বুধবার, ২১শে ফেব্রুয়ারি, ২০২৪ খ্রিস্টাব্দ ৮ই ফাল্গুন, ১৪৩০ বঙ্গাব্দ

কসবা মহিলা ডিগ্রী কলেজের প্রভাষক জানে আলমের বিরুদ্ধে ভূয়া সনদে ১৪ বছর যাবত চাকুরী করার অভিযোগ

kasba=2ব্রাহ্মণবাড়িয়ার কসবা মহিলা ডিগ্রী কলেজে সাচিবিক বিদ্যা ও অফিস ব্যবস্থাপনা (শর্ট হ্যান্ড ও টাইপ) বিষয়ে মো: জানে আলম নামের এক প্রভাষক ভূয়া সনদে ১৪ বছর ধরে শিক্ষকতা করছেন বলে অভিযোগ পাওয়া গেছে। স¤প্রতি ওই প্রভাষক উচ্চতর স্কেলের জন্য মাধ্যমিক ও উচ্চ শিক্ষা অধিদপ্তরে আবেদন করলে ভূয়া সনদপত্রটি ধরা পরে। এ নিয়ে পুরো এলাকায় চাঞ্চল্য সৃষ্টি হয়েছে।

শিক্ষা অধিদপ্তর, নট্রামস ও কলেজে খোজঁ নিয়ে জানা গেছে; কসবা পৌর শহরের মৃত মনির আহাম্মদের পুত্র  মো: জানে আলম ২০০০ সালের ২০ ফেব্রæয়ারি কসবা মহিলা কলেজে সাচিবিক বিদ্যা ও অফিস ব্যবস্থাপনা (শর্ট হ্যান্ড ও টাইপ) বিষয়ে প্রভাষক পদে যোগদান করেন। আবেদনের সাথে তিনি শিক্ষা মন্ত্রণালয় জাতীয় বহুভাষী সাঁটলিপি প্রশিক্ষণ ও গবেষনা একাডেমী (নট্রামস) বগুড়া  থেকে একটি ডিপ্লোমা সনদপত্র দাখিল করেন।

কসবা মহিলা কলেজটি ২০০৪ সালে এম.পিও ভূক্ত হয়। ওই সনদে  মো: জানে আলম সাচিবিক বিদ্যা ও অফিস ব্যবস্থাপনা (শর্ট হ্যান্ড ও টাইপ) বিষয়ে প্রভাষক হিসাবে এম.পিও ভূক্ত হয়।

তিনি ২০১২ সালের নভেম্বর মাসে প্রভাষক পদ হইতে সহকারী অধ্যাপক পদে পদোন্নতি ও উচ্চতর স্কেল পাওয়ার জন্য কলেজ পরিচালনা পরিষদের নিকট আবেদন করেন। পরিচালনা পরিষদ ২০১৩ সালের ২৪ মে ৭ নং সিদ্ধান্ত মোতাবেক প্রভাষক মো: জানে আলমকে প্রভাষক পদ হইতে পদোন্নতি ও উচ্চতর স্কেল পাওয়ার সুপারিশসহ মাধ্যমিক ও উচ্চ শিক্ষা অধিদপ্তরে প্রেরণ করেন।

মাধ্যমিক ও উচ্চ শিক্ষা অধিদপ্তরে দাখিলকৃত নট্রামস বগুড়া  থেকে ইস্যু হওয়া  ডিপ্লোমা সনদপত্রটি শিক্ষা অধিদপ্তরের সন্দেহ হয়। ওই সনদপত্রটি যাচাই করে প্রতিবেদন দাখিলের জন্য শিক্ষা অধিদপ্তরের সহকারী পরিচালক (কলেজ-৩) মো: হেলাল উদ্দিন স্বাক্ষরিত গত বছরের ১৯ সেপ্টম্বর ৭৬৬১ নং স্বারকে জাতীয় বহুভাষী সাঁটলিপি প্রশিক্ষণ ও গবেষনা একাডেমী (নট্রামস) বগুড়াকে নির্দেশক্রমে অনুরোধ করেন।

