বৃহস্পতিবার, ৩০শে জুন, ২০২২ খ্রিস্টাব্দ ১৬ই আষাঢ়, ১৪২৯ বঙ্গাব্দ

ওয়াকার আবার পাকিস্তানের কোচ?

news-image

ডেভ হোয়াটমোরের বিদায়ের পর থেকেই পাকিস্তানের কোচের পদটা ছিল এক অর্থে খালি। এশিয়া কাপ ও টি-টোয়েন্টি বিশ্বকাপের জন্য অন্তর্বর্তীকালীন কাজটা চালিয়েছিলেন সাবেক অধিনায়ক মঈন খান। তবে পাকিস্তান ক্রিকেট বোর্ড (পিসিবি) চায় ওয়াকার ইউনুসকে আবার কোচের পদে ফিরিয়ে আনতে।


মঈনকে অবশ্য আরও বড় দায়িত্বেই পেতে চায় পিসিবি। প্রধান নির্বাচকের পদে রশিদ লতিফ আসেননি। এখন এই পদে পিসিবির সবচেয়ে বড় পছন্দ ওই মঈনই।


পিসিবি প্রধান নজম শেঠি নাকি ইতিমধ্যেই ওয়াকারের সঙ্গে এ ব্যাপারে কথা বলেছেন। পাকিস্তানের কিংবদন্তি এই ফাস্ট বোলার অবশ্য আগে থেকেই পাকিস্তানের কোচের পদে আগ্রহী। কিছু দিন আগেই কোচ হওয়ার আগ্রহ প্রকাশ করে ওয়াকার পিসিবির কাছে একটি আবেদনপত্র পাঠিয়েছিলেন। কিন্তু কোচ নির্বাচনের দায়িত্বে থাকা পিসিবির বিশেষ প্যানেল মারফত প্রত্যাখ্যাত হয়েছিল সেই আবেদন। ওই ঘটনার খুব অল্প সময়ের মধ্যেই ওয়াকারকে কোচ হিসেবে নিয়োগ দেওয়ার ব্যাপারে আবারও আগ্রহ প্রকাশ করল পিসিবি।


এদিকে পাকিস্তানের বিখ্যাত ইংরেজি দৈনিক দ্য ডন  জানিয়েছে, ইন্তিখাব আলম, জাভেদ মিয়াঁদাদ ও ওয়াসিম আকরামের সমন্বয়ের গঠিত ওই প্যানেল সদস্যদের ব্যক্তিগত পছন্দ-অপছন্দের শিকার হয়েছিলেন ওয়াকার।

দ্য ডন আরও জানিয়েছে, ওই প্যানেলে থাকা ওয়াসিম আকরাম ওয়াকার যেন পাকিস্তানের কোচ হতে না পারেন, সে ব্যাপারে বড় ভূমিকাটা রেখেছিলেন। খেলোয়াড়ি জীবনে ওয়াকারের সঙ্গে ওয়াসিমের অম্ল-মধুর সম্পর্কটা খুব সম্ভবত এখানে প্রভাব বিস্তার করেছিল। আর মঈন খানের ব্যাপারে ওয়াসিম আকরামের দুর্বলতা তো সর্বজন বিদিত।

তবে পিসিবি প্রধান নজম শেঠি চান মঈন পাকিস্তান ক্রিকেট দলের প্রধান নির্বাচক হিসেবেই দায়িত্ব পালন করুন। খবরে প্রকাশ, মঈনও ব্যক্তিগতভাবে বড় দায়িত্ব হিসেবে প্রধান নির্বাচকই হতে চান।

ওয়াকার ২০১০ থেকে ২০১১ সাল পর্যন্ত পাকিস্তানের কোচ হিসেবে দায়িত্ব পালন করেছিলেন। সর্বশেষ ওয়ানডে বিশ্বকাপের পরপরই তিনি স্বাস্থ্যগত কারণে পদত্যাগ করেছিলেন।

এ জাতীয় আরও খবর