বৃহস্পতিবার, ৩০শে জুন, ২০২২ খ্রিস্টাব্দ ১৬ই আষাঢ়, ১৪২৯ বঙ্গাব্দ

পদ্মা সেতু প্রকল্প প্রতিদ্বন্দ্বিতাহীন দরপত্রে ব্যয় বাড়ছে আরেক দফা

সাত বছরে পদ্মা সেতুর নির্মাণকাজে অগ্রগতি সামান্য, কিন্তু সমালোচনা হয়েছে অনেক বেশি৷ আর এর সঙ্গেই পাল্লা দিয়ে বাড়ছে এর ব্যয়৷ শুরু হয়েছিল ১০ হাজার কোটি টাকা ব্যয়ে সেতু নির্মাণের পরিকল্পনা নিয়ে, এখন সেটি ঠেকছে ২৫ হাজার কোটি টাকার বেশি৷ তবে এই ব্যয় আরও বাড়বে৷

ব্যয়ের পরিকল্পনা এখানেই শেষ নয়৷ সেতু নির্মাণের দায়িত্বপ্রাপ্ত সেতু বিভাগ এখন একটি প্রকল্প কয়বার সংশোধন করা যাবে, সেই নীতিমালাটিও মানতে চাইছে না৷ পদ্মা সেতুকে তারা এই নীতিমালার বাইরে রাখতে চায়৷ অর্থাৎ আবারও বাড়বে পদ্মা সেতু নির্মাণের ব্যয়৷

নির্মাণ ব্যয় বাড়ার পাশাপাশি এখন প্রতিদ্বন্দ্বিতাহীন দরপত্রে কাজও পাচ্ছে চায়না মেজর ব্রিজ ইঞ্জিনিয়ারিং কনস্ট্রাকশন কোম্পানি৷ তারাই মূল পদ্মা সেতু নির্মাণে ঠিকাদার হিসেবে নিয়োগ পেতে যাচ্ছে। আজ বৃহস্পতিবার সরকারের ক্রয়সংক্রান্ত মন্ত্রিসভা কমিটির বৈঠকে তাদের নিয়োগের বিষয়টি অনুমোদনের জন্য উপস্থাপন করা হতে পারে।

গত মাসে মূল সেতুর নির্মাণে একমাত্র চায়না মেজর ব্রিজ কোম্পানিই আর্থিক প্রস্তাব জমা দেয়। দরপত্র মূল্যায়ন কমিটি চায়না মেজর ব্রিজের করা ১২ হাজার ১৩৩ কোটি টাকার প্রস্তাব মেনে নিয়ে নিয়োগ দেওয়ার সুপারিশ করেছে। ক্রয় কমিটির অনুমোদন পেলেই চায়না মেজর ব্রিজকে নিয়োগ দেবে সেতু বিভাগ।

জানতে চাইলে সাবেক তত্ত্বাবধায়ক সরকারের উপদেষ্টা মির্জ্জা এ বি আজিজুল ইসলাম প্রথম আলোকে বলেন, একটামাত্র প্রতিষ্ঠানের আর্থিক প্রস্তাবের ওপর ঠিকাদার নিয়োগ কিছুটা ঝুঁকি রয়েছে। এ ছাড়া চীনা কোম্পানির কাজের অতীত অভিজ্ঞতা ভালো নয়। টেলিকম খাত এবং ঢাকা-চট্টগ্রাম চার লেন প্রকল্পসহ বিভিন্ন প্রকল্পে চীনা কোম্পানির কাজ সন্তোষজনক নয়। এই অবস্থায় প্রকল্পের ব্যয় ও সময়সীমা বৃদ্ধির অফুরন্ত সুযোগ রাখলে ভবিষ্যতে সমস্যা তৈরি হবে।

