বুধবার, ২৯শে জুন, ২০২২ খ্রিস্টাব্দ ১৫ই আষাঢ়, ১৪২৯ বঙ্গাব্দ

জামায়াতের ভরসায় বিএনপি কখনো আন্দোলন করে না

Alal নিজস্ব প্রতিবেক : মোয়াজ্জেম হোসেন আলাল। যুবদল সভাপতি। সাবেক সংসদ সদস্য। দেশের গণতান্ত্রিক আন্দোলনের একজন লড়াকু যোদ্ধা। আপোসহীন নেতা। বিএনপির এই ত্যাগী নেতা সম্প্রতি মুখোমুখি হয়েছিলেন সাপ্তাহিক কাগজ-এর। কথা বলেছেন, ৫ জানুয়ারি নির্বাচনোত্তর দলের অবস্থা, আন্দোলন-সংগ্রাম নিয়ে দলীয় অবস্থান, নেতা-কর্মীদের নিষ্ক্রিয়তা, সাংগঠনিক দুর্বলতা, সংসদ নির্বাচনে অংশগ্রহণ না করেও কেন উপজেলা নির্বাচনে অংশগ্রহণ করেছেন, দিয়েছেন তারও ব্যাখ্যা। বর্তমান সরকার সাংবিধানিকভাবে বৈধ, তার পরও বিএনপি সরকারকে অবৈধ বলছে, কেন বলছে, তার জবাবও উঠে এসেছে তার কথায়। জামায়াতের সঙ্গে সম্পর্কের ভবিষ্যৎ নিয়েও কথা বলেছেন তিনি। তারেক রহমানের সাম্প্রতিক বক্তব্য-বিবৃতিতে ইতিহাস বিকৃতির যে অভিযোগ উঠেছে, আলোচনায় উঠে এসেছে তাও। উপজেলা নির্বাচনে সহিংসতা, ব্যালট বাক্স ছিনতাই, গণজাগরণ মঞ্চ নিয়ে সরকারের সাম্প্রতিক আচরণসহ নানা প্রসঙ্গে খোলামেলা সাক্ষাৎকার … কাগজ-এর পক্ষ থেকে কথা বলেছেন আশিক রহমান

 নিজস্ব প্রতিবেক : সরকার সাংবিধানিকভাবে বৈধ, কিন্তু আপনারা বলছেন অবৈধ। কেন?
 
মোয়াজ্জেম হোসেন আলাল: অসাংবিধানিকের চেয়েও বড় হচ্ছে এই সরকার অবৈধ। অবশ্যই এই সরকার অসাংবিধানিক। কারণ, বাংলাদেশের সংবিধানের মূল কথা হলো, জনগণের সার্বভৌমত্ব এবং জনগণই সকল ক্ষমতার উৎস। সেই ক্ষেত্রে জনগণের মতের প্রতিফলন যদি না ঘটে, পঁচানব্বই পার্সেন্ট মানুষ যদি ভোট দানে বিরত থাকে, তাহলে সংবিধানের মূল সুরটা ৫ জানুয়ারি নির্বাচনের ভোটে ফুটে ওঠেনি। এ জন্যই এই সরকারকে আমরা অসাংবিধানিক বলি, এই জন্যই অবৈধ বলি এই সরকারকে। 
 
 নিজস্ব প্রতিবেক : নির্বাচন তো সাংবিধানিক সব নিয়মকানুন মেনেই হয়েছে। বিএনপিসহ বেশ কিছু দল নির্বাচনে না গেলেও, অনেক দল ৫ জানুয়ারি নির্বাচনে অংশগ্রহণ করেছে।
 
মোয়াজ্জেম হোসেন আলাল: সার্বভৌমত্বের প্রশ্নটি হলো সবচেয়ে বড়। সেটা দেশের সার্বভৌমত্ব, সেটা জনগণের সার্বভৌমত্ব। জনগণের জন্যই তৈরি হয়েছে এই দেশের সংবিধান। আমরা যদি পার্শ্ববর্তী দেশের সিকিমের অবস্থা দেখি, সিকিমে এই রকম নির্বাচনের মাধ্যমে লেনদুন দর্জির মাধ্যমে একটা সংখ্যাগরিষ্ঠ সরকার গঠিত হয়েছে। তারাও সংবিধান অনুসরণ করে নির্বাচন করেছে। সংবিধান অনুসরণ করেই তারা সংসদে সংখ্যাগরিষ্ঠ সদস্যদের ভোটে স্বাধীন দেশকে ভারতের অঙ্গরাজ্যে পরিণত করেছে। সেটাও তো সাংবিধানিক ছিল। কিন্তু মূল্যবোধের দিক থেকে এটাকে কি সাংবিধানিক বলা যায়? মূল্যবোধটাই হচ্ছে বড় প্রশ্ন, যে আমার অস্তিত্ব, জনগণের সার্বভৌমত্ব, সেটার প্রতিফলন ঘটেছে কি না। যদি না ঘটে থাকে, তাহলে সংবিধানের মূল সুরের সঙ্গে তা যায় না। সিমিলারিটি তো দূরের কথা, স্ববিরোধিতাও চরম। জনগণের সার্বভৌমত্ব, জনগণের মতের প্রতিফলন প্রতিষ্ঠিত হয়নি বলেই এই নির্বাচন, সরকারকে সাংবিধানিক বলা যায় না। 
 
 নিজস্ব প্রতিবেক : একদিকে আপনারা সরকারকে অবৈধ, অসাংবিধানিক বলছেন, নির্বাচন কমিশনের ভূমিকা নিয়েও আপনাদের অনেক অভিযোগ, প্রশ্ন। তার পরও আপনারা উপজেলা নির্বাচনে গেছেন। উপজেলা নির্বাচনে যাওয়ার কারণ কী?
 
