শুক্রবার, ৯ই ডিসেম্বর, ২০২২ খ্রিস্টাব্দ ২৪শে অগ্রহায়ণ, ১৪২৯ বঙ্গাব্দ

তারেক রহমান জবাব দেবেন কি??

Saju-2ডেস্ক রিপোর্ট : জাতীয় শিক্ষক নেতা ও শিক্ষক কর্মচারী কল্যাণ ট্রাস্টের সদস্য সচিব অধ্যক্ষ মো. শাহজাহান আলম সাজু বিএনপি’র সিনিয়র ভাইস চেয়ারম্যান তারেক রহমানের তীব্র সমালোচনা করেছেন।সামাজিক যোগাযোগ ফেসবুকে দেয়া এক স্ট্যাটাসে তারেক রহমানকে রাষ্ট্রীয় সম্পদ লুণ্ঠনকারী হিসাবে অভিহিত করে বলেছেন দেশের হাজার হাজার কোটি টাকা লুট করে বিদেশে স্বেচ্ছায় পালিয়ে থাকা তারেক জিয়া জাতির জনক বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের স্বাধীনতা ঘোষণা ও প্রথম প্রধানমন্ত্রীর নির্বাচন নিয়ে যে অত্যন্ত আপত্তিকর মন্তব্য করেছেন তাতে দেশবাসী চরমভাবে হতবাক ও বিস্মিত।
 শিক্ষা মন্ত্রণালয়ের শিক্ষক কর্মচারী কল্যাণ ট্রাস্টের সদস্য সচিব শাহজাহান আলম সাজু বলেন, শুধু তাই নয় বেগম খালেদা জিয়াও অর্বাচিন তারেকের সাথে সুর মিলিয়ে স্বাধীনতার ৪৩ বছর পর বঙ্গবন্ধু, স্বাধীনতা ও আওমামী লীগ সম্পর্কে খুবই আপত্তিজনক মন্তব্য করেছেন। হঠাৎ করে মা ছেলের এসব অনভিপ্রেত ও অনাকাক্সিখত বক্তব্যে জাতি আজ স্তম্ভিত।
 প্রখ্যাত সাংবাদিক আবেদ খানের বক্তব্যের বরাত দিয়ে অধ্যক্ষ সাজু বলেন, রাষ্ট্রধারণা, রাষ্ট্রবিজ্ঞানের ধারণা কিংবা রাষ্ট্রপতি বিষয়ক ধারণা খালেদা জিয়ার নেই পুথিগত জ্ঞানের কারণেই । আবেদ খানের মতে- মুক্তিযুদ্ধের সূচনা, আনুপার্বিক ইতিহাস, বঙ্গবন্ধুর ৭ মার্চের ভাষণ, উত্তাল মার্চ সম্পর্কে কোনো কিছুই খালেদা জিয়ার জানা সম্ভব নয়। কারণ পাকিস্তানী সেনাবাহিনীতে কর্মরত সেনা অফিসারের স্ত্রীদের রাজনৈতিক ঘটনাবলী সম্পর্কে চিন্তাভাবনা, এমনকি কথাবার্তা বলা পর্যন্ত নিয়মবদ্ধভাবে নিষিদ্ধ ছিল। নিছক রং করা পুতুলের মতো সেনা অফিসারের পতœীদের মুখস্ত পরিবেশ, মুখস্ত কথাবার্তা, মুখস্ত জীবনযাত্রায় অভ্যস্ত হতে হতো। তিনি বলেন, তারেক জিয়া আপনার মার বিদ্যার জোর অষ্টম শ্রেণী। আপনার বিদ্যার জোর কি তা নিয়েও অনেক প্রশ্ন। আপনি বিদ্যা অর্জন করতে যেয়ে দেশে বিদেশে অনেক প্রতিষ্ঠান পরিবর্তন করেছেন। কিন্তু কি ডিগ্রি অর্জন করেছেন তা আমাদের জানা নেই।
 
