মঙ্গলবার, ৬ই ডিসেম্বর, ২০২২ খ্রিস্টাব্দ ২১শে অগ্রহায়ণ, ১৪২৯ বঙ্গাব্দ

র‌্যাবের অস্বীকার নির্যাতনে ব্যবসায়ীকে হত্যার অভিযোগ র‌্যাবের বিরুদ্ধে

ডেস্ক:নির্যাতন করে শাহনূর আলম (৪৩) নামে ব্রাহ্মণবাড়িয়ার এক ব্যবসায়ীকে হত্যার অভিযোগ উঠেছে র‌্যাবের বিরুদ্ধে। গতকাল মঙ্গলবার রাজধানীর জাতীয় প্রেসক্লাবে সংবাদ সম্মেলন করে এ অভিযোগ করেছে ওই ব্যক্তির পরিবার।

সুরতহাল প্রতিবেদনে শাহনূরের শরীরের বিভিন্ন অংশ থেঁতলানো থাকার উল্লেখ করেছে পুলিশ। তবে র‌্যাব-১৪-এর সংশ্লিষ্ট কর্মকর্তা তাঁকে নির্যাতনের অভিযোগ অস্বীকার করেছেন।

শাহনূরকে গ্রেপ্তারের পর র‌্যাব দাবি করেছিল, এলাকায় বেশ কিছুদিন ধরে ‘চিরকুট’ পাঠিয়ে চাঁদা দাবি ও চাঁদা না দিলে বাড়িতে আগুন লাগিয়ে দেওয়ার আলোচিত ঘটনার সঙ্গে জড়িত ছিলেন শাহনূর। তবে এলাকায় প্রতিষ্ঠিত ব্যবসায়ী ও ভালো মানুষ হিসেবেই তাঁর পরিচয় ছিল বলে খোঁজ নিয়ে জানা গেছে৷

সংবাদ সম্মেলনে বক্তব্য দেন শাহনূর আলমের ভাই মেহেদি হাসান। লিখিত বক্তব্যে তিনি বলেন, গত ২৯ এপ্রিল দুপুরে র্যাব শাহনূরকে নবীনগরের বগডহর গ্রামের বাড়ি থেকে ধরে নিয়ে যায়। র‌্যাব-১৪-এর ভৈরব ক্যাম্পের কোম্পানি কমান্ডার (সিপিসি-৩) মেজর এ জেড এম শাকিব সিদ্দিকীর নেতৃত্বে ১২ জনের একটি দল ওই অভিযান চালায়। এরপর দলটি নবীনগর থানায় গেলেও সেখানে শাহনূরকে হস্তান্তর করা হয়নি। শাহনূরের চোখ ও মুখ বেঁধে র‌্যাব গাড়িতে শুইয়ে রাখে। ওই দিন সন্ধ্যায় তাঁকে আবার র‌্যাবের ভৈরব ক্যাম্পে নেওয়া হয়। লিখিত বক্তব্যে অভিযোগ করা হয়, মেজর শাকিব ক্যাম্পে নিয়ে শাহনূরকে কোমরে ও কোমরের িনচ থেকে পায়ের তালু ও হাতের কনুইয়ে নির্মমভাবে পিটিয়ে জখম করেন। বুট পরা পায়ে তাঁর কোমর ও তলপেটে লাথি মারা হয়।

একপর্যায়ে জ্ঞান হারিয়ে ফেলেন শাহনূর। ৩০ এপ্রিল নবীনগর থানায় একটি মামলা দিয়ে তাঁকে পুলিশে সোপর্দ করা হয়। এরপর আদালত তাঁকে কারাগারে পাঠান। নির্যাতনে আহত শাহনূর কারাগারে অসুস্থ হয়ে পড়লে ৪ মে কারা কর্তৃপক্ষ তাঁকে প্রথমে ব্রাহ্মণবাড়িয়া সদর হাসপাতালে ও পরে কুমিল্লা মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে পাঠায়। ৬ মে ভোরে তাঁর মৃত্যু হয়।

গোটা শরীরেই জখম: কুমিল্লা কোতোয়ালি থানার উপপরিদর্শক সাইদুল ইসলাম শাহিনূরের লাশের সুরতহাল প্রতিবেদন তৈরি করেন। সেই প্রতিবেদনে উল্লেখ করা হয়, ডান হাতের কনুইয়ের ওপরে থেঁতলানো রক্তাক্ত দাগ আছে। বাঁ হাতের কনুইয়ের ওপরে ও িনচে থেঁতলানো কালচে দাগ আছে। ডান ও বাঁ ঊরুর ওপরের অংশে গুরুতর থেঁতলানো জখমের দাগ আছে। উভয় পায়ের হাঁটুর িনচে কয়েকটি স্থানে কালচে দাগ আছে। কোমরের িনচে দুই পাশে এবং দুই পায়ের পাতা পর্যন্ত রক্তাক্ত থেঁতলানো জখমের দাগ আছে। এ ছাড়া শরীরের আরও কয়েকটি অংশে কালচে দাগ পাওয়া যায়।