মোয়াজ্জেম হোসেন আলাল: উপজেলা নির্বাচনে যাওয়ার মূল কারণ হলো, নতুন প্রজš§, নতুন যারা ভোটার তারা ১৯৭২ থেকে ১৯৭৫ সাল পর্যন্ত, ৭৩ সালের জাতীয় সংসদের নির্বাচন, পরে অনুষ্ঠিত অন্যান্য নির্বাচন ওই সময়ের আওয়ামী লীগের রূপটা তারা দেখেনি। ১৯৮৬ সালে এরশাদের সঙ্গে কেউ নির্বাচনে গেলে সে জাতীয় বেঈমান হবে, এই ঘোষণা দিয়ে আজকের প্রধানমন্ত্রী এরশাদের সঙ্গে আঁতাতের নির্বাচনে গিয়েছিলেন। ১৯৮২ সালের ২৪ মার্চ, বিচারপতি আবদুস সাত্তার সরকারকে উৎখাত করে এরশাদ যখন অবৈধভাবে ক্ষমতায় এসেছেন, তখনো আজকের প্রধানমন্ত্রী তার প্রতিক্রিয়ায় বলেছিলেন, আই অ্যাম নট আনহ্যাপি। গণতন্ত্র হরণ হয়েছে, সামরিক সরকার এসেছে তাতেও তিনি অখুশি নন। আবার ১/১১ তে যদি দেখেন, মঈনুদ্দিন-ফখরুদ্দিন সরকারের সব কাজের বৈধতা দেবেÑ এই কথা বারবার বলেছেন আজকের প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা। সুতরাং আওয়ামী লীগের এই অগণতান্ত্রিক চরিত্রটা সাধারণ ভোটারদের কাছে, বিশেষ করে এই প্রজšে§র কাছে আরও ভালোভাবে তুলে ধরার জন্য আমরা উপজেলা নির্বাচনে গেছি। 
 
এটাকে যদি আপনি আরেকভাবে দেখেন, তাহলে ৫ জানুয়ারি জাতীয় নির্বাচন পর্যন্ত, আওয়ামী লীগ নামক দলটির শরীরে ওপরের অংশে কোনো আবরণ ছিল না, নিচের অংশে ছোট একটি আবরণ ছিল। উপজেলা নির্বাচনের মাধ্যমে বিএনপি রাজনৈতিকভাবে দেখিয়ে দিয়েছে, দ্বিতীয় থেকে পঞ্চম দফা পর্যন্ত আওয়ামী লীগ তার নি¤œাংশের কাপড়চোপড়ও খুলে ফেলেছে। আওয়ামী লীগ উলঙ্গ হয়েও প্রকাশ্যে ঘুরতে পারে…
 
 নিজস্ব প্রতিবেক : প্রথম কয়েক দফা মোটামুটি গ্রহণযোগ্য নির্বাচন হলেও শেষ দফার উপজেলা নির্বাচনগুলো ভোট ডাকাতি, জালিয়াতির ঘটনা বেশ কিছু জায়গায় দৃশ্যমান ছিল। যা বিএনপির জন্য প্রতিকূল, কঠিন সময়। এত কিছুর পরও উপজেলা নির্বাচনে বিএনপির অর্জন বেশ ভালো। উপজেলা নির্বাচন নিয়ে, বিএনপির অর্জন নিয়ে আপনার পর্যবেক্ষণ কী?
 
মোয়াজ্জেম হোসেন আলাল: আমরা আদৌ কোনো ভালো ফল করিনি উপজেলা নির্বাচনে। ভালো বলব না এই কারণে, এই ভোট জালিয়াতির মতো নোংরামি যদি না করা হতো, রাষ্ট্র যন্ত্রকে ব্যবহার করে, প্রশাসনের সমস্ত মেশিনারিজ ব্যবহার করে নগ্নতা দেখাল। যে জিনিসগুলো দেশের মানুষ ভুলেই গিয়েছিল, যে নির্বাচনে জাল ভোট, নির্বাচনে ব্যালট বাক্স ভর্তি, প্রশাসনের পক্ষপাতিত্ব সেসব মানুষ ভুলেই গিয়েছিল, বাহাত্তর-তিয়াত্তর সালের ঘটনা, ছিয়াশি সালের সেই ঘটনা, আওয়ামী লীগ নতুনভাবে এই উপজেলা নির্বাচনে উপস্থান করেছে। এই উপস্থানের কারণে আমাদের যে প্রত্যাশা, সেই প্রত্যাশার কাছাকাছিও আমরা যেতে পারিনি। কিন্তু গণমাধ্যমের মূল্যায়নে, এত নোংরামির পরও তো বিএনপি অনেক আসন পেয়েছে। এই নোংরামি যদি না হতো কিংবা কিছুটা কম হতো, তাহলেও বিএনপি অনেক বেশি আসন পেত।
 
 নিজস্ব প্রতিবেক : উপজেলা নির্বাচনের পর কি মনে হয় না ৫ জানুয়ারির নির্বাচনে অংশগ্রহণ না করে বিএনপি ভুল করেছে? সংসদ নির্বাচনে গেলেন না, উপজেলা নির্বাচনে গেলেন। এটা স্ববিরোধী অবস্থান নয়?
 