জাতীয় বহুভাষী সাঁটলিপি প্রশিক্ষণ ও গবেষনা একাডেমী (নট্রামস) বগুড়া, বর্তমান জাতীয় কমপিউটার প্রশিক্ষন ও গবেষনা একাডেমীর ভারপ্রাপ্ত পরিচালক কে.বি.এম মাহবুবুর রহমান গত বছরের ৬ অক্টোবর ৮৬২ নং স্বারকে  সনদপত্র যাচাইয়ের প্রতিবেদন  শিক্ষা অধিদপ্তরে দাখিল করেন। তিনি প্রতিবেদনে উল্লেখ করেছেন; প্রতিষ্ঠানের রেজিষ্টার যাচাইয়ে দেখা যায় যে, সনদপত্রটি  সাবেক নট্রামস কর্তৃক ইস্যুকৃত নয়। সনদপত্রটি জাল/ভূয়া।

অভিযুক্ত প্রভাষক মো: জানে আলম বলেন; আমি সঠিক প্রতিষ্ঠান থেকেই ডিপ্লোমা করেছি। আমার সনদপত্রও সঠিক আছে। কসবা মহিলা ডিগ্রী কলেজের অধ্যক্ষ মো: তসলিম মিয়া বলেন; সাচিবিক বিদ্যা ও অফিস ব্যবস্থাপনা বিষয়ের প্রভাষক জানে আলমের পদোন্নতি ও উচ্চতর স্কেলের জন্য শিক্ষা অধিদপ্তরে আবেদন পাঠানো হয়েছে।  তিনি বলেন, ভূয়া সনদে চাকুরী নিলে শিক্ষা অধিদপ্তরই তাঁর বিরুদ্ধে প্রয়োজনীয় ব্যবস্থা গ্রহণ করবে।

কলেজ পরিচালনা পর্ষদের সভাপতি এ.কে.এম. বদিউল আলম বলেন; প্রভাষক জানে আলমের সনদপত্রটি যাচাইয়ের জন্য ৩ সদস্যের একটি তদন্ত কমিটি গঠন করা হয়েছে। তদন্ত কমিটির প্রতিবেদন পেলে প্রয়োজনীয় ব্যবস্থা গ্রহণ করা হবে। 

কসবা উপজেলা নির্বাহী অফিসার জালাল সাইফুর রহমানর বলেন; মহিলা কলেজের একটি সমস্যার কথা শুনেছি। কোন দপ্তর থেকেই আমাকে লিখিত ভাবে জানানো হয়নি।

sorejominbarta

এ জাতীয় আরও খবর

টাকা ফেরত দেওয়ার কারণ জানালেন জয়া

ঘরের বাইরে মাস্ক পরার পরামর্শ দিয়ে বিজ্ঞপ্তি

বাণিজ্য মেলায় বিক্রি ৪০০ কোটি, রপ্তানি আদেশ ৩৯২ কোটি টাকার

শাহজালালের থার্ড টার্মিনাল চালুর সময় জানাল বিমানমন্ত্রী

মানি লন্ডারিংয়ের ৮০ শতাংশ হ‌য় ব্যাংকের মাধ্যমে

গণতন্ত্র ও ভোটাধিকার পুনরুদ্ধারের আন্দোলন চলবে : বিএনপি

প্রধানমন্ত্রীর সংবাদ সম্মেলন শুক্রবার

খুলনাকে হারিয়ে প্লে অফে চট্টগ্রাম

আগের যে কোনো সরকারের চেয়ে বর্তমান সরকার শক্তিশালী : পররাষ্ট্রমন্ত্রী

বাংলাদেশের সাফল্যের ভূয়সী প্রশংসা ডব্লিউএফপির

সন্ধ্যা থেকে ঢাকার যেসব সড়ক বন্ধ থাকবে

তিউনিসিয়া উপকূলে নৌ-দুর্ঘটনায় নিহতদের ৮ জন বাংলাদেশি