এলাকায় দুর্নাম বা থানায় মামলা নেই: গত তিন-চার মাসে ওই এলাকায় ‘চিরকুট’ পাঠিয়ে চাঁদা দাবি করা ও না পেলে বাড়িতে আগুন ধরিয়ে দেওয়ার বেশ কয়েকটি ঘটনা ঘটলে আতঙ্ক ছড়িয়ে পড়ে। র‌্যাব দাবি করছে, শাহনূর এ চক্রের মূল হোতা৷ তবে আমাদের নবীনগর প্রতিনিধির কাছে এলাকাবাসী জানিয়েছেন, তিনি এলাকার প্রতিষ্ঠিত ব্যবসায়ী। তাঁর সিমেন্ট ও এলপি গ্যাসের ব্যবসা রয়েছে।

নবীনগর থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) রূপক কুমার সাহা গতকাল বলেন, ‘শাহনূরের বিরুদ্ধে আগে নবীনগর থানায় কোনো মামলা এমনকি জিডিও নেই। র‌্যাব গ্রেপ্তার করার পর স্থানীয় আবু তাহের একটি মামলা করে তাঁকে আসামি করেন। সেই মামলায় তাঁকে আদালতে চালান দেওয়া হয়।’

শাহনূর চিরকুট পাঠিয়ে চাঁদা দাবি ও আগুন লাগানোর ঘটনার মূল হোতা—র‌্যাবের এ দাবির বিষয়ে জানতে চাইলে ওসি রূপক বলেন, ‘তদন্ত চলছে। এসব ঘটনার জন্য র‌্যাব তাঁকে মূল হোতা বললেও তদন্ত শেষ না হওয়া পর্যন্ত আমরা এমন মন্তব্য করতে পারব না।’

নবীনগর আইনজীবী সমিতির সভাপতি সুজিত কুমার দেব ও নবীনগর পাইলট মডেল উচ্চবিদ্যালয়ের প্রধান শিক্ষক মো. আবু মুসা বলেন, ‘শাহনূরের বিরুদ্ধে আইনশৃঙ্খলা পরিপন্থী কার্যকলাপ বা সামাজিকভাবে তেমন কোনো অভিযোগ আছে বলে আমাদের জানা নেই। র্যাব হয়তো কোনো ভুল তথ্যের ভিত্তিতে একজন নিরপরাধ ছেলেকে মূল হোতা বানিয়ে দিয়েছে। এ মৃত্যুর সুষ্ঠু তদন্ত হওয়া উচিত।’

র‌্যাবের অস্বীকার: এ বিষয়ে জানতে চাইলে মেজর এ জেড এম শাকিব সিদ্দিকী প্রথম আলোকে বলেন, ‘নারায়ণগঞ্জের ঘটনার পরে সব জায়গায় সুযোগ নেওয়ার চেষ্টা চলছে। র্যাব তাঁকে কোনো নির্যাতন করে নাই।’

মেজর শাকিব বলেন, ‘স্বজনেরা বলেছেন, তাঁকে দুপুর বেলা ধরা হয়েছে। কিন্তু র‌্যাব তাঁকে ধরেছে ২৯ এপ্রিল গভীর রাতে। ভৈরবে আনতে আনতে ভোর হয়ে গেছে। সকালবেলায় তাঁকে থানায় সোপর্দ করা হয়েছে। এর মধ্যে তাঁকে নির্যাতনের সুযোগ নেই। এটা পুরো মিথ্যা অভিযোগ। তা ছাড়া তাঁকে থানায় দেওয়ার পরে পুলিশ আদালতে পাঠিয়েছে। তাঁকে আদালতে বিচারকের সামনে হাজির করা হয়েছে। আদালত তাঁকে কারাগারে পাঠিয়েছেন। একজন মানুষ অসুস্থ থাকলে তো তাঁকে আদালতে ওঠানোর কথা না।’

মেজর শাকিব আবারও দাবি করেন, শাহনূর চিরকুট পাঠিয়ে চাঁদাবাজি চক্রের সদস্য।