শনিবার, ২৫শে জুন, ২০২২ খ্রিস্টাব্দ ১১ই আষাঢ়, ১৪২৯ বঙ্গাব্দ

১২ ক্রিকেটারের সঙ্গে শ্রীনিও

একদিকে মরুশহরে রোশনাই ছড়িয়ে কাল পর্দা উঠল আইপিএলের সপ্তম আসরের। অন্যদিকে একই দিনে এই টুর্নামেন্টকে ঘিরে থাকা স্পট ফিক্সিং বিতর্ক নতুন মোড় নিল ভারতীয় সুপ্রিম কোর্টের সিদ্ধান্তে। ভারতীয় ক্রিকেট বোর্ডের (বিসিসিআই) সভাপতি পদে ফিরে আসতে দেশটির শীর্ষ আদালতে আপিল করেছিলেন পদচ্যুত সভাপতি এন শ্রীনিবাসন। লাভ তো হয়ইনি, উল্টো সরাসরিই কাঠগড়ায় দাঁড় করানো হয়েছে তাঁকে। সুপ্রিম কোর্ট জানিয়ে দিয়েছেন, শ্রীনিবাসন বিসিসিআইয়ে ফিরতে পারবেন না, কারণ আইপিএলের দুর্নীতি তদন্তে তাঁর নামও এসেছে। সঙ্গে আছে ভারতের প্রথম সারির আরও ১২ ক্রিকেটারের নাম। এঁদের সবার ব্যাপারেই সুষ্ঠু তদন্ত হওয়া দরকার বলে মনে করেন দেশটির সর্বোচ্চ আদালত।

স্পট ফিক্সিং বিতর্কে নাম জড়িয়ে পড়ায় ভারতের সুপ্রিম কোর্টের সাম্প্রতিক এক আদেশে বিসিসিআইয়ের সভাপতির পদ ছাড়তে হয় শ্রীনিবাসনকে। তাঁর জায়গায় আদালতের পরামর্শ অনুযায়ী বিসিসিআইতে অন্তর্বর্তীকালীন সভাপতি হিসেবে বসানো হয় দুজনকে—আইপিএলের বিষয় দেখভালের জন্য সুনীল গাভাস্কার ও অন্যান্য বিষয়ের জন্য শিবলাল যাদবকে। তবে বোর্ড থেকে সরে দাঁড়ালেও গত সপ্তাহে দুবাইয়ে আইসিসির সভায় বিসিসিআই প্রতিনিধি হিসেবে যোগ দেন শ্রীনিবাসন। এমনকি আগামী জুলাইয়ে ‘বিগ থ্রি’র প্রস্তাবিত আইসিসির কার্যনির্বাহী কমিটির চেয়ারম্যান পদে বসার কথা তাঁর। এর আগেই বোর্ডের সভাপতি পদে ফেরার জন্য সুপ্রিম কোর্টে আপিল করেন শ্রীনিবাসন। তবে কাল তাঁর সেই আবেদন প্রত্যাখ্যান করে আদালত বলেছেন, ‘মুডগাল কমিশনের প্রতিবেদনে ১৩ জনের নাম আছে, এর মধ্যে ১৩তম নামটি শ্রীনিবাসনের। তাঁর বিরুদ্ধে ১২টি অভিযোগ উঠেছে, প্রতিটি অভিযোগের সংযোজনীও রয়েছে।’ শ্রীনিবাসনের আবেদনের পরিপ্রেক্ষিতে হাইকোর্টের দুই বিচারপতির বেঞ্চ আরও বলেন, ‘মনে হচ্ছে শ্রীনিবাসন তাঁর বিরুদ্ধে ওঠা অভিযোগগুলো গুরুত্ব দিচ্ছেন না। কিন্তু যা ঘটেছে, তাতে আমরা চোখ বন্ধ করে থাকতে পারি না।’ শীর্ষ আদালতে মুডগাল কমিটি সিলগালা করা খামে যে প্রতিবেদন জমা দিয়েছে, তার পূর্ণাঙ্গ তদন্ত না হওয়া পর্যন্ত তাই শ্রীনিবাসন বিসিসিআইয়ে ফিরতে পারবেন না বলে স্পষ্ট জানিয়ে দিয়েছেন সুপ্রিম কোর্ট।

২২ এপ্রিল পরবর্তী শুনানির আগেই তাই এ ব্যাপারে একটি গঠনমূলক সংশোধনী পদক্ষেপ নিতে বিসিসিআইকে নির্দেশ দিয়েছেন আদালত। বিসিসিআইকেই এই দায়িত্ব দেওয়ার কারণটাও বলেছেন আদালত, ‘আমরা বিশেষ তদন্ত কমিটি গঠনের পক্ষে নই, কারণ আমরা চাই না ক্রিকেটারদের দিকে সিবিআই, পুলিশ কিংবা সংবাদমাধ্যম কাদা ছুড়ুক। যাঁরা দেশের হয়ে খেলেন কিংবা যাঁরা ভবিষ্যতে দেশের প্রতিনিধিত্ব করবেন, তাঁদের ভাবমূর্তির ব্যাপারটা মাথায় রাখতে হবে। ক্রিকেটকে যেমন স্বচ্ছ রাখতে হবে, একই সঙ্গে প্রাতিষ্ঠানিক স্বায়ত্তশাসনও নিশ্চিত করতে হবে।’ ওয়েবসাইট।

এ জাতীয় আরও খবর