সোমবার, ২৭শে জুন, ২০২২ খ্রিস্টাব্দ ১৩ই আষাঢ়, ১৪২৯ বঙ্গাব্দ

স্বাস্থ্যসেবার মান উন্নয়নের লক্ষ্যে সদর হাসপাতাল কর্তৃপক্ষের সাথে সনাকের মতবিনিময় সভা

সচেতন নাগরিক কমিটি (সনাক), ব্রাহ্মণবাড়িয়া’র উদ্যোগে ট্রান্সপারেন্সি ইন্টারন্যাশনাল বাংলাদেশ (টিআইবি)’র সহায়তায় ২৩ এপ্রিল’১৪ শহীদ ডাঃ মিলন সভাকক্ষে স্বাস্থ্যসেবার মান উন্নয়নের লক্ষ্যে ব্রাহ্মণবাড়িয়া জেলা সদর হাসপাতাল কর্তৃপক্ষের সাথে সনাকের মতবিনিময় সভা অনুষ্ঠিত হয়। টিআইবি’র এরিয়া ম্যানেজার খোদেজা বেগম এর সঞ্চালনায় এবং সদর হাসপাতালের তত্ত্বাবধায়ক(ভারপ্রাপ্ত) ডা. আকবর হোসেন চৌধুরী এর সভাপত্বিতে  সভায় স্বাগত বক্তব্য রাখেন সনাকের স্বাস্থ্য বিষয়ক উপকমিটির আহ্বায়ক মোঃ আলী আকবর মজুমদার।



আলোচনার শুরুতে হাসপাতাল কর্তৃপক্ষ হাসপাতালের কিছু সীমাবদ্ধতা ও সমস্যার কথা তুলে ধরে বলেন বর্তমানে সব চেয়ে বড় সমস্যা হচ্ছে হাসপাতালে দালালদের (নারী ও পুরুষ) দৌরাত্ব ও  ঔষধ কোম্পানীর প্রতিনিধিদের হয়রানী। এসকল দালাল ও ঔষধ প্রতিনিধি স্থানীয় হওয়ায় তারা হাসপাতাল কর্তৃপক্ষের কোন কথা শুনেন না বরং তাদের কিছু বললে তারা ভয়ভীতি দেখান এমন কি স্থানীয় কিছু ঔষধ প্রতিনিধি তাদের বাজে ঔষধ না লিখলে তারা ডাক্তারদের হুমকি দিয়ে থাকেন। ঔষধ কোম্পানীর প্রতিনিধিদের নির্দ্দিষ্ট বার ও সময় (রবিবার ও বুধবার দুপুর ১২টা থেকে দুপুর ১টা) দেওয়া থাকলেও সে নিয়ম তারা মানেন না। কর্তৃপক্ষ আরো বলেন রাতের বেলায় জরুরী বিভাগে ও ইনডোরে ডাক্তার, নার্স, ষ্টাফগণ সার্বক্ষনিক নিরাপত্তাহীনতায় থাকেন। প্রায় রাতে বখাটে ছেলেরা অস্ত্র নিয়ে হাসপাতালে ঘোরাফেরা করেন এবং স্টাফ, নার্সদের সাথে খারাব ব্যবহার করে ও ঔষধ ছিনিয়ে নিয়ে যায়। হাসপাতাল কর্তৃপক্ষ বলেন এ সকল দালাল ও ঔষধ প্রতিনিধিদের সাথে হাসপাতালের কিছু দুষ্টচক্র ও স্থানীয় প্রভাবশালী কিছু ব্যক্তিবর্গ জড়িত আছে তাদের সনাক্ত করা গেলে প্রয়োজনীয় ব্যবস্থা নেয়া হবে। আলোচনায় আরেকটি বিষয় আসে তা হচ্ছে হাসপাতাল ক্যাম্পাসে এ্যম্বুলেন্স ব্যবসা। হাসপাতাল ক্যাম্পাসে সার্বক্ষনিক  এ্যম্বুলেন্সগুলি অবস্থান করে এবং সুযোগ বুঝে দরিদ্র রোগীদের নিয়ে এরা ব্যবসা করেন।



এ সকল সমস্যা সমাধানের জন্য সনাকের পক্ষ থেকে হাসপাতাল পরিচালনা কমিটি এবং জেলা উন্নয়ন ও সমন্বয় সভায় আলোচনা করে ব্যবস্থা নেয়ার প্রস্তাব করা হয়। সেই সাথে হাসপাতাল কর্তৃপক্ষ ও সনাকের পক্ষ থেকে হাসপাতালের শৃংঙ্খলা ও নিরাপত্তা রক্ষার লক্ষ্যে সার্বক্ষনিক টহল পুলিশ ও আনসারের ব্যবস্থা করার প্রস্তাব রাখেন প্রশাসনের নিকট।  সনাকের পক্ষ থেকে হাসপাতালের বিভিন্ন সমস্যা দুরীকরণে সর্বদা সহযোগিতা করার আসাবাদ ব্যক্ত করা হয়।

তত্ত্বাবধায়ক ডাঃ আকবর হোসেন চৌধুরী সনাকের এ ধরনের কার্যক্রমের জন্য ধন্যবাদ জানান এবং বলেন সকলের সম্মিলিত প্রচেষ্টায় স্বাস্থ্য সেবার মান উন্নয়ন করতে হবে। আমাদের ইতিবাচক বিষয়কে সামনে রেখে নেতিবাচন বিষয়গুলো নিয়ে কাজ করেতে হবে।

মতবিনিময় সভায় বক্তব্য রাখেন সনাক সহ-সভাপতি প্রকৌ. মোঃ রফিকুল ইসলাম সনাক সদস্য মোহাম্মদ আরজু ও আবদুন নূর, ডা. ফরহাদ হোসেন সাহেদ কনসালটেন্ট  (মেডিসিন), ডা. মো. শফিকুল ইসলাম সিনিয়র কনসালটেন্ট (সার্জারী), আরএমও ডা. কে এম, হুমায়ুন কবির, প্রশাসনিক কর্মকর্তা মোঃ সোহরাব মিয়া, ইয়েস সদস্য শিপার আহমেদ ও মো. সাইফুর রহমান। অনুষ্ঠিত সভায় উপস্থিত ছিলেন হাসপাতালের নাসিং সুপারভাইজার, সেবা তত্ত্বাবধায়ক, ষ্টুর্য়াড, ফার্মাসিষ্ট, ওয়ার্ড মাস্টার ও প্রশাসনিক কর্মকর্তাবৃন্দ। সার্বিক সহযোগিতায় ছিলেন ইয়েস সদস্যবৃন্দ।