মঙ্গলবার, ৬ই ডিসেম্বর, ২০২২ খ্রিস্টাব্দ ২১শে অগ্রহায়ণ, ১৪২৯ বঙ্গাব্দ

ভারতের নির্বাচন ২০১৪—ভোটের হাওয়া: বারানসি ওস্তাদের মার দিলেন রাহুল!

অনলাইনে ডেস্কঃ ওস্তাদের মার সচরাচর শেষ রাতেই হয়। শনিবাসরীয় বারানসিতে সেটা হলো অবশ্য বেলাবেলিই। নির্বাচনী প্রচারের শেষ দিনে পবিত্র শহর বারানসি তারপর দিনভর শুধু এই চর্চাই করে গেল। 

কৌশলটা কার, বারানসিতে রাহুল গান্ধীর বিশ্বস্ত প্রার্থী অজয় রায় নাকি কংগ্রেসের অতি-পোড় খাওয়া কাশ্মীরি নেতা গোলাম নবী আজাদের, সেই তর্কে না ঢুকে বলা যায়, ভারতরত্ন ওস্তাদ বিসমিল্লা খাঁর পরিবারকে দিয়ে সানাই বাজিয়ে রাহুলের রোড শো-কে কংগ্রেস একটা অন্য মাত্রায় তুলে দিল। বোঝা গেল, বারানসির লড়াইয়ে খাঁ সাহেবের পরিবারই ছিল কংগ্রেসের তুরুপের তাস।

ঘটনাটা একটু খোলাসা করেই বলা যাক। আমেথির বদলা নিতে রাহুল বারানসিতে রোড শো করবেন জানাই ছিল। সেই রোড শোও যে এই শহরে নরেন্দ্র মোদির ঘোষিত ও অঘোষিত দুই ধরনের ‘সড়কাভিযানের’ সঙ্গে টক্কর দেওয়ার মতোই হবে, ধারণা ছিল তা-ও। কিন্তু মোদি তাঁর প্রার্থিতার প্রস্তাবক হিসেবে যাঁকে চেয়ে ব্যর্থ হয়েছিলেন, সেই প্রয়াত ওস্তাদ বিসমিল্লা খাঁর পুত্র জমিন হুসেন বিসমিল্লা রাহুলের জন্য বাঁধা স্বাগত মঞ্চে এসে সপার্ষদ সানাই বাজাবেন, কাকপক্ষীও তা আগেভাগে আন্দাজ করতে পারেনি। দৃশ্যটা এমন, বেলা ১১টার গনগনে সূর্য মাথায় নিয়ে রাহুলের জনস্রোত ধীরগতিতে এগোচ্ছে, বেনিয়াবাগের কাছাকাছি আসতেই স্লোগান ছাপিয়ে সানাইয়ে বেজে উঠল জাতির জনক মহাত্মা গান্ধীর অতি প্রিয় ধুন ‘রঘুপতি রাঘব রাজা রাম, পতিতপাবন সীতারাম’। কে বাজাচ্ছেন? স্বয়ং প্রয়াত ওস্তাদের পুত্র জমিন হুসেন! গলায় কংগ্রেসি উত্তরীয়, বিসমিল্লা যে টুপিতে বিখ্যাত ও পরিচিত ছিলেন, একটু তেরছা করে মাথায় সেই টুপি। পেছনে কয়েকজন ধরে রেখেছে বিসমিল্লা খাঁর প্রমাণ সাইজের ফ্রেমে বাঁধানো একটা ছবি। এক লহমায় গোটা রোড শো এক অন্য আঙ্গিক পেয়ে গেল। 

মোদির কাছে এটা ডবল বিড়ম্বনা। হওয়ারই কথা। কারণ, মোদি খুব করে চেয়েছিলেন, বারানসি থেকে প্রার্থী হিসেবে তাঁর নাম যাঁরা প্রস্তাব করবেন, তাঁদের মধ্যে এই শহরের আদি বাসিন্দা স্বনামখ্যাত সানাইবাদক প্রয়াত ভারতরত্ন ওস্তাদের পরিবারের কেউ থাকুক। একজন মুসলমান তার ওপর আবার খাঁ সাহেবের পুত্র তাঁর নামের প্রস্তাবক হলে ধর্মনিরপেক্ষতার সংশাপত্র হাতে আসত বলে আশা করেছিলেন মোদি। রাজনৈতিক দিক থেকে সেটা হতে পারত তাঁর এক বড় হাতিয়ার। কিন্তু জমিন হুসেন সবিনয়ে বিজেপির প্রস্তাব ফিরিয়ে দিয়ে বলেন, তাঁদের পরিবার রাজনীতিতে সম্পৃক্ত হতে চায় না। বিজেপি তাঁকে রাজি করাতে বিস্তর চেষ্টা করেও ব্যর্থ হয়। শেষ পর্যন্ত এ শহরেরই ধ্রুপদি কণ্ঠশিল্পী পণ্ডিত ছন্নুলাল মিশ্রর শরণাপন্ন হয়। পণ্ডিতজি মোদিকে নিরাশ করেননি।

