শনিবার, ৮ই অক্টোবর, ২০২২ খ্রিস্টাব্দ ২৩শে আশ্বিন, ১৪২৯ বঙ্গাব্দ

রুয়ান্ডার নারকীয় গণহত্যার ২০ বছর

Enough_Genocide এ সপ্তাহে রুয়ান্ডার গণহত্যার ২০ বছর পার হল। রুয়ান্ডার  নাগরিকরা সপ্তাহব্যাপী শোক পালন করছেন। ১৯৯৪ সালের এপ্রিল থেকে শুরু এই হত্যাযজ্ঞে তিন মাসে প্রায় আট লাখ ‘তুচ্ছি’ সম্প্রদায়ের মানুষকে হত্যা করে ‘পুতো’ জনগোষ্ঠীর চরমপন্থীরা। রুয়ান্ডার গণহত্যাকে বিশ্বের সাম্প্রতিক ইতিহাসর সবচেয়ে ভয়াবহ গণহত্যা হিসেবে বিবেচনা করা হয়।গণহত্যায় নিহতদের স্মরণে শোক পালন করতে আশা রুয়ান্ডার নাগরিকদের একটাই চাওয়া এই দিন যেন কখনো ফিরে না আসে। গণহত্যার ২০ বছরের শোক পালনে নিহতদের স্মরণ অনুষ্ঠানে আšত্মর্জাতিক কূটনিতিক, আফ্রিকান নেতা ও জাতিসংঘের মহাসচিবসহ রুয়ান্ডার নাগরিকরা অংশ নেয়। গণহত্যা চলাকালে হাজারো মানুষকে রক্ষা করতে পারলেও জাতিসংঘ গণহত্যা বন্ধ করতে ব্যর্থ হয়েছিল। ঐ ব্যর্থতায় জাতিসংঘ লজ্জিত বলেন জাতিসংঘের মহাসচিব। 