ব্যয়: চায়না মেজর ব্রিজের আর্থিক প্রস্তাব মেনে নিয়োগ দিলে মূল সেতুতে তিন হাজার ৭৭২ কোটি টাকা ব্যয় বাড়বে। ২০১১ সালে জাতীয় অর্থনৈতিক পরিষদের নির্বাহী কমিটিতে পদ্মা সেতু প্রকল্পের জন্য যে সংশোধিত প্রস্তাব (আরডিপিপি) অনুমোদন করা হয়, তাতে মূল সেতুর জন্য ব্যয় ধরা হয়েছিল আট হাজার ৩৬১ কোটি টাকা। ফলে এখন কেবল মূল সেতু নির্মাণের ব্যয়ই দাঁড়াচ্ছে ১২ হাজার ১৩৩ কোটি টাকা৷ তবে সেতু বিভাগ সূত্র জানায়, নদী শাসন ও পরামর্শক নিয়োগ হলে মোট ব্যয় পাঁচ থেকে ছয় হাজার কোটি টাকা আরও বেড়ে যাবে।

যদিও সংশোধিত বা আরডিপিপিতে নদী শাসনের ব্যয় ধরা হয়েছিল চার হাজার ৩৮৮ কোটি টাকা। এ কাজে ঠিকাদারদের আর্থিক প্রস্তাব জমা দেওয়ার সময়সীমা বেঁধে দেওয়া হয়েছে ২৯ মে পর্যন্ত। দরপ্রস্তাব জমা পড়লেই জানা যাবে, এই খাতে ব্যয় কী পরিমাণ বাড়ছে।

দুটি সংযোগ সড়কের ব্যয় ধরা হয়েছিল এক হাজার ২৭০ কোটি টাকা। আবদুল মোনেম লিমিটেডকে নিয়োগ দেওয়া হয়েছে এক হাজার ২৯০ কোটি টাকায়।

একইভাবে সেতুর কাজ তদারকিতে পরামর্শক নিয়োগের জন্য ৩৪৫ কোটি টাকা ব্যয় ধরা হয়েছিল। কিন্তু পরামর্শসংক্রান্ত কাজ দুই ভাগে ভাগ হয়ে গেছে। ইতিমধ্যে সেনাবাহিনীকে একাংশের পরামর্শক, নিরাপত্তা নিশ্চিত করাসহ বেশ কিছু কাজে ২০৫ কোটি টাকায় নিয়োগ দেওয়া হয়েছে। মূল সেতু ও নদী শাসনের জন্য আলাদা পরামর্শক নিয়োগের কাজ চলছে। এ ছাড়া নদীর দুই পাড়ে ভাঙন রোধে প্রায় ২৫০ কোটি টাকায় ঠিকাদার নিয়োগ দেওয়া হয়েছে।

২০০৭ সালের ২০ আগস্ট জাতীয় অর্থনৈতিক পরিষদের নির্বাহী কমিটির (একনেক) বৈঠকে পদ্মা সেতু প্রকল্প প্রথম অনুমোদন পায়। তখন ব্যয় ধরা হয়েছিল ১০ হাজার ১৬১ কোটি টাকা। এরপর সরকার বদল হয়। ক্ষমতায় আসে নির্বাচিত আওয়ামী লীগ সরকার। এর পরও ব্যয় দ্বিগুণ বেড়ে যায়। ২০১১ সালের ১১ জানুয়ারি একনেক পদ্মা সেতুর সংশোধিত ব্যয়ের অনুমোদন দেয়। ব্যয় ধরা হয় ২০ হাজার ৫০৭ কোটি টাকা বা ২৯০ কোটি ডলার। তবে এর মধ্যে ২৩৫ কোটি ৫০ লাখ ডলারই দেওয়ার কথা ছিল বিশ্বব্যাংকসহ দাতাদের৷ কিন্তু দুর্নীতির ষড়যন্ত্রের অভিযোগকে কেন্দ্র করে শেষ পর্যন্ত দাতারা সরে গেলে এখন নিজস্ব অর্থায়নেই পুরো পদ্মা সেতু প্রকল্পের কাজ করছে সরকার৷

এভাবে ব্যয় বাড়ানো এবং এর স্বচ্ছতা প্রসঙ্গে মির্জ্জা আজিজুল ইসলাম আরও বলেন, পদ্মা সেতুর মতো বড় প্রকল্প বাস্তবায়ন, কাজের মান নিয়ন্ত্রণসহ সব স্তরে সঠিকতা নিশ্চিত করার মতো অভিজ্ঞতা বাংলাদেশের নেই। দাতা সংস্থার অর্থায়নে বাস্তবায়িত প্রকল্পে তাদের নজরদারি থাকে বলে ভারসাম্য থাকে।