মোয়াজ্জেম হোসেন আলাল: উপজেলা নির্বাচন হলো স্থানীয় সরকার নির্বাচন। বিএনপির কথা হলো, এই নির্বাচন কমিশনের অধীনে, কোনো দলীয় সরকারের অধীনে বিএনপি জাতীয় নির্বাচনে যাবে না। সেখানে আমরা আমাদের স্ট্যান্ড থেকে সরে যাইনি। জাতীয় নির্বাচনে না গিয়ে আমরা উপজেলা নির্বাচনে গিয়েছি এই কারণে যে আমাদের আন্দোলনটি তৃণমূল পর্যন্ত গিয়ে পৌঁছিয়েছে। ৫ জানুয়ারির নির্বাচনকে বয়কট করার যে আহ্বানটি ছিল, সেই আহ্বানে সারা দেশের মানুষ সাড়া দিয়েছে ব্যাপক হারে, সেটা ছিল একেবারে তৃণমূল পর্যন্ত। দেশের হাটে-ঘাটে-মাঠে সবখানেই পৌঁছে গেছে। তৃণমূলে আমাদের যারা প্রতিনিধি, নেতা-কর্মী তাদের প্রচণ্ড চাপ ছিল ৫ জানুয়ারির নির্বাচনে অংশগ্রহণ করার ব্যাপারে। আমরা তাদের মতামতের মূল্যায়নটা যেমন করেছি, একইভাবে আমাদের যে পরিকল্পনা ছিল যে আওয়ামী লীগ জাতীয় নির্বাচনে চরম নোংরামি করবে, প্রশাসন যন্ত্রকে ব্যবহার করবে, রাষ্ট্রযন্ত্রকে ব্যবহার করবে নিরপেক্ষ ভোটাধিকার নষ্ট করার জন্য। সে জায়গাটিতে আমরা সফল হয়েছি। স্থানীয় পর্যায়ে নির্বাচনে তো সরকার পরিবর্তন হবে না, এতে স্থানীয় পর্যায়ের জনপ্রতিনিধি পরিবর্তন হবে।
 
 নিজস্ব প্রতিবেক : উপজেলা নির্বাচনে অংশগ্রহণ করার কারণ কি তাহলে তৃণমূলকে সংগঠিত করার জন্য, তৃণমূলকে চাঙা করার জন্য?
 
মোয়াজ্জেম হোসেন আলাল: তৃণমূল এমনিতেই চাঙা ছিল। তৃণমূলকে কিছু একটা উপহার দেওয়ার জন্যই বিএনপি উপজেলা নির্বাচনে অংশগ্রহণ করেছে। তৃণমূল যেহেতু জাতীয় নির্বাচন দেশনেত্রীর কথায় বয়কট করেছে, অনেক স্বার্থ ত্যাগ করার কিছু বিনিময় এই উপজেলা নির্বাচনে যাওয়া। তারা অনেক কিছু সহ্য করেছেন, দলের সঙ্গে থেকেছেন, তাদের কিছু প্রত্যাশা পূরণের জন্য এবং একই সঙ্গে আওয়ামী লীগের এই নোংরা মুখোশটা আরও বেশি উšে§াচন করার জন্যই আমরা নির্বাচনে গিয়েছি। এই দুই জায়গাতেই বিএনপি সফল হয়েছে বলে আমি মনে করছি।  
 
 নিজস্ব প্রতিবেক : অনেকেই বলছেন, জামায়াত আন্দোলনে নেই, বিএনপিও নেই
 
মোয়াজ্জেম হোসেন আলাল: জামায়াতে ইসলামীর ভরসায় বিএনপি কখনো আন্দোলন করে না, বিএনপি ৯৬ থেকে ২০০১ সালেও আন্দোলন করেছে, এর আগে স্বৈরাচার এরশাদবিরোধী আন্দোলন করেছে, সেই ক্ষেত্রে জামায়াত কিংবা অন্য কোনো মিত্র সংগঠনের ভরসায় আন্দোলন করেনি। জামায়াত বিএনপির নির্বাচনী জোট। আন্দোলনের কর্মসূচি গ্রহণ করতে হবে এ রকম কোনো জোট তাদের সঙ্গে হয়নি। এবং সেটার প্রমাণ এই উপজেলা নির্বাচনে দেশবাসী পেয়েছে। জামায়াতের সঙ্গে অনেক জায়গায় আমাদের বনিবনা হয়নি বরং প্রতিদ্বন্দ্বিতা হয়েছে। কাজেই জামায়াতের ওপর নির্ভর করে আন্দোলনের কোনো কিছু হবে সেই ভরসায় বিএনপি বসে নেই। বিএনপির আন্দোলনের যে কর্মসূচি ধারাবাহিকভাবে ছিল, সেই ধারাবাহিকতায় একটু ছেদ পড়েছে। সমস্ত কর্মকাণ্ডের একটি মূল্যায়ন কিন্তু করতে হয়। সেই মূল্যায়ন করতে গিয়ে দেখা যায়, ভবিষৎ কর্মপরিকল্পনায় আরও নতুন কিছু যোগ করতে হবে কিংবা পুরাতন সনাতনী প্রথা বাদ দিতে হবে, সেই পরীক্ষা-নিরীক্ষাগুলো চূড়ান্ত করার জন্যই একটু সময় নিচ্ছি।
 
 নিজস্ব প্রতিবেক : আপনি যুবদলের সভাপতি। যুবদল এখন অনেকটাই নিষ্ক্রিয়। যুবদল আন্দোলনে নেই কেন?
 
মোয়াজ্জেম হোসেন আলাল: এটা ঠিক নয়, বিএনপি আন্দোলনে আছে। বিভিন্ন অঙ্গসংগঠনের পক্ষ থেকে কর্মসূচি দেওয়া হচ্ছে। বিশেষ করে যুবদল বিভাগীয় পর্যায়ে, জেলা-উপজেলার মধ্যে বিদুৎতের দাম বাড়ানোর প্রতিবাদে কর্মসূচি পালন করেছে। ঢাকায় কেন্দ্রীয়ভাবেও যুবদল জাতীয় প্রেসক্লাবে একই বিষয়ের প্রতিবাদে কর্মসূচি পালন করেছে। রোডের ওপর টোল-ট্যাক্স বসানো হবে, এই ঘোষণা আসার পর যুবদল প্রতিবাদ করেছে। 
 
