বৃহস্পতিবার, ৩০শে জুন, ২০২২ খ্রিস্টাব্দ ১৬ই আষাঢ়, ১৪২৯ বঙ্গাব্দ

কসবা মহিলা ডিগ্রী কলেজের প্রভাষক জানে আলমের বিরুদ্ধে ভূয়া সনদে ১৪ বছর যাবত চাকুরী করার অভিযোগ

kasba=2ব্রাহ্মণবাড়িয়ার কসবা মহিলা ডিগ্রী কলেজে সাচিবিক বিদ্যা ও অফিস ব্যবস্থাপনা (শর্ট হ্যান্ড ও টাইপ) বিষয়ে মো: জানে আলম নামের এক প্রভাষক ভূয়া সনদে ১৪ বছর ধরে শিক্ষকতা করছেন বলে অভিযোগ পাওয়া গেছে। স¤প্রতি ওই প্রভাষক উচ্চতর স্কেলের জন্য মাধ্যমিক ও উচ্চ শিক্ষা অধিদপ্তরে আবেদন করলে ভূয়া সনদপত্রটি ধরা পরে। এ নিয়ে পুরো এলাকায় চাঞ্চল্য সৃষ্টি হয়েছে।

শিক্ষা অধিদপ্তর, নট্রামস ও কলেজে খোজঁ নিয়ে জানা গেছে; কসবা পৌর শহরের মৃত মনির আহাম্মদের পুত্র  মো: জানে আলম ২০০০ সালের ২০ ফেব্রæয়ারি কসবা মহিলা কলেজে সাচিবিক বিদ্যা ও অফিস ব্যবস্থাপনা (শর্ট হ্যান্ড ও টাইপ) বিষয়ে প্রভাষক পদে যোগদান করেন। আবেদনের সাথে তিনি শিক্ষা মন্ত্রণালয় জাতীয় বহুভাষী সাঁটলিপি প্রশিক্ষণ ও গবেষনা একাডেমী (নট্রামস) বগুড়া  থেকে একটি ডিপ্লোমা সনদপত্র দাখিল করেন।

কসবা মহিলা কলেজটি ২০০৪ সালে এম.পিও ভূক্ত হয়। ওই সনদে  মো: জানে আলম সাচিবিক বিদ্যা ও অফিস ব্যবস্থাপনা (শর্ট হ্যান্ড ও টাইপ) বিষয়ে প্রভাষক হিসাবে এম.পিও ভূক্ত হয়।

তিনি ২০১২ সালের নভেম্বর মাসে প্রভাষক পদ হইতে সহকারী অধ্যাপক পদে পদোন্নতি ও উচ্চতর স্কেল পাওয়ার জন্য কলেজ পরিচালনা পরিষদের নিকট আবেদন করেন। পরিচালনা পরিষদ ২০১৩ সালের ২৪ মে ৭ নং সিদ্ধান্ত মোতাবেক প্রভাষক মো: জানে আলমকে প্রভাষক পদ হইতে পদোন্নতি ও উচ্চতর স্কেল পাওয়ার সুপারিশসহ মাধ্যমিক ও উচ্চ শিক্ষা অধিদপ্তরে প্রেরণ করেন।

মাধ্যমিক ও উচ্চ শিক্ষা অধিদপ্তরে দাখিলকৃত নট্রামস বগুড়া  থেকে ইস্যু হওয়া  ডিপ্লোমা সনদপত্রটি শিক্ষা অধিদপ্তরের সন্দেহ হয়। ওই সনদপত্রটি যাচাই করে প্রতিবেদন দাখিলের জন্য শিক্ষা অধিদপ্তরের সহকারী পরিচালক (কলেজ-৩) মো: হেলাল উদ্দিন স্বাক্ষরিত গত বছরের ১৯ সেপ্টম্বর ৭৬৬১ নং স্বারকে জাতীয় বহুভাষী সাঁটলিপি প্রশিক্ষণ ও গবেষনা একাডেমী (নট্রামস) বগুড়াকে নির্দেশক্রমে অনুরোধ করেন।

জাতীয় বহুভাষী সাঁটলিপি প্রশিক্ষণ ও গবেষনা একাডেমী (নট্রামস) বগুড়া, বর্তমান জাতীয় কমপিউটার প্রশিক্ষন ও গবেষনা একাডেমীর ভারপ্রাপ্ত পরিচালক কে.বি.এম মাহবুবুর রহমান গত বছরের ৬ অক্টোবর ৮৬২ নং স্বারকে  সনদপত্র যাচাইয়ের প্রতিবেদন  শিক্ষা অধিদপ্তরে দাখিল করেন। তিনি প্রতিবেদনে উল্লেখ করেছেন; প্রতিষ্ঠানের রেজিষ্টার যাচাইয়ে দেখা যায় যে, সনদপত্রটি  সাবেক নট্রামস কর্তৃক ইস্যুকৃত নয়। সনদপত্রটি জাল/ভূয়া।

অভিযুক্ত প্রভাষক মো: জানে আলম বলেন; আমি সঠিক প্রতিষ্ঠান থেকেই ডিপ্লোমা করেছি। আমার সনদপত্রও সঠিক আছে। কসবা মহিলা ডিগ্রী কলেজের অধ্যক্ষ মো: তসলিম মিয়া বলেন; সাচিবিক বিদ্যা ও অফিস ব্যবস্থাপনা বিষয়ের প্রভাষক জানে আলমের পদোন্নতি ও উচ্চতর স্কেলের জন্য শিক্ষা অধিদপ্তরে আবেদন পাঠানো হয়েছে।  তিনি বলেন, ভূয়া সনদে চাকুরী নিলে শিক্ষা অধিদপ্তরই তাঁর বিরুদ্ধে প্রয়োজনীয় ব্যবস্থা গ্রহণ করবে।

কলেজ পরিচালনা পর্ষদের সভাপতি এ.কে.এম. বদিউল আলম বলেন; প্রভাষক জানে আলমের সনদপত্রটি যাচাইয়ের জন্য ৩ সদস্যের একটি তদন্ত কমিটি গঠন করা হয়েছে। তদন্ত কমিটির প্রতিবেদন পেলে প্রয়োজনীয় ব্যবস্থা গ্রহণ করা হবে। 

কসবা উপজেলা নির্বাহী অফিসার জালাল সাইফুর রহমানর বলেন; মহিলা কলেজের একটি সমস্যার কথা শুনেছি। কোন দপ্তর থেকেই আমাকে লিখিত ভাবে জানানো হয়নি।

sorejominbarta

এ জাতীয় আরও খবর