সোমবার, ২৭শে জুন, ২০২২ খ্রিস্টাব্দ ১৩ই আষাঢ়, ১৪২৯ বঙ্গাব্দ

চ্যাম্পিয়নস লিগ সেমিতেই দেখা হচ্ছে রিয়াল-বায়ার্নের

‘লা দেসিমা’ স্বপ্ন পূরণের পথে ফাইনালের আগেই আরেক ‘ফাইনালে’ই যেন নামতে হবে রিয়াল মাদ্রিদকে। চ্যাম্পিয়নস লিগের সবচেয়ে ফেবারিট, বর্তমান চ্যাম্পিয়ন বায়ার্ন মিউনিখের সঙ্গেই যে সেমিফাইনালে দেখা হয়ে যাচ্ছে তাদের। অন্য সেমিফাইনালে মুখোমুখি হবে মাদ্রিদের আরেক দল অ্যাটলেটিকো ও ইংলিশ ক্লাব চেলসি।

২২ এপ্রিল নিজেদের মাঠে রিয়াল আতিথ্য দেবে বায়ার্নকে। ২৯ এপ্রিল ফিরতি লেগ খেলতে মিউনিখে যাবে কার্লো আনচেলত্তির দল। ২৩ এপ্রিল অ্যাটলেটিকো নিজেদের মাঠে মুখোমুখি হবে চেলসির। ফিরতি লেগ ৩০ এপ্রিল।

২০১১-১২ মৌসুমেও সেমিফাইনালে মুখোমুখি হয়েছিল রিয়াল-বায়ার্ন। সেবার রিয়ালকে টাইব্রেকারে হারিয়ে ফাইনালে উঠেছিল জার্মান ক্লাবটি। ইউরোপ পর্যায়ে অ্যাটলেটিকোর সঙ্গে চেলসির সর্বশেষ দেখা হয়েছিল ২০১২ উয়েফা সুপার কাপে। সেবার রাদামেল ফ্যালকাওয়ের হ্যাটট্রিকে চেলসিকে ৪-১ গোলে উড়িয়ে দিয়েছিল অ্যাটলেটিকো।

২৪ মে পর্তুগালের লিসবনে অনুষ্ঠিত হবে এবারের ফাইনালটি। নয়বারের চ্যাম্পিয়ন রিয়াল ১২ বছর ধরে চ্যাম্পিয়নস লিগ শিরোপা জেতেনি। দশম শিরোপার এই স্বপ্নটি ‘লা দেসিমা’ নামে পরিচিত। দেখা যাক, বায়ার্ন-বাধা পেরিয়ে সেই স্বপ্নের পথে একধাপ তারা এগিয়ে যেতে পারে কি না।

বায়ার্নের মুখোমুখি হলেও রিয়ালকে মনে হচ্ছে আত্মবিশ্বাসী। ক্লাবটির পরিচালক এমিলিও বুত্রাগুয়েনো এক টিভি সাক্ষাত্কারে বলেছেন, ‘বায়ার্ন অসাধারণ একটি ক্লাব, বিশ্বের সবচেয়ে গৌরবান্বিত দলগুলোর একটি। বর্তমান চ্যাম্পিয়নও। দলগত ও ব্যক্তিগতভাবে ওদের খেলোয়াড়েরা অসাধারণ। আমাদের জন্য তারা যে কঠিন এক প্রতিপক্ষ হবে, এ নিয়ে সন্দেহ নেই। তবে এটা আমাদের টানা চতুর্থ সেমিফাইনাল। আমরা তাই আশাবাদী এবার ফাইনালে যাবই। জানি কাজটা কঠিন হবে। কিন্তু নিজেদের খেলোয়াড়ের ওপর আমাদের আস্থা আছে।’

শিরোপা জয় শুধু নয়, ২০০২ সালের পর ফাইনালেও উঠতে পারেনি রিয়াল। তবে রিয়ালের প্রধান অস্ত্র ক্রিস্টিয়ানো রোনালদো নিশ্চয়ই মরিয়া এবারের ফাইনালটি খেলতে। নিজের সেরা সময়ে আছেন বলেই নয়, ফাইনালটি যে হবে তাঁরই দেশ পর্তুগালে। পেপ গার্দিওলার বায়ার্নও ফাইনালে যেতে মরিয়া। ১৯৯০ সালের পর চ্যাম্পিয়নস লিগে কোনো দলই টানা দুবার শিরোপা জেতেনি। তারকায় ঠাসা দলটি এবার সেই কীর্তির পুনরাবৃত্তি করে দেখাতে চায়।

বায়ার্ন এবার শিরোপা জিতলে গার্দিওলাও ভিন্ন দুটো ক্লাবের হয়ে চ্যাম্পিয়নস লিগ জেতার বিরল কীর্তি গড়বেন। যে কীর্তি আছে মাত্র চারজনের। শুধু তা-ই নয়, কোচ হিসেবে তিনবার চ্যাম্পিয়নস লিগে জেতার কীর্তি হবে তাঁর। যে কীর্তি আছে মাত্র লিভারপুল-কিংবদন্তি বব পেইসলির।

কোচ হিসেবে দুবার এই ট্রফি জেতা আনচেলত্তি এবং হোসে মরিনহোর সামনেও আছে পেইসলিকে ছুঁয়ে ফেলার হাতছানি। আনচেলত্তি এর আগে এসি মিলানের হয়ে খেলোয়াড় ও কোচ দুই ভূমিকাতেই জিতেছিলেন এই ট্রফি। ফলে কোচ হিসেবে ভিন্ন দুটি দলের হয়ে এই ট্রফি জেতার বিরল কীর্তিটা হাতছানি দিচ্ছে তাঁকেও। আর মরিনহোর সামনে তো অপেক্ষা করছে তিনটি ভিন্ন ক্লাবের হয়ে এই ট্রফি জেতার অনন্য কীর্তি!