সোমবার, ২৭শে জুন, ২০২২ খ্রিস্টাব্দ ১৩ই আষাঢ়, ১৪২৯ বঙ্গাব্দ

বিএনপির স্বভাব বদল : ক্ষেপেছে আ.লীগ

AL-BNP-logo-999999996677777রাজনীতিতে নতুন নতুন ইস্যু তৈরি করে মাঠ গরম রাখাই রাজনীতিকদের কাজ। এক পক্ষ অন্য পক্ষকে বছরজুড়েই নানা ইস্যুতে ব্য¯ত্ম রাখার চেষ্টা করে। কার চুল কেমন, কে কত দামের শাড়ি পরেন। কার ব্লাউজে কোথায় তৈরি। কে কখন ঘুম থেকে উঠেন। কে পাঁচ ওয়াক্ত নামাজ পড়েন আর কে পড়েন না। কে সারারাত জেগে থেকে দিনভর ঘুমান। এসব বিভিন্ন ‘অনর্থক’ কথাবার্তা বলে বক্তব্য দেন রাজনীতিবিদরা। বাংলাদেশের রাজনীতিতে এই কাজটি বেশি করতে দেখা যেতো আওয়ামী লীগ নেতাকর্মীদের। তারা একেক সময় একেকটি ইস্যু নিয়ে বক্তব্য দিতেন। আর বিএনপি নেতাকর্মীরা পরবর্তীতে সেগুলোর জবাব দিতো।
 কিন্তু এখন ঘটছে তার উল্টো। রাজনীতিতে ইস্যু তৈরি হচ্ছে ঠিকই, কিন্তু আওয়ামী লীগের পরিবর্তে তা তৈরি করছে বিএনপি। আর বিএনপির সৃষ্টি করা এসব ইস্যুর জবাব দিতে হচ্ছে ক্ষমতাসীন দল আওয়ামী লীগকে। বলা যায়, বিএনপির স্বভাবগত পরিবর্তন ঘটেছে। যে কাজ সাধারণত আওয়ামী লীগ নেতাকর্মীরা করতো এখন তা করছে বিএনপি। মূলত ৫ জানুয়ারির নির্বাচন ঠেকাতে ব্যর্থ হয়ে বিএনপি এই পথ বেছে নিয়েছে বলে মনে করছেন অনেকে। যাতে করে ক্ষমতাসীনরা ক্ষিপ্ত হয়ে উঠে এবং তাদের বিরুদ্ধে কঠোর কোনো ব্যবস্থা নিতে উদ্যোগী হয়। আর তা করা হলে বিএনপি আবার ইস্যু পেয়ে যাবে। সক্রিয় হতে পারবে আন্দোলনে।
 ২০০৯ সাল থেকে ২০১৩ সাল পর্যন্ত দেশে নতুন নতুন রাজনৈতিক ইস্যু তৈরি করেছিল ক্ষমতাসীন দল আওয়ামী লীগ। আর বিএনপিকে আওয়ামী লীগের তৈরি করা ইস্যুর জবাব দেওয়া নিয়ে ব্যস্ত থাকতে হয়েছিল। কিন্তু এবার এ ধারাবাহিকতায় অনেকটা ভিন্নতা দেখা দিয়েছে।
 ২০০৮ সালের ২৯ ডিসেম্বর নবম জাতীয় সংসদ নির্বাচনের পর বিএনপিকে বিভিন্ন ইস্যুতে ব্যস্ত রেখেছে আওয়ামী লীগ। বিশেষ করে বিএনপি চেয়ারপারসন বেগম খালেদা জিয়াকে তার ৪০ বছরের স্মৃতি বিজড়িত বাড়ি থেকে উচ্ছেদ, মহাজোট সরকারের তৎকালীন রেলমন্ত্রী সুরঞ্জিত সেনগুপ্তের গাড়িতে ৭০ লাখ টাকা পাওয়ার কিছুদিন পরই বিএনপির সাংগঠনিক সম্পাদক এম ইলিয়াস আলী গুম হওয়া, মতিঝিল শাপলা চত্বরে হেফাজতে ইসলামের অবস্থান উৎখাতসহ বিভিন্ন ইস্যু তৈরি হয়েছে। বিশেষ করে সংবিধান থেকে তত্ত্বাধায়ক সরকার পদ্ধতি বাতিল করে বিএনপির জন্য একটি দীর্ঘস্থায়ী ইস্যু তৈরি করে সরকার। যে ইস্যুতে বিএনপি নেতৃত্বাধীন জোট এখনও আন্দোলন করছে।
 তাছাড়া ২০১০ সালে জামায়াতে ইসলামীর আমীর মাওলানা মতিউর রহমার নিজামী, নায়েবে আমীর আল্লামা দেলাওয়ার হোসাইন সাঈদী ও সেক্রেটারি জেনারেল আলী আহসান মোহাম্মদ মুজাহিদকে গ্রেফতার করে জামায়াতে ইসলামীর নেতাকর্মীদের ব্যস্ত রেখেছিল সরকার। এরপর জামায়াতে ইসলামীর বিভিন্ন পর্যায়ের নেতাকমীদের গ্রেফতার করে যুদ্ধাপরাধের মামলায় বিচারের আওতায় আনায় এ ইস্যুতেই বেশি ব্যস্ত ছিল জামায়াত। কিন্তু এবার পরিস্থিতি অনেকটা ভিন্ন। এবার ইস্যুর খপ্পরে পড়েছে আওয়ামী লীগ।
