বুধবার, ২৮শে সেপ্টেম্বর, ২০২২ খ্রিস্টাব্দ ১৩ই আশ্বিন, ১৪২৯ বঙ্গাব্দ

চাকরি না পেয়ে ট্রেনের নিচে ঝাঁপ দিল ঢাবি ছাত্র শাহীন

shahin_26345_0“বন্ধুরা, আমি এমন একটি অপরাধ করতে যাচ্ছি, যা আমার পরিবার, আইন ও ধর্মের বিরুদ্ধে। আমি রেললাইনের ওপর শুয়ে আছি। ট্রেন আসছে। এই হতচ্ছাড়া নিজেকে দূরে সরিয়ে দিতে যাচ্ছি, যে অপদার্থ কিনা শুধু খেতেই জানে। আমি একটা কমেন্ট লিখেছিলাম, আমার যেতে হবে। তারপর তোমাদের কেউ একজন জানতে চেয়েছো, কোথা থেকে কোথায় যাচ্ছো? আমি জানি আমি কোথায় যাচ্ছি। কিন্তু আমি যাচ্ছি। এই অকর্মা নিজেকে ছেড়ে যাচ্ছি। বিদায়, বিদায় চিরতরে। মহান আল্লাহ তোমাদের সবার মঙ্গল করুন।” এটাই ছিল ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের ভূগোল বিভাগের মাস্টার্স পরীক্ষার্থী মাহবুব শাহীনের শেষ স্ট্যাটাস (ইংরেজি থেকে অনূদিত)। মঙ্গলবার রাত সাড়ে আটটার দিকে যার লাশ পাওয়া গেল খিলগাঁও রেলগেট কাঁচাবাজারের পাশের রেললাইনে। ধারণা করা হচ্ছে ওই রেললাইনে শুয়েই শেষ স্ট্যাটাসটি লিখেছিলেন তিনি। শাহীনের মৃত্যুর খবর নিশ্চিত করে ঢাকা রেলওয়ে থানার উপ-পরিদর্শক (এসআই) মো. সিরাজুল ইসলাম জানান, “শাহীনের পকেটে চারটি চিঠি পাওয়া গেছে। ওই চিঠিতে তার মৃত্যুর জন্য কেউ দায়ী নয় এমনটা লিখেছে সে।” মাহবুব শাহীনের বাড়ি গোপালগঞ্জের মোকসেদপুর থানার মুনিরকান্দি গ্রামে। ফেসবুকে স্ট্যাটাস দেখার পরপরই শাহীনের বন্ধুবান্ধবরা তার সঙ্গে ফোনে যোগাযোগের চেষ্টা করে। কিন্তু তার ফোন বন্ধ পাওয়া যায়। সোমবার রাত সাড়ে আটটার দিকে স্থানীয় ক্রসিং মাস্টার মরদেহটি দেখতে পান। এরপর তিনি কমলাপুর রেলওয়ের স্টেশন মাস্টারকে ফোন করে বিষয়টি অবহিত করেন। ঘটনাস্থলে পুলিশ গিয়ে মাহবুব শাহীনের লাশ উদ্ধার করে এবং তার পকেটে থাকা চিঠির সূত্র ধরে তার পরিবারকে বিষয়টি জানায়। পুলিশের মতে, ঢাকা থেকে দিনাজপুরগামী ট্রেনেই কাটা পড়েন শাহীন। খবর পেয়েই রেলওয়ে থানায় ছুটে যায় শাহীনের কয়েকজন সহপাঠী। আত্মহত্যার খবরে তাদের কেউ কেউ বিস্ময় প্রকাশ করে। শাহীনের বড় ভাই শরীফুল ইসলাম জানান, আত্মহত্যা করার মতো কোনো অবস্থা হয়েছিল বলে তারা মনে করেন না। তবে মাস্টার্স ফাইনাল দেওয়ার পর চাকরি নিয়ে তার ভেতর হতাশা ছিল অনেক। আর এই হতাশাই তাকে আত্মহত্যার সিদ্ধান্ত নিতে বাধ্য করেছে বলে ধারণা বন্ধুদেরও। শাহীনের পরিবারের বরাত দিয়ে মামলার তদন্ত কর্মকর্তা জিআরপি থানার এসআই সিরাজুল ইসলাম জানান, শাহীনের পুরো নাম মাহবুবুল হক শাহীন (২৬)। বাবার নাম নুরুল হক মিয়া। মা লুৎফর নেছা। গ্রামের বাড়ি মানিককান্দি, মুকসুদপুর, গোপালগঞ্জ। ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয় থেকে জিওগ্রাফি (ভূগোল) থেকে মাস্টার্স সম্পন্ন করেন তিনি। চার ভাই-বোনের মধ্যে তিনি দ্বিতীয়। বড় ও ছোট ভাই চাকরি করলেও শাহীন ছিলেন বেকার। এসআই সিরাজুল ইসলাম আরো জানান, শাহীনের পকেটে প্রায় দুই হাজার টাকা পাওয়া গেছে। একটি চিঠিতে সে লিখেছে, ওই টাকা দিয়ে যাতে তার লাশটাকে আঞ্জুমান মুফিদুলে দাফনের কাজে ব্যয় করা হয়। আরেকটি চিঠিতে শাহীন তার বন্ধু ডাক্তার রোমানের নাম উল্লেখ করে জানায়, ওই বন্ধুর কাছে তার ৪০ হাজার টাকা দেনা রয়েছে। আজ শাহীনের মরদেহ তার গ্রামের বাড়িতে নিয়ে যাওয়ার কথা রয়েছে। জিআরপি থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) আব্দুল মজিদ জানান, চাকরির চেষ্টা করে ব্যার্থ হয়ে শাহীন দক্ষিণ আফ্রিকায় যাওয়ার চেষ্টা করেন। কিন্তু সেখানেও ব্যর্থ হন। এরপর থেকে তার ভেতর তীব্র হতাশার জন্ম নেয়। পরিবারের কাউকে না জানিয়ে সোমবারই ঢাকায় আসেন। প্রত্যক্ষদর্শীদের বরাত দিয়ে ওসি আরো জানান, খিলগাঁও রেলগেটে আত্মহত্যার জন্য যখন তিনি চেষ্টা করছিলেন তখন উপস্থিত অনেকে বাধা দেয়ার চেষ্টা করেছিলেন। এমনকি ‘পুরুষ মানুষ এমনটা করে নাকি!’ এধরনের কথা বলেও তাকে ঠেকানো যায়নি। নিহতের বড় ভাই শরিফুল হক বলেন, ‘শাহীন ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয় থেকে জিওগ্রাফি বিভাগ থেকে মাস্টার্স পাস করেছিল। তার ভেতরে কেন এমন হতাশা ভর করলো তা আমরা বুঝতে পারিনি। আমি নিজে চাকরি নিয়ে ব্যস্ত থাকায় তাকে ঠিকভাবে কাউন্সেলিংও করতে পারিনি।’ বেকারত্বের হতাশা থেকেই ট্রেনের নিচে ঝাঁপ দিয়ে আত্মহত্যা করল শাহীন। ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয় থেকে মাস্টার্স পাশ করার পরও দীর্ঘদিন চেষ্টা করে কোনো চাকরি না জোটাতে এই আত্মহননের সিদ্ধান্ত নেন তিনি। তবে দেশে এখনো বেকারত্বের ভার বয়ে বেড়াচ্ছেন লাখ লাখ শাহীনরা। আর কোন মেধাবীকে যেন শাহীনের ভাগ্যবরণ করতে না হয়, সেটাই প্রত্যাশা চাকরী প্রার্থীদের।

