বুধবার, ২৮শে সেপ্টেম্বর, ২০২২ খ্রিস্টাব্দ ১৩ই আশ্বিন, ১৪২৯ বঙ্গাব্দ

পঞ্চম স্ত্রীকে নিয়ে ভারতে নূর হোসেন

noor chorনারায়ণগঞ্জ সিটি করপোরেশনের (নাসিক) প্যানেল মেয়র নজরুল ইসলামসহ সাতজনকে অপহরণ ও হত্যার প্রধান আসামি নূর হোসেন কি হাওয়ায় মিলিয়ে গেলেন? র‌্যাব, পুলিশসহ বিভিন্ন গোয়েন্দা সংস্থার সদস্যরা তার সন্ধানে নানা জায়গায় ছুটে চলেছেন। কিন্তু নারায়ণগঞ্জের এরশাদ শিকদার-খ্যাত এই ভয়ঙ্কর অপরাধীকে কোথাও খুঁজে পাওয়া যাচ্ছে না। সাত হত্যা মামলার আসামি গ্রেফতারে গঠিত পুলিশের টিম নারায়ণগঞ্জ, ঢাকা, যশোর, বেনাপোল, ফেনী ও কুমিল্লা সীমান্ত এলাকায়ও বেশ কয়েকবার অভিযান চালিয়েছে। কোথাও নূর হোসেন নেই। তার এই পালিয়ে থাকা নিয়ে ছড়িয়েছে নানা গুজব। কেউ বলছেন, তিনি ভারতে পালিয়ে গেছেন। কেউ বলছেন, তাকে গুম করা হয়ে থাকতে পারে। কেউ কেউ অভিযোগ তুলে বলছেন, নূর হোসেন ঢাকাতেই একজন প্রভাবশালী নেতার আশ্রয়ে-প্রশ্রয়ে নিরাপদে আছেন। কারও মতে, ভারত হয়ে দুবাই, মালয়েশিয়া কিংবা সিঙ্গাপুরে পালিয়ে যেতে পারেন নূর হোসেন। তবে ভারতে আৎদগোপনে থাকা শীর্ষ সন্ত্রাসীদের সঙ্গে সম্পৃক্ত একটি সূত্র জানায়, নূর হোসেন কলকাতায় নেই। তিনি পঞ্চম স্ত্রী রুমাকে নিয়ে হিমাচল প্রদেশের শিমলা শহরে অবকাশ যাপন কেন্দ্রে অবস্থান করছেন। সাত হত্যাকাণ্ডের পরও দুই দিন পর্যন্ত নারায়ণগঞ্জেই ঘুরে বেড়িয়েছেন নূর হোসেন।

প্রশাসনের বন্ধু কর্মকর্তাদের সঙ্গে তিনি যথারীতি আড্ডা দিয়েছেন। তার নাচ-গান-মাদকের আসরও বন্ধ ছিল না। কিন্তু শীতলক্ষ্যায় একের পর এক লাশ উদ্ধার হতেই গা-ঢাকা দেন। এরপরও তার অবস্থান ছিল রাজধানীর ধানমন্ডি ও গুলশান এলাকায়। একটি গোয়েন্দা সংস্থার পর্যবেক্ষণে ধানমন্ডিতে নূর হোসেনের অবস্থান চিহ্নিত হয়। তার টেলি কথোপকথন রেকর্ড করা সম্ভব হলেও তখন তাকে গ্রেফতার করা যায়নি। এরপরই ‘হাওয়া’ হয়ে যান নূর হোসেন।

জানা যায়, তিনি কলকাতায় অবস্থান করছেন। ঘটনার তিন দিন পর ভারতে পালিয়ে যান বলেও জানানো হয়। কিন্তু নজরুলের শ্বশুর শহীদ চেয়ারম্যান অভিযোগ তোলেন, র‌্যাবের সহায়তায়ই নূর হোসেন কলকাতায় পাড়ি জমিয়েছেন। সেখানে তার ‘রাধা’ নামে এক স্ত্রী রয়েছেন। ভারতে গিয়ে নূর হোসেন নাম পরিবর্তন করে ‘গোপাল’ রেখেছেন। এ নাম ব্যবহার করে তিনি একটি পাসপোর্ট বানিয়েছেন। কলকাতার সদর স্ট্রিটে নূর হোসেনের নিজস্ব বাড়ি রয়েছে বলেও দাবি করেন শহীদ চেয়ারম্যান। নাম প্রকাশে অনিচ্ছুক তদন্তসংশ্লিষ্ট এক কর্মকর্তা জানান, ৩০ এপ্রিল শীতলক্ষ্যা নদীতে লাশ ভেসে ওঠার পর নূর হোসেন নারায়ণগঞ্জ থেকে পালিয়ে যান। পরে যশোরের বেনাপোল পৌঁছান। সেখানে তার বিশ্বস্ত কর্মচারী কামাল হোসেনের মাধ্যমে বেনাপোল সীমান্ত দিয়ে ভারতের হরিদাসপুর এলাকায় পৌঁছান। সেখান থেকে অবস্থান নেন পশ্চিমবঙ্গের কলকাতায়।

নূর হোসেনকে পালিয়ে যেতে সহায়তার অভিযোগে কামাল হোসেনকে ইতিমধ্যে তিন দিনের রিমান্ডে নিয়েছে পুলিশ। নারায়ণগঞ্জের পুলিশ সুপার (এসপি) ড. খন্দকার মহিদউদ্দিন জানান, নূর হোসেনকে গ্রেফতারের সর্বোচ্চ চেষ্টা চলছে। তিনি যেখানেই থাকুন আইনের আওতায় আনা হবে। তার অবস্থান নিয়ে কোনো তথ্য পুলিশের কাছে আছে কিনা জানতে চাইলে এসপি বলেন, ‘পুলিশ বিভিন্ন কৌশলে অগ্রসর হচ্ছে। আমরা আশা করি, শীঘ্রই তাকে গ্রেফতারে সক্ষম হব।’

এ জাতীয় আরও খবর

বিএনপি নেতা টুকুর বক্তব্য শিষ্টাচারবহির্ভূত ও কুরুচিপূর্ণ: জামায়াত

মাথা দিয়ে বাংলাদেশকে উড়িয়ে দিলেন অঞ্জন

ক্যাম্পাসে ফিরেছেন রিভা-রাজিয়া

পরীক্ষার সিরিজে প্রত্যাশিত জয় টাইগারদের

প্রেমিকাকে পেতে স্ত্রীকে বিষ খাইয়ে হত্যা

রাজনৈতিক সহিংসতা ও নির্বাচনী অস্থিতিশীলতা বিনিয়োগকারীদের ভীত করে: পিটার হাস

গৃহবধূকে ধর্ষণের পর হত্যায় ৯ জনের যাবজ্জীবন

নিহত রোহিঙ্গা নেতা মুহিবুল্লাহর ১৪ স্বজন কানাডায়

টুকু জনগণের ভাষায় কথা বলতে পারেন না: জামায়াত

‘সাবধানে যাবি, তাড়াতাড়ি আসবি’: মেয়ের সঙ্গে বাবার শেষ কথা

প্রধানমন্ত্রীকে শুভেচ্ছা বার্তা লিখবে দেড় কোটি শিক্ষার্থী

মানুষের জন্য চিকিৎসা নেই, বেকারদের জন্য কাজের নিশ্চয়তা নেই : জিএম কাদের