সেই ধাক্কাটাও না হয় সামলানো যেত। কিন্তু এটা? এখানকার বাঙালিদের বেশির ভাগই বরাবর বিজেপির ভোটার। এর একটা কারণ, এই বারানসি থেকে একজন বাঙালি বিজেপির টিকিটে একটানা সাতবার বিধানসভায় জিতে আসছেন। শ্যামদেব রায়চৌধুরী। শিক্ষিত, সুশীল, শালীন ও পরোপকারী বলে তাঁর নামডাক আছে। স্থানীয় হোটেলমালিক শৈবাল চক্রবর্তী মনে করছেন, ‘জমিন হুসেনের সানাই বাজানোটা বিজেপির কাছে একটা বড় ধাক্কা। এটা উনি না করলেই পারতেন। এর মধ্য দিয়ে উনি কিন্তু মোদির বিরুদ্ধে একটা বার্তা দিলেন।’ বারানসির পৌনে ২০০ বছরের বাসিন্দা সাংবাদিক অমিতাভ ভট্টাচার্যের পরিবার। তিনি বললেন, ‘বিসমিল্লা খাঁ পরিবারের এই কাজ স্থানীয় মুসলমান সমাজের মধ্যে অন্য একটা আলোড়ন তুলে দিতে পারে। ভোটে তার প্রভাব পড়তে পারে।’ স্থানীয় মুসলমানেরা সত্যিই দেখছি রাহুলের রোড শো ও খাঁ পরিবারের আচরণে একটু থমকে গেছেন। শুক্রবার রাত পর্যন্তও যাঁরা ভাবছিলেন, মোদির বিরুদ্ধে মূল লড়াইটা যেহেতু অরবিন্দ কেজরিওয়ালের, তাই ভোটটা তাঁরা আম আদমি পার্টিকেই দেবেন, শনিবার রাহুলের আগে-পিছে জনপ্লাবন দেখে তাঁরাও দোলাচলে পড়েছেন। স্থানীয় বস্ত্র ব্যবসায়ী সৈয়দ হাফিজ আহমেদ বললেন, ‘রাহুল এসে অঙ্কটা গুলিয়ে দিলেন। তাঁর সঙ্গে সঙ্গত করল খাঁ সাহেবের পরিবার।’

আচমকাই কংগ্রেসের অনুষ্ঠানে খাঁ পরিবারের সানাই বাজানোটা পরোক্ষে দলটিকে সমর্থনের বার্তা কি না, সেই চিন্তা চলছে মুসলমান মননে। এই ফেরবদলের ব্যাখ্যা অবশ্য জমিন হুসেন ও তাঁর ছেলে আফাক হায়দার দিয়েছেন। জমিনের বক্তব্য, ‘আমরা রাজনীতির লোক নই। আমরা বাজনদার। আমরা কংগ্রেসকে ভোট দেওয়ার কথা বলিনি।’ আফাক হায়দার খানের বক্তব্য, ‘কংগ্রেস থেকে অনুরোধ করেছিল, আমরা বাজিয়েছি। বিজেপি বা আম আদমি পার্টি বললে তাদের জন্যও বাজাতাম। সানাই বাজানোই তো আমাদের কাজ। এর মধ্যে রাজনীতির কিছু নেই।’

কিন্তু নেই বললে কে শুনছে। সারা বারানসি তো এতেই মশগুল। মোদি রোড শো করেছিলেন সাত কিলোমিটার, কেজরিওয়াল দুই দফায় ১০ কিলোমিটার, আর রাহুল করলেন পাক্কা ১২ কিলোমিটার। তাঁর রাস্তাও যে ভিন্ন, তা বোঝাতে কি না, কে জানে। মোদি যেখান থেকে শুরু করেছিলেন, রাহুল রোড শো শেষ করলেন সেই বেনারস হিন্দু বিশ্ববিদ্যালয় প্রাঙ্গণে মদন মোহন মালব্যের মূর্তিতে মালা দিয়ে। শো শেষে পাশের আসন চন্দৌলিতে গিয়ে রাহুল তীব্র কটাক্ষে মোদিকে বিঁধলেন এই বলে, ‘বারানসিতে দেখলাম, মোদির হোর্ডিংয়ে লেখা, নারীদের উনি শক্তি দেবেন। তো আমি বলি, মোদিজি, নারীদের আপনাকে শক্তি দিতে হবে না। আপনি বরং তাঁদের প্রতি একটু সম্মান দেখান। তাঁদের ফোনে আড়িপাতা বন্ধ করুন। বাড়িতে পুলিশ পাঠানো বন্ধ করুন। তা হলেই যথেষ্ট।’