রবিবার, ২রা অক্টোবর, ২০২২ খ্রিস্টাব্দ ১৭ই আশ্বিন, ১৪২৯ বঙ্গাব্দ

ফল প্রকাশের আগেই বিশ্ববিদ্যালয়ে ভর্তিযুদ্ধ!

hsc১৬ই জুন এইচএসসি’র ব্যবহারিক পরীক্ষা শেষ হবে। এরপর ফলাফলের জন্য অপেক্ষা করতে হবে শিক্ষার্থীদের। কিন্তু এরই আগে ভর্তি পরীক্ষার তারিখ ঘোষণা করেছে ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয় কর্তৃপক্ষ। আগামী কয়েকদিনের মধ্যে বুয়েট ও মেডিকেল কলেজের ভর্তি পরীক্ষার তারিখ ঘোষণার প্রস্তুতি চলছে। ৮ই জুন এইচএসসির লিখিত পরীক্ষা শেষ হওয়ার কথা। পরীক্ষা শেষ হওয়ার ৬০ দিন পর ফল প্রকাশিত হয়। এ হিসেবে আগস্টের প্রথম সপ্তাহে এইচএসসি ও সমমানের ফল প্রকাশিত হবে। কিন্তু ফল প্রকাশের আগেই ভর্তিযুদ্ধ শুরু হয়ে গেছে। অন্যান্য বছরের তুলনায় এ বছর সময় পাচ্ছে না বিশ্ববিদ্যালয়ে ভর্তিচ্ছুকরা। অন্যান্য বছর ডিসেম্বর থেকে বিশ্ববিদ্যালয়ের ভর্তি পরীক্ষা শুরু হয়। সে অনুযায়ী এ বছর প্রস্তুতির সময় পাচ্ছে না লাখ লাখ শিক্ষার্থী। ফলে টেনশনে পড়েছেন তারা।

বিশ্ববিদ্যালয়ে ভর্তিচ্ছুক শিক্ষার্থী সাঈদ বলেন, এখন পর্যন্ত পড়াই শুরু করিনি। এরমধ্যে ভর্তি পরীক্ষার তারিখ দেয়া হয়েছে। বুঝতে পারছি না কি করবো। অন্যান্য বছরের মতো এবারও অনলাইনের মাধ্যমে প্রার্থীদের ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের ২০১৪-২০১৫ শিক্ষাবর্ষে ১ম বর্ষ স্নাতক সম্মান শ্রেণীতে  ভর্তির আবেদন প্রক্রিয়া আগামী ১৪ই আগস্ট শুরু হয়ে ৩১ শে আগস্ট পর্যন্ত অব্যাহত থাকবে। বিজ্ঞান অনুষদের অধীন ‘ক’ ইউনিটের ভর্তি পরীক্ষা ১২ই সেপ্টেম্বর, কলা ও সামাজিক বিজ্ঞান অনুষদের অধীন ‘খ’ ইউনিটের ভর্তি পরীক্ষা ১৯ই সেপ্টেম্বর, বাণিজ্য অনুষদের অধীন ‘গ’ ইউনিটের ভর্তি পরীক্ষা ৫ই সেপ্টেম্বর, বিভাগ পরিবর্তনকারী ‘ঘ’ ইউনিটের ভর্তি পরীক্ষা ২৬শে সেপ্টেম্বর এবং চারুকলা অনুষদের অধীন ‘চ’ ইউনিটের ভর্তি পরীক্ষা ১৩ই সেপ্টেম্বর হবে। উচ্চ মাধ্যমিক পরীক্ষা শেষ হওয়ার আগেই ভর্তি পরীক্ষার তারিখ ঘোষণা সম্পর্কে বিশ্ববিদ্যালয়ের ভিসি  অধ্যাপক ড. আ আ ম স আরেফিন সিদ্দিক বলেন, শিক্ষার্থীরা যাতে উচ্চ মাধ্যমিক পরীক্ষার প্রস্তুতি দিয়েই ভর্তি পরীক্ষায় অংশ নিতে পারে এবং ভর্তি পরীক্ষার জন্য আগেই মানসিক প্রস্তুতি নিতে পারে সেজন্যই আমরা ভর্তি প্রক্রিয়া আগেই শুরু করতে চাই। সব পাবলিক বিশ্ববিদ্যালয় মিলে প্রায় ৩০ হাজার আসন রয়েছে। জিপিএ-৫ থেকে জিপিএ-৩ পাওয়া শিক্ষার্থীরাই সাধারণত কোন না কোন বিশ্ববিদ্যালয়ে ভর্তির জন্য প্রতিযোগিতা করবে। গত বছর প্রায় ৪ লাখ শিক্ষার্থী বিশ্ববিদ্যালয়ের ভর্তির প্রতিযোগিতা করে।

