শুক্রবার, ৯ই ডিসেম্বর, ২০২২ খ্রিস্টাব্দ ২৪শে অগ্রহায়ণ, ১৪২৯ বঙ্গাব্দ

শিশু নাট্যম আয়োজিত শিশু চিত্রকলা ও সাংস্কৃতিক উৎসবের সমাপনীতে -সাবেক রাষ্ট্রদূত হুমায়ূন কবীর

11111111111প্রতিনিধি : সাবেক রাষ্ট্রদূত মুক্তিযোদ্ধা শিক্ষাবিদ হুমায়ূন কবির বলেছেন, ভাল মানুষ ও গুণীজনদের আদর্শ অনুকরন অনুসরন করা হলে শিশুরা উপকৃত হবে। শিশুদের ব্যবহার ভালবাসা শ্রদ্ধা শেখাতে হবে। শিক্ষিত হলেই ভাল মানুষ ও গুণী হওয়া যায় না। শিশু যখন বড় হবে তখন তাকে অনেক মানুষের সাথে চলতে হবে কথা বলতে হবে। তাদেরকে শিশু কাল থেকেই গড়ে তুলতে হবে। তার জন্য প্রয়োজন পিতার মাতার পাশাপাশি সামাজিক সংগঠনের সাথে জড়িত করা। আজকের শিশুরাই আগামী দিনে বাংলাদেশকে এগিয়ে নিয়ে যাবে। তিনি বলেন, শিশুদের ব্যক্তিগত জীবনে সততার মাধ্যমে যাতে চলতে পারে সেভাবে তাদের গড়ে তুলার জন্য তিনি অভিভাবকদের প্রতি আহ্বান জানান। ছোট বেলায় আমার বাবা মা যা শিখিয়েছেন ব্রাহ্মণবাড়িয়া থেকে ওয়াশিংটন ঘুরে এসেছি। আমার কোন সমস্যা হয়নি। ভাল কাজ করার জন্য আমরা স্বাধীনতা যুদ্ধ করেছি। আগামি দিনে আমাদের নতুন প্রজন্ম সততার সাথে ভাল কাজ করে বাংলাদেশকে বিশ্বের কাছে সুখী সমৃদ্ধশালী দেশ হিসেবে তুলে ধরবে এটাই আমাদের প্রত্যাশা।
ব্রাহ্মণবাড়িয়া শিশু নাট্যমের উদ্যোগে গতকাল শনিবার গুণীজন সংবর্ধনা, পুরস্কার বিতরন ও সাংস্কৃতিক অনুষ্ঠান অনুষ্ঠিত হয়েছে। গতকাল আনন্দঘন পরিবেশে ও শিশুদের আনন্দ উল্লাসের মধ্য দিয়ে শত শত ক্ষুদে শিশু শিল্পীর আঁকা ছবি ও গান নিয়ে ব্রাহ্মণবাড়িয়া শিশু নাট্যম আয়োজিত চারদিনব্যাপী (৭-১০) মে আর এ কে সিরামিকস ২৩তম বার্ষিক শিশু চিত্রকলা প্রদর্শনী ও সাংস্কৃতিক উৎসব গুণীজন সংবর্ধনা, পুরস্কার বিতরন, আলোচনা সভা ও সাংস্কৃতিক অনুষ্ঠানের মধ্য দিয়ে সমাপ্ত হয়েছে। স্থানীয় শহীদ ধীরেন্দ্রনাথ দত্ত ভাষা চত্বরে আয়োজিত অনুষ্ঠানে প্রধান অতিথি ছিলেন মার্কিন যুক্তরাষ্ট্রস্থ বাংলাদেশের সাবেক রাষ্ট্রদূত বীর মুক্তিযোদ্ধা শিক্ষাবিদ হুমায়ূন কবীর। সামাজিক সাংস্কৃতিক রাষ্ট্রীয়সহ সমাজের বিভিন্ন স্তরে অবদানের স্বীকৃতি স্বরূপ ব্রাহ্মণবাড়িয়ার সাত কৃতি সন্তানকে সংবর্ধিত করা হয়। সংবর্ধিতরা হলেন নাট্যজন আলী যাকের, পিআইবি মহা পরিচালক বিশিষ্ট সাংবাদিক মোঃ শাহ আলমগীর, ভাষা সৈনিক মুহম্মদ মুসা, ব্রাহ্মণবাড়িয়া মেডিকেল কলেজ ও হাসপাতাল এর প্রতিষ্ঠাতা চেয়ারম্যান শিক্ষানুরাগী ডাঃ মোঃ আবু সাঈদ, মুক্তিযোদ্ধা ও গণসঙ্গীত শিল্পী মোঃ ফিরোজ আহমেদ, দৈনিক সংবাদের জেলা প্রতিনিধি মোঃ সাদেকুর রহমান, প্রাক্তন শিক্ষক ও সমাজ সেবক মোঃ ফয়েজ উদ্দিন ভূঞা (পারভেজ মাষ্টার)। বিশেষ অতিথি ছিলেন মুক্তিযুদ্ধের অন্যতম সংগঠক আব্দুল ওয়াহিদ খান লাভলু, জেলা আইনজীবী সমিতির সাধারণ সম্পাদক এডঃ  তরিকুল ইসলাম খান রুমা, ব্রাহ্মণবাড়িয়া প্রেসক্লাবের সম্পাদক রিয়াজ উদ্দিন জামি, আর এ কে সিরামিকস্ সেলস্ এন্ড মার্কেটিং ডেপুটি ম্যানেজার জুয়েল সরকার। ব্রাহ্মণবাড়িয়া শিশু নাট্যমের সভাপতি মোঃ মাসুকুল ইসলাম মাসুকের সভাপতিত্বে বক্তব্য রাখেন ব্রাহ্মণবাড়িয়া প্রেসক্লাবের সহ সভাপতি আল আমীন শাহীন, দিপ্ত মোদক, রাজু সরকার, প্রবাল বণিক প্রমুখ। স্বাগত বক্তব্য রাখেন ব্রাহ্মণবাড়িয়া শিশু নাট্যমের সম্পাদক নিয়াজ মোহাম্মদ খান বিটু। 
চারদিনব্যাপী উৎসবে ব্রাহ্মণবাড়িয়া শিশু নাট্যমের কবিতা আবৃত্তি, ছবি আঁকা ও সঙ্গীত বিভাগের তিন শতাধিক শিক্ষার্থী অংশগ্রহণ করে। উৎসবের সমাপনী দিবসে ২০১৩ সালের উৎসবের চার কৃতি শিক্ষার্থীকে শ্রেষ্ঠ আঁকিয়েদের পুরস্কার দেয়া হয়। পরে প্রধান অতিথি সাবেক রাষ্ট্রদূত হুমায়ূন কবীর ও  পিআইবির মহা পরিচালক মোঃ শাহ আলমগীর শিশুদের মাঝে পুরস্কার বিতরন করেন। 

22222222