সোমবার, ২৭শে জুন, ২০২২ খ্রিস্টাব্দ ১৩ই আষাঢ়, ১৪২৯ বঙ্গাব্দ

জাতীয় কবির ১১৫তম জন্মবার্ষিকী আজ

kazi nazrulডেস্ক রির্পোট :‘আমি যুগে যুগে আসি/ আসিয়াছি পুনঃ মহাবিপ্লব হেতু’
আজ ১১ জ্যৈষ্ঠ রোববার জাতীয় কবি কাজী নজরুল ইসলামের ১১৫তম জন্মবার্ষিকী।
১১৫ বছর আগে এই দিনে অবিভক্ত বাংলায় পরাধীন বাঙালির মুক্তির বাণী নিয়ে ধূমকেতুর মতোই  আবির্ভূত হয়েছিলেন এ কবি। ব্রিটিশ শাসকদের বুকে পদাঘাতের মতো ছিল তার আবির্ভাব। তাই বাঙালির নিজেকে নতুন করে আবিষ্কারের দিন এটি।
দ্রোহ, প্রেম, সাম্য, মানবতা ও শোষিত মানুষের মুক্তির বার্তা নিয়ে আসা কবির ১১৫তম জন্মবার্ষিকীর দিনটি এবং কবির অমর সৃষ্টি ‘বিদ্রোহী’ কবিতার ৯০ বছর পূর্তিও জাতি গভীর শ্রদ্ধা ও বিনম্র ভালবাসায় উদযাপন করবে আজ।
জাতীয় কবির জন্মবার্ষিকী উপলক্ষে রাষ্ট্রপতি মো. আবদুল হামিদ ও প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা জাতির উদ্দেশে পৃথক বাণী দিয়েছেন।

এবার নজরুল জন্ম-জয়ন্তীর মূল অনুষ্ঠান হবে ময়মনসিংহের ত্রিশালে কবির স্মৃতিবিজড়িত দরিরামপুরে। রোববার দরিরামপুর হাইস্কুল প্রাঙ্গণে জাতীয় অনুষ্ঠানে প্রধান অতিথি থাকবেন অর্থমন্ত্রী আবুল মাল আবদুল মুহিত।

বাধার দুর্লংঘ পর্বত পাড়ি দেয়া এ কবির জন্ম ১৩০৬ বঙ্গাব্দের ১১ জ্যৈষ্ঠ বর্ধমান জেলার আসানসোলের জামুরিয়া থানার চুরুলিয়া গ্রামে। তাঁর ডাক নাম ‘দুখু মিয়া’। পিতার নাম কাজী ফকির আহমেদ ও মাতা জাহেদা খাতুন।

নজরুল বিশেষজ্ঞদের মতে, নজরুলের কাব্যসাধনা শুরু হয়েছিল একটি ক্রান্তিকালে। তাঁর উদ্দেশ্য ছিল অত্যাচার, অবমাননার বিরুদ্ধে বিদ্রোহ আর প্রতিবাদ এবং মানবিক জীবনের গভীরে মঙ্গলদায়িনী শক্তিরূপে বিরাজমান যে প্রেম ও সৌন্দর্যের চেতনা রয়েছে তার উদ্বোধন করা।
আর তা করতে গিয়েই এক সময় সকলকে চমকে দিয়ে তিনি বাংলার সাহিত্যাকাশে উদীত করেন দোর্দণ্ড প্রতাপে। এ কারণেই তাঁর কবিরূপে অভ্যূদয়কে কেবল তুলনা করা চলে ধূমকেতুর সঙ্গে।
নজরুল বিশেষজ্ঞরা আরও বলেন, প্রত্যয়, প্রতীতী ও শক্তিমত্তার পরিচয় দিতে গিয়ে তিনি (নজরুল) বলেছেন, ‘আমি অজানা অসীম পূর্ণতা নিয়ে জন্মগ্রহণ করেছি। এ আমার অহংকার নয়। আত্মবিশ্বাসের আত্মোপলব্ধির চেতনালব্ধ সহজ সত্যের সরল স্বীকারোক্তি।’

জাতীয় পর্যায়ে নেয়া কর্মসূচী ছাড়াও বিভিন্ন সামাজিক-সাংস্কৃতিক ও পেশাজীবী সংগঠন কবির জন্মবার্ষিকী উপলক্ষে নানা কর্মসূচি গ্রহণ করেছে।

এছাড়া দেশের অন্যান্য জেলায় স্থানীয় প্রশাসনের উদ্যোগে শিল্পকলা একাডেমীর সহযোগিতায় বিভিন্ন কর্মসূচির মাধ্যমে যথাযোগ্য মর্যাদায় নজরুলের ১১৪তম জন্মবার্ষিকী উদযাপন করা হবে।


ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয় মসজিদের পাশে চিরশায়িত নজরুল

রাজধানীতে কবির জন্মদিনে ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের কেন্দ্রীয় মসজিদের পাশে কবির সমাধিতে প্রথমে ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের শিক্ষক-ছাত্র-ছাত্রীদের পুষ্পার্ঘ অর্পণের মধ্যদিয়ে দিনের কর্মসূচি পালন শুরু হবে। এর পর থাকবে শোভাযাত্রা।

বাংলাদেশ বেতার, বাংলাদেশ টেলিভিশন ও বিভিন্ন স্যাটেলাইট টেলিভিশন কবির জন্মদিন উপলক্ষে রোববার বিশেষ অনুষ্ঠানমালা সম্প্রচার করবে।