বুধবার, ৫ই অক্টোবর, ২০২২ খ্রিস্টাব্দ ২০শে আশ্বিন, ১৪২৯ বঙ্গাব্দ

আনচেলত্তি উচ্ছ্বসিত, গর্বিতও

প্রতি-আক্রমণনির্ভর ফুটবলের পরিকল্পনা করেছিলেন রিয়াল কোচ কার্লো আনচেলত্তি। নিজের পরিকল্পনার সেরা বাস্তবায়নটাই দেখলেন তিনি নিজ দলের খেলোয়াড়দের কাছ থেকে। এমন দুর্দান্ত পারফরম্যান্সের পর খুশি না হয়ে কী থাকা যায়? রিয়াল কোচ কেবল খুশিই নন, একই সঙ্গে তিনি উচ্ছ্বসিতও। বায়ার্ন মিউনিখকে তাদের আঙ্গিনায় ৪-০ গোলে উড়িয়ে দেওয়ার পর আনচেলত্তি এই ‘নিপুণ’ পারফরম্যান্সে একই সঙ্গে গর্বিতও।

নিজের ঘর সামলিয়ে প্রতিপক্ষের ঘরে হানা দেওয়ার কৌশলটা কিন্তু একটু বিতর্কিতই। আক্রমণাত্মক ফুটবলের যে সৌন্দর্য, তার অনেকটাই এতে অনুপস্থিত। কিন্তু কাল রিয়াল মাদ্রিদ প্রমাণ করেছে ‘ঘর সামলানো’ ফুটবলের সৌন্দর্যও অন্য জায়গায়। ব্যাপারটাকে কেবল পরিকল্পনা-মাফিক কাজে লাগাতে হয়। প্রতিপক্ষের আক্রমণ ঠেকানোর ফাঁকফোকরে তীব্র গতিতে আক্রমণ শাণিয়েও যে প্রতিপক্ষকে তছনছ করে দেওয়া যায়, তার সার্থক চিত্রটা কাল ফুটবল বিশ্বের সামনে দারুণভাবে তুলে ধরেছে আনচেলত্তির দল।

‘আমরা আসলে পরিকল্পনা-মাফিক সবকিছু করেছি। পরিকল্পনাতেই ছিল নিজের ঘর সামলে আক্রমণে যাওয়ার ব্যাপারটি। বিশেষ করে ম্যাচের প্রথমার্ধে রিয়ালের খেলার যে ধরনটা ছিল, আমি সেটাই চেয়েছিলাম। খেলোয়াড়েরা আমার চাওয়াটাকে সত্যিকার অর্থেই বাস্তব রূপ দিতে পেরেছে।’ ম্যাচ শেষে সংবাদ সম্মেলনে রিয়ালের এই ইতালীয় কোচের কণ্ঠে ছিল একরাশ তৃপ্তির সুর।

আনচেলত্তির তৃপ্তির আরও একটা জায়গা আছে। আর সেটা হলো বায়ার্নের মতো শক্তিশালী একটা দলকে উড়িয়ে দিয়ে ফাইনালে পৌঁছা। প্রতিপক্ষকে ঘায়েল করার কেতাটা ছিল এমনই, যার স্মৃতি সারাটা জীবন বুকে ধারণ করা যায়, ‘আমার খুশি লাগছে, কারণ আমরা গতবারের চ্যাম্পিয়ন দলকে হারিয়েছি। বায়ার্ন মিউনিখের মতো একটি শক্তিশালী দলের বিপক্ষে এমন জয়, সত্যিই অবিস্মরণীয়।’

রিয়ালের আক্রমণত্রয়ী—গ্যারেথ বেল, ক্রিস্টিয়ানো রোনালদো আর করিম বেনজেমা কাল দলের জন্য নিজেদের উজাড় করেই দিয়েছেন বলে অভিমত আনচেলত্তির। সার্জিও রামোসের গোল দুটি ছিল অনন্য। তবে আনচেলত্তির মনে কালকের ম্যাচও রেখে যাচ্ছে একটা বড় খচখচানি। হলুদ কার্ডের খাঁড়ায় পড়ে ফাইনাল মিস করছেন জাবি আলোনসো। ব্যাপারটা যেন আনন্দের শুভ্রতায় এক ফোঁটা কালির মতোই লাগছে তাঁর কাছে। রয়টার্স।