 রুয়ান্ডার দক্ষিণে মুরাম্বিয়া অঞ্চলে সবচেয়ে ভয়াভয় হত্যাযজ্ঞের ঘটনা ঘটে ঐ সময়। মুরাম্বিয়ার অর্ধনির্মিত স্কুলে প্রায় ৫০ হাজারের মত মানুষকে হত্যা করা হয়। বর্তমানে ঐ স্কুলটি মেমোরিয়াল সেন্টার হিসেবেই পরিচিত। গণহত্যা শুরুর আগে চরমপন্থিরা প্রথমে গাছ কেটে সব রা¯ত্মা বন্ধ করে দেয় এবং পানি, বিদ্যুৎসহ প্রয়োজনীয় সব ধরনের সরবরাহ বন্ধ করে দেয়। তারপর তারা মানুষ হত্যা শুরু করে। ক্ষতিগ্র¯ত্ম ব্যক্তিদের স্মৃতিচারণ থেকে বোঝা যায়, কোন বয়সের নারী ও শিশুকেও তারা ছেড়ে দেয়নি। হত্যাযজ্ঞের সাথে জড়িত ঘটনার শিকার ব্যক্তিরা কিভাবে তাদের অতীতকে মনে করবে, এই বিষয়টি নিয়ে তাদের আচরণ কেমন হবে রুয়ান্ডার প্রত্যেকটি গ্রাম ও শহরের নাগরিকদের জন্য এটি একটি বড় চ্যালেঞ্জ। 
 দু’দশক আগে মুরাম্বিতে যে হত্যাযজ্ঞের ঘটনা ঘটেছিল সে হত্যাকারীদের একজন হচ্ছে ইমানুয়েল নিরেম্বুবা। তার কর্মকা-ের জন্য কারাভোগের পর তাকে জুলিয়েট মুকা কামান্ডার সাথে জীবনযাপনের জন্য বিশেষ অনুমতি দেয়া হয়। জুলিয়েট মুকা কামান্ডা ক্ষতিগ্র¯ত্ম নারীদের একজন। ১৯৯৪ সালের ২০ এপ্রিল তিনি তার স্বামী ও দুই সšত্মানকে হারান। 
 জুলিয়েট বলেন, আমরা ক্ষমা চাইছিলাম। বাঁচার জন্যে আকুতি করছিলাম কিন্তু তারপরও তারা আমাদেরকে হত্যা করে। কিছু শিশু বলছিল আমরা ‘তুচ্ছি’ তাই আমরা অপরাধী? আমাদের ক্ষমা করে দাও। আমরা আর ‘তুচ্ছি’ হয়ে থাকতে চাইনা। কিন্তু তারপরও ওরা আমাদের হত্যা করে।
 হত্যাকারী ইমানুয়েল নিরেম্বুবা বলেন, আমরা যখন আক্রমণ করলাম আমাদের মধ্যে কোন মায়া দয়া ছিল না। আমরা ছিলাম বর্বর পশুর মতন। আপনি যদি কোন পাগল কুকুর দেখে থাকেন তাহলে বুঝবেন আমাদের আচরণটা তখন কেমন ছিল। আমাদের লক্ষ্য ছিল তখন একটাই কোন একজন ‘তুচ্ছি’ যেন বেঁচে না থাকে। গণহত্যার পর ইমানুয়েল নয়জন ব্যক্তিকে হত্যা করে এবং সাত বছর কারাগারে জীবনযাপন করে। 
 বিবিসি’র সাংবাদিক মিস জুলিয়েটকে বলছিলেন যে আমি অবাক হচ্ছি যে আপনি কিভাবে এই হত্যাকারীর পাশে বসে আছেন।
 ইমানুয়েল তো জুলিয়েটের স্বামী ও সšত্মানের হত্যাকারীও হতে পারে।
 জুলিয়েট বলেন, আমি কখনো চিšত্মাও করিনি যে আমার এমন একজন মানুষের সাথে ঘনিষ্ঠতা হবে যে কিনা অন্য একজন মানুষকে হত্যা করেছে। কিন্তু আমাদের কাউন্সেলিংয়ের পর আমি ক্ষমা করতে শিখেছি। ইমানুয়েলকে ক্ষমা করতে পারার আর একটি কারণ হল সে সত্য বলেছে ও ক্ষমা চেয়েছে।
 রুয়ান্ডার বর্তমান মোট জনসংখ্যার প্রায় অর্ধেকেরও বেশি মানুষের জন্ম গণহত্যার পর। ২০ হাজারের মত শিশুর জন্ম এমন মহিলাদের গর্ভে যারা ঐ সময় ধর্ষণের শিকার হয়ছিল। বেট্রান্ড তাদেরই একজন। কিন্তু বর্তমান প্রজন্মের অংশ হিসেবে সে সামনের দিকে এগিয়ে যেতে চায়। 
 তিনি বলেন, বেশিরভাগ রুয়ান্ডান অতীত ফেলে সামনের দিকে এগিয়ে গেছে। রুয়ান্ডার গণহত্যা নিয়ে আমরা যে স্মৃতিচারণ করি বা শোক পালন করি তার একমাত্র কারণ হল এমন ঘটনা যেন আর কখনো না ঘটে। রুয়ান্ডাকে শুধুমাত্র গণহত্যার সাথে সম্পৃক্ত করা ঠিক নয়।
 রুয়া-ার নাগরিকরা স্মৃতিচারণ করে ঠিকই কিন্তু গত দুই দশকে দেশটি যে অসামান্য কৃতিত্ব অর্জন করেছে তাই তারা তুলে ধরার চেষ্টা করে। দেশটির গণহত্যার সাথে জড়িতরা এবং নির্যাতিত ব্যক্তিরা এখন দু’ভাগে বিভক্ত নয়। তারা তাদের ভবিষ্যত গড়ার আশায় একত্রিত হয়েই কাজ করছে।