শনিবার, ৩রা ডিসেম্বর, ২০২২ খ্রিস্টাব্দ ১৮ই অগ্রহায়ণ, ১৪২৯ বঙ্গাব্দ

নিশাতের চমক

nisat‘কলস’-এর রব উঠেছিল মুখে মুখে। এডভোকেট তাসলিমা সুলতানা খানম নিশাতের জয়ের কথা নিশ্চিত করেই বলছিলেন সবাই। হয়েছেও তাই। সর্বোচ্চ ভোট পেয়ে মহিলা ভাইস চেয়ারম্যান পদে নির্বাচিত হয়েছেন তিনি। ভোট পেয়েছেন ৭৫ হাজার ৫৫২টি। নিকটতম প্রতিদ্বন্দ্বীর চেয়ে প্রায় ১৬ হাজার ভোট বেশি পেয়েছেন। আর বিজয়ী চেয়ারম্যান এবং সাধারণ আসনের ভাইস চেয়ারম্যানের চেয়ে তার ভোট ১৭ হাজারেরও বেশি। সর্বোচ্চ ভোটে তার বিজয় আবারো আলোচনায় এনেছে তাকে। এর আগে তৃণমূলের সর্বোচ্চ সংখ্যক ভোট পেয়ে তিনি আওয়ামী লীগের প্রার্থী মনোনীত হন। যোগ্যতার বিচারে দলমত নির্বিশেষে সব শ্রেণীর ভোটারদের পছন্দের তালিকায় স্থান করে নিয়েছিলেন মহিলা আসনের এই প্রার্থী। তার জন্য ভোট চাইতে মাঠে নামেন আইনজীবী, সাংবাদিক সহ সমাজের নানা শ্রেণী-পেশার মানুষ। এডভোকেট নিশাত বলেন, জয়ের ব্যাপারে আমি আশাবাদী ছিলাম প্রথম থেকেই। ভোটারদের দুয়ারে গিয়ে ব্যাপক সাড়া পেয়েছি। এরই প্রতিফলন ঘটেছে ৩১শে মার্চের ভোটে। আমি কৃতজ্ঞ সদর উপজেলার সকল ভোটারের কাছে। একই সঙ্গে কৃতজ্ঞতা প্রকাশ করছি সুষ্ঠু ও শান্তিপূর্ণ নির্বাচন অনুষ্ঠানে সীমাহীন পরিশ্রমকারী নির্বাচন প্রশাসন এবং পুলিশসহ আইনশৃঙ্খলা রক্ষাকারী বাহিনীর বিভিন্ন ইউনিটের সদস্যদের প্রতি। তিনি আরো বলেন, এখন মানুষের প্রত্যাশা অনুযায়ী কাজ করতে পারাই হবে আমার  মূল লক্ষ্য। আমি এ জন্য সকলের দোয়া ও সহযোগিতা কামনা করছি। নির্বাচিত মহিলা ভাইস চেয়ারম্যান নিশাত অনেক পরিচয়ে পরিচিত। রাজনীতিক ছাড়াও একজন আইনজীবী, সাংবাদিক এবং সামাজিক-সাংস্কৃতিক কর্মী হিসেবে পরিচিতি রয়েছে তার। প্রতিবন্ধীদের সেবায় দীর্ঘ সময় নিজেকে নিয়োজিত রেখেছেন এই নারী নেত্রী। সুইড পরিচালিত আসমাতুন্নেছা বুদ্ধি প্রতিবন্ধী স্কুলের প্রতিষ্ঠাকাল থেকে ১৫ বছর প্রধান শিক্ষক হিসেবে দায়িত্ব পালন করেন তিনি। এরপর যুক্ত হন আইন পেশায়। ২০১২ সালের এপ্রিলে ব্রাহ্মণবাড়িয়া জেলা জজ আদালতের এপিপি (সহকারী পাবলিক প্রসিকিউটর) নিযুক্ত হন তিনি। ১৯৮৯ সালে বাংলাদেশ ছাত্রলীগে যোগদানের মাধ্যমে তিনি ছাত্র রাজনীতিতে সম্পৃক্ত হন এবং ওই সময় ব্রাহ্মণবাড়িয়া সরকারি কলেজ শাখা ছাত্রলীগের মহিলা সম্পাদিকা নির্বাচিত হন। পরবর্তীতে জেলা ছাত্রলীগের মহিলা সম্পাদিকা নির্বাচিত হয়ে ১৯৯৮ সাল পর্যন্ত দায়িত্ব পালন করেন। এরপর ব্রাহ্মণবাড়িয়া জেলা মহিলা আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদিকা নির্বাচিত হন। তিনি দীর্ঘ এই সময়ে নানা আন্দোলন-সংগ্রামে অগ্রণী ভূমিকা পালন করেন। একারণে একাধিক মামলাও হয় তার বিরুদ্ধে। এডভোকেট  নিশাত বিভিন্ন সামাজিক সাংস্কৃতিক সংগঠনের সঙ্গেও জড়িত। তিনি সুইড-বাংলাদেশ, ব্রাহ্মণবাড়িয়া জেলা শাখার সাধারণ সম্পাদক। ব্রাহ্মণবাড়িয়া ডায়াবেটিক হাসপাতাল পরিচালনা কমিটির একজন সদস্য, বাংলাদেশ রেডক্রিসেন্ট সোসাইটির আজীবন সদস্য, জেলা স্বাস্থ্য কমিটির সদস্য, কেন্দ্রীয় খেলাঘর আসরের জাতীয় পরিষদ সদস্য, কন্যা শিশু এডভোকেসী ফোরাম, ব্রাহ্মণবাড়িয়া জেলা শাখার সদস্য সচিব, তিতাস সাহিত্য-সংস্কৃতি পরিষদের উপদেষ্টা এবং বিকশিত নারী নেটওয়ার্ক, ব্রাহ্মণবাড়িয়ার সভানেত্রী। ‘দি হাঙ্গার প্রজেক্টের’ প্রতিনিধি হয়ে দরিদ্র নারী সমাজের কল্যাণে ব্রাহ্মণবাড়িয়া সহ দেশের বিভিন্নস্থানে কাজ করেছেন তিনি। ক্রীড়াঙ্গনেও তার নাম সমুজ্জ্বল। ব্রাহ্মণবাড়িয়ার মহিলাদের ক্রীড়া উন্নয়নে বিশেষ ভূমিকা রয়েছে তার। তিনি জেলা মহিলা ক্রীড়া সংস্থার সাংগঠনিক সম্পাদিকা হিসেবে ১৯৯৮ সাল থেকে ২০০২ সাল পর্যন্ত দায়িত্ব পালন করেন। এসময় ক্রীড়া দলের টিম লিডার হিসেবে বিভাগীয় এবং জাতীয় পর্যায়ে ব্রাহ্মণবাড়িয়া দলের ব্যাপক সফলতা বয়ে আনতে সক্ষম হন। সাংবাদিকতার জগতেও আছে তার বিচরণ। ২০০৭ সালে তিনি নারী সাংবাদিকতায় ‘সালমা সোবহান ফেলোশিপ’ (ইলেক্ট্রনিক মিডিয়া) অর্জন করেন। তিনি ব্রাহ্মণবাড়িয়া থেকে প্রকাশিত জনপ্রিয় সাপ্তাহিক ‘গতিপথ’-এর নির্বাহী সম্পাদক। দি হাঙ্গার প্রজেক্ট বাংলাদেশ-এর স্বেচ্ছাসেবক হিসেবে ২০০৩ সালে ভারত এবং ২০০৫ সালে অস্ট্রেলিয়ার মেলবোর্ন, ব্রিসবেন, পার্থ, সিডনি ও সিঙ্গাপুর সফর করেন এডভোকেট নিশাত।