চীনা কোম্পানি যেভাবে পাচ্ছে: বিশ্বব্যাংকের তত্ত্বাবধানে মূল সেতুর জন্য দক্ষিণ কোরিয়ার স্যামসাং ও ডেইলেম, চীনের চায়না মেজর ব্রিজ কোম্পানি ও ফ্রান্সের ভিন্সি প্রাকযোগ্য হয়েছিল। বিশ্বব্যাংক সরে যাওয়ার পর নিজস্ব অর্থায়নে প্রকল্প বাস্তবায়নের উদ্যোগ নিলে ভিন্সি অংশ নেয়নি। স্যামসাং ও ডেইলেম কোম্পানি দুটি দুই পর্বের দরপত্রের প্রথম পর্বে অংশ নিলেও চূড়ান্ত পর্ব অর্থাৎ আর্থিক প্রস্তাব জমা দেয়নি।

সেতু বিভাগ সূত্রে জানা গেছে, প্রকল্পের কাজের জন্য তারা অর্থের লিখিত নিশ্চয়তা এবং ১১ সপ্তাহ সময় বৃদ্ধির আবেদন করেছিল। সাড়া না পেয়ে আর্থিক প্রস্তাব তারা জমা দেয়নি৷

জানা গেছে, চায়না মেজর ব্রিজ কোম্পানি পাকশীতে লালন সেতু নির্মাণ করেছিল। পদ্মা নদীর ওপর নির্মিত সড়ক ও জনপথ অধিদপ্তরের অধীন ওই সেতুর দৈর্ঘ্য প্রায় পৌনে দুই কিলোমিটার। ওই প্রকল্পে চায়না মেজর ব্রিজের সহযোগী ছিল সাবেক যোগাযোগমন্ত্রী সৈয়দ আবুল হোসেনের ঠিকাদারি প্রতিষ্ঠান সাকো ইন্টারন্যাশনাল। ওই প্রকল্পের গুরুত্বপূর্ণ কর্মকর্তা কামরুজ্জামান এখন পদ্মা সেতু প্রকল্পের তত্ত্বাবধায়ক প্রকৌশলী এবং মূল সেতুর দায়িত্বে নিয়োজিত। ৯০৭ কোটি টাকার এই প্রকল্পের কাজ শুরু হয়েছিল ২০০০ সালে, তৎকালীন আওয়ামী লীগ সরকার ক্ষমতায় থাকা অবস্থায়। উদ্বোধন হয় ২০০৪ সালে।

সেতু বিভাগ সূত্রে জানা গেছে, সরকার নিজস্ব অর্থায়নে পদ্মা সেতু প্রকল্প বাস্তবায়নের উদ্যোগ নেওয়ার পর এর অনেক কিছুই বদলে গেছে। নির্মাণকাজ তদারকির পরামর্শক একটি থেকে দুটি করা হয়। দেশীয় অর্থায়নে আস্থা না পাওয়ায় প্রাকযোগ্য চারটি আন্তর্জাতিক ঠিকাদারি প্রতিষ্ঠানের মধ্যে তিনটি সরে যায়। সরকার প্রতিযোগিতাহীন এই দরপত্রে একটি প্রতিষ্ঠানের অংশ নেওয়াকে গ্রহণ করে। মূল প্রকল্পে নদীর দুই তীর রক্ষার কাজ ছিল না। সেটিও পরে অন্তর্ভুক্ত করা হয়।

পদ্মা সেতু প্রকল্পের কাজ পাঁচটি ভাগে হওয়ার কথা। এগুলো হচ্ছে: মূল সেতু, নদী শাসন, দুই পাড়ে দুটি সংযোগ সড়ক নির্মাণ ও নির্মাণ অবকাঠামো। এর বাইরে রয়েছে পরামর্শক প্রতিষ্ঠান নিয়োগ, জমি অধিগ্রহণ ও পুনর্বাসনের কাজ। নদী শাসন ও একটি পরামর্শক প্রতিষ্ঠান নিয়োগ ছাড়া বাকি সবগুলোরই ঠিকাদার চূড়ান্ত হয়েছে।

