মঙ্গলবার, ৬ই ডিসেম্বর, ২০২২ খ্রিস্টাব্দ ২১শে অগ্রহায়ণ, ১৪২৯ বঙ্গাব্দ

‘বার্সেলোনা শেষ হয়ে যায়নি’

বিগত আট দিনে একটা ঝড়ই যেন বয়ে গেল কাতালান ফুটবল অঙ্গনে। যে ভয়াল ঝড়ে রীতিমতো বিধ্বস্ত হয়েছে ইউরোপের অন্যতম সেরা এই ক্লাবটি। তিনটি ভিন্ন প্রতিযোগিতায় টানা তিনটি হারের পর বার্সেলোনায় এখন চলছে শোকের মাতম। আর এই সময়ে জেরার্ডো মার্টিনোকে দেখা যাচ্ছে বিপর্যয়-পরবর্তী উদ্ধারকর্মীর ভূমিকায়। খেলোয়াড় ও সমর্থকদের মনোবল চাঙা করার সর্বোচ্চ চেষ্টাই করে যাচ্ছেন বার্সেলোনার এই আর্জেন্টাইন কোচ। বার্সা খুব দ্রুতই আবার নিজেদের পুরোনো গৌরব ফিরিয়ে আনতে পারবে বলে মন্তব্য করেছেন মার্টিনো।

বার্সা দুঃস্বপ্নের শুরুটা হয়েছিল অ্যাটলেটিকো মাদ্রিদের বিপক্ষে চ্যাম্পিয়নস লিগ কোয়ার্টার ফাইনালে হারের পর। ২০০৬-০৭ মৌসুমের পর এবারই প্রথমবারের মতো সেমিফাইনালে যেতে পারেনি বার্সা। সেই বেদনা ভুলতে না ভুলতেই এসেছে আরও বড় ধাক্কা। লা লিগার খেলায় এবার বার্সার হার নিচের সারির ক্লাব গ্রানাডার বিপক্ষে। এই হারের ফলে স্প্যানিশ লিগের শিরোপা জয়ের লড়াই থেকেও বেশ খানিকটা পিছিয়ে গেছে মেসি-নেইমাররা। চলে গেছে পয়েন্ট তালিকার তৃতীয় স্থানে। বার্সাকে সর্বশেষ আঘাতটি দিয়েছে চিরপ্রতিদ্বন্দ্বী রিয়াল মাদ্রিদ। গতকাল কোপা ডেল রের ফাইনালে বার্সা হেরেছে ২-১ গোলে।

প্রধান দুটি শিরোপা তো হাতছাড়া হয়েই গেছে। এখন লা লিগার শিরোপাটাও না জিততে পারলে পুরোপুরি খালি হাতেই মৌসুম শেষ করতে হবে বার্সেলোনাকে। এমন ঘটনা শেষ ঘটেছিল ছয় বছর আগে। সেবার চাকরি হারিয়েছিলেন ডাচ কোচ ফ্রাঙ্ক রাইকার্ড। এবার মার্টিনোর ভাগ্যেও তেমন কিছু ঘটতে যাচ্ছে কি না, এমন প্রশ্নও তুলেছেন অনেকে। তবে আর্জেন্টাইন এই কোচ এত সহজে হাল ছেড়ে দিচ্ছেন না। বার্সেলোনা যে আবার নিজেদের হারানো গৌরব ফিরে পাবে, সে ব্যাপারে আশাবাদই প্রকাশ করেছেন মার্টিনো, ‘বর্তমান খেলোয়াড়দের বয়স দেখলে বোঝা যায় যে বার্সেলোনা এখনো অনেক লম্বা পথ পাড়ি দেবে। এই বছরের চেয়ে অনেক ভালো ফলাফল ভবিষ্যতে আসবে। অবশ্যই এখন সময়টা ভালো যাচ্ছে না। এটা আমাদের জন্য খুবই কঠিন একটা সপ্তাহ ছিল। কিন্তু এখন আমাদের লিগের বাকি ম্যাচগুলোর কথা ভাবা ছাড়া আর কিছুই করার নেই।’