 সম্প্রতি বিএনপির সিনিয়র ভাইস-চেয়ারম্যার তারেক রহমান লন্ডনে বক্তব্য দিয়ে সমালোচনার ঝড় তুলেছেন। গণমাধ্যমসহ বিভিন্ন সামাজিক যোগাযোগের ওয়েবাসাইটে এ নিয়ে পক্ষে-বিপক্ষে সমালোচনার ঝড় বইছে। এভাবে আওয়ামী লীগকে ব্যস্ত রেখেছেন তারেক রহমান। শহিদ প্রেসিডেন্ট জিয়াউর রহমানই বাংলাদেশের প্রথম রাষ্ট্রপতি বলে বক্তব্য দিয়ে আওয়ামী শিবিরে তোলপাড় সৃষ্টি করেছেন তিনি। অবশ্য তিনি তার বক্তব্যের স্বপক্ষে যথেষ্ট প্রমাণপত্রও নাকি জোগাড় করেছেন। তার এ বক্তব্যে দেশজুড়ে নতুন করে তোলপাড় সৃষ্টি হয়েছে। গত কয়েকদিন আওয়ামী লীগের নেতারা বক্তব্য দিতে গিয়ে তারেক রহমানের এ বক্তব্য নিয়েই বেশি কথা বলেছেন।
 এর কিছু দিন পর গত মঙ্গলবার লন্ডনে এক সুধী সমাবেশের বক্তব্যে বিএনপির সিনিয়র ভাইস-চেয়ারম্যান তারেক রহমান ‘জিয়াউর রহমানই বাংলাদেশের প্রথম রাষ্ট্রপতি’ এ কথা আবারও উল্লেখ করেন। এর সঙ্গে এবার যুক্ত করেন, শেখ মুজিববুর রহমান বাংলাদেশের ‘প্রথম অবৈধ প্রধানমন্ত্রী’। তারেক রহমানের এ বক্তব্যে আওয়ামী শিবিরে আবারো তোলপাড়ের সৃষ্টি হয়।
 তারেক রহমানের এসব বক্তব্যের জবাব দিতে বৃহস্পতিবার আওয়ামী লীগের সভাপতি শেখ হাসিনার ধানমন্ডির রাজনৈতিক কার্যালয়ে একটি সংবাদ সম্মেলনের আয়োজন করা হয়। এতে বিএনপির সিনিয়র ভাইস-চেয়ারম্যান তারেক রহমানের বক্তব্যের তথ্যভিত্তিক জবাব দেওয়া হয়। এছাড়াও সরকারের কিছু মন্ত্রী ও আওয়ামী লীগের সিনিয়র নেতারা বিভিন্ন সভা-সেমিনারে তারেক রহমানের এ বক্তব্যের তীব্র নিন্দা ও প্রতিবাদ জানিয়ে বক্তব্য রাখেন।
 বৃহস্পতিবার দশম সংসদের প্রথম অধিবেশনের শেষ কার্যদিবসে আওয়ামী লীগের উপদেষ্টামন্ডলীর সদস্য বাণিজ্যমন্ত্রী তোফায়েল আহমেদ তারেক রহমানের বক্তব্যের নিন্দা জানান। তোফায়েল আহমেদ তারেককে ইঙ্গিত করে বলেন, ‘‘বাচ্চা ছেলে’, ‘আহাম্মক’ ও লেখাপড়া জানে না। যে ছিল (তারেক রহমান) ক্যান্টনমেন্টে। সে কি ইলেকশান দেখেছে?’
 এসময় তিনি রেগে গিয়ে তারেককে তুই বলে সম্বোধন করেন। বলেন, ‘আরে আহাম্মক, তোর বাপও আমাদেরকে স্যার বলতো। স্যার বলতে বলতে মুখ দিয়ে লালা পড়ে যেতো’।
 তোফায়েল আহমেদ বলেন, জিয়াউর রহমানই বলেছিলেন ৭ মার্চের ভাষণ ছিল আমাদের জন্য গ্রিন সিগন্যাল। বাংলাদেশের ইতিহাস বিকৃত করার জন্যই এসব বক্তব্য তুলে ধরা হচ্ছে বলেও মন্তব্য করেন তিনি।
 আওয়ামী লীগ নেতাদের এসব বক্তব্য থেকে বিশেষ করে তোফায়েল আহমেদের বক্তব্য থেকে সুস্পষ্টভাবে বোঝা যায়, তারেক আওয়ামী লীগকে ক্ষ্যাপাতে পেরেছেন। তার ইস্যু কাজে লেগেছে। এই ইস্যুতে এখন আওয়ামী লীগ নেতাদের গাত্রদাহ শুরু হয়েছে। হোক সত্য কিংবা মিথ্যা কিন্তু তারেকের এই টোপ আওয়ামী লীগ ঠিকই গিলেছে।
 কারণ, এই ইস্যুতে স্বয়ং প্রধানমন্ত্রী ও আওয়ামী লীগ সভানেত্রী শেখ হাসিনাও চুপ থাকতে পারেননি। তিনিও এ নিয়ে বক্তব্য দিতে বাধ্য হয়েছেন। তাও আবার জাতীয় সংসদে। তারেকের এই তত্ত্ব যে সঠিক নয় তা নিয়ে বৃহস্পতিবার সংসদ অধিবেশনে প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা দালিলিক প্রমাণ উপস্থাপন করেছেন।
 তবে বিএনপির সিনিয়র ভাইস-চেয়ারম্যান তারেক রহমানের এ বক্তব্যের বিরোধিতা করে আওয়ামী লীগের পক্ষ থেকে প্রতিবাদ করা হলেও বিএনপির স্থায়ী কমিটির সদস্য ও সিনিয়র নেতারা বিষয়টি নিয়ে কোনো মšত্মব্য করছেন না।