নীতিমালা সংশোধন চায় সেতু বিভাগ: সেতু বিভাগ থেকে গত এপ্রিলের শেষের দিকে পরিকল্পনা কমিশনে চিঠি দিয়ে অনুরোধ করা হয়েছে, যাতে প্রকল্প সংশোধন-সংক্রান্ত নির্দেশনা থেকে পদ্মা সেতু প্রকল্পকে অব্যাহতি দেওয়া হয়। এটা হলে একাধিকবার প্রকল্পের ব্যয়, সময়সীমাসহ নানা বিষয় পরিবর্তন করা যাবে। উন্নয়ন প্রকল্প প্রণয়ন, প্রক্রিয়াকরণ, অনুমোদন ও সংশোধন-সংক্রান্ত সরকারের পরিপত্র অনুসারে একটি প্রকল্প সর্বোচ্চ দুবার সংশোধন করা যাবে। তৃতীয়বার করা যাবে পরিকল্পনামন্ত্রীর বিশেষ বিবেচনায়। পদ্মা সেতু প্রকল্পের প্রস্তাব একবার পরিবর্তন হয়েছে, আরেকবার শিগগিরই হবে।

জানতে চাইলে সেতু বিভাগের সচিব খোন্দকার আনোয়ারুল ইসলাম গতকাল রাতে প্রথম আলোকে বলেন, তাঁরা ক্রয় কমিটিতে পাঠিয়েছেন। এখন কমিটি পরবর্তী করণীয় ঠিক করে দেবে। প্রতিযোগিতাহীন দরপত্রের বিষয়ে তিনি বলেন, ‘সবই ক্রয় কমিটি দেখবে, সিদ্ধান্ত দেবে।’ ব্যয় বৃদ্ধির বিষয়ে তিনি বলেন, ‘এই বিষয়ে এখনই কিছু বলা যাবে না।’

নতুন বছরে বরাদ্দ: আগামী ২০১৪-১৫ অর্থবছরের বার্ষিক উন্নয়ন কর্মসূচিতে (এডিপি) পদ্মা সেতু প্রকল্পের জন্য মোট আট হাজার ১০০ কোটি টাকা বরাদ্দ দেওয়া হয়েছে। এর মধ্যে মূল সেতু নির্মাণে বরাদ্দ ছয় হাজার ৫০০ কোটি টাকা। আর নদী শাসন, সরঞ্জামাদি তৈরি ও সংরক্ষিত এলাকা (সার্ভিস এরিয়া) নির্মাণসহ আনুষঙ্গিক খাতে আরও এক হাজার ৬০০ কোটি টাকা বরাদ্দ রাখা হয়েছে।

সেতু বিভাগ সূত্র জানায়, ঠিকাদারের সঙ্গে চুক্তির চার বছরের মধ্যে পদ্মা সেতু নির্মাণ সম্পন্ন করার কথা রয়েছে৷ সে হিসাবে ২০১৮ সালের মধ্যে প্রকল্পের কাজ শেষ হবে৷ ২০০৯ সালে আওয়ামী লীগ ক্ষমতায় এসে ২০১০ সালের মধ্যে নির্মাণকাজ শুরু এবং ২০১৪ সালের মধ্যেই চালু করার ঘোষণা দিয়েছিল৷ এরপর বাস্তবায়নের সময়সীমা নির্ধারণ করা হয় ২০১২ থেকে ২০১৬৷

পদ্মা নদীর ওপর মুিন্সগঞ্জের মাওয়া ও শরীয়তপুরের জাজিরার মধ্যে ৬ দশমিক ১৫ কিলোমিটার দীর্ঘ পদ্মা সেতু নির্মাণ করা হবে৷ দ্বিতলবিশিষ্ট এই সেতু নির্মিত হবে স্টিলে৷ এর মধ্যে রেল চলাচলের ব্যবস্থা থাকবে৷

এ জাতীয় আরও খবর