর ভবিষ্যৎ বুঝলেও বিজ্ঞান সময়কে একটু অন্যভাবে উপস্থাপন করেছে। অতীত কেবলই আমাদের স্মৃতি, বাস্তবে সময়ের এই স্তরের অস্তিত্ব না থাকলেও বিভিন্ন ঘটনার ইতিহাস ব্যাখ্যায় তাত্ত্বিকভাবে আমরা সময়ের 'অতীত' নামক স্তরের শরণাপন্ন হই। বাস্তবে আমরা শুধু বর্তমানকেই দেখি আর বর্তমানের অভিজ্ঞতার আলোকে আমরা কোন ঘটনার ভবিষ্যৎ কল্পনা করতে পারি।

নিউটনীয় পদার্থবিদ্যা বা ক্লাসিকাল পদার্থবিদ্যায় সময়কে ধ্রুবক ধরা হত। মানে পদার্থবিজ্ঞানের অন্যান্য ভৌতিক রাশির পরিমাপে সময়কে ধ্রুব প্রমান দন্ড বিবেচনা করে পরিমাপ করা হত। ক্লাসিকাল পদার্থবিদ্যার মতে সময় ছিল একটি স্বাধীন রাশি। বিংশ শতাব্দীর শুরুতে আইনস্টাইন দেখান যে সময় ধ্রুব রাশি নয়। তিনি আপেক্ষিকতা তত্ত্বের মাধ্যমে দেখান যে একটি কাঠামোর গতির ওপর ঐ কাঠামোর অভ্যন্তরস্থ সময় নির্ভরশীল।

এভাবেই সময় সংক্রান্ত ক্লাসিকাল পদার্থবিজ্ঞানের সমস্ত ধারনা পুনঃসংজ্ঞায়িত হয়। আইনস্টাইন সময়কে স্থানের তিনটি মাত্রার (দৈর্ঘ্য, প্রস্থ, উচ্চতা) মত একটি মাত্রা হিসেবে প্রতিষ্ঠিত করেন। এবং এই চতুর্মাত্রার নাম দেন স্থানকাল। এভাবেই আমাদের ত্রিমাত্রিক জগতের নতুন পরিচয় হয় চতুর্মাত্রিক জগৎ।

সময়ের অস্তিত্ব ঠিক এভাবে ব্যাখ্যা করা যায়, ধরুন আপনি একজন দর্শক। আপনার সামনে একটি দৃশ্যমান স্থির ফুটবলকে কেন্দ্র করে একটি টেনিস বল ঘুরছে। আপনি যখনই এই টেনিস বলটির ঘুর্ণন উপলব্ধি করবেন তখনই বুঝবেন এখানে সময় আছে। কারন আপনি যখন দেখবেন যে টেনিস বলটি তার অতিত অবস্থানে নেই সেটি 'অবস্থান' পরিবর্তন করছে তখনই এই 'অবস্থানের' পরিবর্তন বুঝতে যে রাশিটি চলে আসে তাই সময়। কোনবস্তুর অতিক্রান্ত পথই স্থান। মানে অবস্থানের পরিবর্তন বা অতিক্রান্ত দুরত্ব তথা স্থান আর সময় একে অপরের সাথে একই সুতোয় গাথা। এজন্যই স্থানের তিনটি মাত্রার সাথে সময়কেও একটি মাত্রা হিসেবে ধরা হয়।

এই মহাবিশ্বে সবকিছু যদি স্থির থাকতো তাহলে সময় বা স্থান কিছুই উপলব্ধি করা সম্ভব হতনা বা স্থানকালের অস্তিত্বও থাকতনা । তার মানে গতিশীলতার কারনেই আমরা 'যুগপতভাবে' স্থান ও সময় উপলব্ধি করি। যুগপৎ বলার কারন হল আপনি কখোনোই সময় ছাড়া স্থান বা স্থান ছাড়া সময় কল্পনা করতে পারবেননা। তার মানে দাড়ায় বস্তু ও শক্তির পারস্পারিক মিথস্ক্রিয়ার ফলাফলই হল স্থানকাল। কারন পদার্থবিজ্ঞানের নিয়ম অনুযায়ী বল বা শক্তি প্রয়োগ ছাড়া তো বস্তুর অবস্থার পরিবর্তন সম্ভব না।

তাহলে আমরা বলতে পারি সময় আসলে স্থানেরই একটি মাত্রা। যে মাত্রাটি ছাড়া স্থান অসম্পূর্ণ।

এ জাতীয় আরও খবর

টিকা সনদ নিতে হবে সরকারি-বেসরকারি চাকুরেদের

শীতেও খুব বেশি কমেনি সবজির দাম

ছুটির দিনে এত মানুষ, স্বাস্থ্যবিধির বালাই নেই

৬ ফেব্রুয়ারি পর্যন্ত বন্ধ থাকবে কোচিং সেন্টারও : শিক্ষামন্ত্রী

করোনায় ১২ মৃত্যু, শনাক্ত ১১৪৩৪

আমেরিকা ও ব্রিটিশরাই র‌্যাব তৈরি করেছে, প্রশিক্ষণ দিয়েছে : পররাষ্ট্রমন্ত্রী

পরিস্থিতি খারাপ হলে সিদ্ধান্ত পাল্টাতে পারি, বিপিএল প্রসঙ্গে মল্লিক

তামিমের ফিফটিতে খুলনার সামনে ঢাকার বড় চ্যালেঞ্জ

রাউজানে অনাথ আশ্রম থেকে দুই বোন নিখোঁজ

আলোচনায় বসতে শিক্ষামন্ত্রীর আহ্বানে সাড়া শাবিপ্রবির আন্দোলনরতদের

রাবির ক্লাস অনলাইনে, খোলা থাকবে হল

আমিও একজন মা, শিক্ষার্থীদের কষ্ট হচ্ছে: শাবি প্রসঙ্গে শিক্ষামন্ত্রী