বৃহস্পতিবার, ২৯শে সেপ্টেম্বর, ২০২২ খ্রিস্টাব্দ ১৪ই আশ্বিন, ১৪২৯ বঙ্গাব্দ

Digital World 2014 ॥ ২০১৫ সালের জুন পর্যন্ত সফটওয়্যার ও আইটি ব্যবসাকে আয়কর মুক্ত রাখার ঘোষণা

IMG_6957-------------_0ডিজিটাল বাংলাদেশ গড়ার মাধ্যমে আমরা শিক্ষা, স্বাস্থ্য, কর্মসংস্থান, দারিদ্র বিমোচন, অর্থনৈতিক উন্নয়ন ও জনগণের ক্ষমতায়নে তথ্যপ্রযুক্তির ব্যাপক ব্যবহার নিশ্চিত করতে চাই। এজন্য তথ্যপ্রযুক্তি আমাদের এগিয়ে যাওয়ার পথে সহায়ক শক্তি হবে-এমন মন্তব্যের মধ্য দিয়ে আজ বুধবার দেশে তথ্যপ্রযুক্তি খাতের সবচেয়ে বড় উৎসব ‘ডিজিটাল ওয়ার্ল্ড-২০১৪’ উদ্বোধন করেন প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা। প্রধানমন্ত্রী ডিজিটাল স্বাক্ষরের মাধ্যমে এ আন্তর্জাতিক আসর উদ্বোধন ঘোষণা করেন। উদ্বোধনী অনুষ্ঠানে প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা তথ্যপ্রযুক্তির মাধ্যমে ‘রূপকল্প ২০২১’ বাস্তবায়নে সরকারের নানা উদ্যোগ ও অর্জনের কথা তুলে ধরেন। এ সময় তিনি আন্তর্জাতিক আইসিটি কোম্পানিকে বিনিয়োগের আহবান জানিয়ে বলেন, “বাংলাদেশে স্যামসাং-এর মতো আন্তর্জাতিক প্রতিষ্ঠান গবেষণা ও উন্নয়ন কেন্দ্র স্থাপন করেছে। গুগল, মাইক্রোসফট ও ডেলের মতো বিশ্বখ্যাত প্রতিষ্ঠানগুলো বাংলাদেশে তাদের অফিস স্থাপন করেছে। আমরা তাদেরকে বাংলাদেশে বিনিয়োগ করার আহবান জানাই। বর্তমান সরকার তাদেরকে সর্বাত্মক সহযোগিতা করবে। এধরনের পদক্ষেপের ফলে দেশের তরুণ মেধাবী প্রজন্ম নিজের ও দেশের উন্নয়নে অবদান রাখবে।” বাংলাদেশে তথ্যপ্রযুক্তি বান্ধব পরিবেশ নিশ্চিত করতে সরকার সর্বাত্মক উদ্যোগ নিয়েছে জানিয়ে তিনি আরও বলেন, ১৯৯৬ সাল থেকেই তথ্যপ্রযুক্তি খাতে বিনিয়োগের জন্য সকলকে উৎসাহ দেয়া হচ্ছে। এ সেক্টরকে থার্স্ট সেক্টর হিসেবে ঘোষণা করা হয়েছে। ২০১৫ সালের জুন পর্যন্ত সফটওয়্যার ও আইটি ব্যবসায়কে আয়কর মুক্ত রাখা হয়েছে। ভেঞ্চার ক্যাপিটাল ঋণসহ ইকুয়িটি এন্টারপ্রিনিয়রশিপ ফান্ডের ব্যবস্থা চালু করা হয়েছে। দেশের স্বাধীনতার সুবর্ণ জয়ন্তীর আগেই বাংলাদেশকে একটি আত্মমর্যাদাশীল জাতি হিসেবে বিশ্বে প্রতিষ্ঠিত করার প্রতিশ্রুতি ব্যক্ত করে প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা বলেন, “ বাংলাদেশকে আর হাত পেতে চলতে হবে না। প্রযুক্তির মাধ্যমে তরুণ প্রজন্ম ২৩ বছরের সংগ্রাম আর নয় মাসের যুদ্ধের প্রকৃত ফসল ঘরে তুলবে। বিশ্বে আমরা মাথা উঁচু করে চলবো।” এসময় ২০২১ সালের মধ্যে সফটওয়্যার ও তথ্যপ্রযুক্তি সেবা রফতানি আয় বর্তমানের ১০০ মিলিয়ন থেকে পাঁচ বিলিয়ন মার্কিন ডলারে উন্নীত করার আশাবাদ ব্যক্ত করেন প্রধানমন্ত্রী। অপটিক্যাল ফাইবার ক্যাবল লাইন স্থাপনের মাধ্যমে প্রান্তিক পর্যায়ে উচ্চগতির নিরবিচ্ছিন্ন ইন্টারেনট সংযোগ পৌঁছে দিতে ২০১৫ সালের আগেই দেশজুড়ে ব্রডব্যান্ড ইন্টারনেট সংযোগ স্থপন করা সম্ভব হবে বলে জানান শেখ হাসিনা। তিনি বলেন, সবাই জানেন যে ইতিমধ্যেই মোবাইল ফোনে তৃতীয় প্রজন্ম বা থ্রিজি প্রযুক্তি চালু হয়েছে এবং খুব শিগগিরই চতুর্থ প্রজন্ম বা ফোরজি প্রযুক্তি চালু করা হবে। দেশের ১৬ কোটি