এ জাতীয় আরও খবর

বিএনপি নেতা টুকুর বক্তব্য শিষ্টাচারবহির্ভূত ও কুরুচিপূর্ণ: জামায়াত

মাথা দিয়ে বাংলাদেশকে উড়িয়ে দিলেন অঞ্জন

ক্যাম্পাসে ফিরেছেন রিভা-রাজিয়া

পরীক্ষার সিরিজে প্রত্যাশিত জয় টাইগারদের

প্রেমিকাকে পেতে স্ত্রীকে বিষ খাইয়ে হত্যা

রাজনৈতিক সহিংসতা ও নির্বাচনী অস্থিতিশীলতা বিনিয়োগকারীদের ভীত করে: পিটার হাস

গৃহবধূকে ধর্ষণের পর হত্যায় ৯ জনের যাবজ্জীবন

নিহত রোহিঙ্গা নেতা মুহিবুল্লাহর ১৪ স্বজন কানাডায়

টুকু জনগণের ভাষায় কথা বলতে পারেন না: জামায়াত

‘সাবধানে যাবি, তাড়াতাড়ি আসবি’: মেয়ের সঙ্গে বাবার শেষ কথা

প্রধানমন্ত্রীকে শুভেচ্ছা বার্তা লিখবে দেড় কোটি শিক্ষার্থী

মানুষের জন্য চিকিৎসা নেই, বেকারদের জন্য কাজের নিশ্চয়তা নেই : জিএম কাদের