 নিজস্ব প্রতিবেক : সাধারণ মানুষ, অনেক রাজনৈতিক বিশ্লেষক বলছেন, জামায়াত থেকে সরে এলে বিএনপি অনেক লাভবান হবে। আরও জনপ্রিয় হবে। আওয়ামী লীগ বিপদে পড়বে…
 
মোয়াজ্জেম হোসেন আলাল: এসব কথা, দাবি আমাদের কানেও আসে। জামায়াতকে ছাড়লে বিএনপি লাভবান হবে। জামায়াতের সঙ্গে তো বিএনপির নির্বাচনী জোট, জামায়াতকে ছাড়া কিংবা ধরার প্রশ্নটা নির্বাচনকালীন সময়ে হবে। নির্বাচনকালীন সময়ে জামায়াত তো বিএনপির সঙ্গে নাও থাকতে পারে। জামায়াত ছাড়ার ঘোষণা তো নির্বাচনের সময়ও আসতে পারে। জামায়াতের সঙ্গে বিএনপির আদর্শিক জোট নয়, তাদের সঙ্গে বিএনপির নির্বাচনী জোট। বিজিপির সঙ্গে সিপিএমের জোট হয়েছে না, গত নির্বাচনে। এ রকম উদাহরণ তো আছে। আবার তৃণমূলের সঙ্গে আঞ্চলিক কোনো দলের জোট হয় না?
 
 নিজস্ব প্রতিবেক : জামায়াতের সঙ্গে ওই দল কিংবা ওই উদাহরণ কি এক? প্রেক্ষাপট কি ভিন্ন নয়?
 
মোয়াজ্জেম হোসেন আলাল: একই রকম প্রেক্ষাপট তা আমি বলছি না। আবার কিছু কিছু ক্ষেত্রে তো একরকম প্রেক্ষাপটই আমরা দেখতে পাই। হাসানুল হক ইনু, জঙ্গিবাদ না থাকা সত্ত্বে কথায় কথায় যেভাবে জিগির দেয়, সেই জঙ্গিবাদের একেবারে জ্বলন্ত দৃষ্টান্ত ভারতের বিজিপি। কারণ তারা প্রকাশ্যে ঘোষণা দিয়েছে, রামমন্দির আবারও তারা নির্মাণ করবে। এটা তাদের নির্বাচনী এজেন্ডায় রয়েছে। এ রকম দল তো  বাংলাদেশে নেই, যারা এই ধরনের ঘোষণা দেয়। তার পরও হাসানুল হক ইনুরা জঙ্গিবাদ, জঙ্গিবাদ বলে। সেই ক্ষেত্রে এই প্রশ্নও উঠতে পারে, আওয়ামী লীগ যদি পতিত স্বৈরাচার ছাড়ে, বাংলাদেশে প্রথম অস্ত্রের রাজনীতি শুরু করেছে জাসদ, আওয়ামী লীগ যদি সেই হাসানুল হক ইনুদের ছাড়ে, তাহলে সেটাও তাদের জন্য অনেক ভালো হবে।
 
 নিজস্ব প্রতিবেক : আওয়ামী লীগ বলছে, এরশাদ স্বৈরাচার ছিল, আছে, থাকবে। কিন্তু এরশাদ বাংলাদেশকে বিশ্বাস করে, মুক্তিযুদ্ধকে বিশ্বাস করে। এরশাদ তার অপরাধের জন্য জাতির কাছে ক্ষমা চেয়েছেন একাধিকবার। অপরাধের সাজা হিসেবে কারাগারে গেছেন। কিন্তু জামায়াত তো বাংলাদেশকে বিশ্বাস করে না, স্বীকার করে না, মুক্তিযুদ্ধকে বিশ্বাস করে না। একাত্তরের অপরাধের জন্য কখনো অনুতপ্ত নয়। ক্ষমাও চায়নি কখনো…
 
মোয়াজ্জেম হোসেন আলাল: জামায়াতের যারা যুদ্ধাপরাধের সঙ্গে জড়িত, যারা জাতির কাছে ক্ষমা চায়নি, যদি কেউ স্বাধীনতার পক্ষে এখনো তারা স্বীকৃতি দেয়নি, এটা অবশ্যই নিন্দনীয়। এটার সমর্থন ব্যক্তিগতভাবে করি না, কোনো দিন করিওনি। জামায়াতের যে প্রজš§ স্বাধীনতার পরে জš§ নিয়েছে, তারা স্বাধীনতাযুদ্ধের অবিশ্বাসী এমন প্রমাণ কিন্তু আমরা করতে পারব না।
 
 নিজস্ব প্রতিবেক : বিএনপি কার্যত কোণঠাসা, বিধ্বস্ত, বিপর্যস্ত, হতাশ, ভেঙে পড়েছে। সাম্প্রতিক সময়ে গণমাধ্যমের সংবাদ শিরোনামের ধরন লক্ষ্যযোগ্য। আপনার কি মনে হয়, কেন বিএনপির এই বেহাল অবস্থা? গণমাধ্যম আরও বলছে বিএনপি সাংগঠনিকভাবে দুর্বল হয়ে পড়েছে…
 