শিক্ষক নেতা তার ফেসবুকে আরো বলেন, কিন্তু আপনি আজ হঠাৎ করে বুদ্ধিজীবি সেজে যে তথ্য জাতিকে সরবরাহ করছেন তা যে বাঙালি জাতিকে বিভক্ত করে আপনাদের পেয়ারে পাকিস্তানকে খুশি করার জন্য করছেন তা বুঝতে কারো বাকি নেই।
 তিনি বলেন, তারেক জিয়া আপনার মা নিজেই স্বীকার করেছেন তিনি মুক্তিযুদ্ধ চলাকালে দেশ ত্যাগ করেননি, ক্যান্টনমেন্টে ছিলেন, তার উপর নির্যাতন করা হয়েছে। তারেক জিয়া আপনার মাকে কি কখনো প্রশ্ন করেছেন আপনার বাবা একাত্তরে আপনার মাকে ভারতে নিয়ে যাবার জন্য বার বার লোক পাঠানোর পরও তিনি তখন যাননি কেন?
 তিনি প্রশ্ন করেন,আপনার মা ক্যান্টনমেন্টে বন্দি অবস্থায় নির্যাতিত হয়েছেন বলে আজ ৪৩ বছর পর স্বীকার করলেন। তাহলে কি তিনি বীরঙ্গনা? একাত্তরে পাকিস্তানী হানাদারদের অন্যতম প্রধান জেনারেল জানজোয়ারের সাথে আপনার মায়ের কি এমন সম্পর্ক ছিল যে তার মৃত্যুর পর আপনার মা সরকারের সমস্ত প্রটোকল উপেক্ষা করে সেই লাশ দেখার জন্য পাকিস্তানে ছুটে গিয়েছিলেন? তারেক জিয়া বঙ্গবন্ধুকে নিয়ে কটুক্তি করার আগে একবার চিন্তা করা উচিত ছিল আপনি কাকে ছোট করতে চাচ্ছেন। নিশ্চিই আপনার জানা থাকার কথা। একাত্তরে মুক্তিযুদ্ধের পর স্বাধীন দেশে আপনার বাবা ফিরে এসে আপনার মাকে স্ত্রী হিসেবে গ্রহণ করতে চাননি। আপনার মা খালেদা জিয়া সেদিন বঙ্গবন্ধুকে পিতা বলে সম্বোধন করে তার পা জড়িয়ে ধরেছিলেন আপনার বাবাকে বুঝিয়ে তার সংসার জোড়া লাগানোর জন্য।
 তিনি বলেন, বঙ্গবন্ধু আপনার বাবাকে বুঝিয়ে, ধমক দিয়ে, অবশেষে চাকুরির ভয় দেখিয়ে আপনার মাকে গ্রহণ করতে বাধ্য করেছিলেন। যদি সেদিন বঙ্গবন্ধ আপনার মায়ের প্রতি মহানুভবতা না দেখাতেন তাহলে তাঁর বা আপনার ঠিকানা আজ কোথায় হতো? যদি সেদিন দেশ স্বাধীন না হতো তাহলে আপনার মাকে পাকি জেনারেল জানজোয়ার উপ-পতœী কিংবা রক্ষিতা হিসেবেই বাকি জীবন কাটাতে হতো। সবশেষে বলতে চাই তারেক জিয়া অবিলম্বে আপনি আপনার বক্তব্য প্রত্যাহার করুন। জাতির কাছে ক্ষমা চান। ইতিহাস কাউকে ক্ষমা করে না।

ঢাকাটাইমস

এ জাতীয় আরও খবর

ডাচদের ‘প্রতিশোধের’ হুমকি, আর্জেন্টিনার ভাবনায় ইনজুরি

ক্রোয়েশিয়া বাধা টপকে সেমিতে যেতে পারবে ব্রাজিল?

হাজারীবাগে দুই শিশুসন্তানকে হত্যার পর মায়ের আত্মহত্যা

জিজ্ঞাসাবাদের জন্য ডিবিতে আনা হয়েছে ফখরুল-আব্বাসকে : হারুন

৫ নারীর হাতে বেগম রোকেয়া পদক তুলে দিলেন প্রধানমন্ত্রী

সবজির দাম কমেছে, এখনো অস্বস্তি চাল-চিনি-তেলে

সতর্ক অবস্থানে পুলিশ : নয়াপল্টনে বিএনপি কার্যালয়ে তালা, যান চলাচল বন্ধ

বিএনপিকে মোকাবিলা করবে ১৪ দল: আমু

এপিডিইউর ভাইস চেয়ারম্যান হলেন মির্জা ফখরুল

সাগরে ঘূর্ণিঝড় ‘মানদৌস’

শান্তিপূর্ণ সমাবেশের অধিকারের নিশ্চয়তা চায় জাতিসংঘ

বিএনপির গণসমাবেশ: বাঙলা কলেজ মাঠ পরিদর্শনে ডিএমপি