বৃহস্পতিবার, ২০শে জানুয়ারি, ২০২২ খ্রিস্টাব্দ ৬ই মাঘ, ১৪২৮ বঙ্গাব্দ

জামাতে নামাজ আদায় করা আল্লাহর নির্দেশ

Eid-Jamat-Solakia।।মোঃ রাসেল মিয়া।।পাঞ্জেগানা ফরজ সালাত মসজিদে গিয়ে জামাতের সঙ্গে আদায় করা মহান আল্লাহর একটি সুস্পষ্ট নির্দেশ। তিনি তার বান্দাদের সালাত আদায়ে যেভাবে প্রত্যক্ষ ও স্পষ্ট ভাষায় আদেশ দিয়েছেন; ঠিক তেমনিভাবে ফরজ সালাত মসজিদে গিয়ে জামাতের সঙ্গে আদায় করতেও স্পষ্টভাবে আদেশ দিয়েছেন। মহান আল্লাহ বলেন, ‘তোমরা সালাত কায়েম করো, জাকাত প্রদান করো।’ (সূরা বাকারা : ৪৩)।বলা বাহুল্য, রুকুকারীদের সঙ্গে রুকু করার অর্থ ও উদ্দেশ্য হচ্ছে, রুকুসহ যারা সালাত আদায় করে তাদের সঙ্গে একত্রে রুকু করো তথা জামাতের সঙ্গে সালাত আদায় কর।আয়াতটিতে রুকু দ্বারা পুরো সালাতকেই উদ্দেশ্য করা হয়েছে। যেমনিভাবে কোরআন ও হাদিসের অনেক স্থানে কিরাত অথবা শুধু ‘সিজদা’ দ্বারা গোটা সালাতকেই উদ্দেশ্য করা হয়েছে। উপরে উল্লিখিত আয়াতটিতে মহান আল্লাহ তদীয় বান্দাদের একত্রে তিনটি বিষয়ে আদেশ দিয়েছেন। আদেশ তিনটি হচ্ছে- সালাত, জাকাত ও জামাতের সঙ্গে সালাত আদায় করা। আয়াতাংশে বর্ণিত প্রথম দুটি বিষয়ের মতো তৃতীয় বিষয় তথা জামাতের সঙ্গে সালাত আদায়ের বিষয়টির এক ও অভিন্ন বিধান সাব্যস্ত হবে। এ আয়াত ও আয়াতটির যৌক্তিক ভিত্তিগত কারণে হানাফি মাজহাব ব্যতীত অন্যান্য মাজহাবে জামাতের সঙ্গে সালাত কায়েম করা ভিন্ন একটি ফরজ ইবাদত হিসেবেই গণ্য করা হয়ে থাকে।

মহানবী (সা.) বলেন, যে ব্যক্তি আজান শ্রবণ করে অথচ বিনা ওজরে জামাতে শরিক হলো না; সে ব্যক্তির সালাত (একাকী গৃহে আদায় করলে) আদায় হবে না। হাদিসটি অন্যভাবে অন্যত্র সঙ্কলিত হয়েছে, যে ব্যক্তি আজান শ্রবণ করে ওজর ব্যতীত জামাতে শরিক হয় না (বরং একাকী সালাত আদায় করে নেয়) তার সালাত কবুল হয় না। সাহাবিরা বললেন, ওজর বলতে কী বোঝায়? মহানবী (সা.) বললেন, অসুস্থতা অথবা ভয়ভীতি (আবু দাউদ)। আরেকটি হাদিসে বর্ণিত, মহানবী (সা.) বলেন, মসজিদের প্রতিবেশীর সালাত মসজিদ ব্যতীত আদায় (সহিহ) হয় না। ইবনু আব্বাসকে (রা.) এমন এক ব্যক্তি সম্পর্কে জিজ্ঞাসা করা হলো; যিনি দিনে নফল সিয়াম ও রাতে নফল সালাত আদায় করে অথবা জামাত ও জুমায় শরিক হয় না। তিনি বললেন, লোকটি জাহান্নামি। মহানবী (সা.) অন্ধ ব্যক্তিকেও মসজিদে এসে জামাতের সঙ্গে সালাত আদায়ের নির্দেশ দিয়েছিলেন। কোনো কোনো ফকিহ জামাতের সঙ্গে সালাত আদায়কে ফরজ না বলে বরং ওয়াজিব বলেছেন। বলা বাহুল্য, ফরজ ও ওয়াজিব শব্দ দুটি প্রায় কাছাকাছি অর্থ নির্দেশক।