মানুষ মধ্যে ১১ কোটি সিম ব্যবহার করে জানিয়ে প্রধানমন্ত্রী নিজের সম্পর্কে বলেন যে, আমি নিজেও একাধিক সিম ব্যবহার করি। আমার ছেলে জয় যখন স্কুলে পড়ে তখন তার কাছ থেকেই আমি কম্পিউটার চালানো শিখেছি। ৯১ সালে আওয়ামীলীগ দলের জন্য কম্পিউটার কিনেছি। কম্পিউটারের মাধ্যমে দাপ্তরিক কাজ শুরু করেছি। সভাপতির বক্তব্যে ডাক টেলিযোগাযোগ ও তথ্যপ্রযুক্তি মন্ত্রী আব্দুল লতিফ সিদ্দীকি বলেন, তথ্যপ্রযুক্তির মাধ্যমে অগ্রগতির পথের সকল জঞ্জাল ঝেঁটিয়ে বিদায় করতে হবে। সম্মিলিত ভাবেই এই অগ্রযাত্রাকে এগিয়ে নিতে আমাদেও আবর্জনা পরিস্কার করতে হবে। ডাক, টেলিযোগাযোগ ও তথ্যপ্রযুক্তি প্রতিমন্ত্রী জুনাইদ আহমেদ পলক বলেন, প্রযুক্তির মাধ্যমে আজকের তরুণরাই গড়বে সমৃদ্ধ বাংলাদেশ। সরকারি বেসরকারি যৌথ উদ্যোগে দিনবদলের সনদ বাস্তবায়িত হবে। তিনি আরো বলেন, প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার আইটি উপদেষ্টা সজীব ওয়াজেদ জয়-এর সুচিন্তায় আমরা আমাদের ভবিষ্যত গন্তব্য নির্ধারণ করেছি। তথ্যপ্রযুক্তির মাধ্যমে আমরা প্রকৃত সোনার বাংলা প্রতিষ্ঠা করব। ইতিমধ্যেই আমরা উপজেলা পর্যায়ে ই-তথ্য সেবার মাধ্যমে জনগনের দোরগোড়ায় নাগরিক সেবা পৌঁছে দিতে সক্ষম হয়েছি। আমরা আগামী বছর আইসিটি থেকে এক বিলিয়ন রপ্তানি আয় করতে সক্ষম হবো। এছাড়া তথ্য ও যোগাযোগ প্রযুক্তি বিভাগের ভারপ্রাপ্ত সচিব কামাল উদ্দিন আইসিটি মন্ত্রণালয়ের গৃহীত বিভিন্ন উদ্যোগের কথা তুলে ধরেন। বেসিস সভাপতি শামীম আহসান বলেন, সরকারি- বেসরকারি উদ্যোগে প্রথমবারের মতো এত বড় মেলা আয়োজিত হচ্ছে। এটি নতুন যুগের সূচনা করলো। রূপকল্প ২০২১ বাস্তবায়নে ডিজিটাল বাংলাদেশ গড়তে আমরা সরকারের সাথে কাজ করছি। এক বিলিয়ন ডলার রপ্তানি আয়ের লক্ষ্যমাত্রা নিয়ে এগিয়ে চলছি। আমরা আশা করছি, এই খাত থেকে আগামীতে জিডিপির এক শতাংশ অবদান রাখতে সক্ষম হবো। আয়োজনের প্রধান প্রকল্প কর্মকর্তা ও বেসিস মহাসচিব রাসেল টি আহমেদ আয়োজনের সঙ্গে সম্পৃক্ত সবাইকে ধন্যবাদ জানিয়ে বলেন, সবার সহযোগিতা না পেলে এক মাসের কম সময়ে এত বড় মেলা সুষ্ঠুভাবে আয়োজন সম্ভব হত না। উদ্বোধনী অনুষ্ঠান শেষে প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা আয়োজেন অংশ নেয়া ষ্টল ঘুরে দেখেন। উদ্বোধনের পর লেজার শো’র মাধ্যমে ডিজিটাল বাংলাদেশের বিভিন্ন সেবা উপস্থাপন করা হয়। চোখধাধানো ধাঁধাঁনো লেজার শো উপভোগ করেছে অনুষ্ঠানে উপস্থিত সকলে। ডিজিটাল ওয়ার্ল্ড ২০১৪ চলবে আগামী ৭ জুন পর্যন্ত। আগামীকাল বৃস্পতিবার দুপুর ১২টা থেকে শুরু হয়ে রাত ৮টা পর্যন্ত চলবে সজ্জিত থাকবে এবারের আসর। তথ্য-প্রযুক্তির এ জমকালো উৎসবে প্রদর্শনী ছাড়াও সেমিনার, কর্মশালা, আইটি জব ফেয়ার ও সিইও নাইট অনুষ্ঠিত হবে। মেলা প্রাঙ্গনে দর্শণার্থীদের নতুন অভিজ্ঞতা দিতে থাকছে সেলফি বুথ ও বিনামূল্যে ইন্টারনেট ব্যবহারের সুবিধা। এলইডি স্ক্রিনে মেলার উল্লেখযোগ্য আয়োজন সরাসরি উপভোগ করা যাবে। এছাড়া ‘ডিজিটাল ওয়ার্ল্ড’ নামের মোবাইল অ্যাপ্লিকেশন ডাউনলোড করে মেলার বিভিন্ন অনুষ্ঠান এবং আয়োজন সম্পর্কে সর্বশেষ তথ্য জানা যাবে।