মোয়াজ্জেম হোসেন আলাল: আমার মনে হয় গণমাধ্যমের এই মূল্যায়নটা একপেশে, একচোখা। সাংগঠনিকভাবে দুর্বল, বিধ্বস্ত তো নয়-ই, বিধ্বস্ত শব্দটি প্রয়োগ তো প্রযোজ্য-ই নয়। দুর্বল বলতে পারে ঢাকা মহানগরভিত্তিক যে অবস্থাটা, বিএনপির ও বিএনপির অঙ্গসংগঠনগুলোর সেই ক্ষেত্রে প্রযোজ্য হতে পারে। ইদানীং খুব গভীরভাবে, সাংগঠনিকভাবে শক্তি সঞ্চয় করার জন্য কিংবা শক্তি বৃদ্ধি করার জন্য যে কাজগুলো হচ্ছে, সেগুলোর  বেশির ভাগই সে রকম গুরুত্বসহকারে আসছে না। বরং আপনি দেখবেন, জেলা পর্যায়ের নেতৃবৃন্দের সঙ্গে বিএনপির মহাসচিব থেকে শুরু করে যুগ্ম মহাসচিব বৃন্ধ এবং উচ্চপর্যায়ের দায়িত্বশীল নেতৃবৃন্দ তাদের সঙ্গে বৈঠক করছেন। সেই বৈঠকের পর পরই আবার তৃণমূলের নেতা-কর্মীরা চেয়ারপারসনের সঙ্গে বৈঠক করছেন। সেখানে তাদের মতামত, তাদের ইচ্ছা-অনিচ্ছা, সফলতা-ব্যর্থতার ব্যাপারগুলো বিএনপির চেয়ারপারসন শুনছেন এবং সেই অনুযায়ী কার্যকরী ব্যবস্থা নিচ্ছেন। প্রক্রিয়া শুরু হয়েছে, আরও চাঙা করার জন্যই। বিধ্বস্ত কথাটি বোধ হয় ঠিক নয়। হতাশা থাকতে পারে যাদের মধ্যে রাজনৈতিক ম্যাচিউরিটি কম তাদের মধ্যে। আমরা তো স্বৈরাচার দেখেছি, বাকশালও দেখেছি, মঈনুদ্দিন-ফখরুদ্দিনের সামরিক আবরণে আচ্ছাদিত সরকারও দেখেছি, তাই আমরা হতাশ নই।
নতুন প্রজš§, যারা ওইগুলো দেখেনি, অভিজ্ঞতা নেই, তারা সাময়িক হতাশ হতে পারে। কিন্তু এই হতাশা কাটিয়ে উঠে তারা নতুন উদ্যমে শুরু করবে। কারণ আমরা যতটা না সাংগঠনিকভাবে এগোতে পারব, তার চেয়ে অনেক বেশি খারাপ উদাহরণ এই সরকার একের পর এক সৃষ্টি করে যাচ্ছে। হতাশ হওয়ার কিছুই নেই, আন্দোলন হবেই। এই প্রজš§কে সঙ্গে পাবই, আমরা নিশ্চিত।
 
 নিজস্ব প্রতিবেক : নতুন প্রজš§কে আন্দোলনে সম্পৃক্ত করার জন্য কি কোনো উদ্যোগ আছে? সাধারণ জনগণকে সম্পৃক্ত করার জন্য… 
 
মোয়াজ্জেম হোসেন আলাল: হ্যাঁ, আমরা কর্মসূচি দিচ্ছি খুব তাড়াতাড়িই। এখন প্রতিকূল আবহাওয়ার কারণে অনেক জায়গায় কর্মসূচি দেওয়া হচ্ছে না। প্রতিকূল আবহাওয়া বলতে, প্রচ­ গরম, উত্তপ্ত। কৃষকের মাঠ-ঘাট ফেটে চৌচির। ফসলের ক্ষতি হচ্ছে, ফসলের ন্যায্য মূল্য পাচ্ছে না।
 
 নিজস্ব প্রতিবেক : জনগণের দল, গণমানুষের দল ভয় পায় রোদ-বৃষ্টির! রোদ-বৃষ্টির কারণে আন্দোলন বিরতি, কতটা যৌক্তিক একটি জনগণের দলের জন্য?
 
মোয়াজ্জেম হোসেন আলাল: রোদ মানে তো সাময়িক একটা ব্যাপার। যে কথাটি বলেছি, আমরা বিদ্যুতের মূল্যবৃদ্ধির প্রতিবাদে কর্মসূচি পালন করেছি। আজকে তিস্তার পানি বন্ধ করে রাখার কারণে, ভারতের একতরফা পানি প্রত্যাহারের কারণে বাংলাদেশের ফসলের যে ক্ষতি হচ্ছে, জনজীবন পরিবেশ বিপর্যয় ঘটছে, সেই ব্যাপারে আমরা কর্মসূচি পালন করব এই এপ্রিল মাসেই। রাস্তার ওপর অন্যায়ভাবে টোল বসানো হবে, সেটার জন্যও আমরা প্রস্তুতি নিয়ে রেখেছি। এই রকম কোনো কিছু বাস্তবায়ন করা হলে জনগণকে নিয়ে আমরা রাজপথে নামব। প্রতিবাদ করব। গণমাধ্যম নীতিমালা যেটা সরকার ঠিক করেছে, সেটা যখনই সরকার বাস্তবায়ন করতে যাবে, তখনো আমরা আন্দোলন কর্মসূচি দিব। এবং আমাদের সকল আন্দোলন কর্মসূচি হবে জনগণকে সম্পৃক্ত করে, আন্দোলন কর্মসূচির ফলে জনগণের দুর্ভোগ যাতে না বাড়ে, সেদিকেও আমাদের দৃষ্টি থাকবে। আমাদের নেত্রীর বিরুদ্ধে অন্যায়ভাবে অভিযোগ গঠন, তারেক রহমানের বিরুদ্ধে অন্যায়ভাবে আদালতে অভিযোগ গঠন এই বিষয়গুলোতে আমরা শুধু প্রতিবাদ করেছি, প্রতিবাদে কিন্তু আমরা রাস্তায় নামিনি। রাস্তায় নামব জনগণের দুর্ভোগ লাঘবের জন্য যে কর্মসূচি গ্রহণ করা দরকার, তাদের জীবনে যন্ত্রণা হিসেবে উপস্থিত বিভিন্ন বিষয়ে সেগুলোকে সামনে নিয়ে আমরা আন্দোলন করব।
 
 নিজস্ব প্রতিবেক :  তারেক রহমান, বিএনপির সিনিয়র ভাইস চেয়ারম্যান। সম্প্রতি তিনি কিছু বিতর্কের সূত্রপাত করেছেন। তার দাবি, জিয়াউর রহমানই দেশের প্রথম রাষ্ট্রপতি! বঙ্গবন্ধু দেশের অবৈধ প্রধানমন্ত্রী ছিলেন! চাইলেই কি ইতিহাস পরিবর্তন করা যায়?
 