কোনো ক্ষেত্রে ওয়াজিব শব্দটি দ্বারা ফরজ উদ্দেশ্য না হলেও অধিকাংশ ক্ষেত্রে ওয়াজিব দ্বারা ফরজও উদ্দেশ্য হয়ে থাকে। এছাড়াও কোনো কোনো ফকিহ জামাতে সালাত আদায় করাকে সুন্নত বললেও পারিভাষিক অর্থে সুন্নত বলেননি বরং মহানবী (সা.) এর রীতিমতো আদায়কৃত পদ্ধতি (সুন্নত) হিসেবেই বর্ণনা করেছেন। এ অর্থে প্রতিটি ফরজ ও ওয়াজিবও সুন্নত হিসেবে গণ্য হয়ে থাকে। এ অর্থেই কোনো কোনো ফকিহ জামাতের সঙ্গে সালাত আদায়কে মুয়াক্কাদা সুন্নত অথবা জরুরি সুন্নত (সুন্নতে ওয়াজিবা) বলেছেন। ইবনু মাসউদ (রা.) থেকে বর্ণিত, তিনি বলেন, ‘যে ব্যক্তি মুসলিম রূপে কেয়ামত দিবসে আল্লাহর সঙ্গে দেখা করতে চায়; সে ব্যক্তিটি যেন পাঞ্জেগানা ফরজ সালাত এমন স্থানে আদায় করে; যেখানে আজান দেয়া হয়।’ (অর্থাৎ মসজিদে গিয়ে জামাতের সঙ্গে সালাত আদায় করে)। কেননা, মহান আল্লাহ তোমাদের নবীর জীবনে হেদায়েতের সুন্নত (নিয়ম) চালু করেছেন; জামাতে সালাত আদায় করা সেসব সুন্নতের (নিয়মের) মধ্যে অন্যতম সুন্নত। তোমরা যদি অমুক অমুক ব্যক্তির মতো গৃহেই সালাত আদায় করলে, নবীজির সুন্নত তরককারী বলে গণ্য হবে। এবং তোমরা নবীজির (সা.) সুন্নত তরক করলে গোমরাহ (পথচ্যুত) হবে। (সহিহ মুসলিম, সুনানু আবি দাউদ ও সুনানুন-নাসায়ি)।

মুসলিম উম্মার সব ইমাম ও ফকিহ এ ব্যাপারে ঐকমত্য পোষণ করেন যে, ওজর ব্যতীত একাকী সালাত আদায় করা গোনাহে কবিরা (কঠিন গোনাহ)। একাকী সালাত আদায়কারী ব্যক্তির সালাত আদায় হবে কিনা? এ বিষয়ে ফকিহদের মধ্যে মতভেদ রয়েছে। সহিহ হাদিসের স্পষ্ট ভাষ্য অনুযায়ী বিনা ওজরে জামাত তরককারী ব্যক্তির সালাত আদায় সহিহ হবে না। বিনা ওজরে জামাত তরক করা এমন কঠিন গোনাহের কাজ; যে গোনাহের কারণে স্বয়ং মহানবী (সা.) জামাত তরককারী ব্যক্তিদের বাড়িঘর পুড়িয়ে দিতে চেয়েছেন। আবু হুরায়রা (রা.) থেকে বর্ণিত, তিনি বলেন, মহানবী (সা.) বলেছেন, ‘আমার অন্তর চায় যে, কতক যুবককে জ্বালানি কাঠ সংগ্রহে আদেশ দিই। তারপর আমি ওই লোকদের কাছে যাই; যারা বিনা ওজরে গৃহেই সালাত আদায় করে এবং তথায় গিয়ে তার বাড়িঘর আগুনে পুড়িয়ে দিই।’ (সহিহ মুসলিম)। মহানবি (সা.) ও তদীয় সাহাবিরা কঠিন ওজর ব্যতীত জামাত তরক করতেন না। এবং জামাত তরককারীদের ব্যাপারে তাদের এতই ক্রোধ ছিল যে, তাদের বাড়িঘর পর্যন্ত পোড়াইয়া দিতে চেয়েছিলেন।

জামাত তরক করার ভয়াবহ পাপ সম্পর্কে আল কোরআনের পরোক্ষ বর্ণনা রয়েছে। মহান আল্লাহর বাণী ‘গোছা পর্যন্ত পা খোলার দিনের কথা স্মরণ করো। সেদিন তাদের সিজদা করতে আহ্বান জানানো হলে, তারা সিজদা করতে সক্ষম হবে না। তাদের সুস্থাবস্থায় সিজদার (জামাতের) প্রতি আহ্বান করা হলে, তারা উপস্থিত হতো না।’ (সূরা কলম : ৪২-৪৩)। কাব, আহবাব, ইবনু আব্বাস (রা.) প্রমুখ সাহাবি বলেন, মহান আল্লাহর কসম! এ আয়াত দুটি জামাতে সালাত আদায়ের ব্যাপারে নাজিল হয়েছে। অর্থাৎ যারা পৃথিবীতে জামাতের সঙ্গে সালাত আদায় করত না তারা হাশরের ময়দানেও সালাত আদায়ে সক্ষম হবে না। যদিও তারা একাকী জামাতহীন সালাত আদায় করে থাকত। বহুসংখ্যক সহিহ হাদিস সালাত তরকের মতো সালাতের জামাত তরকের ভয়াবহতা বর্ণনা বিষয়েও বহুসংখ্যক হাদিস রয়েছে। এসব হাদিসের মধ্যে গুরুত্বপূর্ণ কয়েকটি হাদিস নিম্নে বর্ণনা করা যাচ্ছে।

* মুয়াজ (রা.) থেকে বর্ণিত, রাসূল (সা.) বলেছেন, সে ব্যক্তির কর্মটি স্পষ্ট জুলুম, কুফর ও নিফাক; যে ব্যক্তি মুয়াজজিনের আজান শ্রবণ করে জামাতে শরিক হয় না। (মুসনাদু আহমাদ)।

* আবু দারদা (রা.) থেকে বর্ণিত, তিনি বলেন, আমি রাসূলকে (সা.) বলতে শুনেছি কোনো গ্রাম বা মাঠে কমপক্ষে তিনজন লোক থাকলেও তারা জামাতে সালাত আদায় না করলে তাদের ওপর শয়তান প্রাধান্য বিস্তার করে। এজন্য তোমরা জামাতকে জরুরি মনে করো। এ ব্যাপারে যতœবান ও সতর্ক হও।

এ জাতীয় আরও খবর