উচ্চ মাধ্যমিকে ভাল রেজাল্ট করা বেশির ভাগ শিক্ষার্থীরই স্বপ্ন মেডিকেল, বুয়েট বা পাবলিক বিশ্ববিদ্যালয়ে ভর্তি হওয়া। কিন্তু দেশের পাবলিক বিশ্ববিদ্যালয়ে মোট ২৭ হাজারের মতো আসন রয়েছে। দেশে বর্তমানে ৩৪টি পাবলিক বিশ্বদ্যিালয় রয়েছে। এর মধ্যে বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমান বিশ্ববিদ্যালয়ে অনার্সে শিক্ষার্থী ভর্তি করা হয় না। এছাড়া জাতীয় বিশ্ববিদ্যালয় ও উন্মুক্ত বিশ্ববিদ্যালয় বাদ দিলে ৩১টি বিশ্ববিদ্যালয়ে আসন রয়েছে প্রায় ৩০ হাজার। ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ে আসন রয়েছে প্রায় ৫৫০০। এর মধ্যে কলা অনুষদে ২৫৯২টি, বিজ্ঞান অনুষদে প্রায় ১৫০০, বিজনেস স্টাডিজ অনুষদে ৮৪৪টি ও সামাজিক বিজ্ঞান অনুষদে প্রায় ৭৫০টি আসনে শিক্ষার্থী ভর্তি করা হয়। বাংলাদেশ প্রকৌশল বিশ্ববিদ্যালয়ে (বুয়েট) ৫টি অনুষদেও ১৪টি বিভাগে আসন রয়েছে ৮৮৬টি। দেশে ১৮টি মেডিকেল কলেজে আড়াই হাজারের মতো  আসন রয়েছে। এর মধ্যে নয়টি মেডিকেলে ১৭৫ জন করে বাকি বেশির ভাগ কলেজেই ১০০ করে শিক্ষার্থী ভর্তি করা হয়। রাজশাহী বিশ্ববিদ্যালয়ে প্রায় ৩৫শ’ আসন রয়েছে। এর মধ্যে কলা অনুষদে ৮৯৫টি, আইন অনুষদে ১০০, বাণিজ্য অনুষদে ৪৫০, বিজ্ঞান অনুষদে ৯৫০টি, কৃষি অনুষদে ১২০টি এবং সামাজিক বিজ্ঞান অনুষদে ৫৩৫টি আসন রয়েছে। জাহাঙ্গীরনগর বিশ্ববিদ্যালয়ে চারটি অনুষদ রয়েছে। এ বিশ্ববিদ্যালয়ের চারটি অনুষদের অধীনে ২৫টি বিভাগে ১২৮৩টি আসন রয়েছে। জগন্নাথ বিশ্ববিদ্যালয়ে ২১টি বিভাগে প্রায় তিন হাজার আসন রয়েছে। চট্টগ্রাম বিশ্ববিদ্যালয়ে ছয়টি অনুষদে ৩৪টি বিভাগে প্রায় আড়াই হাজার আসন রয়েছে। ইসলামী বিশ্ববিদ্যালয়ে ২০টি বিভাগে মোট এক হাজার ২২০টি আসন রয়েছে। শাহ্‌ জালাল বিজ্ঞান ও প্রযুক্তি বিশ্ববিদ্যালয়ে ১০টি বিভাগে ১২৫০টি আসন রয়েছে। খুলনা বিশ্ববিদ্যালয়ের ১৬টি ডিসিপ্লিনে ছয়শ’ আসন রয়েছে। বাংলাদেশ কৃষি বিশ্ববিদ্যালয়ে ছয়টি বিভাগে ৬৩৮টি আসন রয়েছে। বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমান কৃষি বিশ্ববিদ্যালয়ে ১১০টি আসন রয়েছে। শেরেবাংলা কৃষি বিশ্ববিদ্যালয়ে দু’টি অনুষদে মোট ৩৭৫টি আসন রয়েছে। হাজী দানেশ বিজ্ঞান ও প্রযুক্তি বিশ্ববিদ্যালয়ে ছয়টি অনুষদেও ১৫টি বিভাগে ৩৩০টি আসন রয়েছে। মাওলানা ভাসানী বিজ্ঞান ও প্রযুক্তি বিশ্ববিদ্যালয়ে দু’টি অনুষদেও সাতটি বিভাগে ৩৫০টি আসন রয়েছে।