এ জাতীয় আরও খবর

জাকিরের বিরচিত লড়াইয়ে ‘এ’ দলের ড্র

ঢাবিতে গণধোলাইয়ে আহত শিক্ষক হাসপাতালে

বিএনপি-নাগরিক ঐক্যের ৩১ জন গ্রেপ্তার

‘বাস বন্ধ হলে ধার-দেনা করে সংসার চালাতে হয়’

প্রধানমন্ত্রীর জনসভায় আওয়ামী লীগ সরকারি সুবিধা নিচ্ছে না : স্বপন

ভারত সিরিজে ওয়ানডে অধিনায়ক লিটন

বাঞ্ছারামপুরে বিকল্প রাস্তা না রেখেই ব্রীজ নির্মান : ভোগান্তিতে কয়েক গ্রামের মানুষ

শাহবাগ থেকে নীলক্ষেতে নারীকে টেনে নিয়ে গেল গাড়ি

হরিপুর সীমান্তে হয়নি দু’বাংলার মিলন মেলা, অশ্রুজলে ফিরলেন স্বজনরা

১০ ডিসেম্বরের সমাবেশে ভীতি সঞ্চার করতেই পুলিশের বিশেষ অভিযান

প্রবাসী রেমিট্যান্সে ভারতের বিশ্বরেকর্ড

রাজশাহীতে দ্বিতীয় দিনের মতো চলছে পরিবহন ধর্মঘট, দুর্ভোগে যাত্রীরা