মোয়াজ্জেম হোসেন আলাল: তারেক রহমান যে কথাগুলো বলেছেন, তিনি দালিলিক তথ্য-উপাত্ত উপস্থাপন করে বলেছেন! এবং সেই ক্ষেত্রে বর্তমান সরকারের সঙ্গে জড়িত রয়েছে কিংবা বঙ্গবন্ধুর আদর্শে বিশ্বাসী যারা সাহসী মুক্তিযোদ্ধারা রয়েছেন, তাদের লেখা থেকে উদাহরণ দিয়েছেন। দালিলিক কথাবার্তা বলেছেন! কিন্তু তার প্রতিবাদে আওয়ামী লীগের সিনিয়র নেতৃবৃন্দ যে হারে প্রতিক্রিয়া সৃষ্টি করেছে, এটা অশোভন, শিষ্টাচারবহির্ভূত। তাদেরও উচিত দালিলিকভাবে এই কথাগুলো অসত্য প্রমাণ করা। 
 
 নিজস্ব প্রতিবেক : তারেক রহমানের এই বক্তব্য কি কৌশলগত? আপনি কি তারেক রহমানের বক্তব্য বিশ্বাস করেন? সঠিক বলে মনে করেন?
 
মোয়াজ্জেম হোসেন আলাল: তারেক রহমান যা বলেছেন, তার সবটা বিশ্বাস করি কি না সেইটা বড় প্রসঙ্গ নয়। আমার অবস্থান হলো, ঊনসত্তরের গণ-অভ্যুত্থান থেকে সত্তরের নির্বাচন, সাত মার্চের ভাষণ পর্যন্ত শেখ মুজিবুর রহমান যে ক্ষেত্রটি প্রস্তুত করে গেছেন, বাংলাদেশের স্বাধীনতার জন্য সেই ক্ষেত্রে তার অবদান অনন্য, অসাধারণ। এই ক্ষেত্রে তার সঙ্গে কারও তুলনা চলে না। কিন্তু যখন পাকিস্তানি হানাদার বাহিনী, শেখ মুজিব, ইয়াহিয়া ও ভুট্টোর সঙ্গে আলাপ-আলোচনার সুযোগে সেনাবাহিনী প্রেরণ করার শুরু করলেন, আক্রমণ করার প্রস্তুতি গ্রহণ করলো, আক্রমণ করে বসলো, তখন মরহুম শেখ মুজিবুর রহমান সাহেব এবং আওয়ামী লীগের নেতৃবৃন্দ হতবুদ্ধি হয়ে পড়েছিলেন! শেখ মুজিবুর রহমান বাংলাদেশের স্বাধীনতা ঘোষণা করেননি। সেই ঘোষণাটি জিয়াউর রহমান দিয়েছিলেন প্রভিশনাল হেড হিসেবে, কমান্ডার-ইন-চিফ হিসেবে, দ্যাট ইজ রেকর্ডেড!
 
 নিজস্ব প্রতিবেক :  আপনি রেকর্ডের কথা বললেন, কিন্তু জিয়াউর রহমানের কণ্ঠে ধারণকৃত কথা তো আপনার কথা প্রমাণ করে না। দেশের সংবিধান, ২৬ মার্চ স্বাধীনতা দিবস, দেশে-বিদেশে সংরক্ষিত দলিল-দস্তাবেজ, বিশ্বমিডিয়ায় থাকা তথ্যাদি তো সে কথা বলে না। জিয়াউর রহমান তো বঙ্গবন্ধুর পক্ষে ২৭ মার্চ ঘোষণাপত্রটি পাঠ করেছিলেন…
 
মোয়াজ্জেম হোসেন আলাল: ২৭ মার্চ ছিল সেকেন্ড ডিক্লারেশন, প্রথম ছিল ২৬ মার্চ! বঙ্গবন্ধু স্বাধীনতা ঘোষণা করেছেন এটা তো দালিলিকভাবে প্রমাণ করা যাবেই। কারণ স্বাধীনতার পর পরই আওয়ামী লীগই তো সরকার গঠন করেছিল। আওয়ামী লীগের দলীয় সরকার গঠিত হয়েছিল। মুক্তিযুদ্ধের সরকার তো গঠিত হয়নি। তারা নিজের মতো করে লিখেছে। পত্রিকা কোনো বিষয় নয়, পত্রিকা হলো একটি উপাত্ত। আপনি, প্রথমা প্রকাশনের মুক্তিযুদ্ধের পুরোভাগ কথোপকথন দেখেন, সফিউল্লাহর বাংলাদেশ অ্যাডওয়ার্ড দেখেন, ভারতের যতিসেন গুপ্তের ‘বাংলাদেশ লিবারেশন ওয়ার দেখেন, ডেভিড ফ্রস্টের সঙ্গে শেখ মুজিবের সাক্ষাৎকার দেখেন, ইন্ধিরা গান্ধীর ১৯৭১ সালের সেপ্টেম্বর মাসে আমেরিকায় এক বিশ্ববিদ্যালয়ের স্টুডেন্ট কনভেনশনে বক্তব্য দেখেন, তাহলে প্রমাণ পাবেন।
 
 নিজস্ব প্রতিবেক : তেতাল্লিশ বছর পর এসে এই দাবি কী কারণে?
 