ঢাকা প্রকৌশল ও প্রযুক্তি বিশ্ববিদ্যালয়ে ছয়টি বিভাগে ৪৮৫টি আসন রয়েছে। চট্টগ্রাম প্রকৌশল ও প্রযুক্তি বিশ্ববিদ্যালয়ে চারটি বিভাগে ৪৩১টি আসন রয়েছে। খুলনা প্রকৌশল ও প্রযুক্তি বিশ্ববিদ্যালয়ে ছয়টি বিভাগে ৪৮৫টি আসন রয়েছে। রাজশাহী প্রকৌশল ও প্রযুক্তি বিশ্ববিদ্যালয়ে ছয়টি বিভাগে ৪৮৫টি আসন রয়েছে। নোয়াখালী বিজ্ঞান ও প্রযুক্তি বিশ্ববিদ্যালয়ে চারটি বিভাগে ১৮০টি আসন রয়েছে। কুমিল্লা বিশ্ববিদ্যালয়ে ৩০০ আসন রয়েছে। ময়মনসিংহের ত্রিশালে কাজী নজরুল ইসলাম বিশ্ববিদ্যালয়ে প্রায় ৩০০ আসন রয়েছে। চট্টগ্রাম ভেটেরিনারি অ্যান্ড এ্যানিমেল সায়েন্সেস বিশ্ববিদ্যালয়ে ১৫০টি, সিলেট কৃষি বিশ্ববিদ্যাল, বাংলাদেশ ইউনিভার্সিটি অব প্রফেশনাল ও  রংপুরের বেগম রোকেয়া বিশ্ববিদ্যালয়ে প্রায় ১০০০ শিক্ষার্থী ভর্তি করা হয়। জাতীয় বিশ্ববিদ্যালয়ের অধীন প্রায় ১৭শ’ শিক্ষা প্রতিষ্ঠান রয়েছে। এর মধ্যে ১৯৮টি কলেজে অনার্সে ভর্তি করা হয় এক লাখ ৩৫ হাজার শিক্ষার্থী। এছাড়া ১৬শ‘ ডিগ্রি কলেজে প্রায় ৭০ হাজার শিক্ষার্থী ভর্তি করা হয়। দেশে ৫১টি প্রাইভেট বিশ্ববিদ্যালয়ে ১৬ হাজারের মতো শিক্ষার্থী ভর্তি করা হয়। সরকারি হিসাব অনুযায়ী ১৪৫০টি শিক্ষা প্রতিষ্ঠানে অনার্সে বা ডিগ্রিতে শিক্ষার্থী ভর্তি করানো হয়।

এগুলোতে আসন রয়েছে এক লাখ ৭৬ হাজার ৫৯২টি। বিশিষ্ট শিক্ষাবিদ ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের দর্শন বিভাগের প্রবীণ অধ্যাপক আমিনুল ইসলাম বলেন, আমাদের দেশের মানুষ পড়ালেখা করে চাকরির আশায়। বিশ্বের উন্নত দেশের ছেলে-মেয়েরা উচ্চ মাধ্যমিক পাস করার পরপরই বিভিন্ন সেক্টরে চাকরি করার সুযোগ পায়। আমাদের সে সুযোগ নেই। ফলে অনেক অভিভাবকই মনে করে ছেলে-মেয়ে উচ্চ শিক্ষিত হলেই ভাল চাকরি পাবে। এ আশায় ভিটে-বাড়ি বিক্রি করে ছেলে-মেয়েকে উচ্চ শিক্ষিত করে। এজন্য আমাদের দেশে শিক্ষিত বেকারের সংখ্যা বেশি।