সোমবার, ২৭শে জুন, ২০২২ খ্রিস্টাব্দ ১৩ই আষাঢ়, ১৪২৯ বঙ্গাব্দ

ধোনির বিরুদ্ধে ধর্ম অবমাননার অভিযোগ

মহেন্দ্র সিং ধোনি সেজেছিলেন ভগবান বিষ্ণুর সাজে। কিন্তু পড়ে গেলেন ধর্ম অবমাননার গ্যাঁড়াকলে। সম্প্রতি এক ব্যক্তির অভিযোগের ভিত্তিতে দিল্লির একটি আদালত পুলিশকে নির্দেশ দিয়েছে এ ব্যাপারে অভিযোগকারীর বক্তব্য গ্রহণের জন্য।

একটি সাময়িকীর প্রচ্ছদে ধোনিকে নিয়ে প্রকাশিত ছবি নিয়েই যত সমস্যা। সাময়িকীটি প্রচ্ছদে ভগবান বিষ্ণুর মুখমণ্ডলে ভারত অধিনায়কের অবয়ব বসিয়ে শিরোনাম দিয়েছিল ‘বড় চুক্তির ঈশ্বর’। ভগবান বিষ্ণুর হাতে যেমন বিভিন্ন শক্তির প্রতীক থাকে, এর বদলে ‘ঈশ্বররূপী’ ধোনির হাতে ধরিয়ে দেওয়া হয়েছিল তাঁর বিজ্ঞাপিত বিভিন্ন ধরনের করপোরেট পণ্য। পুরো ব্যাপারটিই শিবসেনা হিন্দুস্তানের নেতা রাজিন্দর সিং রাজার কাছে হিন্দুধর্মের অবমাননা বলে মনে হয়েছে। এ ব্যাপারে দিল্লি পুলিশের কাছে অভিযোগও করেছিলেন। কিন্তু দিল্লি পুলিশ কোনো অভিযোগ গ্রহণ না করেই রাজিন্দরকে ফেরত পাঠায়। রাজিন্দর আদালতের শরণাপন্ন হলে আদালত বিষয়টি আমলে নিতে নির্দেশ দেয় পুলিশকে।

দিল্লি পুলিশ অবশ্য জানিয়ে দিয়েছে উত্তর-প্রদেশের নয়দার ফিল্ম সিটি থেকে প্রকাশিত ওই সাময়িকীর বিপক্ষে কোনো অভিযোগ গ্রহণ করা তাদের এক্তিয়ার-বহির্ভূত। তবে তারা আদালতের নির্দেশ পেয়ে এখন উদ্যোগী ধোনির বিপক্ষে রাজিন্দর রাজার বক্তব্য গ্রহণ করার ব্যাপারে।

রাজিন্দর রাজা বিষয়টিকেই হিন্দুধর্মের প্রতি এক ধরনের অবমাননা হিসেবে অভিহিত করে বলেন, ‘এতে হিন্দু ধর্মাবলম্বীদের ধর্মীয় অনুভূতিতে আঘাত হেনেছে।’

ভারতে এ ব্যাপারে সুনির্দিষ্ট একটি আইনও আছে। সেই আইনে বলা হয়েছে, কোনো ব্যক্তি বা প্রতিষ্ঠান কখনোই এমন কোনো আচরণ করতে পারবে না বা কোনো উক্তি করতে পারবে না, যা অন্য কোনো ধর্মীয় জাতিসত্তার অনুভূতিতে আঘাত করতে পারে। সুতরাং, ধোনির সেই ছবি দেখে হিন্দুধর্মের কেউ যদি মনে করেন, তা তাঁর অনুভূতিতে আঘাত করছে, সেটা একটা বড় অপরাধ হিসেবেই বিবেচিত হবে।

তবে এর সঙ্গে ধোনির সম্পৃক্ততা কতটুকু, সেটাই এখন দেখার।