মোয়াজ্জেম হোসেন আলাল: ইতিহাসে কিছু বিষয় থাকে, সব সময় মনে করা কিংবা আবর্তিত করলে মানুষ মনে করবে যে অপ্রয়োজনীয় জিনিস নিয়ে আলোচনা হচ্ছে, এর চেয়ে দেশের বর্তমান সমস্যা নিয়ে কাজ করা অনেক বেশি জরুরি। সেখানে আওয়ামী লীগ একটি মোস্ট সিনিয়র দল হিসেবে যদি সে রকম কিছু করে, বিএনপি করলে অপরাধ হবে কেন? এর মধ্য থেকেই সঠিক তথ্যটি বেরিয়ে আসুক। আওয়ামী লীগ প্রমাণ করুক তারেক রহমানের দাবি অসত্য, মিথ্যা। তারা পারলে প্রমাণ করুক, বিতর্ক শেষ হয়ে যাবে।
 
 নিজস্ব প্রতিবেক : এসব মীমাংসিত ইস্যু নিয়ে কথা বলে, প্রশ্ন তুলে, বিতর্ক করে তারেক রহমান কিংবা বিএনপির কি লাভ হচ্ছে?
মোয়াজ্জেম হোসেন আলাল: এখানে লাভের প্রশ্ন নয়, রাজনৈতিক ক্ষেত্রে অনেক রকমের কথাবার্তা হয়, অনেক কিছু হয়। আপনি ভারতের নির্বাচনের তাকান, দেখেন কত ধরনের কথা হচ্ছে। লাভ-ক্ষতির বিষয় নয়, ঐতিহাসিক ভিত্তির ওপরে। কারণ ঐতিহাসিকভাবে আপনি যদি দেখেন, আজকের যিনি প্রধানমন্ত্রী, আজকের যে আওয়ামী লীগ, এটা তো জিয়াউর রহমানের হাতে জš§! বাকশাল করে তো শেখ মুজিব মারা গেছেন, তখন তো বাকশালের সদস্য আজকের প্রধানমন্ত্রী ছিলেন না। আমি ভালো-খারাপের কথা বলছি না। রিয়েলিটি যেটা, আমি সেটা বলছি। তখন আওয়ামী লীগ নামক রাজনৈতিক দল ছিল না, জিয়াউর রহমানের পারমিশন নিয়ে আওয়ামী লীগ নতুন করে রাজনীতি শুরু করেছে!
 
 নিজস্ব প্রতিবেক : জামায়াতের সঙ্গে সরকারের একটি সমঝোতার গুজব রয়েছে। এই নিয়ে আপনার পর্যবেক্ষণ কী?
 
মোয়াজ্জেম হোসেন আলাল: এইটা তো অনেক আগে থেকেই শুরু হয়েছে, আপনি দেখেছেন যে মিছিল করতে দিয়েছিল সরকার, মিছিল থেকে পুলিশকে ফুল দিয়েছিল, মিষ্টি দিয়েছিল। ৫ জানুয়ারির নির্বাচনের পর পর মাহবুব উল আলম হানিফের হাতে ফুলের তোড়া দিয়ে জামায়াতের বড় মাপের একজন নেতা তার দলবলসহ আওয়ামী লীগে যোগ দিয়েছে। শরীয়তপুরে নির্বাচিত এমপি যিনি, তার ওখানেও জামায়াত এ রকম দলবলসহ আওয়ামী লীগে যোগ দিয়েছে। আমাদের কাছে এই ধরনের তথ্য রয়েছে এবং প্রমাণও রয়েছেÑ উপজেলা নির্বাচনে অনেক জায়গায় স্থানীয়ভাবে আওয়ামী লীগের সঙ্গে বৈঠক করে, জামায়াতে ইসলামী আওয়ামী লীগের চেয়ারম্যান প্রার্থীকে ভোট দিয়েছে, আওয়ামী লীগ জামায়াতের ভাইস চেয়ারম্যানকে ভোট দিয়েছে। এটা দেশের অনেক জায়গায় হয়েছে। বগুড়ায় হয়েছে, ফরিদপুরে হয়েছে, পটুয়াখালীতে হয়েছে, কুড়িগ্রামে হয়েছে, বরগুনায় হয়েছেÑ এ রকম অনেক জায়গায়ই হয়েছে।
 
 নিজস্ব প্রতিবেক : জামায়াত হেফাজত সরকারের বন্ধু, গণজাগরণ মঞ্চ সরকারের শত্রু হয়ে গেছে। গণজাগরণ মঞ্চকে নিয়ে সরকারই খেলছে। গণজাগরণ মঞ্চকেই সরকার জামায়াতের সঙ্গে সমঝোতার প্রধান বাধা, অনেকের উপলব্ধি…
 
মোয়াজ্জেম হোসেন আলাল:  শাহবাগের গণজাগরণ মঞ্চ, গণজাগরণের যিনি মূল উদ্যোক্তা কিংবা মুখপাত্র ইমরান এইচ সরকার, তাকে নাজেহাল করা  হচ্ছে। সরকার ও তাদের অনুগত সংগঠনগুলো মিলে এ ঘটনা করছে। যুদ্ধাপরাধীর বিচার প্রক্রিয়াটাও স্লো হয়ে গেছে। অনেক ধীরলয়ে চলছে। এই সব কর্মকাণ্ড দেখে মনে হচ্ছে, সরকার জামায়াতের সঙ্গে সমঝোতার আলোচনা চালিয়ে যাচ্ছে।
কাগজ: ভারতের সাধারণ নির্বাচন হচ্ছে। নিশ্চয়ই তা পর্যবেক্ষণ করছেন। অনেক রাজনৈতিক বিশ্লেষক বলছেন, কংগ্রেস ক্ষমতায় না এলে বিপদে পড়বে ভারতের সংখ্যালঘুরা, বিপদে পড়তে পারে বাংলাদেশ…
 
মোয়াজ্জেম হোসেন আলাল: ভারতের সংখ্যালঘু যারা, তাদের ব্যাপারটা যদি দালিলিকভাবে দেখেন তাহলে দেখবেন যে, ভারত-পাকিস্তান যুদ্ধ, ভারত-চীন যুদ্ধ, শুধু কারগিলে যে আঞ্চলিক সমস্যা, সর্বশেষ যে যুদ্ধটি হয়েছে সেটাকে ভারত-পাকিস্তানের যুদ্ধ বলা যাবে না। বাকি রইল ভারত-পাকিস্তান যুদ্ধ, ভারত-চীন যুদ্ধ। সবগুলো যুদ্ধই কিন্তু সংগঠিত হয়েছে কংগ্রেসের আমলে। কংগ্রেস যখন ক্ষমতায় ছিল তখন। শুধু কারগিল যুদ্ধটা হয়েছে বিজেপি ক্ষমতায় থাকাকালীন। পাঞ্জাবের স্বর্ণমন্দিরে যে ঘটনা ঘটেছিল, সেটাও হয়েছে কংগ্রেসের ক্ষমতার সময়। বিজেপি এলে ভারতের মুসলমানরা ক্ষতিগ্রস্ত হবে, সংখ্যালঘুরা ক্ষতিগ্রস্ত হবে এমনটা নয়। বিজেপি ক্ষমতায় এলে সংখ্যালঘুরা সমস্যায় পড়বে, তবে কংগ্রেসের তুলনায় কম ক্ষতিগ্রস্ত হবে সংখ্যালঘুরা। 
 
 নিজস্ব প্রতিবেক : আপনি বিএনপির একজন অনেক বড় মাপের নেতা। দল অনেক আন্দোলন-সংগ্রাম করছে। বিভিন্ন সভা-সেমিনার, মানববন্ধনের আয়োজন করছে। এসব অনুষ্ঠানে আপনাকে আগের যেকোনো সময়ের চেয়ে কম দেখা যাচ্ছে। কেন?
 
মোয়াজ্জেম হোসেন আলাল: এখন তো জাতীয় পর্যায়ে সে রকম কর্মসূচি নেই। প্রেসক্লাবভিত্তিক যে কর্মসূচি কিংবা অন্যান্য জায়গায় যাচ্ছি তো। কয়েক দিন আগে হয়ে গেল শ্রমিক দলের সম্মেলন সেখানে তো আমি ছিলাম। আমি বিএনপি অফিসের প্রেস ব্রিফিং ছাড়া সব জায়গাই যাচ্ছি। 
 
 নিজস্ব প্রতিবেক :  ‘টক শো’র পরিচিত মুখ, নিয়মিত বক্তা আপনি। ‘টক শো’তে ইদানীং আপনাকে কম দেখা যায়, এর কারণ কী?
 
মোয়াজ্জেম হোসেন আলাল: ‘টক শো’কে টেলিভিশন চ্যানেলগুলো আহ্বান জানালে তো যেতেই হয়, আহ্বান না জানালে তো আমি গিয়ে বসে থাকতে পারি না। এই কম আহ্বান না জানানোর কারণ ওরা যেটা আমাকে বলেছে, আমার সঙ্গে টক শোতে মূল প্রতিপক্ষ যারা আসতেন, তাদের বেশির ভাগই এখন মন্ত্রী হয়ে গেছেন। তারা ইদানীং টক শোতে আসতে চাচ্ছেন না। রাজনীতিবিদের সঙ্গে তো রাজনীতিবিদই কথা বলবেন, অন্য কারও সঙ্গে রাজনীতিবিদ কি বিতর্ক করবেন? টক শোতে কম যাওয়ার এটাই বড় কারণ। শাহরিয়ার আলম আসতেন, জুনাইদ আহমেদ পলকরা আসতেন, এখন তারা আসছেন না।
 
 নিজস্ব প্রতিবেক : তারেক রহমানের সঙ্গে কি আপনার যোগাযোগ হয়? নিয়মিত যোগাযোগের কথা বলছি…
 
মোয়াজ্জেম হোসেন আলাল: তিনি যেহেতু দলের সিনিয়র ভাইস চেয়ারম্যান, তার সঙ্গে তো যোগাযোগ থাকবেই। তবে নিয়মিত যোগাযোগ তার সঙ্গে হয় না। বলা যায় তারেক রহমানের সঙ্গে আমার অনিয়মিত যোগাযোগ রয়েছে।

এ জাতীয় আরও খবর

ব্রাহ্মণবাড়িয়ায় কোরবানীর হাটে জন্য প্রস্তুত খামারিরা,শেষ সময়ে পরিচর্যায় ব্যস্ত

নতুন নোট বাজারে আসছে বুধবার

শিগগিরই ৫-১২ বছরের শিশুদের করোনার টিকা দেওয়া হবে: স্বাস্থ্যমন্ত্রী

এক দিনে রেকর্ড ডেঙ্গু রোগী শনাক্ত

বিষাক্ত হলুদ ধোঁয়ায় ঢেকে গেল জাহাজ! মুহূর্তে ১২ জনের মৃত্যু

বিয়ের আসরে কনের পা ছুয়ে প্রণাম বরের!

বিশ্বের সব স্বৈরাচারকে টেক্কা দিয়েছে আওয়ামী সরকার : ফখরুল

আসছে ‘ডিজিজ এক্স’! অজানা রোগের মহামারীর শঙ্কা বিজ্ঞানীদের

রেসলিংয়ের মঞ্চে আরব নারী!

শ্রীলঙ্কায় এবার পেট্রল বিক্রি বন্ধ

পদ্মা সেতুর টোল প্লাজার বেরিয়ারে বাসের ধাক্কা

গাড়ি আমদানিতে চট্টগ্রাম বন্দরকে পেছনে ফেলল মোংলা‍